সর্বশেষ সংবাদ অপরাধীদের দিন শেষঃ তৈরী হচ্ছে জাতীয় ডিএনএ ডাটাবেজ’ গণভবন থেকে ভার্চুয়াল মাধ্যমে বহু প্রতিক্ষীত রেলসেতুর নির্মাণকাজের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী করোনাযোদ্ধাদের কোয়ারেন্টিন’ ভাতা পাওয়া শুরু গোমস্তাপুরে সাবেক ছাত্র নেতা সুমনের ওপর হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন চাঁপাইনবাবগঞ্জ সীমান্তে ২ বাংলাদেশীকে ধরে নিয়ে গেছে বিএসএফ অন্যের ট্রাক থেকে তেল চুরি করতে গিয়ে আটক ৪ বঙ্গবন্ধুর ভার্স্কয নিয়ে কটুক্তির প্রতিবাদে চাঁপাইনবাবগঞ্জে স্বেচ্ছাসেবকলীগের মানববন্ধন পদ্মা সেতুতে বসল ৩৯তম স্প্যান ঃ আর বসবে মাত্র দুটি স্প্যান র‌্যাংকিংয়ে সুখবর বয়ে আনল বাংলাদেশ ফুটবল দল তিন ব্যাংক তালিকাভুক্ত হচ্ছে শেয়ারবাজারে

দেশের উন্নয়নে শেখ হাসিনার বিকল্প নেই: রওশন এরশাদ


দেশের উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছাড়া বিকল্প কাউকে দেখেন না বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় সংসদে বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ। তিনি বলেন, ‘দিন-রাত ২৪ ঘণ্টা তিনি দেশ নিয়ে কাজ করছেন, করেই যাবেন। তিনি ছাড়া বিকল্প কেউ নেই। বিকল্প কাউকে দেখি না। তাকেই এ দেশকে আরও এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য কাজ করতে হবে। চেষ্টা করতে হবে।’

রোববার মুজিববর্ষ উপলক্ষে জাতীয় সংসদের বিশেষ অধিবেশনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে আনা সাধারণ প্রস্তাবের ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি এ কথা বলেন।

রওশন বলেন, ‘আমরা সংসদ থেকে বাসায় গিয়েই শুয়ে পড়ি। আর প্রধানমন্ত্রী রাত-দিন ২৪ ঘণ্টা কাজ করে চলেছেন। এটা কী করে সম্ভব তা ভেবে আশ্চর্য হয়ে যাই। তিনি দেশ ও দেশের জনগণের জন্য এত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন, দেশকে কীভাবে এগিয়ে নিয়ে যাবেন। দেশ অনেক এগিয়েই গেছে, তার নেতৃত্বে আরও এগিয়ে যাবে, তাতে কোনো সন্দেহ নেই।’

জাতির পিতাকে স্মরণ করে রওশন এরশাদ বলেন, ‘হাজার বছরের পরাধীনতার গ্লানি থেকে দেশ মুক্ত হয়েছে শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে। বঙ্গবন্ধু আমাদের স্বাধীন দেশ দিয়েছেন। তিনি স্বাধীন না করলে স্বাধীন দেশ পেতাম না। সংসদে এসে আমরা সংসদ সদস্য হতাম না। বক্তব্যও দিতে পারতাম না। হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালিকে পেয়েছি, ৫৫ বছর ৫ মাস বাঁচতে দিয়েছি। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ঘাতকের নিষ্ঠুর বুলেটের আঘাতে প্রাণ না হারালে শতায়ু হতে পারতেন।’

তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুকে যারা ইতিহাস থেকে মুছে ফেলতে চেয়েছিল, তারাই ইতিহাস থেকে মুছে গেছে। এটাই ইতিহাসের শিক্ষা।’

