সর্বশেষ সংবাদ অপরাধীদের দিন শেষঃ তৈরী হচ্ছে জাতীয় ডিএনএ ডাটাবেজ’ গণভবন থেকে ভার্চুয়াল মাধ্যমে বহু প্রতিক্ষীত রেলসেতুর নির্মাণকাজের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী করোনাযোদ্ধাদের কোয়ারেন্টিন’ ভাতা পাওয়া শুরু গোমস্তাপুরে সাবেক ছাত্র নেতা সুমনের ওপর হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন চাঁপাইনবাবগঞ্জ সীমান্তে ২ বাংলাদেশীকে ধরে নিয়ে গেছে বিএসএফ অন্যের ট্রাক থেকে তেল চুরি করতে গিয়ে আটক ৪ বঙ্গবন্ধুর ভার্স্কয নিয়ে কটুক্তির প্রতিবাদে চাঁপাইনবাবগঞ্জে স্বেচ্ছাসেবকলীগের মানববন্ধন পদ্মা সেতুতে বসল ৩৯তম স্প্যান ঃ আর বসবে মাত্র দুটি স্প্যান র‌্যাংকিংয়ে সুখবর বয়ে আনল বাংলাদেশ ফুটবল দল তিন ব্যাংক তালিকাভুক্ত হচ্ছে শেয়ারবাজারে

আকাশপথে ভ্রমণে দুর্ঘটনায় নিহত বা আহত যাত্রীদের ক্ষতিপূরণ ৬ গুণ বাড়ল

আকাশপথে পরিবহনের সময় দুর্ঘটনায় নিহত বা আহত যাত্রীদের ক্ষতিপূরণ ৬ গুণ বাড়িয়ে এবং ব্যাগেজ নষ্ট বা হারিয়ে গেলে ক্ষতিপূরণের পরিমাণ বৃদ্ধি করে ‘আকাশপথে পরিবহন (মন্ট্রিয়ল কনভেনশন) বিল-২০২০’ পাস হয়েছে জাতীয় সংসদে। নতুন আইনে আকাশপথে পরিবহনের সময় যাত্রীর মৃত্যু বা আঘাতপ্রাপ্ত হলে ক্ষতিপূরণ এক কোটি ১৭ লাখ ৬২ হাজার ৩৩৪ টাকা করা হয়েছে। আগে এর পরিমাণ ছিল ২০ লাখ ৩৭ হাজার ৬০০ টাকা।

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে মঙ্গলবার সংসদের বিশেষ অধিবেশনে সংসদের স্থিরিকৃত আকারে কণ্ঠভোটে বিলটি পাস হয়। বিলটি পাসের প্রস্তাব করেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী।

এর আগে, বিলের ওপর আনীত সংশোধনী, বাছাই কমিটিতে প্রেরণ ও জনমত যাচাইয়ের প্রস্তাবগুলো নাকচ হয়ে যায়।
নতুন আইন কার্যকর হলে যাত্রীর মৃত্যুর ক্ষেত্রে তার সম্পত্তির বৈধ প্রতিনিধিত্বকারী ব্যক্তিদের মধ্যে এ আইনের বিধানের আলোকে ক্ষতিপূরণের অর্থ ভাগ করা যাবে। সংশ্লিষ্ট এয়ারলাইন্স বা বিমাকারী প্রতিষ্ঠানের সাথে আলোচনার ভিত্তিতে অথবা আদালতের মাধ্যমে ক্ষতিপূরণ আদায় করা যাবে।

এছাড়া ফ্লাইট বিলম্বের কারণে পরিবহনকারীর দায় ২০ ডলারের পরিবর্তে পাঁচ হাজার ৭৩৪ ডলার, ব্যাগেজ নষ্ট বা হারানোর জন্য প্রতি কেজিতে ২০ ডলারের পরিবর্তে এক হাজার ৩৮১ ডলার এবং কার্গো বিমানের মালামাল নষ্ট বা হারানোর জন্য প্রতি কেজিতে ২০ ডলারের পরিবর্তে ২৪ ডলার ক্ষতিপূরণ নির্ধারণ করা হয়েছে।

