সর্বশেষ সংবাদ নুরকে খোলা চিঠি মাক্স না পড়লে মিলবেনা সরকারী সেবা গোমস্তাপুরে বেতনের অভাবে মানবেতর জীবন যাপন ৪ শতাধিক কে.জি’র শিক্ষকের বিডিপিএ এর চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা শাখার বিশেষ সভা রোহিঙ্গাদের জন্য জাপানের ৫ মিলিয়ন ডলার উন্নয়নশীল দেশ ২০২৪ ই নতুন গ্যাসক্ষেত্র অনুসন্ধানে ৭টি প্রস্তাব অনুমোদন গোমস্তাপুর অটোর ধাক্কায় শিশুর মৃত্যু bring all drivers under a dope testing system: PM দুর্গাপূজা উপলক্ষে প্রকাশ হয়েছে ‘হরিবোল’

গোমস্তাপুরে আন্তর্জাতিক দুর্যোগ প্রশমন দিবস পালিত


গোমস্তাপুর (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ “দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাসে সুশাসন নিশ্চিত করবে টেকসই উন্নয়ন”এ প্রতিপাদ্য বিষয়কে সামনে রেখে চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুরে আন্তর্জাতিক দুর্যোগ প্রশমন দিবস পালিত হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে ও উপজেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের সহযোগিতায় মঙ্গলবার সকালে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা নির্বাহি অফিসার মিজানুর রহমানের সভাপতিত্বে আয়োজিত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান হাসানুজ্জামান নুহু, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মাহফুজা খাতুন, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মাসুদ হোসেন,ত্রান ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা হাবিবুর রহমান, মুক্তিযোদ্ধা আকতার আলী খাঁন কচি, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের ফিল্ড সুপারভাইজার আব্দুল আজিজ,শিক্ষক প্রতিনিধি ইলিয়াস হোসেন প্রমুখ।

শিবগঞ্জে আন্তর্জাতিক দুর্যোগ প্রশমন দিবস পালিত


নিজস্ব প্রতিবেদক:
‘দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাসে সুশাসন নিশ্চিত করবে টেকসই উন্নয়ন’ এই প্রতিপাদ্যে- চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে র‌্যালি, মহড়া ও আলোচনা সভার মধ্য দিয়ে আন্তর্জাতিক দুর্যোগ প্রশমন দিবস পালিত অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ উপলক্ষে মঙ্গলবার সকালে উপজেলা প্রশাসন ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের যৌথ আয়োজনে উপজেলা পরিষদ চত্বর থেকে একটি র‌্যালি বের হয়ে পুনরায় সেখানে গিয়ে মহড়ায় মিলিত হয়। দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাসে শিবগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স মহড়া প্রদর্শনের আয়োজন করে। পরে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে ইউএনও সাকিব আল-রাব্বির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য ডা. সামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুল। উপজেলা স্কাউটসের সাধারণ সম্পাদক রবিউল ইসলামের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সৈয়দ নজরুল ইসলাম, পৌর মেয়র কারিবুল হক রাজিন, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা প্রকৌশলী আরিফুল ইসলামসহ অন্যরা। দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাসে বিভিন্ন দিক নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন বক্তারা।  

Rapists to face death penalty

Amid countrywide protests denouncing violence against women, the cabinet yesterday approved the draft of Women and Children Repression Prevention (Amendment) Bill, 2020, incorporating the provision of capital punishment for rape.

President Abdul Hamid is all set to promulgate an ordinance in this regard today.

The approval came at the weekly cabinet meeting held virtually with Prime Minister Sheikh Hasina in the chair. She joined the meeting from the Gono Bhaban, while her cabinet colleagues attended it from the Secretariat.

Later, Cabinet Secretary Khandker Anwarul Islam told reporters that the Ministry of Women and Children Affairs proposed incorporating the provision of capital punishment in the Act, terming rape a heinous crime.

“The matter was discussed in detail in the cabinet meeting. Everyone agreed to incorporate capital punishment in the Act,” he said.

Following the amendment, “Lifetime Rigorous Imprisonment” mentioned in Section 9(1) of the Act would be replaced by “Death or Lifetime Rigorous Punishment”. The same changes will be applicable to Section 9(4) of the Act, he said.

Pointing to another amendment, to Section 11(C) of the Act, the cabinet secretary said in case of simple injury — caused not during rape — the matter could be compoundable.

