সর্বশেষ সংবাদ ট্রাকের ধাক্কায় অ্যাম্বুলেন্সের ৬ যাত্রী নিহত নাচোলের বীরমুক্তিযোদ্ধা ছাহেন মোল্লাকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন চাঁপাইনবাবগঞ্জে মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃৃতিক কেন্দ্রের উদ্বোধন চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনে উপ-নির্বাচনঃপ্রচার-প্রচারনা শুরু প্রার্থীদের চাঁপাইনবাবগঞ্জে ১০ দফা দাবিতে বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশ চাঁপাইনবাবগঞ্জের দুটি সংসদীয় আসনে উপ-নির্বাচনে প্রতীক বরাদ্দ গাইবান্ধায় বাস-ট্রাক-মোটরসাইকেলের সংঘর্ষ, নিহত ৩ আফগানিস্তানে সাবেক নারী এমপিকে গুলি করে হত্যা নাচোলে পানের দোকান চালাচ্ছে ছাত্রী রাফিয়া সংসদ উপনির্বাচনঃ৷ একজনের মনোনয়ন প্রত্যাহার

চাঁপাইনবাবগঞ্জে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ ও অভিভাবক সমাবেশ

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি

চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার উপর রাজারামপুর কিন্ডারগার্টেন বিদ্যালয়ে রবিবার সকাল ১০ টায় এই পুরস্কার বিতরণ ও অভিভাবক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে ।

বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ ও অভিভাবক সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে প্রতিযোগিদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ ও সংক্ষিপ্ত বক্তব্য দেন , জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি ডা. গোলাম রাব্বানী।

বিদ্যালয়টির পরিচালনা কমিটির সভাপতি মো. আসরাফুল হোসেন (রুনু মিয়া)”র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন , জেলা ওয়েল ফেয়ার ক্লাবের সভানেত্রী সেলিনা বিশ্বাস, বিদ্যালয়টির ম্যানেজিং কমিটির সদস্য মো. মফিজুল ইসলাম, আলহাজ্ব রফিকুল ইসলাম।
এছাড়া অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন বিদ্যালয়টির ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো. নজরুল ইসলাম এবং অভিবাবক মাকসুদা খাতুন।

সমাবেশ শেষে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়া ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে পুরস্কার তুলে দেন প্রধান অতিথিসহ আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ।

শিবগঞ্জে কৃষি অফিসের উদ্যোগে ৭৩জন পেলো সার সুপারিশ কার্ড

 

স্টাফ রিপোর্টার, শিবগঞ্জ ঃ
চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে কৃষি অফিসের উদ্যোগে ৭৩জন কৃষক পেলো সার সুপারিশ কার্ড। রবিবার সকালে উপজেলার কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের আয়োজনে কৃষি অফিসে বাংলাদেশ মৃতিক্তা সম্পদ উন্নয়ন ইন্সিটিটিউট এর সহযোগিতায় উপজেলার কৃষকদের মাটি পরীক্ষা মাধ্যমে সঠিক মাত্রা রাসায়নিক সার প্রয়োগের ক্ষেত্রে সার প্রয়োগ নির্দেশিকা সম্বলিত সার সুপারিশ কার্ড দেয়া হয়।
এসময় উপস্থিত ছিলেন, এসআরডিআই চাঁপাইনবাবগঞ্জ আঞ্চলিক কার্যালয়ের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মোঃ নুরুল ইসলাম, এসআরডিআই রাজশাহী বিভাগীয় গবেষণাগার বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মোঃ নাজিম উদ্দিন, শিবগঞ্জ উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা কৃষিবিদ মোঃ শরিফুল ইসলামসহ উপজেলা কৃষি অফিসের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাগণ।
সার সুপারিশ কার্ড বিতরণকালে কৃষকদের উদ্দেশ্যে জানানো হয়, কৃষিখাতে উৎপাদনের ক্ষেত্রে সার কম ব্যবহার বা সঠিক পরিমাণ সার প্রয়োগে চাষাবাদে উন্নতমানের চাষ ও ফলন বৃদ্ধির জন্য মাটি পরীক্ষার বিকল্প নাই। তাই ভ্রাম্যমান গাড়ীর মাধ্যমে কৃষকদের চাষাবাদকৃত জমির মাটি পরীক্ষা করা আবশ্যক। মাটি পরীক্ষা করা হলে সার কম ব্যবহার হবে। সার কম ব্যবহার হলে খচরও কমবে।
উল্লেখ্য, ইতিমধ্যে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের কৃষকদের নিয়ে পরীক্ষা ও সঠিক পরিমাণ সার প্রয়োগ বিষয়ক কর্মশালা হয়েছে। এরই প্রেক্ষিতে ৭৩জন কৃষককে সার সুপারিশ কার্ড দেয়া হয়।