১৯৭৪ সালে বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে একই বিমানে ভ্রমণের অভিজ্ঞতা তুলে ধরে রওশন বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে সেদিন দেখা না হলে অনুভূতি অসমাপ্ত থেকে যেত। তিনি কত বড় মহান ব্যক্তি তা তুলনা করা যায় না।’ বিরোধীদলীয় নেত্রী জানান, বিমানে বঙ্গবন্ধু তাকে (রওশনকে) ডেকে পাঠান। গিয়ে দেখেন বঙ্গবন্ধু শুয়ে আছেন। তিনি বঙ্গবন্ধুর মাথায় হাত বুলিয়ে দেন।

বিদেশ ফেরতদের করোনা সনদ বাধ্যতামূলক…..স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক


স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক জানিয়েছেন, বিদেশফেরত যাত্রীদের জন্য কোভিড-১৯ নেগেটিভ সনদ আবার বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। নেগেটিভ সনদ দেখাতে না পারলে ১৪ দিন বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। রোববার রাজধানীর কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ১০০ ভেন্টিলেটর হস্তান্তর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। যুক্তরাষ্ট্র সরকার করোনাভাইরাস মোকাবিলায় বাংলাদেশকে অত্যাধুনিক প্রযুক্তির এই ভেন্টিলেটর দিয়েছে।
স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, বিভিন্ন দেশে সংক্রমণ আবার বাড়ছে, এর মধ্যেই বিদেশ থেকে মানুষ আসছে, অনেকে বাইরে যাচ্ছে। ভাইরাসের বিস্তার রোধেই করোনাভাইরাস পরীক্ষার সনদ বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। বিমানবন্দর, স্থলবন্দর বা সমুদ্রবন্দর যে পথেই দেশে আসুক। সব জায়গায় এই নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। সব জায়গায় কোয়ারেন্টাইনেরও ব্যবস্থা করা হয়েছে।
অনুমোদনবিহীন কোনো হাসপাতাল, ডায়াগনোস্টিক সেন্টার ও ক্লিনিকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে জানিয়ে জাহিদ মালেক বলেন, প্রয়োজনে সেগুলো বন্ধ করে দেওয়া হবে। যাদের অনুমোদন আছে অথচ প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি নেই তাদের বিরুদ্ধেই ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবু মানুষের জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলতে দেব না। এ জন্য সিভিল সার্জন ও স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালকদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
বাংলাদেশে করোনা পরিস্থিতি তুলনামূলক ভালো দাবি করে তিনি বলেন, মৃত্যু হার অনেক কম। তবে সংক্রমণের হার কমেনি। মাঝেমধ্যে সংক্রমণের হার বাড়ছে। সুস্থতার হার বেড়েছে। সংক্রমণ কমানোর জন্য আমরা বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়েছি। সব মন্ত্রণালয়ে চিঠি দেওয়া হয়েছে। সরকারি প্রতিষ্ঠানের সেবা পেতে হলে মাস্ক পরে আসতে হবে। নো মাস্ক, নো সার্ভিস।
এর আগে স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এবিএম খুরশীদ আলম সাংবাদিকদের জানান, অবৈধ হাসপাতাল-ক্লিনিকের পূর্ণাঙ্গ তালিকা তৈরি হচ্ছে, তা শেষ হলে সবার সামনে প্রকাশ করা হবে। ১০ দিন আগে সব জেলার সিভিল সার্জনদের সঙ্গে স্বাস্থ্য অধিদফতরের একটি বৈঠক হয়েছে। তাদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছিল হাসপাতালের তালিকা পাঠাতে। এর মধ্যে বেশিরভাগ জায়গা থেকে আমরা তথ্য পেয়ে গেছি।
স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. মহিবুর রহমানের সভাপতিত্বে ১০০ ভেন্টিলেটর হস্তান্তর অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত আর্ল আর মিলার, স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম, কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জামিল আহমেদ প্রমুখ।

নতুন কমিটি গঠন: বিএনপি-জামায়াতের ‘দখলেই’ হেফাজত!

