সর্বশেষ সংবাদ অপরাধীদের দিন শেষঃ তৈরী হচ্ছে জাতীয় ডিএনএ ডাটাবেজ’ গণভবন থেকে ভার্চুয়াল মাধ্যমে বহু প্রতিক্ষীত রেলসেতুর নির্মাণকাজের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী করোনাযোদ্ধাদের কোয়ারেন্টিন’ ভাতা পাওয়া শুরু গোমস্তাপুরে সাবেক ছাত্র নেতা সুমনের ওপর হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন চাঁপাইনবাবগঞ্জ সীমান্তে ২ বাংলাদেশীকে ধরে নিয়ে গেছে বিএসএফ অন্যের ট্রাক থেকে তেল চুরি করতে গিয়ে আটক ৪ বঙ্গবন্ধুর ভার্স্কয নিয়ে কটুক্তির প্রতিবাদে চাঁপাইনবাবগঞ্জে স্বেচ্ছাসেবকলীগের মানববন্ধন পদ্মা সেতুতে বসল ৩৯তম স্প্যান ঃ আর বসবে মাত্র দুটি স্প্যান র‌্যাংকিংয়ে সুখবর বয়ে আনল বাংলাদেশ ফুটবল দল তিন ব্যাংক তালিকাভুক্ত হচ্ছে শেয়ারবাজারে

গোমস্তাপুরে বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান তৃতীয় শ্রেণীর কর্মচারীর ত্রি-বাষিক সম্মেলন


গোমস্তাপুর(চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ  বাংলাদেশ বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান তৃতীয় শ্রেণীর কর্মচারী পরিষদের গোমস্তাপুর উপজেলা শাখার ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে।মঙ্গলবার সকালে প্রসাদপুর কামিল মাদরাসা মিলনায়তনে এ সম্মেলনটি অনুষ্ঠিত হয়। মৃধাপাড়া  উচ্চ বিদ্যালয়ের অফিস সহকারী  ইউসুফ আলীর সভাপতিত্বে সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন  বাংলাদেশ বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান তৃতীয় শ্রেণী কর্মচারীর পরিষদ  চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি  মাইনুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যুগ্ন আহ্বায়ক জাহিদুল ইসলাম, সদস্য সচিব তোহরুল ইসলাম ও ময়েরুল ইসলাম, শিবগঞ্জ উপজেলার শাখার যুগ্ন আহ্বায়ক মসিউর রহমানসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কর্মচারীবৃন্দ। এতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন রহনপুর জনতা উচ্চ বিদ্যালয়ের অফিস সহকারী আমিনুল ইসলাম। আলোচনা শেষে আমিনুল ইসলামকে সভাপতি ,সিনিয়র সভাপতি ইউসুফ আলী,সহ-সভাপতি আব্দুস সাত্তার তৈমুর রহমান ও ডলার কুমার শাহকে সাধারণ সম্পাদক করে ১৯সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়।

বোয়ালিয়া ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের ই-সেবা ক্যাম্পেইনে সমাপনী

গোমস্তাপুর (চাঁপাইনবাবগঞ্জ )প্রতিনিধিঃ

“বাড়ছে সেবার বহর, গ্রাম হবে শহর”মুজিববর্ষের ই-সেবা ক্যাম্পেইনের সমাপনী অনুষ্ঠান গোমস্তাপুর উপজেলার বোয়ালিয়া ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারে অনুষ্ঠিত হয়।
মঙ্গলবার সকালে আয়োজিত সমাপনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্বে করেন ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান শুকুর উদ্দিন। প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মিজানুর রহমান। এ সময় উপস্থিতি ছিলেন বোয়ালিয়া বি এল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এনামুল হক,কাশিয়াবাড়ী আলিম মাদ্রাসার সাবেক অধ্যক্ষ মাওলানা আব্দুর রশিদ, ইউনিয়ন পরিষদ সচিব রবিউল ইসলাম, অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক সালেহ আহমেদ বাবলু. অবসরপ্রাপ্ত ইউনিয়ন পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আবদুল হামিদ,ইউপি সদস্য এজাজুল হক তায়িফ, মাসির আলী, মোস্তফা কামাল ,আবদুল মতিন, আলতানূর খাতুন ও ফাতেমা বেগম,বোয়ালিয়া বাজার সমিতির সভাপতি আবুল হোসেন প্রমুখ। আলোচনা শেষে ১০বছর পূর্তি উপলক্ষে বোয়ালিয়া ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের কেক কাটা হয়।

