সর্বশেষ সংবাদ আলজাজিরার বিরুদ্ধে আদালতে মামলা হল খুলতে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো পাবে ৫০ কোটি টাকা ১ কোটি ৯ লাখ ৮ হাজার ডোজ টিকা পাচ্ছে বাংলাদেশ ঐশ্বরিয়া পাকিস্তানে! তীব্র বাতাসে ও গরমে কক্সবাজারে আর্চারিরা 18 anti-tank rockets recovered from Satchhari 6 killed as Myanmar security forces fire at protesters Bangladesh reports 5 deaths পাপুলের আসনে ভোট ১১ এপ্রিল ভোলাহাটের সব স্কুল এখন স্ক্যানার থার্মোমিটার দৃশ্যমান

ঢাকার ফুটপাতে চলাচলে হচ্ছে নিরাপদ ও সহজ ব্যবস্থা

ঢাকার রাস্তায় পথচারীদের হাঁটাকে সহজ করে দিতে বেশ কিছু প্রকল্প হাতে নিয়েছে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন (ডিএনসিসি)। এজন্য ডিএনসিসি আওতাধীন গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলোতে নতুন করে আরো ৩৬টি ফুটওভার ব্রিজ নির্মাণ করা হবে।

ডিএনসিসি বলছে, উত্তরের বিভিন্ন সড়কে থাকা আরো ৪৭টি ফুটওভার ব্রিজ আধুনিকায়ন করা হবে। নতুনসহ মোট ৮টিতে বিদ্যুৎচালিত সচল সিঁড়ি রাখা হবে। এর ফলে এসব উড়াল সেতুতে শিশু, বৃদ্ধ ও প্রতিবন্ধী মানুষেরা সহজে যাতায়াত করতে পারবে।

জানা গেছে, ৮টি ওভারব্রিজে মোট ১৬টি এস্কেলেটর থাকবে। এছাড়াও যাত্রীদের নিরাপত্তার জন্য সড়কে নতুন করে ৫০টি ছাউনিও নির্মাণ করা হবে। পাশাপাশি ৭ দশমিক ৭৪ কিলোমিটার সড়ক মিডিয়ানে উন্নয়ন করে মিডিয়ান ও ফুটপাতের সাইডে ৪৫টি গ্রিলের বেড়া দেয়া হবে।

এ বিষয়ে ডিএনসিসি মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম ডেইলি বাংলাদেশকে বলেন, উত্তরের সড়কগুলোতে পথচারীদের নিরাপত্তা আমাদের কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। পায়ে হাঁটা পথকে আরো সহজ করতে হলে ঢাকাকে আধুনিকায়ন করতে হবে। এজন্য নতুন করে ৩৬টি ফুটওভার ব্রিজ নির্মাণ করা হবে। যার ৮টিতে থাকবে সচল সিঁড়ি। সচল সিঁড়িগুলো বিভিন্ন হাসপাতাল ও গুরুত্বপূর্ণ স্থানের সামনে থাকবে বলেও তিনি জানান।

এদিকে সোহরাওয়ার্দী হাসপাতাল ও হার্ট ফাউন্ডেশনের সামনে সচল সিঁড়ি বসানো ফুটওভার ব্রিজ করার সিদ্ধান্ত এরই মধ্যে হয়ে গেছে। এছাড়া অন্যান্য স্থানগুলো হলো কাকলী, শাহীন কলেজ, শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতাল, আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ, সিএমএইচ হাসপাতাল, শ্যামলী ইন্টারসেকশন, মহাখালী ফুটওভার ব্রিজ অঞ্চল-৩ ও প্রগতি সরণি ইস্ট-ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয় ফুটওভার ব্রিজে দুটি করে মোট ১৬টি চলন্ত সিঁড়ি স্থাপন করা হবে। এসব এলাকায় হাসপাতাল ছাড়াও গুরুত্বপূর্ণ শিক্ষা ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন অফিস রয়েছে।