ধর্মভিত্তিক সংগঠন হেফাজতে ইসলামের নতুন যে কমিটি গঠন করা হয়েছে, তার নেতাদের বড় অংশই বিএনপি-জামায়াত জোটের শরিক দলের নেতা।

যেসব নেতা বিএনপি জামায়াত জোট ছেড়ে গেছেন, বা জামায়াতের কট্টর সমালোচক, নতুন কমিটিতে তাদের বাদ দেয়া হয়েছে।

২০০৭ সালের বাতিল হওয়া নির্বাচনের আগে আওয়ামী লীগের সঙ্গে জোট গঠন করা খেলাফতে মজলিসের একাংশের কয়েকজন নেতা স্থান পেয়েছেন এই কমিটিতে। তবে ওই জোট ভেঙে তারা আগেই বিএনপি জোটে ফিরে গেছেন।

এদের একজন মাওলানা তাফাজ্জল হক আজিজ। তিনি ২০০৭ সালে সুনামগঞ্জের একটি আসনে নৌকা প্রতীকে ভোটে দাঁড়ানোর চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু পরে ছয় দফা চুক্তি বাতিলের পর আওয়ামী লীগবিরোধী অবস্থানে ফিরে যান।

রোববারের জাতীয় সম্মেলনের আগের দিন প্রয়াত আমির শাহ আহমেদ শফীর অনুসারীরা সংবাদ সম্মেলন করে বলেন, হেফাজতকে বিএনপি-জামায়াত জোটের দখলে নেয়ার চেষ্টা চলছে।

হেফাজতের নতুন কমিটিতে বিএনপি-জামায়াত জোট সংশ্লিষ্টদের স্থান পাওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে সংগঠনের নায়েবে আমির আবদুর রব ইউসুফী বিষয়টি অস্বীকার করে নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ধর্মীয় বিষয় আর রাজনৈতিক বিষয়কে মেলানো যায় না। পার্থক্য আছে। যেমন আওয়ামী লীগকে ইসলামবিরোধী বললেও তার সঙ্গে রাজনৈতিক স্বার্থে জোট হতে পারে।’ইউসুফী নিজেও বিএনপি-জামায়াত জোটের শরিক জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের নেতা। তিনি বলেন, ‘আলেম ওলামাদের মধ্যে মুখরোচক শব্দ হলো, জামায়াত ঢুকে পড়েছে। খাওয়ার সঙ্গে যেমন কাঁচামরিচ খায়, আচার খায়, এটা মুখরোচক; ক্ষুধা মেটানোর জন্য না। জামায়াত ঢুকে পড়েছে, এটাও এমন শব্দ। তবে এটা আন্দোলন সংগ্রামের ভাষা হতে পারে না।’

আরও পড়ুন: বিএনপি-জামায়াতের নিয়ন্ত্রণে যাচ্ছে হেফাজত?

ইউসুফীর দাবি, কাউকে দায়িত্ব দলীয়ভাবে দেয়া হয়নি। তিনি বলেন, ‘যেহেতু এটা আলেম ওলামাদের সংগঠন, বিভিন্ন জেলায় সামাজিকভাবে যারা এগিয়ে তাদেরকেই পদ দেয়া হয়েছে।’

হেফাজতের নতুন তথ্য ও প্রচার সম্পাদক জাকারিয়া নোমান ফয়েজী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘২০ দলীয় জোটে নেই, এমন অনেককেও কমিটিতে নেয়া হয়েছে। লালবাগ মাদ্রাসার যোবায়ের সাহেবকে সহকারী মহাসচিব করা হয়েছে। এ রকম আরও কয়েকজন আছেন।’

তাহলে ২০ দলীয় জোট ছেড়ে যাওয়া নেতারা কেন বাদ পড়লেন- এমন প্রশ্নে হেফাজত নেতা বলেন, ‘যাদের নিয়ে সাংগঠনিক বিতর্ক আছে, তাদেরকে বাদ দেয়া হয়েছে। এখানে অন্য কিছু নেই।’

সম্মেলনের পর ঘোষিত কমিটির মহাসচিব নূর হোসাইন কাসেমী ২০ দলীয় জোটের শরিক দল জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের মহাসচিব।

