সর্বশেষ সংবাদ ট্রাকের ধাক্কায় অ্যাম্বুলেন্সের ৬ যাত্রী নিহত নাচোলের বীরমুক্তিযোদ্ধা ছাহেন মোল্লাকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন চাঁপাইনবাবগঞ্জে মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃৃতিক কেন্দ্রের উদ্বোধন চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনে উপ-নির্বাচনঃপ্রচার-প্রচারনা শুরু প্রার্থীদের চাঁপাইনবাবগঞ্জে ১০ দফা দাবিতে বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশ চাঁপাইনবাবগঞ্জের দুটি সংসদীয় আসনে উপ-নির্বাচনে প্রতীক বরাদ্দ গাইবান্ধায় বাস-ট্রাক-মোটরসাইকেলের সংঘর্ষ, নিহত ৩ আফগানিস্তানে সাবেক নারী এমপিকে গুলি করে হত্যা নাচোলে পানের দোকান চালাচ্ছে ছাত্রী রাফিয়া সংসদ উপনির্বাচনঃ৷ একজনের মনোনয়ন প্রত্যাহার

নাচোলে পানের দোকান চালাচ্ছে ছাত্রী রাফিয়া

নাচোল প্রতিনিধি
চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোলে জীবনযুদ্ধে অসুস্থ্য পিতার পানের দোকানে সহযোগিতা করছে ৮ম শ্রেণীর ছাত্রী রাফিয়া সুলতানা (১১)। পিতা রফিকুল ইসলাম (৫৮) চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার উজিরপুর ইউনিয়নের মোল্লাটোলা গ্রামের শহিমুদ্দীনের ২য় সন্তান। রফিকুল ইসলাম সর্বনাশা পদ্মার ভাঙনে নিঃস্ব হয়ে নাচোলের মুরাদপুরে ভাড়া যায়গায় বসবাস করতে থাকেন।
রফিকুল ইসলাম পিতার সংসারের ভার কাঁধে নিয়ে নাচোল বাসস্ট্যান্ডে ৬ ভাইকে (ইসলামীয়া হোটেল) হোটেল ব্যবসায় নিয়োজিত করেন। নিজে পান দোকান দিয়ে ৪ মেয়েকে নিয়ে সংসার চালাতে হিমশিম খাচ্ছিলেন। এরই মধ্যে স্ট্রোকে অক্রান্ত হন রফিকুল ইসলাম। মেয়েদের সহযোগিতায় কিছুটা সুস্থ্য হন রফিকুল ইসলাম। বাধ্য হয়ে স্কুলের লেখাপড়া শেষে অসুস্থ্য পিতাকে সহযোগিতা করতে নাচোল বাসস্ট্যান্ডে ইসলামী হোটেলের সামনে পান দোকানে দু’বেলা বসতে হচ্ছে ছোট মেয়ে রাফিয়া সুলতানাকে। রফিকুল ইসলামের চার মেয়ের মধ্যে বড় মেয়ে রাফিজা সুলতানা বিবাহিত। তবুও সে মেধা ও অদম্য মনোবল নিয়ে স্বামী ও পিতার আশ^াসে গোপালগঞ্জে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে বায়ো টেকনোলজি এন্ড জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ালেখা করছে। মেজো মেয়ে ফাওজিয়া খাতুন চাঁপাইনবাবগঞ্জ সরকারী কলেজে বিএসসি পড়ছে। সেজো মেয়ে রিজিয়া সুলতানা এ বছর নাচোল খুরশেদ মোল্লা সরকারী উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাস করে নাচোল মহিলা কলেজে এইচএসসিতে ভর্তি হয়েছে। ছোট মেয়ে রাফিয়া সুলতানা এবছর নাচোল খুরশেদমোল্লা সরকারী উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ে ৮ম শ্রেণীতে পড়ালেখা করছে। মেয়েদের লেখাপড়া ও সংসার খরচ চালাতে হিমশিম খেয়ে অসুস্থ্য হয়ে পড়েছেন রফিকুল ইসলাম। তাই বাধ্য হয়ে লেখা-পড়ার পাশাপাশি অসুস্থ্য পিতাকে পানদোকানে নিয়মিত সহযোগিতা করে অসছে ছাত্রী রাফিয়া। জীবন সংগ্রামী কিশোরী রাফিয়া সুলতানা পিতাকে ছেলের অভাব বুঝতে দিতে চায়না। তাই পান দোকানে সহযোগিতা ও মনোবল জুগিয়ে সেও ভাল ফলাফল করে ভাল মানুষ হতে চায়। সরকারী সহযোগিতা পেলে বড় বোনদের মত সেও উচ্চ শিক্ষিত হতে চায়। অসুস্থ্য পিতাকে সহযোগিতা করতে জীবন সংগ্রামে নেমেছে কিশোরী রাফিয়া সুলতানা। অসুস্থ রফিকুল ইসলাম জানান, সম্প্রতি হঠাৎ স্ট্রোকে আক্রান্ত হলে ছোট মেয়ে রাফিয়া আমাকে ছেলের মত করে পানের দোকানে সহযোগিতা করছে। পান দোকানের আয় দিয়েই এখন আমার সংসার ও চিকিৎসা চলছে।

