সর্বশেষ সংবাদ শিবগঞ্জে বিনামূল্যে চিকিৎসাসেবা পেলেন অসহায়-দুস্থ রোগীরা সোনামসজিদে বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ ক্যাপ্টেন জাহাঙ্গীরের সমাধিতে শ্রদ্ধা চাঁপাইনবাবগঞ্জে আমার ৯৩, এর ৮ ম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী  পালিত  গোমস্তাপুরে বেগম রোকেয়া দিবস উদযাপন  চাঁপাইনবাবগঞ্জে ব্যারিষ্টার সুমন ফুটবল একাডেমির সাথে প্রীতি ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত চাঁপাইনবাবগঞ্জের ভুটভুটির ধাক্কায় নিহত ১ঃ আহত ১ চাঁপাইনবাবগঞ্জে জয়ীতাদের সংবর্ধনা চাঁপাইনবাবগঞ্জে দূর্ণীতিবিরোধী দিবস পালিত নাচোলে বেগম রোকেয়া দিবসে জয়িতাদের সংবর্ধনা উন্নত-সমৃদ্ধ দেশ গড়তে চাই: প্রধানমন্ত্রী

চাঁপাইনবাবগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় শিশু নিহত

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি ঃ
 চাঁপাইনবাবগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় শাওন নামের এক ৭ বছরের শিশু নিহত হয়েছে। শুক্রবার (৪ অক্টোবর) রাতে সদর উপজেলার মহারাজপুরের ঘোড়াস্টান্ড এলাকার ডোমাপাড়ায় ভটভট-অটোরিকশার সংঘর্ষে প্রাণ যায় ওই শিশুর।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর মডেল থানা পুলিশের ইনচার্জ (ওসি) একেএম আলমগীর জাহান বলেন; ‘ সড়কে যাতায়াতের সময় ভটভটি যান্ত্রিক ত্রুটির কবলে পড়লে নিয়ন্ত্রন হারিয়ে ফেলেন চালক। এ সময় অটোরিকশাকে পাশ থেকে আঘাত করলে ভটভটিতে থাকা যাত্রী শাওন ছিটকে পড়ে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। এই ঘটনায় অটোর এক যাত্রী আহত হয়

আদিনা কলেজে আন্তঃবিভাগ ফুটবল প্রতিযোগিতার ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত

স্টাফ রিপোর্টার, শিবগঞ্জ
চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার আদিনা ফজলুল হক সরকারি কলেজে আন্তঃবিভাগ ফুটবল প্রতিযোগিতা-২০২২ এর ফাইনাল খেলা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার বিকেল ৩টায় কলেজ মাঠে আন্তঃবিভাগ ফুটবল প্রতিযোগিতা কমিটির আহবায়ক ড. মোঃ লুৎফর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অত্র কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মোঃ গিয়াসউদ্দিন।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অত্র কলেজের উপাধ্যক্ষ প্রফেসর ড. সৈয়দ মোঃ মোজাহারুল ইসলাম (তরু) ও শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মোঃ শফিকুল ইসলাম। এসময় বিভিন্ন বিভাগের বিভাগীয় প্রধানগণ, শিক্ষকবৃন্দ, কর্মকর্তাবৃন্দ, শিক্ষার্থী ও কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
ফাইনাল ম্যাচে ইংরেজি বিভাগ বনাম ইতিহাস বিভাগের খেলা অনুষ্ঠিত হয়। ইতিহাস বিভাগ ১-০ গোলে ইংরেজি বিভাগকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়‌। ম্যান অফ দ্যা ম্যাচ ও ম্যান অফ দ্যা টুর্নামেন্ট ইতিহাস বিভাগের সালমান।

বান্দরবানের ৪ উপজেলায় ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা

বান্দরবান: বান্দরবানের রুমা, রোয়াংছড়ি, আলীকদম এবং থানচি উপজেলায় পর্যটকদের ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা আগামী ৮ নভেম্বর পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে।