১৫১ সদস্যের যে কমিটি গঠন করা হয়েছে, তাতে কাসেমীর জমিয়তেরই ৩২ জনের মতো নেতা আছেন।বিএনপি-জামায়াত জোটের শরিক খেলাফতে মজলিসের একাংশ থেকে নেয়া হয়েছে আরও ছয় জনকে। এদের একজন এককালে জামায়াতে ইসলামীর ছাত্র সংগঠন ইসলামী ছাত্র শিবিরের সভাপতি ছিলেন।

জামায়াতবিরোধী বা ২০ দল ছেড়ে আসারা বাদ

যাদেরকে বাদ দেয়া হয়েছে, তাদের মধ্যে আছেন জামায়াতের কট্টর সমালোচক চরমোনাইয়ের পীর মুফতি সৈয়দ রেজাউল করীম। তিনি আগের কমিটির নায়েবে আমির ছিলেন।

চরমোনাইয়ের পীরের রাজনৈতিক দল ইসলামী আন্দোলনের যুগ্ম মহাসচিব গাজী আতাউর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আহমদ শফীর নেতৃত্বাধীন হেফাজত নির্ভেজাল অরাজনৈতিক সংগঠন ছিল। তাই চরমোনাই পীর তাতে সম্পৃক্ত হয়েছিলেন। পরে অনেক নেতা হেফাজতকে রাজনীতিতে টেনে আনেন। যেসব ইসলামিক রাজনৈতিক দলের গণভিত্তি নেই, জনসমর্থন নেই, তারা টিকে থাকতে এখন হেফাজতকে আঁকড়ে ধরছেন। একটি দলেরই কেন্দ্রীয় কমিটির ২০/২৫ জন নেতা হেফাজতের কমিটিতে এসেছেন। এটা তাদের রাজনৈতিক দেউলিয়াত্বের বহিঃপ্রকাশ।’হেফাজতের নায়েবে আমির মাওলানা আবদুর রব ইউসুফী বলেন, ‘চরমোনাইয়ের পীর সাহেব গত চার পাঁচ বছর ধরে হেফাজতের কর্মসূচিতে ছিলেন না। তিনি নিজের মতো করে কর্মসূচি পালন করেন। তাই তাকে রাখা হয়নি।’

বিবেচনায় নেয়া হয়নি কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়া ঈদগাহের খতিব ও কওমি সদনের স্বীকৃতি আদায়ে কাজ করা ফরিদউদ্দিন মাসউদকে।

গোপালগঞ্জের গওহরডাঙ্গা মাদ্রাসার মাওলানা রুহুল আমিন দুটি কওমি শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান। তাকেও কোনো পদে রাখা হয়নি, যদিও বাকি চারটি বোর্ডের চেয়ারম্যানদের রাখা হয়েছে।

রুহুল আমিন আওয়ামী ঘনিষ্ঠ আলেম হিসেবে পরিচিত। তিনিও কওমি সনদের রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি আদায়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিলেন।

বাদ পড়েছেন বিএনপি-জামায়াত জোট থেকে বের হয়ে যাওয়া ইসলামী ঐক্যজোটর মহাসচিব মুফতি মোহাম্মদ ফয়জুল্লাহ। তিনি আগের কমিটির যুগ্ম মহাসচিব ছিলেন।তবে ২০ দল ছাড়ার পর ইসলামী ঐক্যজোট থেকে বের হয়ে অন্য দলে যোগ দেয়া জুনায়েদ আল হাবিবকে ঠিকই কমিটিতে রাখা হয়েছে।

এসব বিষয়ে হেফাজতের নায়েবে আমির আবদুর রব ইউসুফী বলেন, ‘ওনারা বিতর্কিত হয়ে পড়েছিলেন গত আন্দোলন থেকেই।’

কোন আন্দোলন?