জাতির পিতার সমাধিতে শিমুল এমপি ও বঙ্গবন্ধু পরিষদ সহ ২টি সংগঠনের শ্রদ্ধা নিবেদন

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি ঃ
গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ ১ আসনের সংসদ সদস্য ও নৌ পরিবহন সংক্রান্ত স্থায়ী কমিটির সদস্য ডা. সামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুল।এ সময় বঙ্গবন্ধু পরিষদ ও প্রবীণ হিতৈষী সংস্থা, শিবগঞ্জ উপজেলা শাখার নেতৃবৃন্দও শ্রদ্ধা নিবেদন করে।

রোববার(২৭ নভেম্বর) সকালে টুঙ্গিপাড়া পৌঁছে শিবগঞ্জ উপজেলা বঙ্গবন্ধু পরিষদের পক্ষ থেকে জাতির পিতার সমাধি সৌধের বেদীতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান সাংসদ শিমুল। পরে তিনি পবিত্র ফাতেহা পাঠ করে বঙ্গবন্ধু সহ ৭৫ এর ১৫ আগস্ট এর শহীদদের রুহের মাগফেরাত কামনায় দোয়া মোনাজাতে অংশ নেন। এ সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাফল্য সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনায় প্রার্থনা করা হয়। এরপর শিবগঞ্জ প্রবীণ হিতৈষী সংঘের সদস্যদের সাথে নিয়ে সংসদ সদস্য ডা, সালিম উদ্দিন আহমেদ শিমুল বঙ্গবন্ধুর সমাধি সৌধে পুষ্প স্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।
পরে তিনি বঙ্গবন্ধু সমাধিসৌধের বিশ্রামাগারে রক্ষিত পরিদর্শন বইতে মন্তব্য লিখে স্বাক্ষর করেন।
এ সময় শিবগঞ্জ উপজেলা বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি আলহাজ্ব মোহাম্মদ আকবর হোসেন, সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান মজনু, প্রবীণ হিতৈষী সংঘ শিবগঞ্জ উপজেলা শাখার সভাপতি মোঃ আকবর হোসেন, সাধারণ সম্পাদক মোঃ আকবর আলী, শিবগঞ্জ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সাবেক ডেপুটি কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মান্নান,শিবগঞ্জ উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শিউলি বেগম,শিবগঞ্জ পৌর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক গোলাম কিবরিয়া সহ বঙ্গবন্ধু পরিষদের সকল সদস্য এবং প্রবীণ হিতৈষী সংঘের সকল সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

সারাদেশে আজ থেকে লঞ্চ ধর্মঘট ও ১ ডিসেম্বর থেকে রাজশাহীতে পরিবহন ধর্মঘট

নিজস্ব প্রতিবেদক

ন্যূনতম মজুরি ২০ হাজার টাকা ও নিয়োগপত্র, পরিচয়পত্র, সার্ভিস বুক প্রদানসহ ১০ দফা দাবিতে কর্মবিরতি পালন করছেন নৌ শ্রমিকরা। এতে বিপাকে পড়েছেন যাত্রীরা। ধর্মঘটের কারণে রোববার (২৭ নভেম্বর) সকাল থেকে চাদপুর, ভেলা ও বরিশালসহ দেশের বিভিন্ন ঘাট থেকে কোনো লঞ্চ ছেড়ে যায়নি।