ডিএনসিসি মেয়র বলেন, ট্রাফিক সমীক্ষা প্রতিবেদন এবং জনসাধারণের চাহিদা বিবেচনা করে ফুটওভার ব্রিজে এস্কেলেটর স্থাপনের স্থান নির্বাচন করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ‘ডিএনসিসি এলাকার ট্রাফিক অবকাঠামো উন্নয়নসহ সড়ক নিরাপত্তা’ প্রকল্পের আওতায় এসব উন্নয়ন করা হচ্ছে। এই প্রকল্পটি ৩১৯ কোটি টাকা ব্যয়ে চলতি সময় থেকে ২০২৩ মেয়াদে বাস্তবায়ন করা হবে। এর আওতায় সব মিলিয়ে ডিএনসিসির আওতাধীন ১৩ দশমিক ৬৮ কিলোমিটার সড়ক উন্নয়ন, ৯ কিলোমিটার পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা এবং সাড়ে ২৬ কিলোমিটার ফুটপাত উন্নয়ন করা হবে।

উল্লেখ্য, ৩৬টি ফুটওভার ব্রিজ যেসব স্থানে বসবে সেই স্থানগুলো হলো- কুড়িল চৌরাস্তা, মাস্টার মাইন্ড স্কুল, গাউছুল আজম অ্যাভিনিউ, লুবানা হাসপাতাল, গরিবে নেওয়াজ অ্যাভিনিউ, গাউছুল আজম অ্যাভিনিউ পূর্ব, মাইলস্টোন কলেজ উত্তরা, বঙ্গবন্ধু সরকারি কলেজ সিরামিক রোড, প্রশিকা ক্রসিং মিল্ক ভিটা রোড, শিয়ালবাড়ী মোড়, মিরপুর সিরামিক রোড পেট্রোল পাম্পের পাশে, মিরপুর আইডিয়াল গার্লস ল্যাবরেটরি ইনস্টিটিউট, পুলিশ স্টাফ কলেজ, নাবিস্কো ফ্যাক্টরির সামনে, বিজি প্রেস উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে, মহাখালী ডিএনসিসি অঞ্চল-৩ অফিসের সামনে, মহাখালী ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে, নেভাল হেডকোয়ার্টার সংলগ্ন এয়ারপোর্ট রোড, এয়ারপোর্ট রোড আর্মি স্টেডিয়ামের সামনে।

সড়ক ও রেলপথ নিরাপদ করতে অবৈধ সব রেলওয়ে লেভেল ক্রসিং বন্ধ হচ্ছে

দেশে থাকবে না কোন অবৈধ রেলওয়ে লেভেল ক্রসিং। সারাদেশের কোথাও কোন অবৈধ খোলা গেটম্যানবিহীন রেলওয়ে লেভেল ক্রসিং রাখতে চায় না সরকার। রেল ক্রসিংয়ে বিভিন্ন প্রকার যানবাহনের সঙ্গে ট্রেনের সংঘর্ষে দুর্ঘটনা ও হতাহতের হার কমিয়ে শূন্যে নামিয়ে আনতেই এমন উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। মূলত রেলপথ ও সড়কপথ নিরাপদ করতে রেল ক্রসিংয়ের দুপাশে স্পীড ব্রেকার স্থাপন, গুমটি ঘর নির্মাণ, রেলগেট নির্মাণ, সুরক্ষা সরঞ্জামাদি স্থাপনসহ নানাভাবে বৈধ বা ব্যবহার উপযোগী করে গড়ে তোলা হবে সকল রেল ক্রসিং। এর বাইরে রেললাইন ঘিরে সড়কে আন্ডারপাস কিংবা ওভারপাস নির্মাণ, যথাসম্ভব লেভেল ক্রসিং গেটের সংখ্যা কমানো, এলজিইডি কিংবা বিভিন্ন সংস্থা কর্তৃক অবৈধ এবং চরম ঝুঁকিপূর্ণভাবে নির্মিত লেভেল ক্রসিংগুলোয় পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হবে। প্রতিটি অবৈধ রেল ক্রসিংয়ে নিয়োগ দেয়া হবে গেটম্যান। এছাড়াও এখন থেকে বাধ্যতামূলকভাবে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের অনুমতি ছাড়া সরকারের কোন সংস্থাই নতুন কোন রেল ক্রসিং হবে এমন কাঁচা বা পাকা সড়ক নির্মাণ করতে পারবে না। গত ১০ জানুযায়ি রেলপথ মন্ত্রণালয়ে এ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে রেলপথ মন্ত্রণালয় এবং স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় (এলজিআরডি) ঐকমত্যে পৌঁছেছে। উল্লেখ্য, বর্তমানে সারাদেশে ১ হাজার ১৪৯টি অবৈধ রেল ক্রসিং রয়েছে। গত ১৩ বছরে রেল ক্রসিংয়ে ঘটা দুর্ঘটনায় ২৯৮ জনের মৃত্যু হয়েছে।