ইউসুফী বলেন, ‘শাপলা চত্বরের আন্দোলনের সময় তারা তাদের কর্মকাণ্ডে বিতর্কিত হয়ে পড়েছিলেন।’

ইউসুফী বলছিলেন লালবাগ মাদ্রাসাকেন্দ্রিক আলেমদের কথা, যারা ২০১৩ সালে শাপলা চত্বরে হেফাজতের অবস্থান নিয়ে ভূমিকা রাখেন। তবে ২০১৬ সালের শুরুতে তারা বিএনপি-জামায়াত জোট থেকে বের হয়ে আসেন।

তারা কেন বিতর্কিত, সেটা অবশ্য বলতে চাননি ইউসুফী। বলেন, ‘ওই সময় মিডিয়াতে এসেছে। আমি যদি বিতর্কিত হয়ে যাই আমারই দায়িত্ব ব্যাখ্যা দেয়া। কিন্তু তারা তা দেননি। তাদের কিছু ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন আছে জনগণ ও মাদ্রাসার মধ্যে।’

এতদিনে কেন এসব কথা বলছেন- এমন প্রশ্নে ইউসুফী বলেন, ‘কথা বলিনি ঠিক আছে, তবে মিডিয়ায় অনেক কিছু এসেছে।’

বাদ পড়েছেন আগের কমিটির যুগ্ম মহাসচিব মঈনুদ্দীন রুহী, প্রচার সম্পাদক প্রয়াত আমির আল্লামা শফীর ছেলে আনাস মাদানী, সিনিয়র নায়েমে আমির মাওলানা সলিমুল্লাহ।

চাঁপাইনবাবগঞ্জে ট্রাক্টরের ধাক্কায় ২ সহোদর সহ নিহত ৩

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি:
চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় ২ সহোদর সহ ৩ জন নিহত হয়েছে।
সোমবার(১৬ নভেম্বর) সন্ধ্যা ৬টার দিকে কানসাট-চৌডালা সড়কের বেলালবাজার নামক স্থানে এ দুর্ঘটনা ঘটে।
নিহতরা হলেন, মোটরসাইকেল আরোহী ভোলাহাট উপজেলার বড় জামবাড়িয়া গ্রামের শফিকুল ইসলামের ছেলে সোহেল রানা(২৪),সাইকেল আরোহী গোমস্তাপুর উপজেলার চৌডালা গ্রামের আমজাদ হোসেনের ছেলে জামিল হোসেন (১৪) এবং কামিল হোসেন(১৩)
গোমস্তাপুর থানার ওসি শ্রী দিলীপ কুমার রায় জানান, সোমবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে একটি বালুভর্তি ট্রাক্টর গোমস্তাপুর অভিমুখে যাবার সময় বিপরীত দিক থেকে আসা একটি সাইকেল ও মোটরসাইকেল কে ধাক্কা দিলে ঘটনাস্থলেই মোটরসাইকেল আরোহী সোহেল এবং সাইকেল আরোহী জামিল ও কামিল নিহত হয়।পরে খবর পেয়ে গোমস্তাপুর থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।এ ঘটনায় ঘাতক ট্রাক্টরটিও আটক করে পুলিশ।

শিবগঞ্জে দুই প্রতিষ্ঠান কে অর্থদন্ড


শিবগঞ্জ (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধি:
চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ পৌর এলাকার ইসরাইল মোড়ে কাঠের রংয়ের দুই প্রতিষ্ঠানে অভিযান চালিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

সোমবার দুপুরে 2 প্রতিষ্ঠানে অভিযান চালিয়ে তিন হাজার টাকা অর্থদন্ড প্রদান করা হয়। ভ্রাম্যমাণ আদালতে নেতৃত্ব দেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) আরিফা সুলতানা। জানা গেছে, ভেজাল দ্রব্য দিয়ে কাঠে রং করছে এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পৌর এলাকার ইসরাইল মোড়ে অভিযান চালায় ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময় রংয়ের এক প্রতিষ্ঠানে এক হাজার ও অপর প্রতিষ্ঠানে দুই হাজার টাকা অর্থদন্ড প্রদান করেন। পরে তাদের প্রাথমিকভাবে সর্তকতা করা হয়।