র‌্যাব চাঁপাইনবাবগঞ্জ ক্যাম্পের অভিযানে ২ কোটি টাকার হেরোইনসহ ব্যবসায়ী আটক


চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ বিপুল পরিমান মাদক পাচারের গোপন সংবাদে অভিযান চালিয়ে প্রায় ২ কোটি টাকা মূল্যের ১ কেজি ৯৮০ গ্রাম হেরোইনসহ এক শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে র‌্যাব ৫ এর চাঁপাইনবাবগঞ্জ ক্যাম্পের সদস্যরা। মঙ্গলবার দুপুর আড়াইটার দিকে রাজশাহী জেলার গোদাগাড়ী উপজেলার বাসুদেবপুর এলাকার খৈয়ার ব্রীজ পাশর্^বর্তী স্থানে এই অভিযানে আটক হয় চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার বারঘরিয়া ইউনিয়নের লক্ষিপুরের মৃত জাইদুল ঘোষের ছেলে মো. দুরুল মিয়া (৩৫)। র‌্যাবের এক প্রেসনোটে মঙ্গলবার বিকেলে জানানো হয়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-৫ এর চাঁপাইনবাবগঞ্জ ক্যাম্পের একটি দল ১০ নভেম্বর আনুমানিক আড়াইটার দিকে রাজশাহী জেলার গোদাগাড়ী বাসুদেবপুর ইউনিয়নের খাদির ব্রীজ বালিয়াঘাটা বিল সংলগ্ন পাঁকা রাস্তার উপর অভিযান চালায়। এসময় ২ কোটি টাকা মূল্যের ১ কেজি ৯৮০ গ্রাম হেরোইনসহ মাদক ব্যবসায়ী মোঃ দুরুল মিয়া ’কে হাতেনাতে গ্রেফতার করা হয়। উক্ত মাদক ব্যবসায়ী দীর্ঘদিন যাবৎ হেরোইনসহ বিভিন্ন ধরনের মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে। এ ঘটনায় রাজশাহী জেলার গোদাগাড়ী থানায় মামলা হয়েছে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জে ডিবি পুলিশের অভিযানে ২ কোটি টাকার হেরোইনসহ গ্রেপ্তার ১


নিজস্ব প্রতিবেদক, চাঁপাইনবাবগঞ্জ : চাঁপাইনবাবগঞ্জে জেলা গোয়েন্দা শাখা ডিবি পুলিশের মাদকবিরোধী অভিযানে শিবগঞ্জ উপজেলার ছত্রাজিতপুর কাঁঠালিয়া পাড়ার একটি বাড়িতে অভিযান চালিয়ে প্রায় ২ কোটি টাকা মূল্যের হেরোইনসহ ১জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।
সোমবার দিবাগত রাতে ২ কেজি হেরোইনসহ সুমন আলী (৩৮) নামের এক জনকে আটক করে ডিবি। আটক ব্যক্তি জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার ছত্রাজিতপুর কাঠালিয়াপাড়ার মনিরুল ইসলামের ছেলে।
জেলা গোয়েন্দা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ বাবুল উদ্দিন সরদার ২কেজি হেরোইনসহ ১জনকে গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। 
গ্রেপ্তারকৃত আসামী, চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার ছত্রাজিতপুর ইউনিয়নের কাঠালিয়াপাড়া গ্রামের মনিরুল ইসলামের ছেলে সুনন আলী (৩৮)।
জানা গেছে, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে এসআই অনুপ কুমার সরকার ও এসআই মশিউর রহমানের নেতৃত্বে ডিবি পুলিশের সঙ্গীয় ফোর্স ঐ এলাকায় অভিযান চালিয়ে হিিিিরোইরোরসহ সুমনকে হাতেনাতে গ্রেপ্তার করা হয়।  
প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সুমন দীর্ঘ দিন থেকে মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে। এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা রুজু করা হয়েছে

যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ পদে ১০৫ জনকে পদোন্নতি ( তালিকা সহ)

যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ/সমপর্যায়ের পদে ১০৫ জনকে পদোন্নতি দিয়েছে সরকার। আজ রবিবার আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের আইন ও বিচার বিভাগ থেকে এ বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের সঙ্গে পরামর্শক্রমে বাংলাদেশ জুডিশিয়াল সার্ভিসের নিম্নবর্ণিত বাংলাদেশ জুডিশিয়াল সার্ভিস (বেতন ও ভাতাদি) আদেশ, ২০১৬ এর বেতন স্কেলের ৩য় গ্রেডে ৫৪৩৭০-৭৪৪৬০ বেতনক্রম অনুসারে সিনিয়র সহকারী জজ / সমপর্যায়ের পদ হতে যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ / সমপর্যায়ের পদে পদোন্নতি প্রদানপূর্বক পুনরাদেশ না দেওয়া পর্যন্ত তাদের উল্লেখিত পদে ও কর্মস্থলে নিয়োগ/বদলি করা হলো।

প্রজ্ঞাপনে আরো উল্লেখ করা হয়, কর্মকর্তাগণকে জেলা ও দায়রা জজ / চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট চীফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট/দপ্তর প্রধান কর্তৃক মনোনীত কর্মকর্তার নিকট আগামী ১৫ নভেম্বর এবং  প্রশিক্ষণ ছুটিতে থাকা কর্মকর্তাগণকে প্রশিক্ষণ/ছুটি শেষে কর্মস্থলে যোগদানের তারিখে বর্তমান পদের দায়িত্বভার অর্পণ করে পদোন্নতিপ্রাপ্ত কর্মস্থলে অবিলম্বে যোগদানের জন্য অনুরোধ করা হলো। 

পদোন্নতি প্রাপ্ত হলেন, ইফতেখার আহমেদ, মোহাম্মদ কামাল খান, আ. বা. মো. নাহিদুজ্জামান, এস. এম. মাসুদ পারভেজ, বেগম লায়লা শারমিন, মো. খালিদ হাসান খান, বেগম ইয়াসমিন বেগম, বেগম আফসানা আবেদীন, মো. তাজুল ইসলাম মিঞা, মো. হাফিজুল ইসলাম, মোহাম্মদ নাঈম ফিরোজ, মো. আহসান হাবিব, বেগম মনীষা রায়, মো. ইউনুস খান, বেগম চাঁদনি রূপম, মাসফিকুল হক, মো. আব্দুল্লাহ আল মাসুম, বেগম খাদিজা নাসরিন, মোহাম্মদ মিল্লাত হোসেন, মুহাম্মদ সরওয়ার আলম, মো. তোফাজ্জল হোসেন,  কাজী মুসফিক মাহবুব রবিন, জি. এম নাজমুছ শাহাদাৎ, মো. খাইরুল ইসলাম, মোহাম্মদ হাসান, মোছা. মার্জিয়া খাতুন, মো. আলমগীর হোসাইন, মো. হুমায়ুন কবীর, হাবিবুল্লাহ মাহমুদ, মো. শামীম সুফী, মো. আমিরুল ইসলাম, রশিদ আহমেদ মিলন, কাজী সোনিয়া আক্তার, মোসাদ্দেক মিনহাজ, বেগম তাহেরা আনোয়ার, মোহাম্মদ সাহাব উদ্দিন, কাঁকন দে, মোহাম্মদ খাইরুল আমীন, মো. হাবিবুর রহমান চৌধুরী, মোহাম্মদ মঈন উদ্দিন চৌধুরী, মো. জাহিদুল আজাদ, মোহাম্মদ বদিউজ্জামান, মোহাম্মদ দিদার হোসাইন, কোহিনুর আরজুমান, আবু সালেম মোহাম্মদ নোমান, বেগম নাজমুন নাহার, বেগম শিউলী রাণী দাস, বেগম ওবায়দা খানম, মো. সারাফুজ্জামান আনছারী, মো. জিয়াদুর রহমান, হাসান মো. আরিফুর রহমান, মো. হুমায়ুন কবির, তরুন বাছাড়, জাহেদ আহমদ, মো. আফতাবুজ্জামান, বেগম মিথিলা ইসলাম, মোহা. হেলাল উদ্দিন, মো. ইকবাল মাসুদ, মোহাম্মদ শফিউল আযম, রওশন আলম, মো. তৌহিদুল ইসলাম চৌধুরী, মো.সাদেকীন হাবিব বাপপী, মো. জাহাঙ্গীর হোসেন, আহমেদ সাঈদ, মুহাম্মদ আলী আক্কাস, মো. কামরুম হাসান, এস.এম মোর্শেদ, বেগম নওরীণ আক্তার কাঁকন, মোহাম্মদ বিল্লাল হোসাইন, এস রমেশ কুমার ডাগা, মো. তসরুজ্জামান, গাজী জামশেদুল হক, মুহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন, আবু হাসান খায়রুল্লাহ, বেগম তাওহীদা আক্তার, বেগম আইরিন পারভীন, মোহাম্মদ ইলিয়াছ মিয়া, মো. এরশাদ আলী, গোলাম মাহফুজ, মো. জিয়াউর রহমান, মো. খোরশেদ আলম, মোহাম্মদ দেলোয়ার হোসেন, বেগম মেহের নিগার সূচনা, বেগম সুপ্রিয়া রহমান, কাজী কামরুল ইসলাম,  মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম গাজী, মো. শরিফুল হক, আবু খান শাহীন কনক, মো. খুরশীদ আলম, মো. আমিনুল ইসলাম, কাজী ইয়াসিন হাবিব, মো. জিয়ারুল ইসলাম, আবদুল মোমেন, কে. এম মহিউদ্দীন, ওয়াসিম শেখ, মাহমুদুল ইসলাম, মো. মতিউর রহমান, আবু বাছেদ মো. বুলু মিয়া, বেগম স্নিগ্ধা রাণী চক্রবর্তী, মো. আশিকুজ্জামান, মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান, মোহাম্মদ শহিদুল ইসলাম, বৈজয়ন্ত বিশ্বাস, মুজাহিদুর রহমান ও মো’তাছিম বিল্যাহ।