আকাশপথে পরিবহনের ক্ষেত্রে কোনো দুর্ঘটনায় যাত্রীর মৃত্যু বা আঘাতপ্রাপ্ত হলে এবং ব্যাগেজ নষ্ট বা হারানোর ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিকভাবে ১৯৯৯ সালে ‘মন্ট্রিয়ল কনভেনশন’ অনুযায়ী আইনে এসব ক্ষতিপূরণ বৃদ্ধি করা হয়। বাংলাদেশ ওই কনভেনশনে ১৯৯৯ সালেই স্বাক্ষর করে।

আগে ওয়ারশ কনভেনশন-১৯২৯ অনুযায়ী প্রচলিত ‘দ্য ক্যারেজ বাই এয়ার অ্যাক্ট-১৯৩৪’, ‘দ্য ক্যারেজ বাই এয়ার (ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন) অ্যাক্ট-১৯৬৬’ এবং ‘দ্য ক্যারেজ বাই এয়ার (সাপ্লিমেন্টারি কনভেনশন) অ্যাক্ট-১৯৬৮ আইনের আলোকে প্রাণহানি, আঘাত ও ব্যাগেজ নষ্ট বা হারানোর ক্ষেত্রে ক্ষতিপূরণ নির্ধারণ করা হতো বলে এসবের পরিমাণ ছিল কম।

বিলের উদ্দেশ্য ও কারণ সম্পর্কে বলা হয়েছে, ‘মন্ট্রিয়ল কনভেনশন’ আলোকে নতুন আইন না হওয়ায় কোনো দুর্ঘটনার জন্য বর্তমানে প্রচলিত আইনে ক্ষতিপূরণের পরিমাণ খুবই কম এবং তা আদায়ের পদ্ধতি অস্পষ্ট, সময়সাপেক্ষ ও জটিল। এ অবস্থা থেকে উত্তরণের জন্য জন্য আকাশে চলাচলকারী যাত্রীর অধিকার সুরক্ষা ও মালামাল পরিবহন নিশ্চিত করা, যাত্রীর মৃত্যুর কারণে পরিবারের ক্ষতিপূরণ প্রায় ৬ গুণ বৃদ্ধি এবং আদায় পদ্ধতি সহজ করতে আইনটি প্রয়োজন।

একনেকে ৫ হাজার ৯০৫ কোটি ৫৯ লাখ টাকা ব্যয়ে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় অবকাঠামোর জন্য প্রকল্পের অনুমোদন

ঘূর্ণিঝড় আমফান ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় অবকাঠামো পুনর্বাসন ও অর্থনৈতিক গতিশীলতা আনয়নের লক্ষ্যে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) ৫ হাজার ৯০৫ কোটি ৫৯ লাখ টাকা ব্যয়ে একটি প্রকল্পের অনুমোদন করেছে।

মঙ্গলবার রাজধানীর শেরে-বাংলানগরে পরিকল্পনা কমিশনের এনইসি সভাকক্ষে একনেক চেয়ারপারসন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে একনেক সভায় এই প্রকল্পের অনুমোদন দেওয়া হয়।

প্রধানমন্ত্রী গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি সভায় যুক্ত হন। সভাশেষে পরিকল্পনা সচিব মো. আসাদুল ইসলাম প্রকল্পের বিষয়ে বিস্তারিত ব্রিফ করেন।

পরিকল্পনা সচিব জানান, চলতি অর্থবছরের ১৫তম একনেক সভায় আজ পাঁচটি প্রকল্পের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এসব প্রকল্প বাস্তবায়নে মোট খরচ হবে ৭ হাজার ৫০৫ কোটি ২৯ লাখ টাকা।