শুক্রবার (৪ নভেম্বর) সকালে বান্দরবানের জেলা প্রশাসক ইয়াছমিন পারভীন তিবরীজি স্বাক্ষরিত একটি গণবিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি জানানো হয়। গত ১০ অক্টোবর থেকে বান্দরবান জেলার রুমা, রোয়াংছড়ি, থানচি এবং আলীকদম উপজেলার সীমান্তবর্তী পাহাড়ি এলাকাগুলোতে যৌথবাহিনীর সন্ত্রাসবিরোধী অভিযান শুরু হয়। সাঁড়াশি অভিযানে নিরাপত্তা বিবেচনায় পর্যটকদের ভ্রমণে সাময়িক নিষেধাজ্ঞা জারি করে জেলা প্রশাসন। প্রথমে ১৮ অক্টোবর থেকে অনির্দিষ্টকালের নিষেধাজ্ঞা শুরু হয় বান্দরবানের রুমা ও রোয়াংছড়ি উপজেলায়। পরে ২৩ অক্টোবর থেকে ৩০ অক্টোবর পর্যন্ত থানচি ও আলীকদম দুটি উপজেলায় পর্যটকদের ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে জেলা প্রশাসন। এরপরে ৩০ অক্টোবর থেকে ৪ নভেম্বর পর্যন্ত ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞার সময় বাড়ানো হয়। সর্বশেষ আজ সকালে আবার গণবিজ্ঞপ্তি জারি করে আগামী ৮ নভেম্বর পর্যন্ত বান্দরবানের ৪ উপজেলায় ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়।

বান্দরবানের জেলা প্রশাসক ইয়াছমিন পারভীন তিবরীজি জানান, বান্দরবানের চারটি উপজেলায় সন্ত্রাসবিরোধী অভিযান চলমান রয়েছে আর এই সব স্থানে ভ্রমণে গিয়ে দেশি বিদেশি পর্যটক যেন কোনো সমস্যার সম্মুখীন না হয় সেজন্য আগামী ৮ নভেম্বর পর্যন্ত এই নিষেধাজ্ঞা বাড়ানো হয়েছে।

এদিকে বান্দরবানের ৪টি উপজেলায় ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার ফলে গতমাসের মাঝামাঝি সময় থেকে এখন পর্যন্ত পর্যটকশুন্য পুরো বান্দরবান।

‘ইত্যাদি’র প্রচার আজ ৮টার বাংলা সংবাদের পর

ঢেউ খেলানো পাহাড়-ঝর্ণা-নদী-সবুজ অরণ্য আর ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর বিচিত্র সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যে ঘেরা অপরূপা বান্দরবানের টাইগার পাহাড়ের চূড়ায় অবস্থিত অপরূপ পর্যটন কেন্দ্র নীলাচল। সেখানে ধারণ করা ‘ইত্যাদি’র একটি বিশেষ পর্ব। এবারের পর্বে দেখানো হবে, প্রয়াত বরেণ্য অভিনেতা এটিএম শামসুজ্জামানের একটি নাট্যাংশ। তার সঙ্গে আরেকজন বর্ষীয়ান অভিনেতা জনাব মাসুদ আলী খানকে দেখা যাবে। এই নাট্যাংশটিই ছিলো এটিএম শামসুজ্জামানের জীবনের শেষ অভিনয়।

বিষয় বৈচিত্রে ভরপুর ইত্যাদির এই পর্বে রয়েছে বেশ কয়েকটি হৃদয়ছোঁয়া প্রতিবেদন। এবারের ইত্যাদিতে বাংলা ও মারমা গানের দু’জন প্রতিষ্ঠিত শিল্পী আঁখি আলমগীর এবং মান মান সিংয়ের কণ্ঠে রয়েছে একটি অনুরাগের গান। গানটি লিখেছেন প্রখ্যাত গীতিকার মোহাম্মদ রফিকউজ্জামান, সুর করেছেন হানিফ সংকেত, সংগীতায়োজন করেছেন মেহেদি।

এছাড়াও বান্দরবানের সবুজ-শ্যামল রূপ বৈচিত্র নিয়ে আর একটি গানের সঙ্গে নৃত্য পরিবেশন করেছেন বান্দরবানের ১১টি নৃগোষ্ঠী ও বাঙালি শিল্পীদের সমন্বয়ে শতাধিক নৃত্যশিল্পী।

