সর্বশেষ সংবাদ চাঁপাইনবাবগঞ্জে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ায় রণক্ষেত্র এলাকা, ২টি ককটেল উদ্ধার নাচোলে সন্ত্রাসি হামলায় সাংবাদিক সুফিয়ান গুরুতর আহত করোনায় আরও ২৩৫ জনের মৃত্যু শিবগঞ্জের বেলী ব্রীজে জীবনের ঝুঁকি নিয়েই চলছে মানুষ ও যানবাহন সোনামসজিদ স্থলবন্দর সিএন্ডএফ’র নতুন কমিটির দায়িত্ব গ্রহণ চাঁনশিকারী ও পোলাডাংগা সীমান্তে ইয়াবা সহ আটক ২ ॥ পলাতক-৮ চাঁপাইনবাবগঞ্জে ২ কেজি গাঁজাসহ আটক-১ বড় অফিসার হওয়ার স্বপ্ন দেখে মেধাবী বনি Two associates of Helena Jahangir held PM distributes flats among 300 slum dwellers

চাঁপাইনবাবগঞ্জে করোনা সনাক্তের হার ১৩.৫১% -জেলা প্রশাসনের নির্দেশনা মানার আহবান

নিজস্ব প্রতিবেদক, চাঁপাইনবাবগঞ্জ : আমের রাজধানী চাঁপাইনবাবগঞ্জে গত ২৪ ঘন্টায় ১ মার্চ থেকে ১০ জুন বৃহস্পতিবার পর্যন্ত নতুন করে কোভিড-১৯ শনাক্ত হয়েছে ৬৮ জন। যার ভেতরে সদরে ১৬ জন, শিবগঞ্জে ৮জন, গোমস্তাপুরে ৩৬ জন, নাচোলে ৭ ও ভোলাহাটে ১ জন আক্রান্ত হয়েছে। চাঁপাইনাববগঞ্জ সিভিল সার্জন অফিস সূত্র এ সব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এর ভেতর র‌্যাপিড এন্টিজেন টেস্টে ৩৬ জন ও আরটিপিসিআর ল্যাবে ২৯ জন ও জিন এক্সপার্ট টেস্টে ৩ জন আক্রান্ত হন।

জানাগেছে, এখন পর্যন্ত সদর উপজেলায় ৩২ জন মারা গেছে। শিবগঞ্জ উপজেলায় ২১ জন ও গোমস্তাপুরে ৩ জন মারা গেছে।

এ ছাড়াও নাচোলে ৪ জন ও ভোলাহাট উপজেলায় ২ জন মারা যায়। মেট জেলায় ৬২ জন মারা গেছে। জেলায় এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছে ১ হাজার ৮০০ জন। গত ২৪ ঘন্টায় সুস্থ হয় ৩৩৬ জন।

এর ভেতর সদরে সুস্থ হয়েছে ২৩৫ জন। শিবগঞ্জে ৫৪ জন, নাচোলে ৩৯ ও ভোলাহাট উপজেলায় ৮ জন। কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতালে ৫৭ জন পজিটিভ চিকিৎসাধীন আছেন।

আর ২৪ ঘন্টায় ভর্তি হয়েছে ৮ জন। আর চিকিৎসা সেবা নিয়েছেন ৩৯৮ জন রোগী। ছাড়পত্র ২৪ ঘন্টায় পেয়েছেন ৩ জন। এ হাসপাতালে ৩৪২ জন এখন পর্যন্ত ছাড়পত্র পেয়েছেন।

গত ২৪ ঘন্টায় করোনা নমুনা পরীক্ষায় আরটিপিসিআর ল্যাবে ৩৯.১৮%, র‌্যাপিড এন্টিজেন টেস্টে ০.৮.৫৭% ও জিনএক্সপার্ট টেস্টে ৩৩.৩৩% হয়েছে। সনাক্তের মোট গড় দাঁড়ায় ১৩.৫১ পারসেন্ট। কপোত নবী