শিবগঞ্জে কৃষদের মাঝে অ্যারাইজ তেজ গোল্ড ধানের বীজ বিতরণ

চাঁপাইনবাবগঞ্জঃ বায়ার ক্রপ সায়েন্স লিমিটেড,’র উদ্যোগে চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে প্রান্তিক কৃষকদের মাঝে হাইব্রিড জাতের অ্যারাইজ তেজ গোল্ড ধানের বীজ বিতরণ। ১৬ নভেম্বর সোমবার বেলা ১১ টায় শিবগঞ্জ উপজেলার কৃষি বিভাগের সম্মেলন কক্ষে বীজ বিতরণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন শিবগঞ্জ উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার মোঃ সুনাইন বিন জামান , বায়ার ক্রপ সায়েন্স লিমিটেড’ র সিনিয়র টেরিটরী অফিসার মো: মোস্তাকিম, ফিল্ড এসোসিয়েট মো: মোয়াজ্জেম হোসেন দুলাল। শিবগঞ্জ উপজেলার ২৫০ জন প্রান্তিক কৃষকের মাঝে প্রত্যেক কে ২কেজি করে ৫০০ কেজি অ্যারাইজ তেজ গোল্ড ধানের বীজ বিতরণ করা হয়েছে ।

শিবগঞ্জে ইসলামী ব্যাংকের এজেন্ট কেন্দ্রের উদ্বোধন

শিবগঞ্জ(চাঁপাইনবাবগঞ্জ)প্রতিনিধি:
ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড শিবগঞ্জ শাখার অধীনে মনাকষায় এজেন্ট ব্যাংকিং কেন্দ্রের উদ্বোধন করা হয় হয়েছে। সোমবার সকালে শিবগঞ্জ উপজেলার মনাকষা বাজার সংলগ্ন সাফায়াত মার্কেটের দ্বিতলায় এজেন্ট কেন্দ্র উদ্বোধনী সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন, ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড শিবগঞ্জ শাখার ব্যবস্থাপক মো. আব্দুল মতিন শেখ।
মনাকষা ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান মো. সাদিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড শিবগঞ্জ শাখার ব্যাংক কর্মকর্তা জাওয়ারুল ইসলামের সঞ্চালনায় ব্যক্তব্য রাখেন, স্থানীয় বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. মোসাহাক আলী, ছত্রাজিতপুর ফাযিল মাদ্রাসার অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো. নুরুল ইসলাম, , ডা. জাকির আহমদ মুকুল প্রমূখ।
আলোচনা শেষে পিতা কেটে ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড শিবগঞ্জ শাখার অধীনে মনাকষায় এজেন্ট ব্যাংকিং কেন্দ্রের উদ্বোধন করা হয়।

নাচোলে মিটু চৌধুরী স্মৃতি সড়কের ফলক উন্মোচন

নাচোল প্রতিনিধি
চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোলে মিটু চৌধুরী স্মৃতি সড়কের ফলক উন্মোচন করা হয়েছে। আজ সোমবার বেলা ১১ টায় নাচোল ডাকবাংলো চত্তরে আলোচনা সভা শেষে বাসস্ট্যান্ড মোড়ে “ফলক উন্নোচন” করা হয়। ফলক উন্মোচন করেন মিঠু চৌধুরীর সহ-ধর্মিনী রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সংস্কৃত বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত প্রফেসর ড. মঞ্জুলা চৌধুরী।
নাচোল পৌর মেয়র আব্দুর রশিদ খানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল কাদের। এতে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাবিহা সুলতানা, নাচোল সরকারী কলেজের অফিসার ইনচার্জ হাফিজুর রহমান, মহিলা ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ ওবাইদুর রহমান, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান জান্নাতুন নঈম মুন্নী, দুদক নাচোল শাখার সভাপতি নুরুল আওয়াল, সাবেক সহকারী প্রধান শিক্ষক মোজাম্মেল হক, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মতিউর রহমান। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন নাচোল ৩নং ইউপি’র চেয়ারম্যান আব্দুস ছালাম, উপজেলা বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক নুরকামাল, লেখক আলাউদ্দিন আহম্মেদ বটু ও পৌর কর্মচারী মজিবুর রহমান আব্বাস। বক্তারা মিঠু চৌধুরীর স্মৃতিচারণ করে বলেন, নাচোলে এই প্রথম কোন ব্যাক্তির নামে সড়কের নামকরণ করা হলো। মিঠু চৌধুরী নাচোল কলেজের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ, পর পর দু’বার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এবং নাচোল পৌরসভার প্রথম মেয়র নির্বাচিত হন। তিনি ২০১৮ সালের ২৫ নভেম্বর তারিখে মুম্বাইয়ের একটি হাসপাতালে মারাযান।

চাঁপাইনবাবগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত-১

শিবগঞ্জ (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধি:

চাঁপাইনবাবগঞ্জ-সোনামসজিদ আঞ্চলিক সড়কের ফুলতলায় সোমবার দুপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় এক সিএনজি যাত্রী নিহত হয়েছে।
নিহত ব্যক্তি শিবগঞ্জ উপজেলার শ্যামপুর ইউনিয়নের গোপালনগর গ্রামের মোঃ সাইফুল ইসলাম @ (বকুল) (৪০)।

সোমবার দুপুর দেড়টার দিকে উপজেলার সত্রাজিতপুর ইউনিয়নের ফুলতলা মোড়ে শিবগঞ্জ অভিমুখে যাওয়া সিএনজি কে বিপরীত দিক থেকে আসা ধান বোঝাই ট্রলির মুখোমুখি সংঘর্ষ হলে সিএনজি যাত্রী মোঃ সাইফুল ইসলাম @ (বকুল) গুরুতর আহত হয়। আহত বকুল কে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে রাজশাহী নেয়ার পথে বেলা ২টার দিকে মারা যায়।
এ ব্যাপারে শিবগঞ্জ থানার ওসি ফরিদ হোসেন ঘটনার সত্যতা শিকার করেন

চাঁপাইনবাবগঞ্জে এএসপি আনিসুলের হত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদক

চাঁপাইনবাবগঞ্জে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ব-বিদ্যালয়ের প্রাণরসায়ন ও অনুপ্রাণ বিজ্ঞাণ বিভাগ ৩৩তম ব্যাচের মেধাবী ছাত্র ও সিনিয়র এএসপি আনিসুল করিম সিপন হত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

১৬ নভেম্বর বেলা ১১টায় জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের (কালেক্ট চত্তর) সামনে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ব-বিদ্যালয়ের সাবেক ও বর্তমান শিক্ষার্থীদের ব্যানারে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন;জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ব-বিদ্যালয়ের ইংরেজী বিভাগের ৪৬ ব্যাচের ছাত্র সোহেল রানা,জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ব-বিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের ৩৯ ব্যাচের ছাত্রী লাইলী খাতুন,জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ব-বিদ্যালয়ের লোক প্রশাসন বিভাগের ৩৬ ব্যাচের ছাত্র ও এক্সিম ব্যাংক কৃষি বিশ্ব-বিদ্যালয়ের প্রভাষক মানজুর আহমেদ,জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ব-বিদ্যালয়ের পদার্থ বিজ্ঞানের ছাত্র,ও এক্সিম ব্যাংক কৃষি বিশ্ব-বিদ্যালয়ের প্রিন্সিপাল অফিসার আব্দুল্লাহ আল মাসুদ,জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ব-বিদ্যালয়ের নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা বিভাগের ২৮তম ব্যাচের ছাত্র আব্দুল আওয়াল,জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ব-বিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের ২৪ ব্যাচের ছাত্র সৈয়দ মনিরুল ইসলাম,জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আরিফর রেজা ইমন,ও সেক্রেটারী ডাঃসাইফ জামান আনন্দ প্রমুখ।