সর্বশেষ সংবাদ স্থগিত হওয়া আইপিএলেও ফিক্সিংয়ের অভিযোগ! বাংলাদেশসহ ৪ দেশের নাগরিকদের মালয়েশিয়ায় প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা নেদারল্যান্ডসের প্রেমিকাকে বিয়ে করলেন দিতির ছেলে খালেদা জিয়ার করোনা নেগেটিভ: খোকন Bangladesh sees fresh 1,822 Covid cases, 41 more deaths ‘ঈদে ছোটাছুটি নয়, বেঁচে থাকলে তো স্বজনদের সঙ্গে দেখা’ জনসংখ্যা বাড়লেও খাদ্য নিরাপত্তায় চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করা সম্ভব হচ্ছে- কৃষিমন্ত্রী ড. মোঃ আব্দুর রাজ্জাক চাঁপাইনবাবগঞ্জে ট্রাকের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত অমুক্তিযোদ্ধাকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফনের অভিযোগ  স্থানীয় বীর মুক্তিযোদ্ধাদের তরমুজের পর এবার চাঁপাইনবাবগঞ্জে ১২০ টাকা কেজি দরে বিকাচ্ছে আনারস

বিধিনিষেধ মেনে চলুন : প্রধানমন্ত্রী

করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে লকডাউনসহ অন্যান্য বিধিনিষেধ কঠোরভাবে মেনে চলার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রয়োজনে আইন প্রয়োগে কঠোর হওয়ারও নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। আর করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে চলমান সাত দিনের নিষেধাজ্ঞার (লকডাউন) মেয়াদ বাড়ানো হবে কি না, তা জানা যাবে আগামী বৃহস্পতিবার। পরিস্থিতি দেখে সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে সরকার। সোমবার মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম। তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার পর্যালোচনা করা হবে। দেখা যাক অবস্থা কী হয়।

সোমবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। গণভবন থেকে প্রধানমন্ত্রী ও সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে মন্ত্রীরা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বৈঠকে যোগ দেন। এ বিষয়ে বৈঠক শেষে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেন, ‘লকডাউনের নির্দেশনা সবাইকে কঠোরভাবে মানতে প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন। করোনার সংক্রমণ রোধে মানুষের গতিবিধি নিয়ন্ত্রণ করতে চাই। লকডাউন দেওয়ায় আগের চেয়ে মানুষের আনাগোনা কমেছে।’

করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) সংক্রমণ উদ্বেগজনক হারে বাড়তে থাকায় সোমবার ভোর ৬টা থেকে আগামী সাত দিনের লকডাউন শুরু হয়েছে। এ দফায় আগামী ১১ এপ্রিল রাত ১২টা পর্যন্ত থাকবে লকডাউন। এর আগে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে ১৮ দফা নির্দেশনা অনুযায়ী, ৫০ শতাংশ লোকবল দিয়ে সরকারি অফিস চালানোর কথা বলা হয়েছিল। লকডাউনের প্রথম দিনে মানুষের চলাচল নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে।

গণপরিবহণ চলছে না। জরুরি কাজের জন্য সীমিত পরিসরে অফিস খোলা থাকছে। লকডাউনের প্রথম দিনে ঢিলেঢালাভাব দেখা গেছে।

লকডাউনেও সচিবালয়ের সব দপ্তর খোলা-এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল বলেন, ‘দরকারি কাজ চালানোর জন্য যতটুকু দরকার ততটুকুই থাকবে। দেখি, সাত দিন পর কী অবস্থা হয়। বৃহস্পতিবার আমরা রিভিউ করব, ইনশাআল্লাহ। মানুষকে সহযোগিতা করতে হবে। সবাই মাস্ক পরলে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চললে তো অসুবিধা হওয়ার কথা নয়।’

মন্ত্রিসভার ভার্চুয়াল বৈঠকে দেওয়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্য উদ্ধৃত করে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, কোভিড-১৯ টিকার দ্বিতীয় ডোজ ৮ এপ্রিল থেকে দেওয়া শুরু হবে। দ্বিতীয় ডোজ নিয়ে সমস্যা হবে কি না-এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের সঙ্গে কথা হয়েছে। কোনো সমস্যা হবে না। টিকা যা আছে, সেসব দিতে দিতেই আরও টিকা চলে আসবে।’