শিবগঞ্জে করোনা সচেতনতা বাড়াতে মাঠে আ.লীগ নেতা

নিজস্ব প্রতিবেদক, শিবগঞ্জ
করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে ও সচেতন করার লক্ষ্যে স্বাস্থ্যবিধি মানাতে মাস্ক নিয়ে মাঠে নেমেছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক কৃষি বিষয়ক সম্পাদক আনোয়ার হাসান আনু মিঞা। শুক্রবার বিকেলে চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার চককীর্তি ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় পথচারী নারী-পুরুষের মাঝে ৪ শতাধিক মাস্ক বিতরণ করেন তিনি। যেসব পথচারীরা মাস্ক পরছেন না, তাদেরকে তাৎক্ষণিক মাস্ক পরিয়ে দিচ্ছেন। এ সময় তিনি বলেন, জনসচেতনতা তৈরিতে ‘মাস্ক পরার অভ্যাস, কোভিডমুক্ত বাংলাদেশ’ শ্লোগানে উদ্বুদ্ধকরণ করতে এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। জনগণকে উদ্বুদ্ধ করে মাস্ক ব্যবহারে সচেতন করার জন্যই এই কর্মসূচি। আইন প্রয়োগ নয়, জনগণের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি করে মাস্ক ব্যবহারে উদ্বুদ্ধ করবো। তিনি আরও বলেন, ‘চলমান কর্মসূচির ধারাবাহিকতায় জনগণ অনেকটাই সচেতন হচ্ছে। তবে যারা এখনও মাস্ক ব্যবহারের উদাসীন, তাদের সচেতন থাকার জন্য বিভিন্ন ধরনের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।’ এ সময় স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

জেনিন শহরে ইসরায়েলি হামলা, নিহত ৩ ফিলিস্তিনি

ঢাকা: অধিকৃত ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরের জেনিন শহরে ইহুদিবাদী ইসরায়েলি সেনাদের গুলিতে অন্তত তিন ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে দুইজন নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য এবং একজন ইসলামি জিহাদ আন্দোলনের সদস্য।

ইরানের প্রেস টিভি জানিয়েছে, ভোর রাতে ইহুদিবাদী সেনারা জেনিন শহরে অভিযান চালায়। এ সময় ফিলিস্তিনিদের ওপর ধরপাকড় শুরু করলে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে।

ইসরায়েলের সামরিক বাহিনীও বলেছে, তাদের সেনারা জেনিন শহরে গ্রেফতার অভিযান পরিচালন করে। এসময় ফিলিস্তিনি স্বশাসন কর্তৃপক্ষের সামরিক গোয়েন্দা সংস্থার সদর দপ্তরের সামনে ইহুদিবাদী সেনা এবং ফিলিস্তিনি নিরাপত্তা বাহিনীর মধ্যে গোলাগুলি শুরু হয়। সংঘর্ষে ফিলিস্তিনি নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যসহ ইসলামি জিহাদ আন্দোলনের এক সদস্য ও সাবেক কারাবন্দি জামিল আল-আমুরি শহীদ হন। এছাড়া, ইসরায়েলি বাহিনী এক ফিলিস্তিনিকে আটক করে। তাদের দাবি, শহীদ জামিল আল আমুরি এবং গ্রেফতারকৃত ব্যক্তি দু’জনকেই তারা খুঁজছিল।

এসব হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে ফিলিস্তিনের বিভিন্ন সংগঠন জেনিন শহরে সাধারণ ধর্মঘট ডেকেছে। ফিলিস্তিনি নাগরিকদের হত্যার খবর শুনে হাজার হাজার শোকার্ত মানুষ জেনিন শহরের রাস্তায় নেমে আসেন এবং তারা শোক র‍্যালিতে যোগ দেন।

কোপা আমেরিকা টুর্নামেন্ট: যারা থাকছে আর্জেন্টিনার দলে

কোপা আমেরিকা দোরগোড়ায়। টুর্নামেন্টের টপ ফেভারিট ব্রাজিল দল ঘোষণা করেছে আগেই।

এবার দল ঘোষণা করলো অন্যতম শক্তিশালী দল আর্জেন্টিনা।
করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বিশ্বকাপ বাছাইয়ের শেষ দুই ম্যাচ খেলতে না পারা গোলরক্ষক ফ্র্যাঙ্কো আরমানিকো স্কোয়াডে রেখেছেন কোচ লিওনেল স্কালোনি। চোট কাটিয়ে দলে ফিরেছেন লুকাস আলারিও। বিশ্বকাপ বাছাইয়ের দল থেকে বাদ পড়েছেন চারজন।

আর্জেন্টিনার কোপা আমেরিকা দল:
গোলরক্ষক
ফ্র্যাঙ্কো আরমানি, এমিলিয়ানো মার্টিনেজ, অগাস্তিন মার্চেসিন, হুয়ান মুসো।

ডিফেন্ডার
গনজালো মন্তিয়েল, নাহুয়েল মলিনা, ক্রিশ্চিয়ান রোমেরো, নিকলাস অটামেন্ডি, লুকাস মার্তিনেজ, হেরমান পেজ্জেলা, লিসান্দ্রো মার্টিনেজ, নিকলাস টালিয়াফিকো।

মিডফিল্ডার
মার্কোস আকুনইয়া, রদ্রিগো দে পল, লিয়ান্দ্রো পারেদেস, জিওভানি লো সেলসো, এক্সেকিয়েল প্যালাসিওস, গিদো রদ্রিগেজ, নিকলাস ডমিঙ্গেজ, আলেহান্দ্রো ‘পাপু’ গোমেজ।

ফরোয়ার্ড
লিওনেল মেসি, নিকলাস গঞ্জালেজ, লাওতারো মার্টিনেজ, সার্জিও আগুয়েরো, আনহেল কোরেয়া, আনহেল ডি মারিয়া, হোয়াকিন কোরেয়া, লুকাস আলারিও।

চাঁপাইনবাবগঞ্জের ৬ জন সহ রাজশাহীতে ২৪ ঘণ্টায় ১৫ জনের মৃত্যু

রাজশাহী: করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামক) হাসপাতালে ১৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর আগে গত ৪ জুন রাজশাহীতে সর্বোচ্চ ১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে।

শুক্রবার (১১ জুন) রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা সাইফুল ফেরদৌস এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

জানতে চাইলে ডা. সাইফুল ফেরদৌস বলেন, গেল ২৪ ঘণ্টায় রামেক হাসপাতালে মারা যাওয়া ১৫ জনের মধ্যে সাতজন করোনা পজিটিভ ছিলেন। অন্য আটজন মারা গেছেন উপসর্গ নিয়ে। করোনা পজিটিভ হয়ে মারা যাওয়া সাতজনের মধ্যে চারজনের বাড়িই রাজশাহীতে, দুইজনের বাড়ি চাঁপাইনবাবগঞ্জে। আর একজনের বাড়ি নাটোরে। এছাড়া হাসপাতালে করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া আটজনের মধ্যে চারজন রাজশাহীর ও চারজন চাঁপাইনবাবগঞ্জের।

এক প্রশ্নের জবাবে ডা. সাইফুল ফেরদৌস বলেন, এ ১১দিনে (১ জুন সকাল ৬টা থেকে ১১ জুন সকাল ৬টা পর্যন্ত) রামেক হাসপাতালের করোনা ইউনিটে মারা গেছেন ১০৭ জন। এর মধ্যে ৬৩ জনই মারা গেছেন করোনা শনাক্ত হওয়ার পর। বাকিরা উপসর্গ নিয়ে মারা যান। এর মধ্যে ১ ও ২ জুন সাতজন করে ১৪ জন, ৩ জুন নয়জন, ৪ জুন ১৬ জন, ৫ জুন আটজন, ৬ জুন ছয়জন, ৭ জুন ১১ জন, ৮ জুন আটজন, ৯ জুন আটজন, ১০ জুন ১২ জন এবং সর্বশেষ ১১ জুন ১৫ জনের মৃত্যু হয়।

এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা ইউনিটে ভর্তি হয়েছেন ৪৩ জন। শুক্রবার সকাল ৬টা পর্যন্ত করোনা ওয়ার্ডে ভর্তি আছেন ২৯৭ জন। অথচ শয্যা সংখ্যা ২৭১টি। অর্থাৎ ধারণ ক্ষমতার বেশি সংখ্যক রোগী বর্তমানে ভর্তি রয়েছেন। এর মধ্যে রাজশাহীর ১৪২ জন, চাঁপাইনবাবগঞ্জের ১১০ জন, নাটোরের ১৫ জন, নওগাঁ ২৪ জন, পাবনার ৩ জন, কুষ্টিয়ার ৩ জন। এছড়া হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি আছেন আরও ১৮ জন।

অপরদিকে, করোনার ‘নতুন হটস্পট’ রাজশাহীতে একদিনের ব্যবধানে ফের বেড়েছে সংক্রমণের হার। বৃহস্পতিবার দু’টি ল্যাবে রাজশাহীর ৫৬২ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে ২৩৭ জনের করোনা পজিটিভ এসেছে। গত রাতে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল দু’টি পিসিআর ল্যাবর নমুনা পরীক্ষার পর এ ফল আসে। পরীক্ষা অনুযায়ী সংক্রমণের হার ৩৮ দশমিক ৮৩ শতাংশ।

রামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী বলেন, করোনা আক্রান্ত রোগীরা অনেক দেরিতে হাসপাতালে আসছেন। আক্রান্ত হওয়ার একপর্যায়ে যখন দেখতে পাচ্ছেন আর নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব না তখন হাসপাতালে আসছেন। রোগীরা দেরি করে ফেলায় মৃত্যুর ঝুঁকি বাড়ছে। বর্তমানে করোনা রোগীর সংখ্যা যেভাবে বাড়ছে তাতে চিকিৎসা দিতে বেশ বেগ পেতে হচ্ছে। এভাবে বাড়তে থাকলে পরিস্থিতি ভয়াবহ হয়ে উঠবে। তখন সামাল দেওয়া কঠিন হয়ে পড়বে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৩ হাজার ছড়াল

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সংবাদদাতাঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জে মোট করোনায় আক্রান্ত সংখ্যা ৩ হাজার ৪৪ জন। মোট নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ১৫ হাজার ৩ শ ৭৭ জনের। মোট করোনায় আক্রান্ত হয়ে সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ৮ জন। করোনায় আক্রান্ত হয়ে মোট মৃত্যু হয়েছে ৬২ জনের। ডেডিকেটেড করোনা ইউনিটে মোট ভর্তি রোগীর সংখ্যা ৩৯৮ জন ও ছাড়পত্র পাওয়া মোট রোগীর সংখ্যা ৩৪২ জন।

শুক্রবার (১১ জুন) ভোরে দেয়া এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে এ সব তথ্য নিশ্চিত করে ডা.জাহিদ নজরুল চৌধুরী।

সিভিল সার্জন জানান; ” গত ২৪ ঘন্টায় ৫০৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করে নতুন করে ৬৮ জনের দেহে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া গেছে । চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলায় ১৬ জন। শিবগঞ্জ উপজেলায় ০৮ জন। গোমস্তাপুর উপজেলায় ৩৬ জন। নাচোল উপজেলায় ০৭ জন ও ভোলাহাট উপজেলায় ০১ জনের করোনা সনাক্ত হয়।”।

সিভিল সার্জন আরোও জানান; “গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে করোনা ইউনিটে ভর্তি রোগীর সংখ্যা ৮ জন ও ছাড়পত্র প্রাপ্ত রোগীর সংখ্যা ০৩জন।
গত ৩ দিন থেকে করোনা সনাক্তের হার কমেছে।বর্তমানে জেলায় করোনা সনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৫১ শতাংশ। তার আগের দুদিন ১৯.১৯ শতাংশ সনাক্তের হার ছিল।

ডেডিকেটেড করোনা ইউনিটের তথ্য প্রদান কর্মকর্তা ডা. আহনাফ শাহরিয়ার জানান; ” ৫০ শয্যার এ করোনা ইউনিটে দৈনিক ৫০ জন করেই চিকিৎসা নিচ্ছেন। বর্তমান তারিখেও ৫০ জন চিকিৎসা নিচ্ছেন।”

এ দিকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় করোনা সংক্রমণ রোধে গত ৭ জুন (সোমবার) থেকে আগামী ১৬ জুন ( বুধবার) পর্যন্ত জেলায় ১০ টি কঠোর বিধিনেষেধ আরোপ করেছে জেলা প্রশাসন।

জেলা প্রশাসকের মহানুভবতাঃ উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা হলো মুচি’র

গোমস্তাপুর(চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধি:”মানুষ মানুষের জন্য, জীবন জীবনের জন্য”তাই খবর পেয়ে একটি অসহায় পরিবারের মনে সাহস জোগাল এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করলেন।জেলা প্রশাসক চাঁপাইনবাবগঞ্জ মোঃ মঞ্জুরুল হাফিজ এর মহানুভবতায় এক মুচি’র চিকিৎসার ব্যবস্থা হলো।তার বর্তমান ঠিকানা গোমস্তাপুর উপজেলার রহনপুর ইউনিয়নের বংপুর খাড়িপাতা গ্ৰামের শ্রী দেবেন রবি দাসের ছেলে শ্রী বিরেন রবি দাস (৪০)।আজ বৃহস্পতিবার (১০ জুন) বাদ মাগরিব বংপুর বাজার থেকে বাজার করে ভ্যানযোগে বাড়ির উদ্দেশ্যে সে রওনা হলে রাস্তায় একটি ছাগল বাঁচাতে গিয়ে ভ্যানটি রাস্তার পাশে উল্টে যায়। এবং ভ্যানটি তার পায়ের উপরে পড়ে গিয়ে বাম পায়ের গোড়ালী ভেঙ্গে যায়। স্থানীয়রা গোমস্তাপুর ফায়ার সার্ভিসকে খবর দিলে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে আহত ব্যক্তিকে গোমস্তাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ফায়ার সার্ভিস ভর্তি করে। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে রামেকে রেফার করে।কিন্তু পেশায় সে মুচি,দিন আনে দিন খাই।কোন রকমে খেয়ে না খেয়ে তার সংসার চলে। অ্যাম্বুলেন্সের ভাড়া ও চিকিৎসার খরচ বহন করার মত তার কাছে কোন অর্থ ছিল না।চিকিৎসা করাতে পারবে না বলে জরুরী কক্ষে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন তিনি ও তার স্ত্রী।এই খবরটি স্থানীয় সাংবাদিকরা জানতে পেরে তৎক্ষণাৎ জেলা প্রশাসক মোঃ মঞ্জুরুল হাফিজ এর সাথে যোগাযোগ করেন। এবং তার চিকিৎসার ব্যবস্থা গ্ৰহন করেন।

খবরটি জেলা প্রশাসক মহোদয় জানতে পেরে তৎক্ষণাৎ একটি গাড়িতে করে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালে পাঠাতে বলেন এবং রোগীর চিকিৎসার খরচ জেলা প্রশাসক মহোদয় সম্পন্ন বহন করবেন বলে তিনি জানান।

আহত ব্যক্তির আত্নীয় প্রদীপ কুমার দাশ বলেন, আমরা রাত ১২টার সময় চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালে সরকারি অ্যাম্বুলেন্স সংযোগে পৌঁছেছি এবং জেলা প্রশাসক মহোদয়কে বিষয়টি জানালে তিনি ব্যবস্থা গ্রহণ করেন। কিছুক্ষণ পর স্যারের লোক এসে আমাদের রোগীকে জরুরি বিভাগে ভর্তি করেন এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করেন। আমরা স্যারের প্রতি কৃতজ্ঞ এই দুর্দিনে স্যার আমাদের এত কাছে আসবে আমরা তা ভাবতে পারেনি। এখানে সংবাদকর্মীদেরও বিশেষ অবদান রয়েছে তাদের প্রতিও আমরা কৃতজ্ঞ।

এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক মোঃ মঞ্জুরুল হাফিজ জানান, ওই আহত ব্যক্তিকে স্থানীয় কোন ইউনিয়ন চেয়ারম্যান কিংবা নেতাকর্মী কোন ব্যবস্থা গ্ৰহন করেছেন কি না জানতে চান।তিনি তৎক্ষণাৎ চাঁপাইনবাবগঞ্জে একটি গাড়িতে করে পাঠিয়ে দিতে বলেন এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস প্রদান করেন।