ঘূর্ণিঝড় আমফান ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত পল্লী সড়ক অবকাঠামো পুনর্বাসন প্রকল্পের বিষয়ে পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য মো. জাকির হোসেন আকন্দ বলেন, প্রকল্প ব্যয়ের ৫ হাজার ৯০৫ কোটি ৫৯ লাখ টাকার পুরো অর্থ সরকারের নিজস্ব তহবিল থেকে ব্যয় হবে।

তিনি জানান, ডিসেম্বর ২০২৩ মেয়াদে স্থানীয় সরকার বিভাগ প্রকল্প বাস্তবায়ন করবে। দেশের ৫৫ জেলার ৩৫৫টি উপজেলায় প্রকল্প বাস্তবায়ন হবে।

জাকির হোসেন বলেন, প্রকল্পের আওতায় ঘূর্ণিঝড় আমফান ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত সড়ক ও ব্রিজ-কালভার্ট পুনর্বাসনের মাধ্যমে পল্লী সড়ক নেটওয়ার্ক ব্যবস্থা সংরক্ষণ করা হবে। এর মাধ্যমে পরিবহন ব্যয় ও সময় সাশ্রয়ের পাশাপাশি বিভিন্ন পণ্যের বাজারজাতকরণ সহজ হবে।

এছাড়া সড়ক অবকাঠামো মেরামত ও পুনর্বাসনের মাধ্যমে গ্রামীণ কর্মসংস্থান তৈরি ও গ্রামীণ অর্থনীতি আরও সচল করা প্রকল্পের অন্যতম উদ্দেশ্য বলে তিনি জানান।

প্রকল্পের আওতায় ২ হাজার ৩৮৮ দশমিক ৩৪ কিলোমিটার উপজেলা সড়ক, ২ হাজার ২৭৪ দশমিক ৬৮ কিলোমিটার ইউনিয়ন সড়ক, ১ হাজার ৫৩৪ দশমিক ৯৪ কিলোমিটার গ্রাম সড়ক ও ৭৮ কিলোমিটার আরসিসি সড়ক পুনর্বাসন এবং ৪ হাজার ৬৩১ দশমিক ৮৫ মিটার ব্রিজ ও ৬৯২ মিটার কালভার্ট পুনর্নির্মাণের পাশাপাশি ৩২৮ কিলোমিটার এলাকায় বৃক্ষ রোপণ করা হবে।

পরিকল্পনা সচিব মো. আসাদুল ইসলাম জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একনেক সভায় ঘূর্ণিঝড় আমফান ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় দ্রুততম সময়ে সড়ক পুনর্নির্মাণের জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন।

একই সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের অন্যান্য মন্ত্রণালয় ও বিভাগের সঙ্গে সমন্বয় করে কাজ করতে বলেন তিনি, যাতে কোনোভাবে ওভারল্যাপ না হয়।

প্রধানমন্ত্রী একনেক সভায় গ্রামীণ সড়ক অবকাঠামো নির্মাণের জন্য স্থানীয় সরকার বিভাগকে মহা-পরিকল্পনা প্রণয়নেরও নির্দেশ দিয়েছেন।

একনেক সভায় ৭৯৮ কোটি ৫৩ লাখ টাকা ব্যয়ে যমুনা নদীর ডান তীরের ভাঙন হতে গাইবান্ধা জেলার ফুলছড়ি উপজেলাধীন কাতলামারী ও সাঘাটা উপজেলাধীন গোবিন্দি এবং হলদিয়া এলাকা রক্ষা প্রকল্পের অনুমোদন দেওয়া হয়।

সভায় বরিশাল, ঝালকাঠি ও পিরোজপুর জেলা (১ম সংশোধিত) প্রকল্পের অনুমোদন দেওয়া হয়। মূল অনুমোদন ছিল ৯৫০ কোটি টাকার, সংশোধনী প্রকল্পে ৩৫৫ কোটি টাকার ব্যয় বাড়ানো হয়।