আট দিনের মধ্যেই নামজারি

জমি রেজিস্ট্রেশন ও নামজারি সমন্বয়ের প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। এর ফলে জমি রেজিস্ট্রেশনের আট দিনের মধ্যে নামজারি হয়ে যাবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে সোমবার মন্ত্রিসভা বৈঠকে এ অনুমোদন দেয়া হয়।

পরে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল হক।

তিনি বলেন, জমি রেজিস্ট্রেশন ও নামজারির প্রক্রিয়া সহজ করে নাগরিকের দুর্ভোগ কমাতেই বিষয়টিতে সমন্বয় আনা হয়েছে।

সফটওয়্যার ব্যবহার করে স্বচ্ছতার সঙ্গে কোনো জমি রেজিস্ট্রেশনের পর স্বয়ংক্রিয়ভাবে নামজারি ও রেকর্ড সংশোধন হবে। এসি ল্যান্ডকে বাধ্যতামূলকভাবে সেই জমির রেকর্ড সংশোধন করতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে এবং মন্ত্রীরা সচিবালয় থেকে ভার্চুয়াল বৈঠকে যোগ দেন।

মিউটেশনের জন্য আলাদা আবেদন করতে হবে না বলেও জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব।

বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী বলেন, মিউটিশন আবেদন উঠিয়ে দিলে জমি রেজিস্ট্রেশনে দুর্নীতির সুযোগ কমে যাবে। এসি ল্যান্ডদের এ  সংক্রান্ত প্রশিক্ষণ দেয়া আছে, এখন কেবল সাব রেজিস্টারদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে।

সংস্কারের ফলে জমি সংক্রান্ত মামলা ৫০ শতাংশ কমে যাবে বলে আশা প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী।

বৈঠকে তৃতীয় লিঙ্গ বা ট্রান্সজেন্ডারের মানুষ যাতে কোনোভাবেই সম্পত্তির উত্তরাধিকার থেকে বঞ্চিত না হয়, সেদিকে বিশেষ দৃষ্টি রাখতে নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী।

বৈঠকে ভূমি মন্ত্রণালয়ের পক্ষে সংস্কার প্রস্তাবটি উত্থাপন করেন সাইফুজ্জামান চৌধুরী।

এসব সিদ্ধান্তকে যুগান্তকারী উল্লেখ করে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘দেশের মানুষ, সর্বসাধারণ, ইনভেস্টরদের একটা বড় রকমের রিলিফ দেবে, নতুন একটা অধ্যায় সৃষ্টি হবে এবং মামলা-মোকদ্দমা অনেক কমে যাবে।’

তিনি বলেন, ‘সংস্কারের উদ্যোগ অনেক দিন থেকে চলছিল। প্রধানমন্ত্রী আমাদের নির্দেশনা দিচ্ছিলেন জমির রেজিস্ট্রেশন ও মিউট্রেশন কীভাবে আরও কমফোর্টলি করা যায়, মানুষের হয়রানি যাতে বন্ধ হয় এবং সময় যাতে কম লাগে।’

ভূমি রেজিস্ট্রশন আইন মন্ত্রণালয়ের অধীন সাব-রেজিস্ট্রার অফিস করে থাকে। আর ভূমি মন্ত্রণালয়ের অধীন উপজেলা অফিস বা সার্কেল ভূমি অফিস জমির নামজারির কাজ করে।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘দুটি ভিন্ন মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে কাজগুলো করা হয় বলে সমন্বয় সাধন কষ্টসাধ্য ছিল। রেজিস্ট্রেশনে কিছুটা অস্পষ্টতা ছিল, যে কোনো জমি যে কেউ গিয়ে রেজিস্ট্রেশন করতে পারত। আবার মিউট্রেশনের ক্ষেত্রে ঝামেলা হতো, দলিল পাওয়া যেত না, এলটি নোটিশ বোঝা যেত না, এ কারণে দীর্ঘদিন এগুলো পড়ে থাকত।

‘এখন থেকে সাব-রেজিস্ট্রার অফিস এবং এসি ল্যান্ডের অফিসের মধ্যে ইন্টার অপারেটবল সফটওয়্যার থাকবে। বাংলাদেশের সব এসি ল্যান্ড অফিসের চার কোটি ৩০ লাখ রেকর্ডস অফ রাইটস অনলাইনে চলে এসেছে। এখন থেকে সাব-রেজিস্ট্রার অফিস এবং এসি ল্যান্ড অফিসের একজন আরেকজনের ডাটাবেইজে ঢুকতে পারবেন।’

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘যখন কেউ জমি রেজিস্ট্রেশনের জন্য যাবে, সাব রেজিস্ট্রার আগের মতো সঙ্গে সঙ্গে রেজিস্ট্রি করে দেবেন না, অনলাইনে এসি ল্যান্ডের অফিস থেকে রেকর্ড অব রাইটস-এর স্ট্যাটাস জানবেন। রেসপন্সিভ সফটওয়্যারের মাধ্যমে সেই তথ্য জানানো হবে। তখন এসি ল্যান্ডও জানবেন এই তথ্য পরীক্ষা করা হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘এলটি নোটিশ এমনভাবে লেখা ছিল যে অনেক সময় বোঝা যেত না। এখন ছোট ফরম করে দিয়েছি, সেটা পূরণ করলে সঙ্গে সঙ্গে এসি ল্যান্ডের কাছে চলে যাবে। জমি মিউটেশন করতে গেলে দলিল লাগে। এতদিন বিধি যেটা ছিল দুটি দলিল করা হতো। যিনি দলিল করতে যান তিনি একটা পান, আরেকটা থাকে সাব-রেজিস্ট্রারের কাছে। মন্ত্রিসভা সিদ্ধান্ত দিয়েছে এখন থেকে তিনটি দলিল করতে হবে। একটা সাব-রেজিস্ট্রার, একটা এনকামমেন্ট এবং আরেকটি এলটি নোটিশের পাশাপাশি এসি ল্যান্ডের কাছে চলে যাবে।

‘যেহেতু এসি ল্যান্ড দলিল ও এলটি নোটিশ অনলাইনে পেয়ে যাচ্ছেন, এই জমি তার কাছ থেকেই ভেরিফিকেশন করে রেজিস্ট্রেশন করা হয়েছে সুতরাং এসি ল্যান্ডের আর কিছুই লাগবে না। ওই সফটওয়্যার ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের মাধ্যমে তিনি মিউটেশন করে ফেলবেন। সর্বোচ্চ আট দিনের মধ্যে এসি ল্যান্ড মিউটেশন করে দেবেন।”

দেশের সব জমির রেজিস্ট্রেশন আর্কাইভ করার জন্য সাব রেজিস্ট্রার অফিসে দুই হাজার কোটি টাকার একটি প্রকল্প নেওয়া হচ্ছে বলেও জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব।

১৭টি উপজেলায় পরীক্ষামূলকভাবে শুরু হয়েছে এই কার্যক্রম। এক বছরের কম সময়ের মধ্যে পুরো দেশে এই কার্যক্রম শুরু করা হবে বলে জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব।

সরকারী কলেজে বিশাল শূন্য পদে আসছে বিশেষ বি সি এস

দেশের সরকারি কলেজগুলোয় বর্তমানে ১৪ হাজার শিক্ষকের পদ রয়েছে। এর মধ্যে ৩ হাজার ৮০০ পদই শূন্য। উপজেলা পর্যায়ে কোনো কোনো কলেজে বিভিন্ন বিষয়ে মাত্র একজন বিষয়ভিত্তিক শিক্ষক দিয়ে চলছে পুরো বিভাগ। একজন শিক্ষকই উচ্চ মাধ্যমিক, ডিগ্রি, স্নাতক ও স্নাতকোত্তর শ্রেণির শিক্ষার্থীদের ক্লাস নিচ্ছেন। সারা দেশের সরকারি কলেজগুলোর চিত্র প্রায় একই রকম। তবে উপজেলা পর্যায়ের সরকারি কলেজগুলোর শিক্ষক সঙ্কট জেলা শহরের কলেজগুলোর চেয়ে বেশি। বিশেষ বিসিএসের (শিক্ষা) মাধ্যমে এসব শূন্যপদ পূরণের দাবি দীর্ঘদিন ধরেই জানিয়ে আসছেন সংশ্লিষ্টরা। কলেজগুলোর শূন্যপদে শিক্ষক নিয়োগের জন্য বিশেষ বিসিএস পরীক্ষা আয়োজনের বিষয়ে সরকারি কর্মকমিশনকে (পিএসসি) চিঠিও দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ (মাউশি)।
৩৯তম (বিশেষ) বিসিএস পরীক্ষায় চিকিৎসক ও ডেন্টাল সার্জন নিয়োগ প্রক্রিয়া দেয় সরকার। করোনাকালে ওই বিসিএসের উত্তীর্ণ সবাইকে চিকিৎক হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়। পিএসসি সূত্রে জানা গেছে, ৪০তম বিসিএস নিয়মানুযায়ী সাধারণ হয়েছে। এখন বিশেষ বিসিএস নিয়ে কাজ শুরু করছে পিএসসি। তবে ৪০তম বিসিএসে মোট ১৯০৩ জন ক্যাডার নিয়োগ দেওয়া হবে। তবে এই সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। ক্যাডার অনুসারে প্রশাসনে ২০০, পুলিশে ৭২, পররাষ্ট্রে ২৫, করে ২৪, শুল্ক আবগারিতে ৩২ ও শিক্ষা ক্যাডারে প্রায় ৮০০ জন নিয়োগ দেওয়ার কথা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পিএসসির একজন কর্মকর্তা বলেন, ৪০তম বিসিএসের প্রজ্ঞাপন জারির আগে শূন্যপদের সংখ্যা আরও
 বাড়তে পারে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, সরকারি কলেজগুলোয় বর্তমানে শিক্ষক সঙ্কট তীব্র আকার ধারণ করেছে। এ সঙ্কট কাটাতে বিশেষ বিসিএস পরীক্ষা নেওয়ার জন্য পিএসসির কাছে প্রস্তাব পাঠিয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ। এ ছাড়া ৩৬তম বিসিএস থেকে ৯৪৭ জন, ৩৭তম বিসিএস থেকে ২২৪ জন এবং ৩৮তম বিসিএস থেকে ৯৯২ জন শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হবে।
দীর্ঘদিন ধরে শূন্যপদ পূরণে বিশেষ বিসিএসের দাবি জানিয়ে আসছে শিক্ষা ক্যাডারদের সংগঠন ‘বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতি’। জানা গেছে, কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী সৃষ্টপদ পূরণে সরকারকে আরও ১০ হাজার শিক্ষক নিয়োগ দিতে হবে। এ ক্যাডারের সংগঠন ‘বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতির’ সভাপতি ও রাজধানীর কবি নজরুল সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক আইকে সেলিমউল্লাহ খন্দকার বলেন, শিক্ষক সঙ্কটে সারা দেশে সরকারি কলেজগুলোয় পাঠদান তীব্রভাবে ব্যাহত হচ্ছে। তিনি উদাহরণ দিয়ে বলেন, কবি নজরুল সরকারি কলেজে পদার্থবিদ্যা বিষয়ে শিক্ষকের মোট পদ ৪টি। অথচ কর্মরত রয়েছেন দুজন। এ বিভাগে দুটি প্রভাষক পদই খালি। দুজন শিক্ষক দিয়ে উচ্চ মাধ্যমিক, অনার্স ও মাস্টার্সের ক্লাস নেওয়া খুবই কঠিন। তিনি বলেন, তার কলেজে শুধু উচ্চ মাধ্যমিকেরই শিক্ষার্থী সংখ্যা ৪ হাজারের বেশি। তিনি বিশেষ বিসিএস পরীক্ষা নিয়ে দ্রুত শিক্ষক নিয়োগ দেওয়ার দাবি জানান।
রাজধানীসহ বিভাগীয় শহরে সরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষক পদশূন্য না থাকলেও অদ্ভুত এক নিয়মে প্রতিবছর কলেজে শিক্ষার্থী বাড়লেও শিক্ষকের পদ বাড়েনি। সরকারি কলেজগুলোয় একটি বিষয়ে চার জনের বেশি শিক্ষক অনুমোদন দেওয়া হয় না। ঢাকা কলেজ, ইডেন কলেজ, কবি নজরুল কলেজ, তিতুমীর কলেজের হিসাববিজ্ঞান, ব্যবস্থাপনা বিভাগে মাত্র চারজন শিক্ষক আছেন। এসব বিভাগে প্রায় তিন থেকে চার হাজার ছাত্রছাত্রী একাদশ শ্রেণি থেকে শুরু করে অনার্স ও মাস্টার্স করছেন। তিতুমীর ও ইডেন কলেজে একাদশ শ্রেণি নেই। কলেজগুলোয় মার্কেটিং এবং ফিন্যান্স বিভাগ আছে। বিসিএসে (শিক্ষা) মার্কেটিং ও ফিন্যান্স বিষয়ে কোনো শিক্ষক নিয়োগ না দেওয়ায় হিসাববিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষকরা ফিন্যান্স এবং ব্যবস্থাপনা বিভাগের শিক্ষকরা মার্কেটিং বিভাগের শিক্ষার্থীদের পড়ান।

ধ্রুবতারা ইয়ুথ ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ ও আই.পি.ডি.সি ফাইন্যান্স এর মাঝে সমঝোতা চুক্তি সম্পন্ন


নাচোল প্রতিনিধিঃ

আজ ধ্রুবতারা ইয়ুথ ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ ও আই.পি.ডি.সি (IPDC) ফাইন্যান্স এর মাঝে সমঝোতা চুক্তি সম্পন্ন হয়েছে। আজ বেলা ৩টায় আই.পি.ডি.সি প্রধান কার্যালয় গুলশানে এই বিষয়ক চুক্তি স্বাক্ষর হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন ধ্রুবতারার চেয়ারম্যান চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম খান, সাধারণ সম্পাদক অমীয় প্রাপন চক্রবর্তী অর্ক, IPDC FINANCE এর ব্যাবস্থাপনা পরিচালক মোমিনুল ইসলামসহ উভয় প্রতিষ্ঠানের উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তাবৃন্দ। উক্ত সাক্ষরের মাধ্যমে পারস্পারিক সম্পর্কের উন্নয়ন ও বৈচিত্র্যময় যুব উদ্যোগগুলোকে সহায়তা প্রদানসহ উভয় প্রতিষ্ঠান একসাথে নতুন প্রজন্মের কল্যানে কাজ করবে বলে সংশ্লিষ্টরা আশাবাদ ব্যক্ত করেন।