অনুষ্ঠানে মামা-ভাগ্নে, নানি-নাতি, চিঠিপত্র, দর্শক পর্বসহ বিভিন্ন সামাজিক অসংগতি ও সমসাময়িক ঘটনা নিয়ে রয়েছে বেশ কয়েকটি বিদ্রুপাত্মক নাট্যাংশ।

বরাবরের মতো ইত্যাদি রচনা, পরিচালনা ও উপস্থাপনা করেছেন হানিফ সংকেত। শুক্রবার (০৪ নভেম্বর) রাত ৮টার বাংলা সংবাদের পর একযোগে পুনঃপ্রচার হবে বিটিভি ও বিটিভি ওয়ার্ল্ডে।

নতুন জঙ্গি সংগঠনের হামলার শঙ্কা!

ঢাকা: এখনও খোঁজ মেলেনি নতুন জঙ্গি সংগঠন জামাতুল আনসার ফিল হিন্দাল শারক্বীয়ার তথাকথিত হিজরতের ডাকে ঘরছাড়া অর্ধশতাধিক তরুণের। এ অবস্থায় কোনো নাশকতার আশঙ্কা উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) ভাষ্য, যেকোনো সময় নতুন জঙ্গি সংগঠনটি নাশকতা-হামলা করতে পারে। এটি হতে পারে কোন স্বার্থান্বেষী মহলের কারণে বা জঙ্গিবাদে উদ্বুদ্ধ হওয়ার কারণে। সংগঠনটির নেতৃত্বপর্যায়ে নির্দেশে তারা নাশকতার প্রস্তুতি নিচ্ছে।

শুক্রবার (৪ নভেম্বর) দুপুরে রাজধানীর কারওয়ানবাজার র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে আশঙ্কার এসব কথা বলেন র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

গতকাল বৃহস্পতিবার (৩ নভেম্বর) রাতে কুমিল্লার লাকসাম এলাকায় অভিযান চালিয়ে জামাতুল আনসার ফিল হিন্দাল শারক্বীয়ার অর্থ বিষয়ক সমন্বয়ক ও হিজরত বিষয়ক সমন্বয়কসহ ৪ জনকে আটক করে র‌্যাব। আটকরা হলেন- আব্দুল কাদের ওরফে সুজন ওরফে ফয়েজ ওরফে সোহেল (২৪), ইসমাইল হোসেন ওরফে হানজালা ওরফে মানসুর (২২), মুনতাছির আহমেদ ওরফে বাচ্চু (২৩) ও হেলাল আহমেদ জাকারিয়া (৩৩)। তাদের আটকের ব্যাপারে জানাতে সংবাদ সম্মেলনটি আয়োজন করে র‌্যাব।

র‌্যাব জানায়, আটকদের মধ্যে বাচ্চু সংগঠনটির অর্থ বিষয়ক প্রধান সমন্বয়ক। সোহেল ও হানজালা হিযরতকৃত সদস্যদের সমন্বয়ক। জাকারিয়া সামরিক শাখার ৩য় সর্বোচ্চ ব্যক্তি। তাদের কাছ থেকে দুটি উগ্রবাদী বই; একটি প্রশিক্ষণ সিলেবাস; ৯টি লিফলেট, একটি ডায়েরি এবং চারটি ব্যাগ জব্দ করা হয়েছে।

যেকোনো সময় নতুন জঙ্গি সংগঠনটি নাশকতা-হামলা করতে পারে- এ বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চাইলে র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক বলেন, আমরা ধরেই নিয়েছি- যেহেতু অনেকেই নিরুদ্দেশ রয়েছে, যেকোনো সময় যেকোনো ধরনের ঘটনা ঘটতে পারে। তবে আমরা প্রস্তুত রয়েছি। জঙ্গিদের নাশকতার যে বিষয় রয়েছে; সে ব্যাপারে র‌্যাব ফোর্সেসের সবসময়ই প্রস্তুতি থাকে।

কমান্ডার মঈন বলেন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অব্যাহত অভিযানের কারণে জঙ্গিবাদ এখন অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। কিন্তু এটা নির্মূল হয়নি। আমরা কখনোই আত্মতুষ্টিতে ভুগি না। যেকোনো সময়ই যেকোনো স্বার্থান্বেষী মহলের কারণে বা জঙ্গিবাদে উদ্বুদ্ধ হয়ে তারা নাশকতা করতে পারে। এ ধরনের প্রস্তুতির কথা চিন্তা করেই আমরা অভিযান পরিচালনা করছি। এখনও আমাদের অনেক সদস্য পার্বত্য অঞ্চলে অভিযান পরিচালনা করছে।

তিনি বলেন, যারা স্বেচ্ছায় নিরুদ্দেশ রয়েছের এমন ৫৫ জনের তালিকা রয়েছে। তাদের শনাক্ত করে আইনের আওতায় আনার চেষ্টা করে যাচ্ছি। আমাদের প্রস্তুতি রয়েছে, আমাদের কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

সংগঠনটির অস্ত্র সরবরাহের বিষয়ে জানতে চাইলে র‌্যাবের এ কমান্ডার বলেন, আটক বাচ্চুর কাছ থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী- তিনি বিচ্ছিন্নতাবাদীদের কাছে মোবাইল ব্যাংকিং বা ব্যাংকিং চ্যানেলের মাধ্যমে টাকা পাঠিয়েছেন। টাকা প্রাপ্তির পর যারা প্রশিক্ষণ নিচ্ছে, হয়ত বেশকিছু অস্ত্র প্রশিক্ষণ বা নাশকতার জন্য তাদেরকে দিয়ে থাকতে পারে। বিষয়টি যাচাই করার প্রয়োজন রয়েছে। বাচ্চু দুই ধাপে (একবার ১১ লাখ ও একবার ৭ লাখ টাকা) পাঠিয়েছেন এমন তথ্য পেয়েছি। একে ২২ ও একে ৩২ অস্ত্র সরবরাহের তথ্য পাওয়া গেছে। তাদের কাছ থেকে অস্ত্র প্রাপ্তির বিষয়ে আমরা নিশ্চিত হতে পারবো।

আটকদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের বরাত দিয়ে র‌্যাবের এ কর্মকর্তা আরও বলেন, তারা জামাতুল আনসার ফিল হিন্দাল শারক্বীয়ার দাওয়াতি, সশস্ত্র প্রশিক্ষণ, হিজরতকৃত সদস্যদের তত্ত্বাবধানসহ অন্যান্য সাংগঠনিক কার্যক্রমে জড়িত ছিল। ২-৪ বছর আগে পরিচিতদের মাধ্যমে উগ্রবাদে অনুপ্রাণিত হয়ে জ্যেষ্ঠ সদস্যদের মাধ্যমে তাত্ত্বিক ও শারীরিক প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। সম্প্রতি র‌্যাবসহ অন্যান্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযানের কারণে তারা কুমিল্লার লাকসামে আত্মগোপনে ছিলেন।

এ সময়টিতে তারা সদস্য ও সমমনাদের কাছ থেকে অর্থ সংগ্রহ করতেন। এরপর সাংগঠনিক প্রয়োজনে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে অর্থ পাঠাতেন। এছাড়া, তারা পাহাড়ে প্রশিক্ষণরত সদস্যদের পরিবারকেও আর্থিক সহযোগিতা দিতেন। আটক বাচ্চু চট্টগ্রামে একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্যাংকিং বিষয়ে অধ্যয়নরত ছিলেন। তিনি সংগঠনটির অর্থ ও গণমাধ্যম শাখার প্রধান রাকিবের অন্যতম সহযোগী এবং অর্থ বিষয়ক প্রধান সমন্বয়ক ছিলেন। গত ৮-৯ মাসে বিভিন্ন ধরণের ভারী অস্ত্র কিনতে বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠনের কাছে ১৭ লাখ টাকা, সংগঠনের বিভিন্ন কার্যক্রমের প্রায় ৩০ লাখসহ প্রায় ৫০ লাখ টাকা পাঠিয়েছেন তিনি।

আটকের ব্যাপারে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলেও জানান র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।