একনেকে অনুমোদিত অন্য দুই প্রকল্প হলো- খুলনা সিটি করপোরেশনের বর্জ্য ব্যবস্থার উন্নয়ন, এর বাস্তবায়ন খরচ ধরা হয়েছে ৩৯৩ কোটি ৪০ লাখ টাকা এবং ২২৯ কোটি ৩৭ লাখ টাকা ব্যয়ে শেখ হাসিনা সাংস্কৃতিক পল্লী নির্মাণ প্রকল্পের (১ম সংশোধিত) অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। মূল অনুমোদনে ব্যয়ের পরিমাণ ছিল ১২৬ কোটি ৫৯ লাখ টাকা।

‘তাঁতিদের জন্য উদ্যোক্তা পল্লী করা হচ্ছে’

বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী বলেছেন, তাঁতিদের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন এবং মূলধন যোগানের কষ্ট দূর করার জন্য সরকার উদ্যোক্তা পল্লী করার পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। দেশের তাঁত শিল্পে নতুন নতুন উদ্যোক্তা তৈরির জন্য কাজ করা হবে। তাঁত বোর্ডের নিজস্ব জমিতে তাঁতিদের জন্য আলাদা করে একটি পল্লী করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। এ পল্লীতে একই স্থানে মেলা ও প্রদর্শনীর ব্যবস্থা করা হবে।

গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর ফার্মগেটের জেডিপিসির সম্মেলন কক্ষে বাংলাদেশ তাঁত বোর্ড আয়োজিত তাঁত নীতিমালা-২০২০ বিষয়ক কর্মশালায় তিনি একথা বলেন। অনুষ্ঠানে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের সচিব লোকমান হোসেন মিয়ার সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ তাঁত বোর্ডের চেয়ারম্যান মো. শাহ আলম, মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোহাম্মদ আবুল কালাম, এনডিসি এবং বাংলাদেশ তাঁত বোর্ডের সদস্য রেজাউল করিম প্রমুখ।

বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী বলেন, তাঁত বস্ত্রের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট উদ্যোক্তাগণের জন্য আধুনিক সুযোগ-সুবিধা সম্পন্ন ব্যবসার স্থান সংকুলান করা হবে। তাঁত বস্ত্র আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে রপ্তানির জন্য ওয়ান স্টপ সার্ভিস চালু করা হবে। তাঁত পণ্যের বাজারজাতকরণ সুবিধা সৃষ্টি করা হবে এবং পরিবর্তিত বাজারে ভোক্তার চাহিদার সঙ্গে সংগতি রেখে নতুন নতুন ডিজাইন উদ্ভাবন এবং দক্ষ ডিজাইনার ও মানব সম্পদ তৈরি করতে কাজ করা হবে। মন্ত্রী বলেন, তাঁত শিল্প এবং তাঁতিদের উন্নয়ন করাই বর্তমান সরকারের মূল লক্ষ্য। যেসব পরিকল্পনা বা নীতিমালা প্রণয়ন করলে তাঁতিদের জীবনমান উন্নয়ন করা সম্ভব বস্ত্র ও পাট মন্ত্রনালয় সেরূপ নীতিমালা প্রণয়ন করবে। আমি আশা করি, এ কর্মশালার মাধ্যমে তাঁতিদের জন্য যুগোপযোগী, কার্যকর ও সহায়ক একটি নীতিমালা প্রণয়ন করা সম্ভব হবে। কর্মশালায় জানানো হয়, মানুষের প্রধান ৫টি মৌলিক চাহিদার মধ্যে অন্যতম হলো বস্ত্র। বাংলাদেশের বস্ত্রখাতের অধিকাংশ যোগান আসে তাঁত শিল্প থেকে। তাঁত শিল্প বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ কৃটির শিল্প।

বাংলাদেশ সবার: হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান সবার অধিকার আছে