রেল সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, সিটি কর্পোরেশন, জেলা, উপজেলা, পৌরসভা এমনকি ইউনিয়ন পরিষদের সীমানায় অবস্থিত সকল রেল ক্রসিংকে নিয়মের মধ্যে আনতে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে যৌথভাবে কাজ করবে। এসব এলাকায় অবস্থিত সকল রেল ক্রসিংকে বৈধ করতে প্রয়োজনীয় সকল কিছু নিজস্ব ব্যয়ে নির্মাণ করবে এলজিআরডি মন্ত্রণালয় তবে রক্ষণাবেক্ষণ করবে রেলপথ মন্ত্রণালয়। সম্প্রতি রেলপথ মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে আয়োজিত আন্তঃমন্ত্রণালয় সভায় এ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে বলে জনকণ্ঠকে জানিয়েছেন রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব সেলিম রেজা ও এলজিআরডি মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দিন আহমেদ। একইসঙ্গে অতি দ্রুততার সঙ্গে সকল অবৈধ রেল ক্রসিংয়ের দুপাশে স্পীড ব্রেকার নির্মাণ করার কথাও নিশ্চিত করেন তারা।

রেলপথ মন্ত্রণালয় ও স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের যৌথ উদ্যোগে এসব অবৈধ ক্রসিংকে ঝুঁকিমুক্ত বা ব্যবহারযোগ্য করা হবে। এদিকে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের অনুমতি ছাড়া নতুন করে রেললাইন অতিক্রম করবে এমন কাঁচা বা পাকা রাস্তা নির্মাণ না করার ঘোষণা দিয়েছে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়। যদি কোন স্থানে অনুমতি ছাড়াই রেল ক্রসিং করে রাস্তা নির্মাণ করা হয় তাহলে তাদের প্রকৌশলীদের বিরুদ্ধে আইনানুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানা গেছে। এর ফলে ইচ্ছেমতো রেললাইনের ওপর দিয়ে অবৈধ রাস্তা তৈরির পথ চিরতরে বন্ধ হবে। এর মাধ্যমে আশা করা যায় অবৈধ রেল লেভেল ক্রসিংয়ে আর কোন দুর্ঘটনা ঘটবে না। দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর সকল অবৈধ রেল ক্রসিংয়ে এমন উদ্যোগ নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয়। রেল মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, দেশের বতর্মান বৈধ ও অবৈধ সকল রেল ক্রসিংয়ে আগে বাধ্যতামূলকভাবে স্পীড ব্রেকার নির্মাণ করা হবে। দুর্ঘটনা কমাতে ও সামনে রেলপথের অবস্থান বোঝাতে অতি দ্রুতই এসব স্পীড ব্রেকার নির্মাণের কাজ শুরু করা হবে।

২০২১ সালে ৯০ ভাগ সরকারি সেবা ডিজিটালাইজড করা হবে’

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, ২০২১ সালের মধ্যে সবার জন্য ইন্টারনেট সুবিধা নিশ্চিত করার পাশাপাশি ৯০ শতাংশ সরকারি সেবা ডিজিটালাইজড করার লক্ষ্য নিয়ে কাজ করছে সরকার। তিনি বলেন মানুষ সেবার পেছনে ছুটবে না, সেবা পৌঁছে যাবে মানুষের হাতের মুঠোয়।

প্রতিমন্ত্রী আজ আগারগাঁওস্থ আইসিটি টাওয়ারের বিসিসি অডিটরিয়ামে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের উদ্যোগে “মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ডিজিটাল বাংলাদেশের এগিয়ে যাওয়ার ১২ বছর” উপলক্ষ্যে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আইসিটি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলম, বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের নির্বাহী পরিচালক পার্থপ্রতিম দেব, বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হোসনে আরা বেগম, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এ. বি. এম. আরশাদ হোসেনসহ বিভাগ ও এর অধীন বিভিন্ন দপ্তরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