ভোলার সঙ্গে অন্যান্য জেলার যোগাযোগের সবচেয়ে সহজ মাধ্যম নৌ-পথ। কিন্তু ধর্মঘটে লঞ্চ বন্ধ থাকায় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে যাত্রীদের। ভোলা-বরিশাল ও ভোলা-ঢাকা রুটসহ অভ্যন্তরীণ রুটেও লঞ্চ চলাচল বন্ধ রেখেছে জেলার নৌ-যান শ্রমিক সংগ্রাম পরিষদ।

নৌ-যান শ্রমিক সংগ্রাম পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির উপদেষ্টা শেখ আবুল হাসেম বলেন, ১০ দফা দাবি আদায়ের লক্ষ্যে ধর্মঘটের ডাক দেয়া হয়েছে। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত এ ধর্মঘট চলবে।

শ্রমিকদের ১০ দফা দাবি

শ্রমিকদের ১০ দফা দাবি হলো-নৌযান শ্রমিকদের নিয়োগপত্র, পরিচয়পত্র ও সার্ভিস বুক প্রদানসহ শ্রমিকদের সর্বনিম্ন মজুরি ২০ হাজার টাকা নির্ধারণ, খাদ্য ভাতা ও সমুদ্র ভাতার সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে কন্ট্রিবিউটরি প্রভিডেন্ট ফান্ড ও নাবিক কল্যাণ তহবিল গঠন করা, দুর্ঘটনা ও কর্মস্থলে মৃত্যুজনিত ক্ষতিপূরণ ১০ লাখ টাকা নির্ধারণ করা।

অন্যান্য দাবির মধ্যে রয়েছে চট্টগ্রাম থেকে পাইপলাইনের মাধ্যমে জ্বালানি তেল সরবরাহে দেশের স্বার্থবিরোধী অপরিণামদর্শী প্রকল্প বাস্তবায়নে চলমান কার্যক্রম বন্ধ করা, বালুবাহী বাল্কহেড ও ড্রেজারের রাত্রিকালীন চলাচলের ওপরে ঢালাও নিষেধাজ্ঞা শিথিল, নৌপথে সন্ত্রাস, চাঁদাবাজি ও ডাকাতি বন্ধ।

এ ছাড়া ভারতগামী শ্রমিকদের ল্যান্ডিং পাস প্রদানসহ ভারতীয় সীমানায় সব ধরনের হয়রানি বন্ধ, চট্টগ্রাম বন্দর থেকে পণ্য পরিবহন নীতিমালা ১০০% কার্যকর করে সব লাইটারিং জাহাজকে সিরিয়াল মোতাবেক চলাচলে বাধ্য করা, চরপাড়া ঘাটে ইজারা বাতিল এবং নৌপরিবহন অধিদপ্তরের সব ধরনের অনিয়ম-অব্যবস্থাপনা বন্ধের দাবিও জানিয়েছেন শ্রমিকরা।
১ ডিসেম্বর থেকে রাজশাহীতে পরিবহন ধর্মঘট

নাটোর প্রতিনিধি

আগামী ৩০ নভেম্বরের মধ্যে সড়কে অবৈধ যান চলাচল বন্ধসহ ১১ দফা দাবি বাস্তবায়ন না হলে ১ ডিসেম্বর থেকে রাজশাহী বিভাগের ৮ জেলায় অনির্দিষ্টকালের জন্য পরিবহন ধর্মঘটের ঘোষণা দিয়েছে রাজশাহী বিভাগীয় সড়ক পরিবহন মালিক শ্রমিক পরিষদ।

এদিকে বিএনপির নেতা-কর্মীদের দাবি, ৩ ডিসেম্বর রাজশাহী বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশ বানচাল করতেই এই অপকৌশল নেয়া হয়েছে।

বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু বিএনপির সমাবেশ ঠেকাতেই এ ধর্মঘট ডাকা হয়েছে বলে অভিযোগ করে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তিনি অবিলম্বে জনবিরোধী এ ধর্মঘট প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন।

