সর্বশেষ সংবাদ অপরাধীদের দিন শেষঃ তৈরী হচ্ছে জাতীয় ডিএনএ ডাটাবেজ’ গণভবন থেকে ভার্চুয়াল মাধ্যমে বহু প্রতিক্ষীত রেলসেতুর নির্মাণকাজের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী করোনাযোদ্ধাদের কোয়ারেন্টিন’ ভাতা পাওয়া শুরু গোমস্তাপুরে সাবেক ছাত্র নেতা সুমনের ওপর হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন চাঁপাইনবাবগঞ্জ সীমান্তে ২ বাংলাদেশীকে ধরে নিয়ে গেছে বিএসএফ অন্যের ট্রাক থেকে তেল চুরি করতে গিয়ে আটক ৪ বঙ্গবন্ধুর ভার্স্কয নিয়ে কটুক্তির প্রতিবাদে চাঁপাইনবাবগঞ্জে স্বেচ্ছাসেবকলীগের মানববন্ধন পদ্মা সেতুতে বসল ৩৯তম স্প্যান ঃ আর বসবে মাত্র দুটি স্প্যান র‌্যাংকিংয়ে সুখবর বয়ে আনল বাংলাদেশ ফুটবল দল তিন ব্যাংক তালিকাভুক্ত হচ্ছে শেয়ারবাজারে

ঢাকায় বাসে অাগুন:চাঁপাইনবাবগঞ্জে স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রতিবাদ মিছিল

নিজস্ব প্রতিবেদক, চাঁপাইনবাবগঞ্জ : চাঁপাইনবাবগঞ্জে জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা ফায়জার রহমান কনকের নেতৃত্বে একটি প্রতিবাদ মিছিল হয়েছে। পৌর এলাকার বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে মিছিলটি সরকারি কলেজের সামনে বঙ্গবন্ধু মুক্ত মঞ্চের কাছে পথ সভায় মিলিত  হয়। 
বৃহস্পতিবার রাত ৯টায় অনুষ্ঠিত পথ সভায় বক্তব্য দেন, বাংলাদেশ কৃষকলীগ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলা শাখার সভাপতি ও বিশিষ্ট সমাজসেবক মো. রুহুল আমিন। 
প্রতিবাদ মিছিল ও সভায় উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ কৃষকলীগ চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মো. রুহুল আমিন রাসেল, বাংলাদেশ মৎস্যজীবী লীগ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ শাখার যুগ্ম আহ্বায়ক মিনাউর রহমান মিনার।
আহবায়ক কমিটির সদস্য মো. ইমরান খান, ডালিম রানা, কৃষকলীগ নেতা জহিরুল ইসলাম জহির, বিশাল খান, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা সাঈদ হোসেন নাবিল, রাব্বি, রকিসহ অন্যান্য নেতা কর্মীগণ। 
রাজধানী ঢাকায় শাহবাগ, মতিঝিল ও গুলিস্তানে কয়েকটি গাড়িতে বিএনপির অগ্নিসংযোগের প্রতিবাদে বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ, কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসাবেই চাঁপাইনবাবগঞ্জে প্রতিবাদ মিছিলটি অনুষ্ঠিত হয়।
এতে বক্তাগণ রাজধানী ঢাকায় শাহবাগ, মতিঝিল ও গুলিস্তানে কয়েকটি গাড়িতে বিএনপির অগ্নিসংযোগের জন্য তীব্র প্রতিবাদ জানান এবং দোষীদের বিচারের জোর দাবী জানান।-

9 Jubo Dal men held as buses torched in city


Police detained nine people from a procession organized by Jubo Dal, the youth wing of Bangladesh Nationalist Party, in Paltan area of Dhaka on Thursday.

The detention came after unidentified miscreants torched seven buses across the capital on Thursday noon.

Paltan police station Officer-in-Charge (OC) Abu Bakar Siddique said police in drives detained the men on suspicion of their involvement in the arson attacks.

The staggering arson attacks took place in Dhaka’s Shahbagh, Press club, Gulistan, Motijheel, Noyabazar, Shahjahanpur and Vatara areas within an hour at noon.

নাচোল ও ভোলাহাটে পুলিশের অভিযানে ফেনসিডিলসহ গ্রেপ্তার ২

নিজস্ব প্রতিবেদক, চাঁপাইনবাবগঞ্জ : চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল ও ভোলাহাট থানা পুলিশের পৃথক অভিযানে ১৬৫ বোতল ফেনসিডিলসহ ২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃতরা হচ্ছে, চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল উপজেলার ম্যালাডাঙ্গা এলাকার মৃত আলতাফ হোসেনের ছেলে ফারুক হোসেন (৪০), রাজশাহী মোহনপুর হরিদা গাছি এলাকার মৃত আ. সামাদ মোল্লার ছেলে সেলিম রেজা (৩১)। নাচোল থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি মো. সেলিম রেজা জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ১২ নভেম্বর বৃহস্পতিবার ম্যালাডাঙ্গা গ্রামে অভিযান চালিয়ে ১১৫ বোতল ফেনসিডিলসহ হাতেনাতে ফারুককে গ্রেপ্তার করা হয়। অন্য দিকে ভোলাহাট থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি মাহবুবুর রহমান জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৯ টায় বড়জামবাড়িয়া গ্রামের লালটু মিয়ার বাড়ীর সামনে পাকা রাস্তার উপর থেকে আসামী সেলিমকে ৫০ বোতল ফেনসিডিলসহ গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃত আসামীরা মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে। এ দুটি ঘটনায় থানায় মাদকদ্রব্য আইনে মামলা রুজু করা হয়েছে।

আবারো বাসে আগুন:৯ টি বাস ভষ্মিভূত

নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানীতে বৃহস্পতিবার দুপুরে ৮টি বাসে আগুন দেওয়ার পর বিকেলে আরও একটি বাসে আগুন দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে। তবে এ ঘটনায় কোন হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। বিকেল সোয়া চারটার দিকে ভাটারার কোকাকোলা মোড়ের কাছে এ ঘটনা ঘটে।বর্ত

বর্তমানে পুলিশ বিএনপি কার্যালয় ঘেরাও করে রেখেছে।

ফায়ার সার্ভিস নিয়ন্ত্রণ কক্ষের কর্মকর্তা রাসেল শিকদার গণমাধ্যমকে বলেন, রাজধানীতে বৃহস্পতিবার মোট ৭টি বাসে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। আগুনের খবর পেয়ে আমাদের কর্মীরা সেখানে গিয়ে আগুন নিভিয়েছেন। কেউ হতাহত হননি। যেসব গাড়িতে আগুন দেওয়া হয়েছে, তার মধ্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের একটি গাড়িও আছে।

ঢাকা মহানগর পুলিশের উপ কমিশনার (মিডিয়া) ওয়ালিদ হোসেন বলেন, কয়েকটি জায়গায় বাসে আগুনের ঘটনা ঘটিয়েছে দুর্বৃত্তরা। ধারণা করা হচ্ছে, এসব ঘটনা নির্বাচন কেন্দ্রিক। ওই এলাকাগুলোতে যান চলাচলে কোনো বিঘ্ন ঘটেনি বলে জানান এ পুলিশ কর্মকর্তা।

উল্লেখ্য, ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ১, ১৭, ৪৩ থেকে ৫৪ নম্বর ওয়ার্ড এবং বিমানবন্দর এলাকা নিয়ে গঠিত ঢাকা-১৮ আসনে বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে ইভিএমে ভোটগ্রহণ শুরু হয়ে শেষ হয় বিকেল চারটায়।

এসআই আকবরকে পালাতে সহায়তাকারীরাও এবার ফেঁসে যাচ্ছে :চিহ্নিত হয়েছে

সিলেট মহানগর পুলিশের বন্দরবাজার ফাঁড়িতে নির্যাতনে রায়হান আহমদ হত্যার ঘটনায় পুলিশের বহিষ্কৃত উপপরিদর্শক (এসআই) আকবর হোসেন ভূইয়াকে আটক করা হয় গত সোমবার। একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে প্রধান অভিযুক্ত আকবর দেশের সীমানা ছাড়িয়ে পাড়ি দিয়েছিলেন ভারতের মেঘালয় রাজ্যে। সেখান থেকে কৌশলে দেশে ফিরানোর পন্থা অবলম্বন করেই হত্যার ২৮ দিন পর কানাইঘাট সীমান্ত এলাকার ডোনা বস্তি থেকে তাকে আটক করা হয়। মূলত সিলেটের পুলিশ সুপার মো. ফরিদউদ্দিনের পাতানো ফাঁদে পা দিয়েই গ্রেপ্তার হন বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়ির সাবেক এই ইনচার্জ। তবে কীভাবে কাদের মাধ্যমে ভারতে পালিয়েছিলেন সে বিষয়ে অনুসন্ধান চালিয়ে সহায়তাকারীদেরও শনাক্ত করেছে পুলিশ।

এদিকে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ও কিছু মিডিয়ায় আকবরের আটকের ঘটনা নিয়ে ভিন্ন ভিন্ন তথ্য প্রকাশ করায় জনমনে নানা প্রশ্নের সৃষ্টি হয়েছে। কেউ বলছে পুলিশ, আবার কারও দাবি রহিমউদ্দিন নামের এক যুবক ওই পুলিশ কর্মকর্তাকে আটক করেন। পুলিশ অবশ্য বলছে, আকবরের গ্রেপ্তার নিয়ে একটি পক্ষ জনমনে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। সরেজমিন অনুসন্ধান ও বিভিন্ন সূত্র থেকে পাওয়া তথ্যে জানা যায়, ১২ অক্টোবর বিকালে পালিয়ে গিয়ে রাতে শহরেই অবস্থান করেন। পরদিন বিকালে স্থানীয় একটি অনলাইন নিউজ পোর্টালের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা প্রতিনিধি সাংবাদিক নোমানের সঙ্গে সীমান্ত এলাকা ভোলাগঞ্জ যান। সেখানে এক নারী জনপ্রতিনিধির বাসায় রাতযাপন করেন। সেই জনপ্রতিনিধির স্বামীর

মাধ্যমেই ১৪ অক্টোবর ভোরে আকবর ভারতের মাঝাই গ্রামে নরেশ সিংহ নামের এক চুনাপাথর ব্যবসায়ীর বাসায় ওঠেন। সেখানে অবস্থান করেন চার রাত। সেখান থেকে চলে যান আসাম প্রদেশের শিলচর শহরের অদূরে অবস্থিত গুমড়া এলাকায় এবং আশ্রয় নেন গোপাল নামে এক ব্যক্তির বাড়িতে। পরে অবশ্য গোপালের মাধ্যমে আসামের রাজধানী গুয়াহাটিতে নিরাপদে বসবাসের সিদ্ধান্ত নেন তিনি। অপরদিকে সরকারের উচ্চপর্যায়ের নির্দেশে আকবরের অবস্থান নির্ণয়ে সিলেটের ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তারা তৎপর হয়ে ওঠেন। তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে তার হোয়াটসঅ্যাপে কথোপকথনের রেকর্ড যাচাই করে তার অবস্থান নিশ্চিত হয় পুলিশ। এর পরই ভারতে কয়েকজন বিশ^স্ত সোর্সের মাধ্যমে বিস্তারিত তথ্য নেওয়া হয়। আকবরকে গ্রেপ্তার করতে পুলিশ ছক কষতে শুরু করে। সে অনুযায়ীই গত সোমবার গ্রেপ্তার করে জেলা পুলিশ।

সূত্র মতে, আকবরকে পালাতে সহায়তাকারী সাংবাদিক নোমানকে খুঁজছে পুলিশ। দেশের ভেতরেই তিনি আত্মগোপন করে রয়েছেন বলে ধারণা। রায়হানকে হত্যার পর বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়ির সিসিটিভির ফুটেজ গায়েবের সঙ্গেও তিনি জড়িত বলে জানা যায়। নোমান ছাড়াও যারা আকবরকে প্রশ্রয় দিয়েছেন তাদেরও গ্রেপ্তারের চেষ্টা চালানো হচ্ছে বলে তদন্ত সংশ্লিষ্ট সূত্র নিশ্চিত করেছে। এদিকে গত সোমবার দুপুরের আগেই দুটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়। তার একটিতে দেখা যায়, খাসিয়া সম্প্রদায়ের এক লোক আকবরকে জিজ্ঞেস করেন- ‘তুমি কেন পালিয়ে গেলে?’ জবাবে আকবর বলেন- ‘আমাকে সাসপেন্ড করা হয়। অ্যারেস্ট হতে পারি বলেও জানানো হয়। তখন আমাকে সিনিয়র কর্মকর্তারা বলেছিলেন পালিয়ে যেতে।’ কিন্তু কারা সেই সিনিয়র কর্মকর্তা, তা জানার চেষ্টা চালায় তদন্ত সংশ্লিষ্টরা। যদিও গ্রেপ্তারের পর নিজ কার্যালয়ে পুলিশ সুপার ফরিদউদ্দিন নিজে আকবরকে জিজ্ঞেস করেন- কারা সেই সিনিয়র কর্মকর্তা? জবাবে আকবর জানান, তিনি নিজে থেকেই পালিয়েছিলেন! খাসিয়ারা তাকে প্রাণে মেরে ফেলতে পারে ভেবে তিনি ভয়ে সিনিয়রদের কথা বলেছেন। তবু বিষয়টি গভীরভাবে তদন্ত করা হচ্ছে বলে জানান মহানগর পুলিশের শীর্ষ এক কর্মকর্তা। তিনি জানিয়েছেন, নিজেকে রক্ষায় অপরাধীরা অনেক কিছুই বলে। তার পরও বিষয়টিকে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। সিনিয়র কারও পরামর্শে যদি আকবর পালিয়ে থাকেন তা হলে অবশ্যই তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সিলেটের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদউদ্দিন বলছেন, ‘সোমবার সকালে ভারতে পালানোর সময় কানাইঘাটের ডোনা সীমান্ত থেকে আকবরকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। জেলা পুলিশ কারও ক্রেডিট ছিনতাই করেনি। বরং যারা এমন সমালোচনা করছেন তারা পুলিশের অর্জন ও পরিশ্রমকে প্রশ্নবিদ্ধ করার চেষ্টা করছেন।’ মঙ্গলবার নিজের ফেসবুকে তা লিখে একটি নিউজ লিংকও শেয়ার দেন, যেটি রহিমউদ্দিনকে নিয়ে করা। কানাইঘাট এলাকার ওই বাসিন্দা ভারতে আটক হওয়া আকবরকে দেশে নিয়ে আসেন বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়। সেই ঘটনারও একটি ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে ফেসবুকে। এই ভিডিওতে একপর্যায়ে রহিমউদ্দিনকে ফোনে বলতে শোনা যায়- ‘ওসি স্যাররে কও আমি পাইছি, আমি লগে লগে আছি ওখন।’

সত্য না জেনে অনেকে বাজে মন্তব্য করছেন জানিয়ে এসপি বলেন, ‘ঘটনাটি সিলেট মহানগর পুলিশের আওতাধীন এলাকায় ঘটেছে। ওপরের নির্দেশ এবং সিলেটবাসীর দাবিকে সম্মান দিয়ে আকবরকে গ্রেপ্তারে সর্বশক্তি নিয়োগ করে সফল হয়েছে জেলা পুলিশ।’

অনুসন্ধানে জানা যায়, গুয়াহাটিতে পৌঁছে দেওয়ার জন্য গোপালের সঙ্গে এক লাখ টাকায় চুক্তি করেছিলেন আকবর। এ জন্য গত রবিবার রাতে অভিজিৎ নামের এক চালকের এলট্রো কার ভাড়া করা হয়। কিন্তু পুলিশের পরিকল্পনা অনুযায়ী তারা আকবরকে গুয়াহাটিতে না নিয়ে কৌশলে মেঘালয়ের সীমান্তবর্তী সেনা রোড দিয়ে উখিয়াং পেট্রলপাম্পের কাছে ওইদিন রাত ৩টায় পৌঁছে দেন। তখন কানাইঘাট থানার ওসি শামসুদ্দোহা আসামি আকবরকে লোভা সীমান্ত দিয়ে উদ্ধারের জন্য লক্ষ্মীপ্রসাদ পশ্চিম ইউপির এক জনপ্রতিনিধিসহ কানাইঘাটের বাসিন্দা সালেহ আহমদ ও শাহাবউদ্দিনের সহযোগিতা চান। এতে শাহাবউদ্দিনরা দনা সীমান্তবর্তী এলাকার রহিমউদ্দিনকেও সঙ্গে নেন। একপর্যায়ে ওইদিন গভীর রাতে স্থানীয় জনপ্রতিনিধির মাধ্যমে পুলিশের কথামতো গারো সম্প্রদায়ের বিশ^স্ত কয়েকজনকে কুলিয়াং এলাকায় পাঠান। কিন্তু সেখানে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন থাকায় তারা আকবরের কাছে পৌঁছতে পারেননি। পরে সালেহ আহমদ ও শাহাবউদ্দিন কুলিয়াং বস্তির উয়েস নামের এক খাসিয়া যুবকের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে কথা বলেন। ওই যুবকই কয়েকজন খাসিয়াকে নিয়ে উখিয়াং পেট্রলপাম্প এলাকা থেকে গোপালের কাছ থেকে আকবরকে বুঝে নেন। ৩০ হাজার টাকার বিনিময়ে দনা খাসিয়া বস্তি থেকে আসামিকে নিয়ে আসার জন্য রহিমসহ চার-পাঁচজনকে পাঠানো হয়। ওই সময় খাসিয়ারা আকবরের বেশ কয়েকটি ভিডিও ধারণ করে, যা পরবর্তী সময় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়।

প্রসঙ্গত, বন্দরবাজার ফাঁড়ি পুলিশ গত ১০ অক্টোবর মধ্যরাতে রায়হানকে নগরীর কাস্টঘর থেকে ধরে আনে। পরদিন ভোরে ওসমানী হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়। রায়হানের পরিবারের অভিযোগ, ফাঁড়িতে ধরে নিয়ে রাতভর নির্যাতন করায় ওই যুবক মারা যান। ১১ অক্টোবর রাতেই রায়হানের স্ত্রী তাহমিনা আক্তার বাদী হয়ে নির্যাতন ও হেফাজতে মৃত্যু (নিবারণ) আইনে মামলা করেন।

ফেসবুকে মহানবীকে কটূক্তি: জবির বহিষ্কৃত সেই ছাত্রী গ্রেফতার

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) সম্পর্কে কটূক্তি করে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করার অভিযোগে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কৃত শিক্ষার্থী তিথি সরকারকে গ্রেফতার করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।

বুধবার রাতে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে নিশ্চিত করেছেন সিআইডির এএসপি (মিডিয়া) জিসানুল হক।

এ বিষয়ে আজ বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলন করে বিস্তারিত জানানো হয়

ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের অভিযোগে গত ২৬ অক্টোবর জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার স্বাক্ষরিত আদেশে তিথি সরকারকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করা হয়।

৫ নভেম্বর তিথি সরকারের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করা হয়। ঢাকার সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক আসসামছ জগলুল হোসেনের আদালতে আবু মুসা রিফাত নামের এক ব্যক্তি মামলাটি করেন।

মামলায় অভিযোগ করা হয়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের ২০১৭-২০১৮ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী তিথি সরকার গত ১৬ অক্টোবর থেকে ২৩ অক্টোবর পর্যন্ত বিভিন্ন সময়ে নিজের ফেসবুক পেজ থেকে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত ও কটূক্তি করেছেন।

অভিযোগে আরও জানানো হয়, ইতিমধ্যে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেয়ার কারণে তিথিকে তার সংগঠন ছাত্র অধিকার পরিষদ থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। একই অভিযোগে গত ২৬ অক্টোবর জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার স্বাক্ষরিত আদেশে তিথি সরকারকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকেও বহিষ্কার করা হয়।

মুজিববর্ষ: নাচোলে জমিসহ বাড়ি পাচ্ছে ২০০’শ পরিবার

চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোলে “ক” শ্রেণীর তালিকাভুক্ত ২শ’ পরিবারকে জমিসহ আধাপাকা বাড়ি নির্মাণ করে দেয়া হবে।

মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে দেশের ভূমিহীন ও গৃহহীন “ক” শ্রেণীর তালিকাভুক্ত পরিবারকে পুনর্বাসনের লক্ষ্যে উপকারভোগী নির্বাচন ও গৃহ নির্মাণ সুষ্ঠুভাবে বাস্তবায়নের লক্ষ্যে সরকার মাঠ পর্যায়ে কাজ করে যাচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় সারাদেশের ন্যায় নাচোল উপজেলায় “ক” শ্রেণির তালিকাভুক্ত ২শ’ পরিবারকে বাড়ি নির্মাণ করে দেওয়া হবে। এ লক্ষ্যে সোমবার ফতেপুর ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের বিষ্ণুপুর গ্রামের গুদড় এর ছেলে শরিফুল ইসলামের বাড়ি নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন, জেলা প্রশাসক মঞ্জুরুল হাফিজ।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা টাস্কফোর্স কমিটির সভাপতি ইউএনও সাবিহা সুলতানা, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মৌদুদ আলম খাঁ, মাধ্যমিক সহকারী শিক্ষা অফিসার দুলাল উদ্দিন খান, ওসি সেলিম রেজা, একটি বাড়ি একটি ঘর প্রকল্পের সমন্বয়কারী হাবিবুর রহমান, ফতেপুর ইউপি প্যানেল চেয়ারম্যান মজিবুর রহমান ।

ইউএনও সাবিহা সুলতানা জানান, সরকারি প্রকল্পের মাধ্যমে দারিদ্র বিমোচন ওপুনর্বাসনের লক্ষ্যে মুজিবশতবর্ষে “ক” শ্রেণীর তালিকাভুক্ত পরিবারকে খাস জমি বন্দোবস্ত প্রদান পূর্বক গৃহ নির্মাণের মাধ্যমে ১ লাখ ৭১ হাজার টাকা ব্যয়ে ২শতাংশ জমিতে একটি টয়লেট ও একটি রান্নাঘরসহ দুই কক্ষ বিশিষ্ট একটি আধাপাকা বাড়ি নির্মাণের প্রতিশ্রুতি মোতাবেক মাঠ পর্যায়ে আমরা অক্লান্ত পরিশ্রমের মাধ্যমে সরেজমিনে ঘুরে কাজ করে যাচ্ছি এবং পর্যায়ক্রমে তালিকাভুক্ত পরিবারগুলোর প্রত্যেকে একটি করে বাড়ি পাবে।

বাংলাদেশসহ ৪৭ দেশকে শুল্ক সুবিধা দেবে যুক্তরাজ্য

ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে বের হয়ে যাওয়ার পরও বাংলাদেশসহ স্বল্পোন্নত ৪৭টি দেশ থেকে আমদানিতে শুল্ক সুবিধা অব্যাহত রাখবে যুক্তরাজ্য।

মঙ্গলবার দেশটির আন্তর্জাতিক বাণিজ্য, পররাষ্ট্র, কমনওয়েলথ ও উন্নয়ন দপ্তরের এক বিবৃতিতে বিষয়টি জানিয়েছে বলে ডেইলি স্টারের এক প্রতিবেদনে বলা হয়।

শুল্ক সুবিধা অব্যাহত থাকায় দেশগুলোর ব্যবসা-বাণিজ্য প্রসারের মাধ্যমে অর্থনৈতিক উন্নয়নে সহায়তা হবে বলে মনে করে যুক্তরাজ্য।

এ ছাড়াও দেশটির বিশ্বব্যাপী শুল্ক হারের তুলনায় স্বল্প ও নিম্ন-মধ্য আয়ের দেশগুলো স্বল্প শুল্কের সুবিধা পাবে।

যুক্তরাজ্যের সঙ্গে আগে কোনো বাণিজ্য চুক্তি না থাকলেও, বাণিজ্য অগ্রাধিকার প্রকল্পের অধীনে এমন দেশগুলো এ শুল্ক সুবিধা পাবে বলে বিবৃতিতে জানানো হয়।

দেশটির আন্তর্জাতিক বাণিজ্য বিষয়ক মন্ত্রী লিজ ট্রাস বলেন, ‘মুক্ত বাণিজ্য ব্যবসা উন্নয়নে সহায়তার পাশাপাশি, অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ও নতুন কর্মসংস্থান তৈরিতে সহায়ক। আমরা বিশ্বের দরিদ্র দেশগুলোকে যুক্তরাজ্যে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে তাদের পণ্য রপ্তানি করার সুযোগ নিশ্চিত করতে চাই।’

তিনি বলেন, ‘এটি উন্নয়নশীল অর্থনীতির দেশগুলোর শক্তিশালী শিল্প স্থাপনে, কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে এবং দীর্ঘমেয়াদে বিদেশি সহায়তার ওপর নির্ভরশীলতা কমাতে সহায়তা করবে।’

যুক্তরাজ্য গত বছর এ ধরনের স্বল্পোন্নত ও মধ্যম আয়ের দেশগুলো থেকে প্রায় আট বিলিয়ন ডলারের টেক্সটাইল ও তৈরি পোশাক আমদানি করে। যা যুক্তরাজ্যে মোট টেক্সটাইল ও পোশাক আমদানির ৩০ শতাংশ।

বিবৃতিতে বলা হয়, ব্রিটিশ আমদানিকারকেরা বিশ্বের দরিদ্রতম দেশগুলো থেকে পোশাক ও শাকসবজির মতো পণ্যগুলো আমদানির ক্ষেত্রে শূন্য বা কম শুল্কহার দেওয়া অব্যাহত রাখবে।

বর্তমানে যে সব দেশ ইউরোপীয় ইউনিয়নের জেনারালাইজড স্কিম অব প্রেফারেন্স’র (জিএসপি) আওতায় বাণিজ্য অগ্রাধিকারের জন্য যোগ্য, সেগুলো ব্রিটিশ সরকারের জিএসপি সুবিধা পাবে বলেও বিবৃতিতে জানানো হয়।

লিজ ট্রাস বলেন, ‘এই পরিকল্পনা ব্রিটিশ ব্যবসায়ীদের ইউরোপীয় ইউনিয়ন ত্যাগ করার পরেও, তাদের ব্যবসা নির্বিঘ্নে চালিয়ে যেতে সহায়তা করবে। পাশাপাশি ব্রিটিশ গ্রাহকেরা সাশ্রয়ী মূল্যে তাদের পছন্দের পণ্য পেতে থাকবে।’

৬৫ হাজার স্কুলে বঙ্গবন্ধু কর্নার হচ্ছে

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে সারাদেশের ৬৫ হাজার প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ‘বঙ্গবন্ধু কর্নার’ করার কর্মসূচি নিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। ওই কর্নারে বঙ্গবন্ধুর ওপর লেখা বিভিন্ন বই রাখা হবে, যাতে শিশুরা শৈশব থেকেই বঙ্গবন্ধুর জীবন, রাজনৈতিক সংগ্রাম, জেল-কারাবরণ সম্পর্কে জানতে পারে। প্রথম দফায় ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’সহ আরও ৭টি বই কর্নারে রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এর মধ্যে ‘বঙ্গবন্ধু মানেই স্বাধীনতা’ বইয়ের মেধাস্বত্ব নিয়ে বিতর্ক ওঠায় পুরো বই কেনার প্রক্রিয়া আটকে যায়। এরপর পুরো বিষয়টি তদন্ত করতে গত ২৬ আগস্ট প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম বাবুকে আহ্বায়ক করে চার সদস্যের একটি উপকমিটি গঠন করে। কমিটি একাধিক বৈঠক করে বই কেনায় কোনো অনিয়ম পায়নি- এই মর্মে জার্নি মাল্টিমিডিয়াকে দায়মুক্তি দিয়েছে। ফলে বঙ্গবন্ধু কর্নারে বই কেনায় আর কোনো বাধা রইল না। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এমন তথ্য জানা গেছে।

এ ব্যাপারে উপকমিটির আহ্বায়ক ভারপ্রাপ্ত ও নারায়ণগঞ্জ ২ আসনের সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম বাবু বলেন, বঙ্গবন্ধু কর্নারের বই কেনা ও মেধাস্বত্ব প্রক্রিয়ায় আমরা নিয়মের কোনো ব্যত্যয় হয়েছে এমনটি খুঁজে পাইনি। বই নির্বাচন এবং জার্নি মাল্টিমিডিয়াকে কাজ দেওয়ার প্রক্রিয়াটি যথাযথ ছিল। ‘বঙ্গবন্ধু মানেই স্বাধীনতা’ এবং ‘৩০৫৩ দিন’ বই দুটির কপিরাইট সংক্রান্ত কাগজপত্র কমিটির কাছে সঠিক বলে প্রতীয়মান হওয়ায় তাদের দায়মুক্তি দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। বই জালিয়াতির সংক্রান্ত যে অভিযোগ এসেছে সে ব্যাপারে মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয় তাদের অবস্থান পরিষ্কার করেছে। সেখানে কোনো সমস্যা আমরা দেখিনি ।

উপকমিটির সদস্যরা জানান, উপকমিটির তদন্ত রিপোর্টটি এখন সংসদীয় মূল কমিটির কাছে উপস্থাপন করা হবে। সেখানে আগামী বছরের ১৭ মার্চের আগে বঙ্গবন্ধু বুক কর্নারের নির্বাচিত ৬৬টি বই দ্রম্নত স্কুলে পৌঁছে দেওয়ার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করা হবে। একই সঙ্গে অনিয়ম খুঁজে না পাওয়ায় কাজ পাওয়া প্রতিষ্ঠানের বিল ছাড় করার সুপারিশ করা হবে।

এদিকে মিরপুরে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের নিচতলায় বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে লেখা ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’সহ আরও সাতটি বইয়ের কয়েক হাজার বান্ডেল স্তূপ পড়ে আছে। গত জুনে বই কেনা হলেও মেধাস্বত্ব নিয়ে বিতর্ক তৈরি হওয়ায় বইগুলো স্কুলে পাঠানো যাচ্ছে না। বিতর্কের অবসান হওয়ায় অবশিষ্ট বই কেনার প্রক্রিয়া শুরু করবে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর।

জানা গেছে, সংসদীয় কমিটির সদস্যরা গত ২৯ সেপ্টেম্বর প্রথম বৈঠক করে মন্ত্রণালয়ের কাছে বই কেনার প্রক্রিয়ার নথিপত্র তলব করে তা যাচাই-বাছাই করেন। একই সঙ্গে বই কেনার প্রক্রিয়া চালু রাখার সুপারিশ করা হয়। পরে ২ নভেম্বর দ্বিতীয় বৈঠকে নির্বাচিত বই ক্রয়ের নথিপত্র পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে পর্যালোচনা করা হয়। মুজিববর্ষে ৬৫ হাজার সরকারি প্রাথমিক স্কুলে বঙ্গবন্ধু বুক কর্নার স্থাপনকে প্রশংসা করে সংসদীয় উপকমিটি। একই সঙ্গে যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণ করে তালিকার অবশিষ্ট বই কেনা এবং চলতি বছরের মধ্যে স্কুলগুলোতে বই পৌঁছে দেওয়ার সুপারিশ করা হয়।

এ ব্যাপারে কমিটি সদস্য এবং ভোলা ২ আসনের সংসদ সদস্য আলী আজম বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু মানেই স্বাধীনতা’ বইয়ের গ্রন্থস্বত্ব ও মেধাস্বত্ব চুরির যে অভিযোগ এসেছিল, কমিটির পর্যালোচনায় সেগুলো প্রমাণিত হয়নি। একটি মহল ঈর্ষান্বিত হয়ে বঙ্গবন্ধু বুক কর্নারের জন্য নির্বাচিত বই ‘বঙ্গবন্ধু মানেই স্বাধীনতা’ এবং বঙ্গবন্ধুর কারাজীবন নিয়ে অহেতুক বিতর্ক তুলেছেন।

জানা গেছে, মুজিববর্ষ উপলক্ষে প্রাথমিক স্কুলে ‘বঙ্গবন্ধু কর্নার’ কর্মসূচির জন্য ৫ বছরে প্রায় দেড়শ’ কোটি টাকার বই কেনার পরিকল্পনা করেছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর। এর মধ্যে চলতি বছর ২৮ কোটি বই কেনার অনুমতি দিয়েছে গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। বাকি বই পরের বছরগুলোতে কেনা হবে। মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত- একজন লেখকের একটি করে বই ৬৫ হাজার কপি করে কিনে স্কুলে বিতরণ করা হবে। চলতি বছর শিশু একাডেমি ও বঙ্গবন্ধুর ওপর লেখা ৩৮টি বই কেনার অনুমতি দেয় গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। সেই তালিকায় মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়ের বই ‘বঙ্গবন্ধু মানেই স্বাধীনতা’ বইটি নির্বাচিত হয়। কাজ পাওয়া প্রতিষ্ঠানটি সেই বইয়ের মেধাস্বত্ব অন্যের নামে চালিয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে জার্নি মাল্টিমিডিয়া লিমিটেডের বিরুদ্ধে। প্রতিষ্ঠানটি বঙ্গবন্ধু কর্নারের জন্য ৬৫ হাজার বই সরবরাহ করে ১২ কোটি ৯৭ লাখ টাকার বিল ইতোমধ্যে অধিদপ্তরে জমা দিয়েছে। বিতর্কের কারণে সেই বিল আটকে দেওয়া হয়।

মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, ‘বঙ্গবন্ধু মানেই স্বাধীনতা’ বইয়ে শতভাগ মেধাস্বত্ব জার্নি মাল্টিমিডিয়া নিশ্চিত হওয়ার পর গত ১৬ জুন গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রতিষ্ঠানটির সঙ্গে চুক্তি করে। চুক্তির আগে বইয়ের স্বত্ব যাচাই করতে দুই দফা মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়কে চিঠি দেওয়া হয়। মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়ের এনওসি পাওয়ার পর চুক্তি কার্যকর করে। জার্নি মাল্টিমিডিয়া এবং মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়ের মধ্যে স্বাক্ষরিত চুক্তি অনুযায়ী ‘বঙ্গবন্ধু মানেই স্বাধীনতা’ বইয়ে ২৩ শতাংশ রয়েলিটির মোট ২ কোটি ৫৩ লাখ ৪৮ হাজার টাকা মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়কে অগ্রিম পরিশোধ করে জার্নি মাল্টিমিডিয়া। এরপর প্রতিষ্ঠানটিকে গত ৩ জুন বই বিক্রির এনওসি দেয় মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়। এরপর ১ জুলাই প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়কে চুক্তিটি সঠিক কি না জানতে চেয়ে চিঠি দেন। ২৩ শতাংশ রয়েলিটি হিসেবে আড়াই কোটি টাকার বেশি বুঝে পেয়েছেন এমন সত্যতা নিশ্চিত করে এরপর ৮ আগস্ট চিঠির জবাব দিয়ে মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয় বই কিনতে প্রাথমিক অধিদপ্তরকে অনুমতি দেয়। এরপর গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়কে ফের চিঠি দেয় বইয়ের মালিকানা স্বত্ব সঠিক আছে কি না জানার জন্য। সেই চিঠির সত্যতা নিশ্চিত করে মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়। এরপর জার্নি মাল্টিমিডিয়াকে কাজ দেওয়া হয়।

চাঁপাইনবাবগঞ্জে আরও ৫ জনের করোনা সনাক্ত


চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে রোগীর সংখ্যা বেড়েই চলেছে চাঁপাইনবাবগঞ্জে। বৃহষ্পতিবার আবার নতুন করে ৫ জনের দেহে করোনা সনাক্ত হয়েছে। বুধবার রাতে ল্যাব থেকে আসা নমুনা পরীক্ষায় ২৭জনের পজেটিভ রেজাল্ট আসে। এনিয়ে জেলায় করোনায় মোট আক্রান্ত ৮০১ জন, সুস্থ হয়েছেন ৭৬৮ জন। মৃত্যু হয়েছে মোট ১৪ জনের। আক্রান্তরা নিজ নিজ বাড়িতে ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন এবং সুস্থ আছেন বলে নিশ্চিত করেছেন সিভিল সার্জন। চাঁপাইনবাবগঞ্জ সিভিল সার্জন ডা. জাহিদ নজরুল চৌধুরী বিষয়গুলো নিশ্চিত করে জানান, বুধবার রাতে ল্যাব করোনা ভাইরাস নমুনা পরীক্ষার ফলাফল সিভিল সার্জন অফিসে আসে। এর মধ্যে নতুন করে এ ৫ জনের পজেটিভ।