প্রতিমন্ত্রী বলেন প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বিগত ১২ বছরে দেশে একটি শক্তিশালী আইসিটি অবকাঠামো তৈরি হয়েছে, যা গ্রাম এলাকা পর্যন্ত তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির সম্প্রসারণ ঘটিয়েছে। দেশের ৩ হাজার ৮শ’ ইউনিয়ন এখন ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট কানেক্টিভিটির আওতায় এসেছে। ২০২১ সালের মধ্যে সকলের জন্য ইন্টারনেট নিশ্চিত করা হবে বলেও তিনি জানান।

তিনি বলেন, আইসিটি অবকাঠামো গড়ে তোলার কারণে করোনা মহামারিকালে অনলাইন/সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে অফিস-আদালত, চিকিৎসা সেবা, শিক্ষা ও ব্যবসা-বাণিজ্য, বিনোদন এমনকি কোর্টের কার্যক্রমও চালু রাখা সম্ভব হচ্ছে। সরকার করোনা পোর্টাল, কোভিড ট্রেসার, কোভিড ১৯ ট্রাকার, ফুড ফর ন্যাশন, হেলথ ফর ন্যাশনসহ বিভিন্ন ডিজিটাল প্লাটফর্ম ব্যবহার করে করোনা মোকাবেলা করছে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ২০২১ সালের মধ্যে প্রায় ২ হাজার ৮শ’ সরকারি সেবাকে ডিজিটালাইজড করার অংশ হিসেবে ইতোমধ্যে ৬০০টি সেবা ডিজিটাল সেবায় রূপান্তর করা হয়েছে। সরকার অফিসের কার্যক্রমে কাগজ ও কলমের ব্যবহার কমিয়ে আনার লক্ষ্যে ই-অফিস কার্যক্রম চালু করেছে। এরই অংশ হিসেবে সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়/সরকারি অফিসে কাজের গতিশীলতা, স্বচ্ছতা এবং জবাবদিহিতা আনয়নে ই-নথি চালু করা হয়। বর্তমানে ৮ হাজারেরও বেশি অফিসের প্রায় ৯০ হাজারেরও অধিক কর্মকর্তা ই-নথি ব্যবহার করছে। অদ্যবধি, ১ কোটি ৪৩ লাখ ফাইল ই-নথি সিস্টেমের মাধ্যমে নিষ্পত্তি হয়েছে।

গত ২৫ বছরে আওয়ামীলীগের হয়ে কোন মেয়র নির্বাচিত হয়নি——-সৈয়দ মনিরুল

স্টাফ  রিপোর্টার
আসন্ন পৌর নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী সৈয়দ মনিরুল ইসলাম মনোনয়ন জমা শেষে এক প্রতিক্রিয়ায় নৌকাকে বিজয়ী করার জন্য আওয়ামীলীগকে ঐক্যব্ধভাবে কাজ করার অনুরোধ জানান।তিনি বলেন , গত ২৫ বছরে শিবগঞ্জ পৌরসভায় আওয়ামীলীগ দলীয় কোন মেয়র ক্ষমতায় বসতে পারেনি। সরকার দীর্ঘসময় ক্ষমতায় থাকলেও শিবগঞ্জ ছিল এর ব্যতিক্রম। গত ২৫ বছরে সরকারদলীয় কোন মেয়র জয় পায়নি।এতে করে পৌরসভার উন্নয়ন ব্যহত হয়েছে।তাই পৌরসভার উন্নয়ন করতে প্রথমবার আওয়ামীলীগের প্রার্থীকে সুযোগ দেয়ার জন্য পৌরবাসীর কাছে আবেদন জানান।

নির্বাচনী পরিবেশ সুষ্ঠ থাকলে জয় আমাদেরই—– ওজিউল

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ পৌরসভার নিবাচনে
বিএনপি প্রার্থী ওজিউল ইসলাম মিঞা তার এক প্রতিক্রিয়ায় নির্বাচনের পরিবেশ শান্তিপূর্ণ থাকলে জয়ের ব্যাপারে আশা প্রকাশ করে বলেন, নির্বাচন শান্তিপূর্ন হবে কিনা তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ রয়েছে।তিনি দলীয় নেতাকর্মীদের সজাগ থেকে ঐক্যবদ্ধভাবে জয়ের জন্য কাজ করার অনুরোধ জানান।
প্রসঙ্গত: আসন্ন ৪র্থ ধাপের পৌর নির্বাচনে মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন ১৭ জানুয়ারী,বাছাই ১৯ জানুয়ারী,প্রত্যাহার ২৬ জানুয়ারী এবং ভোটগ্রহণ ১৪ ফেব্রুয়ারী।

চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুরে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২: আহত ৩

চাপাইনবাবগঞ্জ  প্রতিনিধি ঃ
চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২ জন দাঁড়িয়েছে।আহত হয়েছে ৩জন। রোববার(১৭ জানুয়ারী) দুপুরে রহনপুর – যাতাহারা সড়কের ডোবারমোড়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে ।
নিহত ব্যক্তি উপজেলার বোয়ালিয়া ইউনিয়নের কাঞ্চনতলা গ্রামের রবিউল ইসলামের ছেলে বাদশা(৩৫ ) এবং চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত অপরজন মোটরসাইকেল চালক রাধানগর ইউনিয়নের কাজেমপুর গ্রামের আলতাসউদ্দিনের ছেলে সোহেল (৩৬)।

এ ঘটনায় আহতরা হল, একই ইউনিয়নের কাঞ্চনতলা গ্রামের আব্দুস সালামের ছেলে শহিদুল (২৩) মুসলিমউদ্দিনের ছেলে মোবারক(৩১) নুরতাজ আলীর ছেলে মোরসালিন(২০)।
গোমস্তাপুর ফায়ার সার্ভিস জানায়,রহনপুর – যাতাহারা সড়কের ডোবারমোড়েএকটি ট্রলির সাথে মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষ হলে ট্রলির ৪ শ্রমিক ও মোটরসাইকেল চালক গুরুতর আহত হয়।এদের মধ্যে গুরুতর আহত দুজনকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে হাসপাতালে নেয়ার পথে শ্রমিক বাদশাহ এবং চিকিৎসাধিন অবস্থায় রাতে মোটরসাইকেল চালক সোহেল মারা যায় । আহতরা গোমস্তাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে।
এ ব্যাপারে গোমস্তাপুর থানার ওসি দিলীপ কুমার একজন এবং রাজশাহী মেডিকেল পুলিশ বক্সের এ এস আই একজনের নিহতের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।।

ভোলাহাটে জাতীয় ফুটবল দলের গোলরক্ষক মিনার আর নেই

ভোলাহাট(চাঁপাইনবাবগঞ্জ)প্রতিনিধিঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার ভোলাহাট উপজেলার জাতীয় দলের সাবেক গোলরক্ষক মিনা মারা গেছেন। শনিবার রাতে ভালো অবস্থায় শুয়ে পড়লেন। হঠাৎ ১৭ জানুয়ারী রবিবার ভোর ৭টার দিকে অসুস্থ্য হয়ে পড়লে দ্রুত ভোলাহাট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য নিলে রাস্তায় তার মৃত্যু হয়। বিষয়টি দায়িত্বরত চিকিৎসক মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।উপজেলার বজরাটেক কানারহাট গ্রামের মৃত আব্দুল মাজিদ শাহ্ (সাবেক গোহালবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান) এর বড় ছেলে আলহাজ্ব পারভেজ কবির শাহ্ (মিনা)। তার মৃত্যুকালে বয়স হয়েছিলো ৬৮ বছর। তিনি স্ত্রী ও ১ ছেলেসহ অসংখ্য গুনাগ্রহী রেখে গেছেন। তিনি বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের সাবেক দ্বিতীয় গোলরক্ষক।তিনি উপজেলার ফুটবলারদের কিংবদন্তি এবং বজরাটেক নবীন সংঘ ফুটবল দলের কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন।তার নামাজে জানাজা বজরাটেক পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে ১৮ জানুয়ারী সকাল ১০টার দিকে অনুষ্ঠিত হবে। জানাজা শেষে তাকে বজরাটেক কবর স্থানে দাফন সম্পন্ন করা হবে বলে স্বজনেরা জানান। তার মৃত্যুতে এলাকাবাসি গভীর ভাবে শোকাহত। তার মৃত্যুতে ভোলাহাট প্রেসক্লাব কর্তৃপক্ষ গভীর শোক প্রকাশ করেছে এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেছেন।

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে ৩ জনসহ ৫৫ জনের মনোনয়ন দাখিল