শনিবার নাটোরে অনুষ্ঠিত বিভাগীয় মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের যৌথসভা থেকে এই ঘোষণা দেয়া হয়েছে।

শহরের কানাইখালী এলাকায় আরপি কমিউনিটি সেন্টারে নাটোর জেলা বাস-মিনিবাস মালিক সমিতির সার্বিক ব্যবস্থাপনায় এই সভায় সভাপতিত্ব করেন রাজশাহী বিভাগীয় সড়ক পরিবহন মালিক শ্রমিক পরিষদ সভাপতি সাফকাত মঞ্জুর বিপ্লব।

সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শরিফুল ইসলাম রমজান।

অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- বগুড়া বাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম,পাবনা মোটর মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মমিনুল হক মোমিন, সিরাজগঞ্জ বাস কোচ মালিক সমিতির সভাপতি আতিকুল ইসলাম আতিক, চাপাঁই নবাবগঞ্জ মালিক সমিতির সভাপতি আমিনুল ইসলাম সেন্টু, নাটোর জেলা পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি কামরুল ইসলাম, বাস-মিনিবাস মালিক সমিতির সভাপতি লক্ষ্মণ পোদ্দার, সাধারণ সম্পাদক মজিবর রহমান প্রমুখ।

এছাড়া সভায় রাজশাহী বিভাগের আট জেলার মালিক-শ্রমিক নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

পরে বিকেলে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮ সংশোধান করাসহ হাইকোর্টের নির্দেশানুযায়ী মহাসড়ক ও আঞ্চলিক সড়কে থ্রিহুইলার, সিএনজি ও ব্যাটারি চালিত অটোরিক্সা চলাচল বন্ধ ও জ্বালানি তেলসহ যন্ত্রাংশের মূল্যহ্রাস করাসহ ১১ দফা বাস্তবায়নে সরকারের নিকট দাবি জানানো হয়।

এই দাবি ৩০ নভেম্বরের মধ্যে বাস্তবায়ন করা না হলে আগামী ১ ডিসেম্বর থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য রাজশাহী বিভাগের ৮ জেলায় পরিবরহন ধর্মঘটের ঘোষণা দেয়া হয়।

রাজশাহী বিভাগীয় সড়ক পরিবহন মালিক-শ্রমিক পরিষদ সভাপতি সাফকাত মঞ্জুর বিপ্লব যৌথসভার লিখিত সিদ্ধান্ত পাঠ করেন। এসময় আট জেলার পরিবহন নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি, নির্বাচনকালীন সরকার, জ্বালানিসহ নিত্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি, পুলিশের গুলিতে নেতাকর্মী হত্যা, হামলা ও মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে দেশের বিভাগীয় শহরগুলোতে গণসমাবেশের কর্মসূচি পালন করছে বিএনপি।

গত ২২ জুলাই থেকে শুরু হওয়া বিএনপির ইস্যুভিত্তিক এই আন্দোলন বিভাগীয় পর্যায়ের গণসমাবেশের কর্মসূচিতে রূপ নিয়েছে।

গত ২৬ সেপ্টেম্বর রাতে বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির ভার্চুয়াল সভায় সব বিভাগে গণসমাবেশের সিদ্ধান্ত হয়। ওই সভায় সভাপতিত্ব করেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান।

গত ৮ অক্টোবর চট্টগ্রামে প্রথম কর্মসূচি পালন করে। এরপর ১৫ অক্টোবর ময়মনসিংহে। ২২ অক্টোবর খুলনায়। ২৯ অক্টোবর রংপুর। ৫ নভেম্বর বরিশাল। ১২ নভেম্বর ফরিদপুর। ১৯ নভেম্বর সিলেট। এবং সর্বশেষ ২৬ নভেম্বর কুমিল্লায় গণসমাবেশ করে বিএনপি।

এরপর আগামী ৩ ডিসেম্বর রাজশাহী এবং ১০ ডিসেম্বর ঢাকায় গণসমাবেশের মধ্য দিয়ে বিএনপির তৃতীয় ধাপের কর্মসূচি শেষ হবে।

কাতারের বিশ্বকাপের শহর লুসাইলে ফুটবল ভক্তদের জন্য নির্মিত গ্রামের কাছে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

কাতারের রাজধানী দোহার উত্তরে বিশ্বকাপের শহর লুসাইলে ফুটবল ভক্তদের জন্য নির্মিত একটি গ্রামের কাছে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। এই ফ্যান ভিলেজের কাছে ধোঁয়ার বিশাল কুণ্ডলী আকাশে উড়তে দেখা গেছে।

কয়েকটি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম বলেছে, লুসাইলের কেতাইফান দ্বীপের উত্তরে ফ্যান ভিলেজের আকাশ কালো ধোঁয়ায় ঢেকে গেছে। তবে কোথায় থেকে আগুনের উৎপত্তি হয়েছে সেটি এখনও পরিষ্কার নয়।

দেশটির কর্মকর্তারা বলেছেন, লুসাইল শহরের একটি নির্মাণাধীন ভবনে আগুন ছড়িয়ে পড়েছে। শনিবার স্থানীয় সময় সকাল ১০টার দিকে কর্তৃপক্ষের এক টুইট বার্তায় ফুটবল বিশ্বকাপ দেখতে যাওয়া দর্শক ও সেখানকার বাসিন্দাদের অগ্নিকাণ্ডের এই ঘটনায় আতঙ্কিত না হওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আসা বেশ কিছু ভিডিওতে লুসাইলের ফুটবল ভিলেজের কাছের ওই আগুন কয়েক মাইল দূরে থেকেও দেখা যাচ্ছে। ছবিতে দেখা যায়, কাতারের পূর্ব উপকূলে রাজধানী দোহার উত্তরের লুসাইল শহরে ক্যানভাসের তাঁবু দিয়ে গ্রামটি তৈরি করা হয়েছে।

গত সপ্তাহে বিশ্বকাপ শুরুর অনেক আগেই কয়েক বিলিয়ন মার্কিন ডলার ব্যয় করে ফুটবল ভক্তদের জন্য কিছু স্থাপনা নির্মাণ করেছে কাতার সরকার। দেশটির কর্তৃপক্ষ বলেছে, লুসাইলের বেসামরিক প্রতিরক্ষা দপ্তর ইতোমধ্যে নির্মাণাধীন ওই ভবনের আগুন নিয়ন্ত্রণে এনেছে। তবে অগ্নিকাণ্ডের এই ঘটনায় কোনও হতাহত হয়নি।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এই ঘটনার নাটকীয় এক ভিডিওতে দেখা যায়, ফ্যান ভিলেজের কাছের একটি ভবনের ছাদ আগুনে পুড়ছে। তবে নির্মাণাধীন ভবনে কী কারণে অগ্নিকাণ্ড ঘটেছে তাৎক্ষণিকভাবে তা পরিষ্কার হওয়া যায়নি।

বিশ্বকাপ আয়োজনের প্রস্তুতি হিসেবে ১৮৫ বিলিয়ন পাউন্ড ব্যয় করে বিভিন্ন ধরনের অবকাঠামো নির্মাণ করেছে কাতার। মধ্যপ্রাচ্যের তেলসমৃদ্ধ এই দেশটির বিশ্বকাপ আয়োজনের প্রস্তুতি কাজ করতে গিয়ে প্রায় সাড়ে ৬ হাজারের বেশি অভিবাসী শ্রমিকের প্রাণহানি ঘটেছে। তাদের মধ্যে বাংলাদেশি অনেক শ্রমিকও আছেন। এ নিয়ে আন্তর্জাতিক বিভিন্ন মানবাধিকার সংস্থা কাতার সরকারের তীব্র সমালোচনা করেছে।

এই অর্থের বেশিরভাগই গেছে লুসাইলে, যেখানে একেবারে নতুন একটি স্টেডিয়ামও তৈরি করেছে দেশটির সরকার। কাতারের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর লুসাইল। আল দায়েন পৌরসভার দক্ষিণাঞ্চলে অবস্থিত এই শহরে কর্মরত আছেন ২ লাখের বেশি শ্রমিক।