সংসদ উপনির্বাচনঃ৷ একজনের মনোনয়ন প্রত্যাহার

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি \ চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ ও ৩ সংসদীয় আসনের উপ-নির্বাচনের মনোয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন সদর-৩ আসন হতে একজন মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেছেন। চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনে কেউ মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেননি। এনিয়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনে ৫ জন এবং চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনে ৩ জন প্রার্থী প্রতিদ্ব›িদ্বতা করবেন। মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষদিন রবিবার চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী তাহারিমা মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনের উপ-নির্বাচনে রিটার্ণিং কর্মকর্তা জেলা প্রশাসক একেএম গালিভ খাঁন। এ আসনে প্রতিদ্ব›িদ্ব তিনজন হলেন, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও সাবেক এমপি মোঃ আব্দুল ওদুদ, বাংলাদেশ ন্যাশনালিষ্ট ফ্রন্ট (বিএনএফ)’র মনোনিত প্রার্থী কামরুজ্জামান খাঁন ও স্বতন্ত্র প্রার্থী সামিউল হক লিটন। এর আগে মনোনয়ন যাচাই শেষে জেলা জাসদের সাধারন সম্পাদক মনিরুজ্জামান মনিরের মনোনয়ন বাতিল করে নির্বাচন কমিশন। পরে তিনি আপিল করলে তা খারিজ করে দেন নির্বাচন কমিশন। এ আসনের অপর মনোনয়নপত্র দাখিলকারী জাতীয় পার্টি মনোনীত মোস্তাফিজুর রহমান মুকুলেরও মনোনয়ন বাতিল হলেও তিনি আপিল করেননি। শেষ মেষ চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনে তিনজন প্রার্থী প্রতিদ্ব›িদ্বতা করবেন। অপরদিকে, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনে কোন প্রার্থী মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার না করায় ৫ জন প্রার্থী প্রতিদ্ব›িদ্বতা করবেন। এ আসনে মোট ৬ প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করে। পরে যাচাই এ স্বতন্ত্র প্রার্থী মোহম্মদ আলী সরকারের মনোনয়ন বাতিল করে নির্বাচন কমিশন। পরে তিনি আপিল করলেও তা খারিজ হয়ে যায়। এ আসনে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী জেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মু. জিয়াউর রহমান, জাতীয় পার্টি মনোনিত মোহম্মদ আব্দুর রাজ্জাক, বাংলাদেশ ন্যাশনালিষ্ট ফ্রন্ট মনোনিত মোঃ নবীউল ইসলাম, জাকের পার্টি মনোনিত মোঃ গোলাম মোস্তফা এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী মু. খুরশিদ আলম বাচ্চু। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনের রিটার্ণিং কর্মকর্তা দেলোয়ার হোসেন। সোমবার (১৬ জানুয়ারি) বেলা ১১টায় স্বতন্ত্র প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হবে এবং ১ ফেব্রæয়ারি উপ-নির্বাচনের ভোট গ্রহন।

প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের জীবনমান উন্নয়নে কাজ করছে আওয়ামীলীগের সরকার, ডাঃ গোলাম রাব্বানী

 

মুসা মিয়া , চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে-
চাঁপাইনবাবগঞ্জে জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি ডাঃ মোঃ গোলাম রাব্বানী বলেছেন বর্তমান সরকার প্রতিবন্ধীবান্ধব সরকার। বর্তমান সরকার দেশের প্রতিবন্ধী ব্যক্তির অধিকার ও সুরক্ষা নিশ্চিতকল্পে বহুমাত্রিক এবং নিবিড় কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে।
প্রতিবন্ধী জনগোষ্ঠীকে অর্থনৈতিক উন্নয়নে সমাজের মূল স্রোতধারায় সম্পৃক্ত করার জন্য কাজ করছে।