শিবগঞ্জ( চাপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধি ঃ

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে মনোনয়ন জমাদানের শেষ দিনে উৎসবমূখর পরিবেশে মেয়র পদে ৩ জন, সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর ১৬ জন ও কাউন্সিলর পদে ৩৯ জন প্রার্থী তাদের মনোনয়ন পত্র জমা দিয়েছেন।
শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন অফিসার (অতিরিক্ত দায়িত্ব) মাহবুবুল কবির জানান, রবিবার(১৭ জানুয়ারী) পর্যন্ত প্রথমে আ’লীগের মনোনিত মেয়র প্রার্থী সৈয়দ মনিরুল ইসলাম এবং পরে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী ওজিউল ইসলাম দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে মনোনয়ন পত্র জমা দেন। বিকেলে জাতীয় পার্টির মনোনীত প্রার্থী আফজাল হোসেন মনোনয়ন জমা দেন।
এছাড়া মহিলা কাউন্সিলর ও কাউন্সিলর প্রার্থীগণ উৎসবমুখর পরিবেশে তাদের মনোনয়নপত্র জমা দেন। এর আগে এ নির্বাচনে ৩ জন মেয়র প্রার্থী , ৪০ জন কাউন্সিলর প্রার্থী এবং ১৬ জন সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থীসহ ৫৬ জন কাউন্সিলর প্রার্থী মনোনয়ন পত্র উত্তোলন করেছেন।

গোমস্তাপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ১: আহত ৪

 

চাঁপাইনবাবগঞ্জ:

চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় একজন নিহত ও ৪ জন আহত হয়েছে। রোববার(১৭ জানুয়ারী) দুপুরে রহনপুর – যাতাহারা সড়কের ডোবারমোড়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে ।
নিহত ব্যক্তি উপজেলার বোয়ালিয়া ইউনিয়নের কাঞ্চনতলা গ্রামের রবিউল ইসলামের ছেলে বাদশা(৩৫ )।
আহতরা হল, একই ইউনিয়নের কাঞ্চনতলা গ্রামের আব্দুস সালামের ছেল শহিদুল,  মোবারক(৩১) নুরতাজ আলীর ছেলে মোরসালিন(২০)ও মোটরসাইকেল চালক সোহেল (৩৬)।

গোমস্তাপুর ফায়ার সার্ভিস জানায়, রহনপুর – যাতাহারা সড়কের ডোবারমোড়ে একটি ট্রলির সাথে মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষ হলে ট্রলির ৪ শ্রমিক ও মোটরসাইকেল চালক গুরুতর আহত হয়।এদের মধ্যে গুরুতর আহত দুজনকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে হাসপাতালে নেয়ার পথে শ্রমিক বাদশাহ মারা যান । আহতদেও একজন রাজশাহী মেডিকেলে এবং বাকীরা গোমস্তাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে

প্রধানমন্ত্রীর কল্যাণ তহবিল থেকে আওয়ামী লীগ কর্মীদের মধ্যে অনুদানের চেক বিতরণ

চাঁপাইনবাবগঞ্জ

প্রধানমন্ত্রীর কল্যাণ তহবিল থেকে দুস্থ ও অসুস্থ আওয়ামী লীগ কর্মীদের মধ্যে অনুদানের চেক বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

আজ রবিবার দুপুরে জেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার কল্যাণ তহবিল থেকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার বিভিন্ন এলাকার দুস্থ ও অসুস্থ আওয়ামী লীগ কর্মীদের মধ্যে অনুদানের চেক বিতরণ করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে চেক বিতরণ করেন জাতীয় সংসদে সংরক্ষিত মহিলা আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য ফেরদৌসী ইসলাম জেসি( এম পি) এছাড়া চেক বিতরণের সময় আরো উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব রুহুল আমিন, জেলার সদর আওয়ামী লীগের সভাপতি আজিজুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক এ্যাডঃ নজরুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল হাই,কৃষিবিদ ড. সাইফুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক আরিফুর রেজা ইমন, সদস্য ওলিউর রহমান বুলেট, জেলা ছাত্র লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নাহিদ সিকদার,জেলা যুবলীগ নেতা মেসবাহুল জাকের সহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ, ছাত্র লীগ, যুবলীগ নেতৃবৃন্দ।১৪ জন দুস্থ ও অসুস্থ আওয়ামী লীগ কর্মী দের মধ্যে চার লক্ষ আশি হাজার টাকার চেক বিতরণ করা হয়।