‘লকডাউনের’ মধ্যে বইমেলা চলা নিয়ে প্রশ্নের জবাবে খন্দকার আনোয়ারুল বলেন, এ বিষয়ে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়কে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তাদের সঙ্গে কথা বলতে হবে।

পবিত্র রমজানে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য নিয়েও আলোচনা হয়েছে মন্ত্রিসভায়। মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, এ বিষয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম বেড়েছে। ভোক্তা পর্যায়ে যাতে তেলের দাম কমে, সে বিষয়ে এনবিআর চিন্তা করছে।

এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে সাত দিনের যে নিষেধাজ্ঞার আদেশ দেওয়া হয়েছে তা লকডাউন নয়। নিষেধাজ্ঞা বলেছি, আমরা লকডাউন ঠিক বলি নাই। আমরা বলে দিয়েছি, যত কম লোক দিয়ে অফিস-আদালত চালানো যায়। দেখি, সাত দিন পর কী অবস্থা হয়। এরপর বৃহস্পতিবার আবার সিদ্ধান্ত নেব।’

উন্নয়নের জন্য শান্তি আবশ্যক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখা উন্নয়নের পূর্বশর্ত। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘উন্নয়নের জন্য শান্তি আবশ্যক। আমরা লোকদের জড়িত করি যাতে তাদের সমর্থন শান্তি প্রতিষ্ঠায় সহায়তা করতে পারে।’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সোমবার সকালে তার সরকারি বাসভবন গণভবনে আফগানিস্তানের বিদায়ি রাষ্ট্রদূত আব্দুল কাইয়ুম মালিকজাদ সৌজন্য সাক্ষাতে এলে তিনি এ কথা বলেন। বৈঠকের পর প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন। বাংলাদেশ এবং আফগানিস্তানের সম্পর্ককে চমৎকার আখ্যায়িত করে শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ এবং আফগানিস্তান আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে একসঙ্গে কাজ করেছে। তিনি বলেন, আমরা ‘সবার সঙ্গে বন্ধুত্ব এবং কারও সঙ্গে বৈরিতা নয়’-এই পররাষ্ট্রনীতির অনুসারী। প্রধানমন্ত্রী এ সময় আফগানিস্তানের উন্নয়নে তার সহযোগিতার আকাঙ্ক্ষাও ব্যক্ত করেন। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বাংলাদেশের এনজিও ব্র্যাক আফগানিস্তানের আর্থসামাজিক উন্নয়নে সেখানে কাজ করছে।

আফগান রাষ্ট্রদূত বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি উদ্যাপন করায় প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানান। আফগান রাষ্ট্রদূত বলেন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দুই দেশের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক আরও জোরদার হয়েছে। তিনি ঢাকায় আফগানিস্তানের দূতাবাসকে সহযোগিতা প্রদানের জন্যও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান। ব্যবসা-বাণিজ্য সম্পর্কে রাষ্ট্রদূত বলেন, বিশেষ করে দু-দেশের মধ্যে বেসরকারি খাতে সহায়তা বাড়াতে পর্যাপ্ত সুযোগ রয়েছে। তিনি আফগানিস্তানে বাংলাদেশের দূতাবাস পুনরায় চালু করতে প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করেন। প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে একসঙ্গে থাকছেন প্রভা-মনোজ!

বিয়ে না করে একই ফ্ল্যাটে থাকছেন অভিনেত্রী সাদিয়া জাহান প্রভা এবং মনোজ প্রামাণিক। মিঠু রায় এর ‘ফেক হাসব্যান্ড’ শিরোনামের নাটকে এমনই দৃশ্য নিয়ে হাজির হবেন প্রভা এবং মনোজ। বাস্তব জীবনের ব্যাচেলরদের বাসা ভাড়া সমস্যা নিয়েই এর গল্প।

নাটকটির গল্পে দেখা যাবে, রুনি (প্রভা) একজন চাকরিজীবী অবিবাহিত মেয়ে। ঢাকায় একাই থাকেন। ব্যাচেলর বলে বাসা পেতে সমস্যা হয়, এলাকার লোকজন নানা মন্তব্য করে। এমনকি কর্মস্থলেও সহকর্মীরা অ্যাডভান্টেজ নেয়ার চেষ্টা করে। তাই রুনি বলে বেড়ান যে তিনি বিবাহিত। এরপর থেকে আগের সমস্যাগুলো অনেকটাই সমাধান হয়ে যায় তার।