রবিবার (১৫ জানুয়ারি) সকাল ১১টায় প্রতিবন্ধী ব্যাক্তিদের সংগঠন ডিজএ্যাবল্ড পিপলস অগানাইজেশন টু ডেভেলপমেন্ট (ডিপিওডি)’র ১৫ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে অত্র প্রতিষ্ঠানের হলরুমে আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। ডাঃ গোলাম রাব্বানী বলেন প্রতিবন্ধী ব্যক্তিরা যেখানে আছে আমি সেখানে আছি । প্রতিবন্ধী জনগোষ্ঠীর উন্নয়নে আমি ও আমার সরকার সর্বক্ষণ পাশে আছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার জন্য নৌকা মার্কায় সকলকে ভোট দেওয়ার আহব্বান জানান এবং এবং সংগঠনে উন্নয়নের জন্য দশ হাজার টাকা প্রদান করেন।
এসময় চাঁপাইনবাবগঞ্জ ডিপিওডির সভাপতি শফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চাঁপাইনবাবগঞ্জে জেলা আওয়ামী লীগের শিল্প বানিজ্যি বিষয়ক সম্পাদক মোঃ শামসুদ্দিন বাবলু,, ডিপিওডির সাধারণ সম্পাদক মোঃ মুনিরুল ইসলাম, সুইড বাংলাদেশ বুদ্ধি প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা মোসাঃ আম্বিয়া খাতুন মিলি, মুসা মিয়া সহ সংগঠনে বিভিন্ন নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

দেশে একজনও ঠিকানাবিহীন থাকবে না: প্রধানমন্ত্রী

ঢাকা: গৃহহীন-ভূমিহীনদের ঘর ও জমি দেওয়ার মাধ্যমে বহু মানুষের জীবন বদলে দেওয়ার কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশে একজন মানুষও ভূমিহীন থাকবে না, ঠিকানাবিহীন থাকবে না। এটিই আমাদের লক্ষ্য। রোববার (১৫ জানুয়ারি) প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশনস অব ব্যাংকসের প্রতিনিধিদলের সঙ্গে সাক্ষাতে তিনি এ কথা বলেন।

সৌজন্য সাক্ষাতে এসে ভূমিহীন-গৃহহীনদের ঘর নির্মাণের জন্য আশ্রয়ণ প্রকল্পে ৩৬টি ব্যাংক অনুদান হিসেবে ১১৩ কোটি ২৫ লাখ টাকা দেয়।

সৌজন্য সাক্ষাৎ শেষে প্রধানমন্ত্রীর উপ-প্রেস সচিব কে এম শাখাওয়াত মুন সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।

কেএম শাখাওয়াত মুন জানান, বিভিন্ন সময় অনুদান দেওয়ার জন্য ব্যাংকারদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনকে ধন্যবাদ জানাই। যেকোনো দুযোর্গ-দুর্বিপাকে আমার বলতেও হয় না আপনারা স্বতঃস্ফূর্তভাবে সবাই চলে আসেন এবং সহযোগিতা করেন।

তিনি বলেন, আপনাদের প্রদত্ত অনুদান যথাযথভাবে মানুষের কাজে লাগে। অনেক মানুষের কাজে লাগে, আপনারা হয়তো চিন্তাও করতে পারবেন না, কত মানুষকে আমরা কতভাবে সাহায্য করি চিকিৎসা, ঘর-বাড়ি সব বিষয়ে।

আশ্রয়ণের ঘর পাওয়া মানুষের জীবন বদলে যাওয়ার কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আশ্রয়ণের ঘর পাওয়া মানুষের হাসি, তাদের তৃপ্তি, এর চেয়ে বড় পাওয়া আর কিছু হতে পারে না।

তিনি বলেন, ঘরের সঙ্গে তাদের কিছু জমিও দেওয়া হচ্ছে। জীবন-জীবিকার জন্য আমরা নগদ টাকা দিচ্ছি। পাশাপাশি ট্রেনিং করিয়ে দিচ্ছি। ফলে আশ্রয়ণ প্রকল্পে তারা শুধু একটি ঘরই পাচ্ছে না, কর্মসংস্থানের ব্যবস্থাও হয়ে যাচ্ছে। প্রায় সাড়ে সাত লাখ পরিবার, আমরা যদি ৫ জন করেও ধরি। তাতেও দেখা যাচ্ছে প্রায় ৩৫ লাখেরও বেশি মানুষের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা হচ্ছে।