প্রধানমন্ত্রীর আইসিটি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় বলেছেন, আমরা করোনাভাইরাসের কারণে এখন ভার্চুয়ালি রাষ্ট্র পরিচালনা করছি। ডিজিটাল বাংলাদেশ না থাকলে এটা সম্ভব হতো না। ডিজিটাল বাংলাদেশ না হলে এখন বাংলাদেশ অর্থনৈতিকভাবে ভেঙে পড়তো।

আজ মঙ্গলবার (১৭ নভেম্বর) জয় বাংলা ইয়্যুথ অ্যাওয়ার্ড পুরস্কার বিতরণীর এক ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে তিনি এ কথা বলেন।

জয় বলেন, বিদেশি কারো সহায়তা নয়, নিজস্ব চেষ্টায় ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়ন করা হয়েছে। আজ ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বলেই, করোনা মহামারির মধ্যেও দেশের অর্থনীতি মুখ থুবড়ে পড়েনি।

আওয়ামী লীগ যতদিন ক্ষমতায় থাকবে, ততদিন দেশ এগিয়ে যাবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমরা সমাধান করতে চাই। যারা সমাধান করতে চায়, আমরা তাদের সাথে আছি। এটা নেই, ওটা নেই বলে নালিশ শুনতে শুনতে কান ব্যথা হয়ে গেছে। যারা নেতৃত্ব দিতে চায়, আমরা তাদের সাথে আছি।

তিনি বলেন, দেশের মানুষই নিশ্চিত করবে কে আগামী দিনের নেতৃত্বে থাকবে। বঙ্গবন্ধু ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র গঠনের জন্য সংগ্রাম করেছেন। আমাদের রাষ্ট্রের তিনটি মূলনীতি সবাইকে ধরে রাখতে হবে। এখানে হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান সবার অধিকার আছে।

দেশ গঠনে এগিয়ে আসা তরুণদের জন্য সর্বোচ্চ সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশন (সিআরআই) ট্রাস্টি নসরুল হামিদ।

চাঁপাইনবাবগঞ্জে র‌্যাবের অভিযানে ৭ মাদকসেবী আটক


চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ মাদক বিরোধী অভিযানের অংশ হিসেবে বুধবার দুপুরে মহারাজপুর ঘোড়াস্ট্যান্ড এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৭ মাদকসেবীকে আটক করেছে র‌্যাব ৫ এর চাঁপাইনবাবগঞ্জ ক্যাম্পের সদস্যরা। আটক ৭ মাদকসেবী হচ্ছে, মহারাজপুর শেখপাড়ার মোঃ মামুনুর রশিদ (৩৮), আকুন্দবাড়িয়ার মোঃ তরিকুল ইসলাম (৪০), ছত্রাজিৎপুর মিয়াপাড়ার মোঃ বুলবুল মিয়া (৪০), ছত্রাজিৎপুর দর্গাতলার মোঃ কামাল (৪০), কমলাকান্তপুরের মোঃ সাদেকুল (৫০), ছত্রাজিৎপুর জাহাঙ্গীর পাড়া আঃ মোমিন (৩৫), সাবেক লাভাঙ্গার মোঃ মামুন অর রশিদ (৩০)। র‌্যাবের এক প্রেসনোটে বুধবার বিকেলে জানানো হয়, ১৮ নভেম্বর বুধবার বেলা পৌনে ১২টা থেকে পৌনে ২টা পর্যন্ত র‌্যাব-৫ এর চাঁপাইনবাবগঞ্জের একটি আভিযানিক দল চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর থানার মহারাজপুর ইউনিয়নের ঘোড়াস্ট্যান্ড এলাকার আমবাগানে অভিযান চালায়। এসময় প্রকাশ্যে মাদক সেবনের অপরাধে মোট ৭ জন মাদকসেবীকে গাঁজা, হেরোইন ও অন্যান্য সামগ্রীসহ হাতেনাতে গ্রেফতার করা হয়। এঘটনায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর মডেল থানায় মামলা করা হয়েছে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সম্মেলন:বিশু সভাপতি – দোলন সাধারণ সম্পাদক


চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম, জেলা শাখার সম্মেলন ও নির্বাচন হয়েছে চাঁপাইনবাবগঞ্জে। বুধবার দুপুর ২ টায় জেলা আইনজীবী ভবনে এ সম্মেলন ও নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার সিনিয়র আইনজীবী এ্যাড. গোলাম কবিরের সভাপতিত্বে সম্মেলনে প্রধান অতিথি ছিলেন, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম, কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম আহবায়ক ব্যারিষ্টার কায়সার কামাল। বিশেষ অতিথি ছিলেন কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এ্যাড. মাহমুদ হাসান, এ্যাড. এরশাদ আলী ঈশা ও মাকসুদুর রহমান মাসুদ খন্দকার। বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা শাখার আয়োজনে সম্মেলনে এ্যাড. সোলায়মান বিশুকে সভাপতি ও এ্যাড. রবিউল হক দোলনকে সাধারণ সম্পাদক করে ১৫ সদস্যের বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা কমিটি ঘোষণা করা হয়।

নারায়নপুরে র‌্যাবের অভিযানে ২ হাজার পিস ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার ২


নিজস্ব প্রতিবেদক, চাঁপাইনবাবগঞ্জ : চাঁপাইনবাবগঞ্জে র‌্যাব-৫ এর মাদকবিরোধী অভিযানে ১ হাজার ৯৬০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ ২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। 
গ্রেপ্তারকৃতরা হচ্ছে, চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার নারায়নপুর ইউনিয়নের মন্ডলপাড়া ১ নং ওয়ার্ডের রাজিয়া বেগম ও তাইজউদ্দিনের ছেলে মো. তাহেরুল ইসলাম (৩৫) ও তার ভাই মো. হোসেন আলী (২৫)।
জানাগেছে, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ১৮ নভেম্বর বুধবার বিকেল সাড়ে ৩ টার দিকে নারায়নপুর ইউনিয়নের আলীমনগর গ্রামের একরামুল মিয়ার বাড়ীর সামনে পাঁকা রাস্তার উপর অভিযান পরিচালনা করে ১ হাজার ৯৬০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ ২ জনকে হাতেনাতে গ্রেপ্তার করা হয়।
প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তারকৃত তাহেরুল ও হোসেন ইয়াবাসহ বিভিন্ন মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে। এ ঘটনায় সদর মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

চক্ষু হাসপাতালে সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত

বাংলাদেশ জাতীয় অন্ধ কল্যাণ সমিতি চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা শাখা পরিচালিত চক্ষু হাসপাতালে সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত। আজ দুপুরে চক্ষু হাসপাতালের ডাঃ আয়াজ উদ্দিন মিলনায়তনে হাসপাতালের বিভিন্ন সমস্যা চিহ্নিত ও সমাধানের লক্ষ্যে নিয়মিত সভার অংশ হিসেবে সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত হয়। হাসপাতালের সমন্বয়কারি ও সমিতির নির্বাহী কমিটির সদস্য কাউসার আলির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ জাতীয় অন্ধ কল্যাণ সমিতি চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ সদস্য আব্দুল হাকিম, হাসপাতালের চিকিৎসক ডাঃ রোমানা আফরোজ লেয়া, ডাঃ তৌহিদুল ইসলাম সুজন, ডাঃ মুখলেসুর রহমান মুকুল, হাসপাতালের টেকনোলজিস্ট মিজানুর রহমান মিজান, সোহেল রহমান সহ হাসপাতালের কর্মকর্তা ও কর্মচারী বৃন্দ। আলোচনায় করোনা পরিস্থিতি প্রতিরোধে সর্বোচ্চ সতর্কতা নিশ্চিত করতে, পরিস্কার পরিছন্নতা নিশ্চিত সহ হাসপাতালের দিক নিয়ে দিকনির্দেশনা দেন হাসপাতালের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হাকিম।