নতুন এলাকায় নতুন একটা বাড়ি ভাড়া নেন রুনি। নতুন অফিসে যোগদান করেন। সেই অফিসে তার সহকর্মীদের সঙ্গে ভালো একটা বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে ওঠে। অফিসের রবিনও (মনোজ) জানেন যে, রুনি বিবাহিত। রুনি তার কাল্পনিক হাজব্যান্ডকে নিয়ে নানা ধরনের মুখরোচক গল্প করেন সবার কাছে। রবিনের কাছেও। পরে বিপদে পড়ে রবিনকেই সাজতে হয় রুনির ফেক হ্যাজবেন্ড এবং তারা বিয়ে না করে একই বাসাতে থাকতে শুরু করেন।

নাটকটিতে বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন কাজী উজ্জ্বল, পিন্টু আকুনজি, খাইরুল আলম টিপু, শারমীন সুলতানা শর্মী, কাজি সালিমুল হক কামাল, জান্নাতুল শ্রাবণী, রাইসুল ইসলাম, বরশা, রিংকু, স্বপন আহমেদ, মিজান রহমান, নয়ন, রাফি আহমেদ উৎসসহ অনেকে।

নাটকটি শিগগিরই কোনও একটি বেসরকারি চ্যানেলে প্রচার হবে।

ভারতে উচ্চশিক্ষার জন্য বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা যেভাবে আবেদন করবেন: শেষ সময় ৩০ এপ্রিল

প্রতিবারের মতো এবারও ইন্ডিয়ান কাউন্সিল ফর কালচারাল রিলেশন্স (আইসিসিআর) বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের জন্য বৃত্তি দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে। এজন্য আগামী ৩০ এপ্রিলের মধ্যে ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীদের অনলাইনে আবেদন আহ্বান করা হয়েছে। ঢাকার ভারতীয় হাইকমিশনের পক্ষ থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। ভারতের বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্ডার গ্র্যাজুয়েটে, স্নাতকোত্তর ও পিএইচডির জন্য মেধাবী বাংলাদেশি নাগরিকরা এ সুবিধা পাবেন। তবে মেডিসিন, প্যারামেডিক্যাল, ফ্যাশন কোর্স বাদে আবেদন করতে হবে।

আবেদন করার জন্য প্রার্থীদের আইসিসিআর-এর http://a2ascholarsships.iccr.gov.in লিংকে গিয়ে লগ-ইন করে আইডি ও পাসওয়ার্ড তৈরি করতে হবে। এরপর আবেদন করতে হবে।

১৮ থেকে ৩০ বছর বয়সী বাংলাদেশি নাগরিকরা বৃত্তির জন্য আবেদন করতে পারবেন। বিই/বিটেক কোর্সের প্রার্থীদের একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণির পাঠ্যক্রমে পদার্থবিজ্ঞান, গণিত ও রসায়ন বিষয় থাকা বাধ্যতামূলক। প্রত্যেক শিক্ষার্থীদের হোস্টেলে থাকতে হবে। পরিবার অথবা স্বাস্থ্যগত কারণে দেখিয়ে ক্যাম্পাসের বাইরে থাকার কোনো সুযোগ নেই।

আবেদনকারীরা তাদের পছন্দ অনুসারে পাঁচটি বিশ্ববিদ্যালয় বা প্রতিষ্ঠানে আবেদন করতে পারবেন। ইংরেজিতে দক্ষতা প্রমাণের জন্য শিক্ষার্থীদের ৫০০ শব্দে ইংরেজিতে প্রবন্ধ লিখতে হবে। তবে কেউ চাইলে আইইএলটিএস বা টিওএফইএল স্কোরও ইংরেজি দক্ষতা যাচাইয়ের জন্য জমা দিতে পারবেন, তবে এই কোর্সের জন্য আইইএলটিএস বা টিওএফইএল বাধ্যতামূলক নয়।

শিক্ষার্থীদের মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার নম্বরপত্র জমা দিতে হবে। বাংলায় থাকলে তা ইংরেজিতে অনুবাদ করে জমা দিতে হবে। অনুবাদ করা ছাড়া কোনো কাগজপত্র গ্রহণযোগ্য হবে না।

বাধ্যতামূলকভাবে বৃত্তিপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের বার্ষিক ন্যূনতম ৫ লাখ ভারতীয় রুপির বা ৬ হাজার ৮০০ মার্কিন ডলারের স্বাস্থ্য বীমা করতে হবে।

আইসিসিআর-এর বৃত্তি সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্য জানা যাবে, ভারতীয় হাইকমিশনের শিক্ষা শাখায়- প্লট নম্বর: ১-৩, পার্ক রোড, বারিধারা, ঢাকা ১২১২। ফোন নম্বর: ৫৫০৬৭৩০১-৩০৮ এক্সটেনশন ১০৯৬/১১১২, ই-মেইল: edu1.dhaka@mea.gov.in।

Rafiqul Islam Madani detained from Netrakona

The Rapid Action Battalion (RAB) on Wednesday detained Islamic preacher Rafiqul Islam Madani from Netrokona on charge of spreading anti-state and provocative statements.

RAB Senior Assistant Director (Legal and Media wing) ASP Imran Khan confirmed the news.

Earlier, police detained Rafiqul from Motijheel area on March 25.

He was detained during a demonstration, protesting visit of Indian Prime Minister Narendra Modi on the occasion of golden jubilee of the independence. Rafiqul was, however, later released.

Bangladesh sees highest daily corona cases, 63 more deaths

Bangladesh today confirmed 63 deaths from coronavirus infection in the last 24 hours, raising the death toll to 9,447.

According to the Health authorities, 7,626 people have tested positive for coronavirus in the last 24 hours raising the total number of coronavirus cases in the country to 659,278.

The Directorate General of Health Services (DGHS) disclosed the update of the country’s coronavirus situation issuing a press release this afternoon.

Meanwhile, 34,630 samples were tested in 227 labs across the country in the past 24 hours.

Bangladesh reported its first Coronavirus case on March 8 in last year while first death on March 18 in that year.

অভিনব কায়দায় ফেন্সিডিল পাচারকালে আটক ১

চাঁপাইনবাবগঞ্জঃ

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে অভিনব কায়দায় ফেন্সিডিল পাচারকালে এক যুবককে আটক করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।মঙ্গলবার (৬ এপ্রিল) দিবাগত রাত ৮টার দিকে শিবগঞ্জ উপজেলার একবরপুর দক্ষিন পাড়ায় এক অভিযানে তাকে আটক করা হয়।

আটক যুবক-শিবগঞ্জ উপজেলার একবরপুর দক্ষিনপাড়া গ্রামের মোঃ পুটু আলীর ছেলে মোঃ টমাস আলী (২৫)।

জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) সুত্রে জানা যায়, আটক টমাস অভিনব কায়দায় ২টি মবিলের জারকিনের তলা কেটে ফেন্সিডিলের বোতল ঢুকিয়ে ব্যাগে করে নিয়ে যাচ্ছিল। জেলা গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল তার ব্যাগ তল্রাসী করে ৪০ বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধার করে। পরে ফেন্সিডিলসহ তাকে আটক করে ডিবি পুলিশ।

বুধবার তার বিরুদ্ধে শিবগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেলা হাসপাতালের করোনা ইউনিট তালাবদ্ধ ! বিল বাকী ২০ লাখ টাকা

চাঁপাই নবাবগঞ্জ প্রতিনিধি ঃ

অর্থ সংকটে বন্ধ হতে বসেছে চাঁপাইনবাবগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেলা হাসপাতালের করোনা ইউনিট। গত তিনমাস ধরে চলা করোনা ইউনিট হঠাৎ বন্ধ হওয়ার কারণ হিসেবে অর্থ সংকটকেই দায়ী করছেন সংশ্লিষ্টরা।সুত্র জানায়, এ পর্যন্ত এ ইউনিট চালাতে ২০ লাখ টাকার বিল তৈরী করা হয়েছে,যার পুরোটায় বাঁকী। রোববার (৪ এপ্রিল) করোনা ইউনিটে যে দুজন ভর্তি ছিলেন, তাদেরকে  রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে স্থানান্তরের পরে নতুন কোন রোগী ভর্তি করা হয়নি করোনা ইউনিটে । এতে রোগীশূন্য করে কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়া হয়েছে এখানে। বুধবার (৭ এপ্রিল) চাঁপাইনবাবগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেলা হাসপাতালের পঞ্চম তলায় করোনা ইউনিটে গিয়ে দেখা যায়, সেখানে সবকিছু পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করে তালা মেরে রাখা হয়েছে।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস সংক্রমণের প্রথম ধাপে হাসপাতালের সপ্তম তলায় চালু হয় করোনা ইউনিট। চালুর পর থেকে ডাক্তার-নার্সদের থাকা, খাওয়াসহ বিভিন্ন সুবিধা দিতে বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যয় হয়। গত তিনমাসে ডাক্তার-নার্সদের বিভিন্ন সুবিধা, পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের বেতন, নতুন বেড স্থাপনসহ সবমিলিয়ে খরচ হয় প্রায় ২০ লাখ টাকা। বিভিন্ন হোটেলের খাবার বিলসহ আনুষাঙ্গিক প্রায় সব খরচই বাকি রয়েছে বলে জানা গেছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক করোনা ইউনিটে দায়িত্বরত এক নার্স জানান, রোববার দুইজন করোনা রোগীকে রামেক হাসপাতালে পাঠানোর পর রোগীশূন্য হয় জেলা হাসপাতালের করোনা ইউনিট।  এরপর এটি পরিষ্কার করে বেডের বিছানা, চাদরসহ বিভিন্ন আসবাবপত্র পরিবর্তন করা হয়েছে। নার্সের দাবী যেকোনো সময়ের জন্য পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করে প্রস্তুত রাখা হয়েছে করোনা ইউনিট।

অন্যদিকে করোনা ইউনিট বন্ধের বিষয়টি নাকচ করে চাঁপাইনবাবগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেলা হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) মো. জাহাঙ্গীর আলম জানান, এই মুহূর্তে কার্যক্রম বন্ধ থাকলেও করোনায় আক্রান্তদের চিকিৎসার জন্য সম্পূর্ণভাবে প্রস্তুত রাখা হয়েছে করোনা ইউনিট। সরকারের নির্দেশনা পেলেই এর কার্যক্রম আবারো শুরু করা হবে।

সিভিল সার্জন ডা. জাহিদ নজরুল চৌধুরী জানান, ‘চাঁপাইনবাবগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেলা হাসপাতালের ২০ শয্যাবিশিষ্ট করোনা ইউনিটে সোমবার (৫ এপ্রিল) পর্যন্ত চিকিৎসা নিয়েছেন ১৫৫ জন রোগী। বর্তমানে জেলায় যে ৩৮ জন করোনা রোগী রয়েছেন তারা প্রায় সবাই ভালো আছেন এবং বাসায় চিকিৎসা নিচ্ছেন।এদের মধ্যে চলতি সপ্তাহের রোববারই করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১০ জন ও সোমবার আটজন। তিনি আরও বলেন, ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে প্রায় ২০ লাখ টাকার বিল পাঠানো হয়েছে। আমরা আশা করছি, খুব শিগগিরই বিল পাওয়া যাবে। সরকারের নির্দেশনা পেলেই যেকোনো মুহূর্তে করোনা ইউনিট আবার চালু করা হবে।অর্থাভাবে কি ইউনিট টি বন্ধ করা হলো এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন,  বন্ধ করা হয়নি। চিকিৎসাধীন রোগী নাই। জেলায় যারা আক্রান্ত তারা সকলেই বাড়ীতে চিকিৎসা নিচ্ছে এবং সবাই ভাল আছে। ইউনিট বন্ধ করা হয়েছে, এ তথ্য সত্য নয় বলে দাবী তার।।

প্রসঙ্গত: জেলায় মোট করোনা রোগী ৮৬১ জন। মারা গেছেন ১৪ জন এবং মোট ৮১৬ জন সহ নতুন করে সুস্থ হয়েছে ৬জন।

শিবগঞ্জে ৬ হতদরিদ্র মেধাবী পৌর মেয়রের সহায়তায় দেখছেন মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় পাশের স্বপ্ন

 

শিবগঞ্জ( চাপাইনবাবগঞ্জ)প্রতিনিধি ঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ পৌর এলাকার ৬মেধাবী শিক্ষার্থী আসন্ন এসএসসি ও এইচ এসসি পরীক্ষা দেয়ার স্বপ্ন দেখছেন। এর আগে এদেরঅর্থাভাবে আসন্ন মাধ্যমিক (এসএসসি) ও উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার ফর্ম পূরণ অনিশ্চিত হয়ে পড়লেবিষয়টি পৌর মেয়র সৈয়দ মনিরুল ইসলামের নজরেআসলে তিনি ও তার ভাই তাদের আর্থিক সাহায্যেরহাত বাড়িয়ে ফর্ম পূরনের সুযোগ করে দেন।এ ব্যাপারে সদ্য নির্বাচিত মেয়র সৈয়দ মনিরুলইসলাম জানান, মেধাবী একজন ছাত্রও যেন অর্থাভাবেঝড়ে না পরে এজন্যই ক্ষদ্র প্রয়াস মাত্র। তিনি আরওজানান, বুধবার সকালে শিবগঞ্জ মহিলা কলেজের একছাত্রী কে আসন্ন উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার ফর্ম পূরণেরজন্য অর্থ নিজ হাতে তুলে দেন।অপরদিকে পৌর মেয়রের জেষ্ঠ্য ভাই ও শিবগঞ্জ উপজেলাপরিষদের চেয়ারম্যান সৈয়দ নজরুল ইসলামের পক্ষে ৫মেধাবী হতদরিদ্র শিক্ষার্থী রাজু, ওলিউল, আকতারুল,সাকিব ও ডালিমের হাতে অনুদানের অর্থ তুলে দেন।

করোনা প্রতিরোধে সড়ক প্রচার

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

চাঁপাইনবাবগঞ্জে করোনা ভাইরাস সংক্রমনের ঝুঁকি রোধে জনসচেনতামুলক সড়ক প্রচার চালিয়েছে জেলা তথ্য অফিস। করোনা সংক্রমনরোধে সরকারি নির্দেশনা  মেনে চলতে বুধবার জেলার বিভিন্ন পয়েন্টে মাইকিং করে এ প্রচারণা চালানো হয়।

প্রয়োজন ব্যতীত বাড়ির বাইরে না আসা, জনসমাগম এড়িয়ে চলা, মাস্ক পরিধান করা, নিত্য প্রয়োজনীয় পন্যের দোকান, ফার্মেসী ও জরুরী সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান ব্যতীত অন্য সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখাসহ বিভিন্ন নির্দেশনা প্রচার করে জেলা তথ্য অফিস।

জেলা তথ্য অফিসের নিজস্ব মাইক্রোতে মাইকিং করে করোনা ভাইরাস সংক্রমনের ঝুঁকি রোধে জনসচেনতামুলক প্রচারণা চালানো হয়।

করোনা নির্দেশনা অমান্য করায় ৬ ব্যবসায়ীকে জরিমানা

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

করোনা ভাইরাস সংক্রমনরোধে প্রনীত সরকারি নির্দেশনা অমান্য করায় চাঁপাইনবাবগঞ্জে ৬ ব্যবসায়ীকে জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমান আদালত। বুধবার সকাল ১১টা হতে দুপুর ১টা পর্যন্ত ভ্রাম্যমান আদালত শহরের বিভিন্ন মোড়ে এ অভিযান পরিচালনা করে।

জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার ও ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রওশনা জাহান জানান, জেলা শহরের নিউ মার্কেট, সেন্টু মার্কেট, সাটু হল মার্কেট, ক্লাব সুপার মার্কেট, পুরাতন বাজার, শিবতলা, বারঘরিয়াসহ বিভিন্ন জায়গায় অভিযান পরিচালনা করা হয়। এসময়, সরকারি নির্দেশনা অমান্য করায় ৬ ব্যবসায়ীকে ৪ হাজার ৭০০ টাকা জরিমানা আরোপ ও আদায় করা হয়। এসময় করোনা ভাইরাস সংক্রমনরোধে সরকারি নির্দেশনা মেনে চলতে সবাইকে আহবান জানানো হয়। তিনি জানান, জনগণকে সচেতন করতে এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।

এসময় সহকারী কমিশনার শাহনাজ পারভীনসহ র‌্যাব-৫, সিপিসি-১, চাঁপাইনবাবগঞ্জ ক্যাম্পের একটি দল ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনায় সহযোগিতা করেন।