শেখ হাসিনা বলেন, খুবই দুস্থ, যাদের কোনো ঠিকানা ছিল না, থাকার জায়গা ছিল না। কারো বারান্দায়, গোয়ালঘরে, ফুটপাতে বা রাস্তাঘাটে পড়ে থাকত, একটি ঘর পাওয়ার পর আসলে তাদের জীবনটাই পাল্টে গেছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, অনেকে সেখানে শাক-সবজি চাষ করছে, হাস-মুরগি পালন করছে। কুটির শিল্প করছে অনেকে। অনেকে সেখানে দোকানও দিয়েছে। তারা নিজেরাই নিজেদের মধ্যে বিনিময় করছে, কেনাবেচা করছে। তারা জীবন জীবিকার একটা পথ খুঁজে পাচ্ছে। মানুষের জীবনটা পরিবর্তন হয়ে যাচ্ছে।

দেশের অধিকাংশ গৃহহীন-ভূমিহীন মানুষকে ইতোমধ্যে ঘর দেওয়া হয়ে গেছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, অল্প কিছু বাকি আছে। সেগুলোও তৈরি হয়ে যাচ্ছে।

আশ্রয়ণের প্রথম পর্বে ব্যারাক হাউজগুলোকেও আরও উন্নত করে দেওয়া কিংবা তাদের নতুন ডিজাইনের ঘর নির্মাণ করে দেওয়ার পরিকল্পনার কথা জানান তিনি।

ভূমিহীন-গৃহহীনদের জন্য গৃহনির্মাণে বিত্তবানদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে সরকারপ্রধান বলেন, শুধু সরকার না, সবাই মিলে দেশকে উন্নয়নের পথে আমরা এগিয়ে নিয়ে যাব।

বঙ্গবন্ধুকে অনুসরণ করে আশ্রয়ণ প্রকল্প নেওয়া হয়েছে জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, স্বাধীনতার পর পর জাতির পিতা উদ্যোগ নিয়েছিলেন। এদেশে যারা ভূমিহীন আছে, তাদের তিনি ঘর দেবেন, জমি দেবেন এবং পুনর্বাসন করবেন। এ কাজটা শুরু করেছিলেন নোয়াখালীর চরে।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুকে অনুসরণ করে প্রথমে আমরা ব্যারাক হাউজ নির্মাণ করে দিয়েছি। পরে আমরা আশ্রয়ণ প্রকল্প বলে একটা প্রকল্প নিলাম। সেনাবাহিনীর হাতে দায়িত্ব দিলাম। তারা এই ঘরগুলো করে দেবে, ব্যারাক হাউজ। এভাবে আমরা প্রায় দেড় লাখ পরিবারকে পুনর্বাসন করে দিলাম। পরে ২০০১ থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত আমরা সরকারে ছিলাম না। ২০০৯ সালে সরকার গঠন করার পর আমরা আশ্রয়ণ প্রকল্প ২ শুরু করলাম। আমরা দুই কাঠা জমি এবং একটি ঘর তৈরি করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিই।

সরকারপ্রধান জানান, সংশ্লিষ্ট যারা আশ্রয়ণ প্রকল্প ঘর নির্মাণে কাজ করছেন, তারা অত্যন্ত আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করছেন। তাদের অনুভূতি, তারা একটা মহৎ কাজ করছেন।

সব বাধা অতিক্রম করে সরকার দেশকে এগিয়ে নিচ্ছে জানিয়ে টানা তিনবারের প্রধানমন্ত্রী বলেন, পরিকল্পিতভাবে এগোতে পারলে যেকোনো দেশ উন্নতি করবে। আমাদের বাধা তো আছে, বাধা তো থাকবে। আমাদের তো একে হচ্ছে প্রাকৃতিক দুর্যোগ, তারপর হচ্ছে মনুষ্যসৃষ্ট দুর্যোগ, আন্তর্জাতিকভাবে বারবার কিছু বাধা আসে।

তিনি বলেন, করোনা, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ সব কিছু মিলিয়ে অর্থনীতির ওপর একটু প্রভাব পড়েছে। অন্য দেশের মতো আমরা বিপর্যস্ত না। আমরা কাটিয়ে উঠছি, কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা করছি।

দেশকে এগিয়ে নিতে সবাইকে একযোগে কাজ করার আহ্বান জানান সরকারপ্রধান।

বেসরকারি খাতে ব্যাংক দেওয়ার সুফলের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, প্রাইভেট ব্যাংকগুলো হওয়ায় তিন লাখ গ্র্যাজুয়েটের চাকরি হয়েছে। এটি একটি বড় বিষয়।

বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশনস অব ব্যাংকসের চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম মজুমদারের নেতৃত্বে বিভিন্ন ব্যাংকের চেয়ারম্যান ও পরিচালকরা আর্থিক অনুদানের চেক হস্তান্তর করেন।

নেপালে উড়োজাহাজ বিধ্বস্ত, নিহত বেড়ে ৪০

নেপালের পোখারায় উড়োজাহাজ বিধ্বস্ত হয়ে অন্তত ৪০ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। রোববার (১৫ জানুয়ারি) সকালে এই দুর্ঘটনা ঘটে। নেপালের বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ এই খবর দিয়েছে।

রয়টার্স জানিয়েছে, শত শত উদ্ধারকর্মী পাহাড়ি এলাকায় উদ্ধারের কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন, যেখানে ইয়েতি এয়ারলাইন্সের অভ্যন্তরীণ যাত্রীবাহী উড়োজাহাজটি বিধ্বস্ত হয়েছে।

নেপালের বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ জগন্নাথ নিরুলা রয়টার্সকে বলেন, উদ্ধার কার্যক্রম চলছে। তিনি জানান, আবহাওয়া পরিষ্কার ছিল।

স্থানীয় একটি টিভি চ্যানেলে দেখানো হয়েছে, ঘটনাস্থল থেকে কালো ধোঁয়া উড়ছে। উদ্ধারকর্মীরা কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। আশপাশে জনতা ভিড় করেছেন। তারা উড়োজাহাজটির ভাঙা অংশ সংগ্রহ করছেন।

বিধ্বস্ত হওয়া উড়োজাহাজটিতে পাঁচজন ভারতীয়, চারজন রাশিয়ান, একজন আইরিশ, দুইজন দক্ষিণ কোরিয়ান, একজন অস্ট্রেলিয়ান, একজন ফ্রেঞ্চ এবং একজন আর্জেন্টিনিয়ান নাগরিক ছিলেন বলে জানিয়েছে নেপাল এয়ারপোর্ট কর্তৃপক্ষ।

টুইন ইঞ্জিনের এটিআর ৭২ মডেলের উড়োজাহাজটি ইয়েতি এয়ারলাইন্সের। এই এয়ারলাইন্সের মুখপাত্র সুদর্শন বার্তাউলা বলেন, ৭২ আরোহীর মধ্যে চারজন ক্রু সদস্য ছিলেন।

বিধ্বস্ত হওয়া উড়োজাহাজটি ১৫ বছরের পুরোনো। ফ্লাইট ট্র্যাকিং ওয়েবসাইট ফ্লাইট র‍্যাডার২৪ এই তথ্য জানিয়েছে। এটিআর ৭২ টুইন ইঞ্জিন টারবোপ্রপ উড়োজাহাজটি এয়ারবাস ও ইতালির লিওনার্দোর যৌথ উদ্যোগে নির্মিত।

নেপালের প্রধানমন্ত্রী পুষ্প কমল দাহাল জরুরিভাবে মন্ত্রিসভার বৈঠক ডেকেছেন বলে দেশটির এক সরকারি বিবৃতিতে জানানো হয়েছে।

দোকান পোড়ার সাথে সাথে পড়ে গেছে তারেকের স্বপ্ন

 

স্টাফ রিপোর্টার, শিবগঞ্জ ঃ
চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার শাহবাজপুর ইউনিয়নের হাজারবীঘি বাজারে তারেক স্টোর নামের একটি মুদি দোকান পুড়ে ছাই হয়েছে।
শনিবার(১৪ জানুয়ারী) রাতে এ অগ্নিকান্ডের সুত্রপাত ঘটে।
১১ মাস পূর্বে দোকান ভাড়া নিয়ে ১৩ রশিয়া গ্রামের মৃত তাজিরুল ইসলাম ব্যবসা চালু করেন।পরে বাবার মৃত্যুর পর ছেলে তারেক রহমান ব্যবসাটি ও পরিবারের হাল ধরে, দোকানের আয় থেকে সুন্দরভাবেই চলছিল পরিবার কিন্তু গত রাত্রে দোকান পুড়ে যাওয়ার ঘটনায় হতাশার ছাপ তারেক রহমানের চোখে মুখে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, শনিবার গবীর রাতে মুদি দোকানে আগুন দেখতে পেয়ে স্থানীয়রা ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেয়।তবে ফায়ার সার্ভিস ঘটনা স্থলে আসার পূর্বেই আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে স্থানীয়রা।
তারেক স্টোরের স্বত্বাধিকারী তারেক রহমান বলেন, আমার দোকানের তিন লক্ষ টাকার মাল ছিল সব পুড়ে ছাই হয়ে গেছে আমি কি খেয়ে বাঁচবো, দিশেহারা হয়ে পড়েছি। তিনি সরকারের সহযোগিতা কামনা করেন।
ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা প্রাথমিকভাবে বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট থেকে আগুন লাগতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে, তবে কাৎক্ষনিকভাবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ জানায়নি তারা।