শিবগঞ্জে ডিবি পুলিশের অভিযানে ১৩০ পিস ফেনসিডিলসহ গ্রেপ্তার ২

 
নিজস্ব প্রতিবেদক, চাঁপাইনবাবগঞ্জ : চাঁপাইনবাবগঞ্জে জেলা গোয়েন্দা শাখা ডিবি পুলিশের অভিযানে ১৩০ বোতল ফেনসিডিলসহ ২ জন ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। 
গ্রেপ্তারকৃতরা হচ্ছে, শিবগঞ্জ উপজেলার তেলকুপি গ্রামের লম্বাপাড়া এলাকার আব্দুর রশিদের ছেলে শাহিন আলম (২৭) ও মৃত সামাদ আলীর ছেলে মোস্তফা কামাল (৪২)।
জেলা গোয়েন্দা শাখার অফিসার ইনচার্জ ওসি আলহাজ্ব বাবুল উদ্দিন সরদার জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শিবগঞ্জের সীমান্তবর্তী গ্রাম তেলকুপিতে এক বাড়িতে অভিযান চালিয়ে ১৩০ বোতল ফেনসিডিলসহ কামাল ও আলমকে গ্রেপ্তার করা হয়। 
তিনি আরও জানান, এসআই আবু আব্দুল্লাহ জাহিদ পিপিএম এর নের্তৃত্বে এসআই আসগর আলী ও এসআই আরিফসহ সঙ্গীয় ফোর্স অভিযান টি চালায়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তারকৃত আসামীরা মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে। 
এ ঘটনায় শিবগঞ্জ থানায় একটি মামলা রুজু করা হয়েছে। উদ্ধার ফেনসিডিলের আনুমানিক মূল্য ১ লাখ ৩০ হাজার টাকা।

ছাত্রলীগের সাবেক নেতা সুমন এর ওপর হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল

গোমস্তাপুর (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক নির্বাহী সদস্য ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি ও অনলাইন নিউজ পোর্টাল চাঁপাই ট্রিবিউন পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক আতিকুর রহমান সুমন এর ওপর জামায়াত বিএনপির সন্ত্রাসী বাহিনীর নৃশংস হামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে এবং অবিলম্বে অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করার দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।বুধবার বিকালে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ গোমস্তাপুর উপজেলা শাখার আয়োজনে ডাকবাংলা চত্বর থেকে মিছিল শুরু করে স্টেশন‌ বাজার হয়ে ওই একই স্থানে এসে শেষ হয়।মিছিলে অংশগ্রহণ করেন জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আরেফুর রেজা ইমন, সাধারণ সম্পাদক ডাঃ সাঈফ জামান আনন্দ,গোমস্তাপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি কাউসার আহমদ সাগর, ,সাধারণ সম্পাদক মুক্তাদির বিশ্বাস, পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি দেলোয়ার হোসেন, রহনপুর পৌর যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম টাইগার, পৌর আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মতিউর রহমান খাঁন,পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী বিশ্বাস, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক জালাল উদ্দিন আকবর মুক্তি, সাবেক ছাত্রলীগ সভাপতি মনসুর আলী, বাংগাবাড়ি ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি কাওসার আলী আহমেদ, জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মৌসুমী আক্তার স্মৃতি, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের নেত্রী মিসেস কেয়া রহমান প্রমুখ। সমাবেশে বক্তারা বলেন সেই নিসংস হামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানায় এবং অবিলম্বে হামলার মূল আসামি জুনাইদুল আহমেদ জিম কে দ্রুত গ্রেপ্তারের দাবি জানান। উল্লেখ্য যে, গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় আতিকুর রহমান সুমন এর ওপর বাংগাবাড়ী শিংপাড়া বাড়ি থেকে বাজার আসার পথে তার ওপর সন্ত্রাসীর হামলা চালায়। বর্তমানে তিনি রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছে।