সর্বশেষ সংবাদ অপরাধীদের দিন শেষঃ তৈরী হচ্ছে জাতীয় ডিএনএ ডাটাবেজ’ গণভবন থেকে ভার্চুয়াল মাধ্যমে বহু প্রতিক্ষীত রেলসেতুর নির্মাণকাজের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী করোনাযোদ্ধাদের কোয়ারেন্টিন’ ভাতা পাওয়া শুরু গোমস্তাপুরে সাবেক ছাত্র নেতা সুমনের ওপর হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন চাঁপাইনবাবগঞ্জ সীমান্তে ২ বাংলাদেশীকে ধরে নিয়ে গেছে বিএসএফ অন্যের ট্রাক থেকে তেল চুরি করতে গিয়ে আটক ৪ বঙ্গবন্ধুর ভার্স্কয নিয়ে কটুক্তির প্রতিবাদে চাঁপাইনবাবগঞ্জে স্বেচ্ছাসেবকলীগের মানববন্ধন পদ্মা সেতুতে বসল ৩৯তম স্প্যান ঃ আর বসবে মাত্র দুটি স্প্যান র‌্যাংকিংয়ে সুখবর বয়ে আনল বাংলাদেশ ফুটবল দল তিন ব্যাংক তালিকাভুক্ত হচ্ছে শেয়ারবাজারে

গোমস্তাপুরে বাল্যবিয়েতে জড়িত থাকার অভিযোগে বরসহ ৩ জনের সাজা

 
গোমস্তাপুর (চাঁপাইনবাবগঞ্জ)প্রতিনিধিঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুরে বাল্যবিয়েতে জড়িত থাকার অভিযোগে বর,ববের ভাই ও কনের পিতাকে বিভিন্ন মেয়াদের সাজা দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।সোমবার রাতে উপজেলার বোয়ালিয়া ইউনিয়নের গৌরীপুর গ্রামে এ সাজা প্রদান করেন ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মিজানুর রহমান । তিনি  বাল্যবিয়েতে জড়িত থাকার অভিযোগে মেয়ের পিতা আবু তালহাকে ৬মাস, বর আব্দুল্লাহ আল মামুনকে ১মাস ও বরের ভাই সেলিমকে ছয় মাস কারাদণ্ড প্রদান করা হয়।গোমস্তাপুর থানার উপ-পরিদর্শক মোতাহার আলী জানান,সোমবার রাতে উপজেলার বোয়ালিয়া ইউনিয়নের গৌরীপুর গ্রামের আবু তালহার অষ্টম শ্রেণি পড়ুয়া অপ্রাপ্তবয়স্ক মেয়ের(১৫) সাথে নাচোল উপজেলার কসবা ইউনিয়নের আঝইর গ্রামের আব্দুল মান্নানের ছেলে মামুন (১৯) এর সাখে স্থানীয় এক মৌলভী দিয়ে গোপনে বিয়ে সম্পন্ন করা হয় ।বিষয়টি স্থানীয়রা চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রশাসক মঞ্জুরুল হাফিজকে অবহিত করলে তিনি উপজেলা নির্বাহি অফিসার মিজানুর রহমানকে সেখানে বিষয়টি তদন্ত পূর্বক ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনার নির্দেশ দেন। আদালতে তাদের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী এতে জড়িত থাকার অভিযোগে মেয়ের পিতা আবু তালহাকে ৬ মাস,বর আব্দুল্লাহ-আল-মামুনকে ১ মাস ও বরের ভাই সেলিমকে ৬ মাসের কারাদণ্ড দিয়ে জেলহাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

বানান , ব্যাকরণ সংশোধন ও কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাসহ ৪০টি সেবা অনলাইনে আসছে: পলক

২০২১ সালের মধ্যে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাসহ ৪০টি সেবা অনলাইনে আসবে বলে মন্তব্য করেছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। তিনি বলেন, ভাষা-প্রযুক্তি বিষয়ক কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাসম্পন্ন সার্ভিসগুলো দেশের তথ্য প্রযুক্তির পরিকাঠামো বদলে দেবে।

সোমবার গবেষণা ও উন্নয়নের মাধ্যমে তথ্যপ্রযুক্তিতে বাংলা ভাষা সমৃদ্ধকরণ প্রকল্পসহ আইসিটি বিভাগের বিসিসির আওতাধীন বিভিন্ন প্রকল্পের অগ্রগতি বিষয়ে কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, ২০২১ সালের মধ্যে ৪০টি সার্ভিস অনলাইনে আসবে। একই সঙ্গে ই- নথিকে ডি-নথিতে রূপান্তর করার জন্য এতে টেক্সট টু স্পিচ, বানান ও ব্যাকরণ সংশোধক ও ওসিআর এর মতো সার্ভিসগুলোও যুক্ত করা হবে।

জিবোর্ডের মতো ‘বাংলা বোর্ড’ ডেভেলপ করা হচ্ছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, এ ইনপুট সিস্টেম বা কিবোর্ডে স্পেলচেকার, ওসিআর ও স্পিচ টু টেক্সট ইঞ্জিন যুক্ত থাকবে। এই ইনপুট সিস্টেমটিতে অটোমেটিক নেক্সট ক্যারেক্টার ও নেক্সট ওয়ার্ড সাজেশনের মতো ফিচার রয়েছে বলে তিনি জানান।

তিনি আরও বলেন, স্ক্রিন রিডার, ব্রেইল কনভারটার, সাইন টু টেক্সট রিকগনিশন সিস্টেমের মাধ্যমে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের তথ্যপ্রযুক্তিবান্ধব করা হবে। এছাড়াও ক্ষুদ্র-নৃগোষ্ঠীর ভাষা তথ্য প্রযুক্তির আওতায় আনতে ইউনিভার্সাল বোর্ড নামে একটি লে–আউট ফ্রি কিবোর্ড তৈরি করা হচ্ছে। ক্ষুদ্র-নৃগোষ্ঠীদের ভাষা সংরক্ষণের জন্য ডিজিটাল রিসোর্স আর্কাইভও তৈরি করা হচ্ছে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ১০০ মিলিয়ন সিনট্যাকটিক ট্রি ব্যাংক করপাস তৈরির কাজ চলমান রয়েছে, যা মূলত ন্যাশনাল করপাসের অংশ। এই কম্পোনেন্ট থেকে বাংলাদেশে প্রথম করপাস ড্রাইভেন লেক্সিকন তৈরি করা হচ্ছে। এছাড়াও এই কার্যক্রমে দশ হাজার ঘণ্টার স্পিচ করপাস অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

উদ্বোধনের অপেক্ষায় ৪১ ফুট উঁচু ‘বঙ্গবন্ধুর তর্জনী’


ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের অবিনাশী স্মারক দেশের ইতিহাসে প্রথম ও একমাত্র তর্জনী ভাস্কর্য ‘মুক্তির ডাক’-এর কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। ৪১ ফুট উঁচু ভাস্কর্যটি বিশে^র হাত ভাস্কর্যের মধ্যে উচ্চতার দিক থেকে তিনটির একটি। ১৩ মাস আগে শুরু করা ঐতিহাসিক এ ভাস্কর্যটির কাজ চলতি মাসেই উন্মুক্ত হওয়ার কথা রয়েছে সর্ব সাধারণের জন্য। মুজিব বর্ষ উপলক্ষে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ওপর নরসিংদী শহরের প্রবেশমুখে সাহে-প্রতাপ মোড়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের তেজদীপ্ত তর্জনী নিয়ে নির্মিত ভাস্কর্যটি উন্মোচনের অপেক্ষায় দিন গুনছে।
ভাস্কর অলি মাহমুদের বিশ^াস, এ তার্জনীর নিচে দাঁড়িয়ে গভীরভাবে উপলব্ধি করলে স্বীয় জাতি, ঐতিহ্য আর গৌরবময় সংগ্রামের প্রতিচ্ছবি নিজের মধ্যে ভাসতে বাধ্য। চেতনায় দাঁড়িয়ে যাবে শরীরের লোম। ভাস্কর্যটির বেদির চারপাশে থাকবে ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে ’৬৬-এর ছয় দফা দাবি, ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থ্যান, মহান স্বাধীনতাযুদ্ধের ঐতিহাসিক মুহূর্তগুলো টেরাকোটার মাধ্যমে প্রকাশ পেয়েছে। নানা ধরনের অত্যাধুনিক অপটিক্যাল ফাইবার, হোয়াইট সিমেন্ট, পাথরসহ নানা দ্রব্যাদি দিয়ে নির্মিত ভাস্কর্যটি। লাইটিং, টাইলস, মার্বেল পাথরের বেদির ওপরে আছে বঙ্গবন্ধুর সেই ঐতিহাসিক তর্জনীটি। এমন তর্জনী ভাস্কর্য এ পর্যন্ত বাংলাদেশের কোথাও দৃশ্যমান হয়নি। ইতোমধ্যে মূল ভাস্কর্যটির কাজ শেষ হয়ে গেছে। মূল বেদির চারপাশে নান্দনিক পানির ফোয়ারা নির্মাণ করা হয়েছে। এ ছাড়াও দ্রুতগতিতে ল্যান্ডস্কেপের কাজ চলছে। এর মধ্যে তর্জনী ভাস্কর্যটি দেখতে প্রতিদিন শত শত দর্শনার্থী ভিড় জমাচ্ছে এই ঐতিহাসিক শিল্পকর্মটি দেখতে।
ভাস্কর্য নির্মাণের উদ্যোক্তা নরসিংদী পৌর মেয়র ও শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি কামরুজ্জামান কামরুল বলেন, বাঙালির প্রতি বঙ্গবন্ধুর ছিল অবিচল আস্থা, অগাধ বিশ^াস আর ভালোবাসা। এজন্যই তিনি শোষণ, বঞ্চনা ও পরাধীনতার শিকল ভেঙে মুক্তির স্বাদ এনে দিতে পেরেছেন। আঙুলের ইশারায় পুরো জাতিকে এক করে বজ্রকণ্ঠের ঘোষণায় ছিনিয়ে আনলেন স্বাধীনতা।
ভাস্কর্য নির্মাণ শিল্পী বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান তরুণ প্রজন্মের ভাস্কর অলি মাহমুদ বলেন, বঙ্গবন্ধু মানেই শক্তি, উৎসাহ আর প্রেরণা। বঙ্গবন্ধু মানেই বাংলাদেশ। তার অসাধারণ বাগ্মিতা, মানবিকতা, মানুষের প্রতি সহমর্মিতার গুণেই তিনি চির অমলিন। তার ৭ই মার্চের ভাষণ আমাদের শিহরিত করে, অনুপ্রাণিত করে। তার উদার রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি ও শোষণহীন সমাজ গড়ার প্রত্যয় আমাদের উজ্জীবিত করে। এর আগে চট্টগ্রাম বিশ^বিদ্যালয়ে মাস্টারদা সূর্যসেনের আবক্ষ ভাস্কর্য, ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে ভৈরবে এর আগে বীরশ্রেষ্ঠ মতিউর রহমানের ম্যুরাল বাংলার ঈগল, নরসিংদী জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে সেবাবৃত্ত, জাগ্রত জাতিসত্তা, লৌহজং উপজেলা কার্যালয়ের সামনে হিমালয়, রায়পুরা কলেজে মহানায়ক নামক শিল্পকর্ম নির্মাণ করে দারুণ প্রশংসিত হন এই তরুণ ভাস্কর।
উল্লেখ্য, পৃথিবীর ইতিহাসে হাত নিয়ে যত শিল্পকর্ম হয়েছে উচ্চতার দিক দিয়ে এটি তিনটির একটি। আর শুধু একটি তর্জনীকে প্রতিপাদ্য করে নির্মাণ করা ভাস্কর্যের মধ্যে এটি সবচেয়ে উঁচু ভাস্কর্য বলে দাবি করছেন ভাস্কর অলি মাহমুদ। তর্জনী ভাস্কর্যটির সম্ভাব্য নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছিল সাড়ে ৪২ লাখ টাকা।

বাংলাদেশের অগ্রগতি ষড়যন্ত্রকারী গোষ্ঠীর পছন্দ হয় না:প্রধানমন্ত্রী


প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, যারা বাংলাদেশের স্বাধীনতা চায়নি, দেশ সামনে এগিয়ে গেলে তাদের খুব কষ্ট হয়। বাংলাদেশের অগ্রগতি ষড়যন্ত্রকারী গোষ্ঠীর পছন্দ হয় না।

গতকাল সকালে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকের শুরুতে গণভবন থেকে অনলাইনে সংযুক্ত হয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, দেশের সুন্দর পরিবেশ নষ্ট করে সংঘাত সৃষ্টির পাঁয়তারা করছে একটি মহল। বাংলাদেশের কোনো অগ্রগতি সে গোষ্ঠীর পছন্দ হয় না। দেশ নিয়ে, সমাজ নিয়ে যখন ষড়যন্ত্র সফল হয় না, তখনই দেশের একটি শ্রেণি সমালোচনামুখর হয়। একটা ভালো পরিবেশ নষ্ট করার জন্য, সংঘাত সৃষ্টির জন্য তারা বক্তব্য দেবে। আর তাদের ধরা হলে সেটাকে বলা হবে বাকস্বাধীনতা হরণ করা, এটা তো হয় না। সংঘাতে উসকানিদাতাদের গ্রেফতার করলে তারাই আবার সরকারের বিরুদ্ধে বাকস্বাধীনতা হরণের অভিযোগ করে। কিন্তু এভাবে দেশ চলতে পারে না। প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশ ভালো অবস্থানে যাবে, অর্থনীতিতে গতি আসবে; এটা ওই গোষ্ঠীর পছন্দ হয় না। তারা চায় বাংলাদেশ ভিক্ষুক হয়ে থাকবে। অন্যের কাছে হাত পেতে চলবে। যখনই সে অবস্থার পরিবর্তন হতে শুরু করেছে, দেশবিরোধী ওই গোষ্ঠীর গায়ে জ্বালা ধরে গেছে। আর তারা উসকানিমূলক বক্তব্য দিতে শুরু করেছে।

এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, উপযুক্ত তথ্য না দিয়ে প্রতিরক্ষামূলক অবস্থান গ্রহণের মানসিকতা ভালো অভ্যাস নয়। শিক্ষার্থীদের কোটাবিরোধী আন্দোলনের সময় গুজবের একটি ঘটনার বিষয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের ধানমন্ডি কার্যালয়ে একটি মেয়েকে নির্যাতন করা হচ্ছে- এমন গুজব ছড়িয়ে পড়ার পর সাধারণ শিক্ষার্থীরা আন্দোলন করেছিল। একদল ষড়যন্ত্রকারীর ছড়িয়ে দেওয়া গুজবের কারণে সেদিন পাথর ও প্রাণঘাতী অস্ত্র নিয়ে দলীয় কার্যালয়ে হামলার মতো ঘটনাও ঘটেছিল।

শেখ হাসিনা বলেন, যারা আমাদের স্বাধীনতাই চায়নি, তাদের তো আরও কষ্ট হয় এটা তো আমরা বুঝি। সামনে এগোতে গেলেই তখন এই শ্রেণির মানুষদের খুব কষ্ট হয়। কিন্তু আমরা দেশ স্বাধীন করেছি। নিজের পায়ে দাঁড়াব। তবে তাদের যত কষ্টই হোক, দেশকে স্বনির্ভর করার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করব। প্রধানমন্ত্রী বলেন, একটা শ্রেণি তো আছেই, যাদের চিন্তাটাই হলো এ ধরনের। অর্থাৎ সমাজকে ক্ষতিগ্রস্ত করা বা সরকারের ক্ষতি করা। মানুষের জীবন নিয়ে তাদের কোনো চিন্তাই নেই। তাদের অন্য একটা উদ্দেশ্য থাকে। তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশ এখন একটি ভালো জায়গায় আছে, আরও ভালো জায়গায় যাবে। বাংলাদেশের অর্থনীতি এখন ভালো।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আমরা ভিক্ষুক হয়ে থাকব, অন্যের মুখাপেক্ষী হয়ে থাকব, তাদের কাছে হাত পাতব, তাদের কাছে চেয়ে খাব, তাদের কাছে চাইব, এটাই তো তারা চাইবে। কিন্তু আমরা তো তা থাকব না। আমরা দেশ স্বাধীন করেছি।

৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত ঋণ পরিশোধের সময় আরও বাড়ল


মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে আর্থিক প্রতিষ্ঠানের ঋণগ্রহীতাদের ঋণ পরিশোধের সময় আরও বাড়িয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। আগামী ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত কোনো ঋণগ্রহীতা ঋণ শোধ না করলেও খেলাপি করা যাবে না। এ সুবিধা আগে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ছিল।

গত রোববার বাংলাদেশ ব্যাংকের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ ‘ঋণ, লিজ, অগ্রিম শ্রেণিকরণ’ সংক্রান্ত একটি সার্কুলার জারি করেছে। জানা গেছে, করোনাভাইরাসের প্রভাবে দেশের ব্যবসা-বাণিজ্যের লোকসানের কথা বিবেচনা করে প্রথম দফায় চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত এই ছাড় দেয়া হয়। পরবর্তীতে তা বাড়িয়ে সেপ্টেম্বর করা হয়। এখন আবার বাড়িয়ে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় নির্ধারণ করলো কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

সার্কুলারে বলা হয়, বিশ্ব বাণিজ্যের পাশাপাশি বাংলাদেশের অর্থনীতিতে করোনাভাইরাসের নেতিবাচক প্রভাব বিবেচনায় ঋণ শ্রেণিকরণের বিষয়ে কিছু শিথিলতা আনা হয়েছিল। এখনও কোভিড-১৯ এর কারণে অনেকাংশে ঋণগ্রহীতার পক্ষে স্বাভাবিক ব্যবসায়িক কার্যক্রম পরিচালনা করা সম্ভব হচ্ছে না। তাই ব্যবসা-বাণিজ্যের ওপর কোভিড-১৯ এর নেতিবাচক প্রভাব লাঘবের লক্ষ্যে নিম্নোক্ত নির্দেশনাসমূহ অনুসরণের পরামর্শ দেয়া হল।

পূর্বঘোষিত নির্দেশনা অনুযায়ী ৩০ সেপ্টেম্ব পর্যন্ত আর্থিক প্রতিষ্ঠানের গ্রাহকদের খেলাপি না দেখানোর কথা ছিল। তবে নতুন সার্কুলারে এই সময়সীমা আরও তিন মাস বৃদ্ধি করা হয়েছে। চলতি বছরের ৩০ ডিসেম্বর পর্যন্ত দেয়া হবে এই সুবিধা। চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত যত সংখ্যক কিস্তি বকেয়া থাকবে সমসংখ্যক কিস্তি বাড়িয়ে ঋণ আদায় করবে আর্থিক প্রতিষ্ঠান। তবে এই সময়ে কোন দন্ড, সুদ বা অতিরিক্ত ফি নেয়া যাবে না বলে নির্দেশনা দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

গোমস্তাপুরে জেল হত্যা দিবস পালিত

গোমস্তাপুর (চাঁপাইনবাবগঞ্জ)প্রতিনিধিঃ
চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুরে ৩ নভেম্বর জেলহত্যা দিবস পালিক হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে উপজেলা ও পৌর আওয়ামীলীগের নানা কর্মসূচি পালন করে। কর্মসূচীরর মধ্যে মঙ্গলবার সকালে কলোনীমোড়স্থ আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মাল্যদান ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য গোলাম মোস্তফা বিশ্বাসের সভাপতিত্বে আয়োজিত আলোচনাসভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান জামাল উদ্দিন মন্ডল, রহনপুর পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল আজিজ ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী বিশ্বাস, আলিনগর ইউপি চেয়ারম্যান তরিকুল ইসলাম, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি রাশেদুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম টাইগার,জেলা পরিষদ সদস্য ও জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হালিমা খাতুন ও
আশরাফুল হকসহ অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দ। সভা শেষে জাতীয় চার নেতা সহ সকল শহীদদের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে মোনাজাত করা হয়।

শিবগঞ্জে নানা আয়োজনে জেল হত্যা দিবস পালিত

স্টাফ রিপোর্টার, শিবগঞ্জ ঃ

বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে জেলহত্যা দিবস পালিত হয়েছে। দিবসটি পালন উপলক্ষে মঙ্গলবার বিকেলে শিবগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে সরকারী মডেল হাই স্কুল মাঠে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আবু আহমদ নজমুল কবির মুক্তার সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক সাবেক সাংসদ আ: ওদুদ বিশ্বাস।
এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সৈয়দ নজরুল ইসলাম।এসময় উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক আতিকুল ইসলাম টুটুল,উপজেলা যুবলীগ সাধারন সম্পাদক তোসিকুল ইসলাম টিসু,উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি রিজভী আলম রানা, সাধারন সম্পাদক আসিফ আহসান সহ উপজেলা ,পৌর , বিভিন্ন ইউনিয়নের আওয়ামীলীগ,যুবলীগ এবং ছাত্রলীগের ও এর বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
এর আগে সকালে একই স্থানে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়।

অপরদিকে সকালে মনাকষা ঈদগাহ এলাকায় মনাকষা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের উদ্যোগে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি আব্দুস সোবহান মধুর সভাপতিত্বে জেল হত্যা দিবস উপলক্ষ্যে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১(শিবগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য ডা: সামিল উদ্দিন আহম্মেদ শিমুল।

ভোলাহাটে অস্ত্রবিহীন ভিডিপি মৌলিক প্রশিক্ষণে অনিয়মের অভিযোগ


চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি:
চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার ভোলাহাটে অস্ত্রবিহীন ভিডিপি মৌলিক প্রশিক্ষণে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে আনসার-ভিডিপি”র ভোলাহাট উপজেলা কমান্ডার (ভারপ্রাপ্ত) সামিউল ইসলামের বিরুদ্ধে। গত ১ নভেম্বর শুরু হওয়া ১০ দিন ব্যাপি এ প্রশিক্ষণে অনিয়ম, স্বজনপ্রীতি ও দূর্নীতির অভিযোগ এনে পরদিন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মশিউর রহমানের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন অংশগ্রহণকারী কয়েকজন প্রার্থী।
অভিযোগে বলা হয়েছে ভোলাহাট সদর ইউনিয়নের ১ ও ৩ নং ওয়ার্ডের প্রশিক্ষণার্থী নেওয়ার কথা থাকলেও অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতি করে যোগ্য প্রশিক্ষণার্থীদের বাদ দিয়ে ২ ও ৪ নং ওয়ার্ড থেকে প্রশিক্ষণার্থীদের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।
এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মশিউর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি অভিযোগ পাবার বিষয়টি শিকার করে জানান, দু-একদিনের মধ্যে প্রশিক্ষণ স্থানে নিজে গিয়ে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেবেন।
অন্যদিকে আনসার-ভিডিপি’র ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সামিউল ইসলাম জানান, তিনি অভিযোগের বিষয়টি অবগত এবং অভিযোগটি পুরোপুরি সত্য নয় । তার দাবী ১,২,৩ নং ওয়ার্ড থেকেই প্রশিক্ষণার্থী নেওয়া হয়েছে আর ৪ নং থেকে ২/৪ জন থাকতে পারে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জে আয়কর রিটার্ণ গ্রহণ ও তথ্য সেবা ডেস্ক’র উদ্বোধন


করোন প্রভাবে উন্মুক্তস্থানে আয়কর মেলা আয়োজন বন্ধ থাকায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ সার্কেল-১৫ চত্বরে মাসব্যাপী আয়কর রিটার্ণ গ্রহণ ও তথ্য সেবা প্রদান ডেস্ক এর উদ্বোধন করা হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে চাঁপাইনবাবগঞ্জ শহরের পাঠানপাড়াস্থ সার্কেল-১৫ চত্বরে এর উদ্বোধন করেন রাজশাহী কর অঞ্চলের কর কমিশনার মুহাম্মদ মফিজ উল্যা। এসময় অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী কর অঞ্চলের অতিরিক্ত কর কমিশনার মো. মোস্তাফিজুর রহমান, নবাবগঞ্জ সরকারী কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. শংকর কুমার কুন্ডু, চাঁপাইনবাবগঞ্জ সার্কেল-১৫ এর সহকারী কর কমিশনার মো. সাদিদুল ইসলাম, চাঁপাইনবাবগঞ্জ কর আইনজীবী সমিতির সভাপতি আলহাজ¦ এ কে এম লুৎফর রহমান ফিরোজ, সম্পাদক মো. আবু বাক্কার, চাঁপাইনবাবগঞ্জ সার্কেল-১৫ এর বিভিন্নস্তরের কর্মকর্তা ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। ১ নভেম্বর থেকে ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত মাসব্যাপী এই আয়কর রিটার্ণ গ্রহণ ও তথ্য সেবা প্রদানের মাধ্যমে এবছর জেলায় আয়কর আদায় লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১’শ সাড়ে ১৭ কোটি টাকা বলে জানিয়েছে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সার্কেল-১৫ অফিস।

মসজিদ ভাঙ্গার প্রতিবাদে চাঁপাইনবাবগঞ্জে মানববন্ধন

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধিঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার দাউদপুর লিংক রোড নামে প্রস্তাবিত রাস্তা নির্মাণের লক্ষে সেট্রাল জামে মসজিদ ভাঙ্গার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

৩ নভেম্বর সকাল ১০টায় ডিসি অফিসের সামনে (কালেক্টর চত্তর)পুরাতন জেলখানা মোড় নবাবগঞ্জ সেন্ট্রাল জামে মসজিদের ব্যানারে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভাটি অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ
পৌরসভার সাবেক মেয়র মাওলানা আব্দুল মতিন,সেন্ট্রাল মসজিদের খতিব হুমায়ুন কবির,সেন্ট্রাল মসজিদের ইমাম আবুল কালাম,স্থানীয় মাদ্রাসার মোদাররেস আব্দুর রাকিব,উদায়ন মোড়স্থ হাফেজিয়া ইসলামিয়া মাদ্রাসার মোদাররেস সাইফুল্লাহ,দারুল হাদিস মাদ্রাসার মুদাররেড মাওলানা আব্দুর রহিম,চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সেক্রেটারি নজরুল ইসলাম,মসজিদের মুসল্লির আব্দুল ওদুদ,সানোয়ার,ইসমাইল প্রমুখ।