সর্বশেষ সংবাদ অপরাধীদের দিন শেষঃ তৈরী হচ্ছে জাতীয় ডিএনএ ডাটাবেজ’ গণভবন থেকে ভার্চুয়াল মাধ্যমে বহু প্রতিক্ষীত রেলসেতুর নির্মাণকাজের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী করোনাযোদ্ধাদের কোয়ারেন্টিন’ ভাতা পাওয়া শুরু গোমস্তাপুরে সাবেক ছাত্র নেতা সুমনের ওপর হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন চাঁপাইনবাবগঞ্জ সীমান্তে ২ বাংলাদেশীকে ধরে নিয়ে গেছে বিএসএফ অন্যের ট্রাক থেকে তেল চুরি করতে গিয়ে আটক ৪ বঙ্গবন্ধুর ভার্স্কয নিয়ে কটুক্তির প্রতিবাদে চাঁপাইনবাবগঞ্জে স্বেচ্ছাসেবকলীগের মানববন্ধন পদ্মা সেতুতে বসল ৩৯তম স্প্যান ঃ আর বসবে মাত্র দুটি স্প্যান র‌্যাংকিংয়ে সুখবর বয়ে আনল বাংলাদেশ ফুটবল দল তিন ব্যাংক তালিকাভুক্ত হচ্ছে শেয়ারবাজারে

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে ধান বোঝাই ভুটভুটি উল্টে ৯ শ্রমিক নিহত, আহত-৬

শিবগঞ্জ( চাপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধি ঃ
চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার দাইপুখুরিয়া ইউনিয়নের গাজিপুর এলাকায় ধান বোঝাই ভুটভুটি উল্টে ৯জন শ্রমিক নিহত ও ৬জন আহত হয়েছে। বৃহষ্পতিবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে এই দূর্ঘটনা ঘটে।এ ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।পাশাপাশি এলাকাবাসীর মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে।এদিকে উপজেলা প্রশাসন নিহতের প্রতিটি পরিবারকে ১০ হাজার টাকা করে দাফনের জন্য প্রদান করেছে।
নিহতরা হচ্ছেন, শিবগঞ্জ উপজেলার শাহাবাজ ইউনিয়নের বালিয়াদিঘী গ্রামের মৃত নওশাদ আলীর ছেলে আবুল কাসেম(৪০), এরফান আলীর ছেলে বাবুল (২২), তাজামুল হক(৫০) ও তাঁর ছেলে ছেলে মিঠুন(২৪), কাবিলের ছেলে কারিম(৪০), আমিরুলহকের ছেলে মিলু(৪০), রেহমানের ছেলে আতউল রহমান(২৮), দাইপুখুরিয়া ইউনিয়নের সোনাপুরের মজিবুরের ছেলে ভুটভুটি চালক মাসুদ (২৩) এবং চককীর্ত্তি ইউনিয়নের লাউঘাট্টা গ্রামের আজিজুলের ছেলে আহাদ (২২)। এ ঘটনায় আরো ৬জন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে একজনের নাম পরিচয় পাওয়া গেছে। আহত শ্রমিক রবুলের ছেলে হামদুল (৩০)।তবে বাকী আহতের নাম পরিচয় পাওয়া যায়নি।আহতরা শিবগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে।
স্থানীয়রা ও শিবগঞ্জ থানা পুলিশ জানায় , ভোর সাড়ে ৪টার দিকে শিবগঞ্জ উপজেলার বালিয়াদিঘী এলকার ১৬জন ধান কাটা শ্রমিক নওঁগা জেলার বরেন্দ্র এলাকা থেকে ভুটভুটি যোগে ধান সহ বাড়ি ফিরার পথে দাইপুখুরিয়া ইউনিয়নের বারিক বাজার সংলগ্ন গাজিপুরে চালক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে পুকুরে পড়ে গেলে ট্রলি উল্টে ঘটনাস্থলেই ৭ জন মারা যায় ও বাকী ২ জনকে হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যায়। এছাড়া আরো ৬জন আহত হয়।এদিকে বিষয়টি স্থানীয়দের মধ্যে ইয়াসীন আলী ৯৯৯ নম্বরে ফোন করলে শিবগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের একটি দল ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে উদ্ধার তৎপরতা আরম্ভ করে। আহত ৬ জনকে স্থানীয়দের সহায়তায় উদ্ধার করে ঢায়ারসার্ভিসের অ্যাম্বুলেন্সযোগে প্রথমে শিবগঞ্জ উপজেলা স্কাস্থ্য কমপ্লেক্স এবং পরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

উর্পাজনক্ষম ২ জনকে হারিয়ে পুরো পরিবার এখন অন্ধকারে:এলাকায় শোক

শিবগঞ্জ (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধি: চাঁপাইনবাবগঞ্জের সোনামসজিদ এলাকার গাজিপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় ৯ জন নিহত হয়।এদের মধ্যে একই পরিবারের ২ জন সদস্য রয়েছে।এরা ২ জনই পরিবারটির এক মাত্র অবলম্বন ছিলেন।কিন্তু বৃহষ্পতিবারের সড়ক র্দুঘটনায় তাদের পরিবারটি এখন অন্ধকার দেখছে।একসাখে বাবা ও ছেলের মৃত্যুতে পরিবারটির সামনে রয়েছে চরম দুর্ভোগ।এদিকে নিহতদের ৭জনের বাড়ি সোনামসজিদের বালিয়াদিঘী এলাকায় হওয়ায় পুরো এলাকা শোকাচ্ছন্ন।একদিকে একসাথে গ্রামের ৭ জনকে হারিয়ে এলাকাবাসীর মধ্যে একধরনের ক্ষোভ বিরাজ করছে।অন্যদিকে শোকাহত গ্রামবাসী এ ঘটনার জন্য সরু ও ভাঙ্গা রাস্তাকে দায়ী করেছেন।
স্থানীয় যুবলীগ নেতা আলমগীর কবির জানান, তারা একাধিকবার চেয়ারম্যান ও সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড সদস্যকে রাস্তাটি মেরামতের আবেদন করেও কোন ফল পাননি।একই এলাকার জোবদুল হক এটি দুর্ঘটনা না বলে হত্যাকান্ড বলে দাবী করেন।তিনি জানান,এর আগে একই এলাকায় কয়েকটি দুর্ঘটনা ঘটার পরও প্রশাসনের টনক নড়েনি।তার প্রশ্ন আর কত লাশ পেলে রাস্তাটি সংষ্কার হবে?

এদিকে বেলা ৩টায় সোনামসজিদ গনকবর চত্তরে নিহত ৭ জনের জানাযা শেষে দাফন সম্পন্ন হয়।এ সময় জেলা পরিষদের সদস্য হারুন আর রশিদ প্রত্যেকটি পরিবারকে ১০ হাজার টাকা,শাহবাজপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান তোজাম্মেল হক ৩ হাজার টাকা সহ অনেকে সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেন। অপরদিকে একই বাড়ির নিহত ২ জনের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায় সেখানে চলছে শোকের মাতম।২ বছর আগে বিবাহে আবদ্ধ হয়ে সংসারে আসেন আশা। মাত্র ২ বছরের মাথায় স্বামী ও শশুর কে হারিয়ে এখন অনেকটায় বাকরুদ্ধ।মাঝে মধ্যে হাউমাউ করে কেঁদে উটছেন।আবার মাঝে মধ্যেই শোকে পাথর হয়ে নিশ্চুপ থাকছেন তিনি। শশুর তাজামুল হক(৫০) ও স্বামী মিঠুন মারা যাওয়ায় একসাথে তিনি ও তার শাশুরী ২ জন বিধবা হলেন।যেটা তারা কেউই মেনে নিতে পারছেন। আর শাশুরি তার ঘরে বসে বিলাপ করছেন।মাছে মধ্যে তিনি হারিয়ে ফেলছেন জ্ঞান। পরিবারের ২ সদস্যকে হারিয়ে পরিবারের উর্পাজনও বন্ধ হয়ে গেল।মিঠুনের ২ সন্তানের একজন ৮ মাসের এবং অপরজন ৩ বছর বয়সী।
মিঠুনের স্ত্রী আশা জানান, তার শশুর স্বামী ও শাশুরিকে নিয়ে ছিল তাদের সুখের সংসার।পরিবারে এসেছে ফুটফুটে ২ টি সন্তান। কিন্তু এক দুর্ঘটনা তাদের সবকিছু উলোট-পালট করে দিল।এখন সেই ফুটফুটে সন্তান ২টিই তাদের জন্য বোঝা হয়ে দাঁড়াল।
তিনি ক্ষোভের সাথে জানান, ঘটনার পরপরই সহায়তা পেলেও পরে আর কেউ খোঁজ রাখবেনা।তিনি তার পরিবারকে চালিয়ে নিতে উর্পাজনের একটা ব্যবস্থা প্রশাসনের কাছে দাবী করেন।