The section that deals with dowry has provisions for three years in prison or one year of rigorous punishment, apart from fine, for causing “simple hurt” to victims.

Compoundable offences are those offences where the complainant enters into a compromise, and agrees to have the charges dropped against the accused.

The secretary also said that from now on, Children Act 2013, instead of Children Act, 1974, would be taken into cognisance while dealing with cases under the Women and Children Repression Prevention Act.

“As parliament session is not currently underway, the amendment will come into effect through an ordinance,” he said.

Asked whether there was any discussion in the meeting on changing the definition of rape, Anwarul replied in the negative.

He said the government did not bring the amendment only because of countrywide protests. “We’ve checked laws of other countries. The changes have been made taking the current situation and reality into account.”

Replying to another query, he said directives had already been given on completing trials in rape cases within 180 days.

ORDIANCE TO BE

PROMULGATED TODAY

Law Minister Anisul Huq yesterday said an ordinance on the amendment would be promulgated today so that the law came into force quickly.

“The cabinet today approved the proposal on amending the Nari O Shishu Nirjaton Daman Ain [Women and Children Repression Prevention Act] incorporating the provision of death penalty or life imprisonment for rape subject to its vetting. Since parliament session is not running at present, the government is preparing to issue an ordinance tomorrow [Tuesday] under the president’s order,” he said.

The minister made the comment at a press briefing at his residence in the capital’s Gulshan yesterday afternoon.

He said the previous maximum punishment for rape was life imprisonment. Although there are some controversies over the death penalty across the country, the prime minister felt the need to impose the punishment under the current circumstances, Anisul said.

He also said the chief justice would be requested to issue a directive so that the Nari O Shishu Nirjaton Daman Tribunals across the country could hear and dispose of old rape cases on a priority basis and also finish trial proceedings in new ones at a faster pace.

At the same time, the law ministry would issue necessary directives to special public prosecutors, asking them to take initiatives to finish trial proceedings quickly, he said.

Besides, the law ministry has introduced a digital way of sending text messages to witnesses in rape cases so that they can appear before court as per schedule.

Anisul hoped that the number of rape cases would drop once the amended act came into force.

‘A step towards women empowerment’

Talking to reporters, State Minister for Women and Children’s Affairs Fazilatun Nessa Indira thanked the cabinet for the approval, saying the decision would help women empowerment take a step forward.

“I believe the country will be free from rape following the act’s amendment,” she said.

“Our work is not done yet, we will pass it as a bill in the parliament session in November.

“Rapists don’t belong to any political party … Everyone’s joint efforts are essential to prevent rape incidents and violence against women,” she added.

A GRIM PICTURE

At least 975 women were raped across the country in the last nine months and 161 rape incidents took place last month, according to rights organisation Ain o Salish Kendra’s (ASK’s) October report.

Of them, 208 women were gang-raped, 43 murdered after rape and 12 victims of rape died by suicide afterwards, the report added. Three women and nine men were killed while protesting assault incidents.

On the other hand, Bangladesh Mahila Parishad said they recorded 129 rape incidents in September and 83 of the victims were minors.

Amid the growing number of rape incidents and after a video clip, showing a Noakhali woman being tortured in the open, went viral, people from all walks of life hit the streets, demanding an end to violence against women.

The protesters were joined by different socio-cultural and rights organisations.

On Saturday, Feminists Across Generations — an inter-generational feminist alliance — held a rally in the capital. At the programme, the platform declared a “national emergency”, demanding prevention of all gender-based violence.

They said the death penalty was not a solution; they demanded an end to the “rape culture”.

Meanwhile, Shireen Huq, founder member of Naripokkho, asked, “How many people can be dealt with by the death penalty? The problem is all around us, rapists don’t come from another planet — they are our brothers, our relatives. Children must be taught to respect women from an early stage, this is the only solution.”

MC College gang-rape: Studentship of 4 accused repealed


The authorities of National University have cancelled the studentship and certificates of four accused in the MC College gang-rape case.

The accused are- Shah Mahbubur Rahman Rony, Mahfuzur Rahman Masum, Robiul Hasan and key suspect Saifur Rahman.

Prof Md Saleh Ahmed, principal of Sylhet’s MC College, confirmed the matter to Banglanews.

He said the decision was taken in a meeting of the syndicate of National University on Monday.

On September 25, a newly-married woman was raped by a group of Chhatra League activists in a dormitory of Sylhet MC College.

The incident took place after the woman and her husband went to visit the college.

On information, Police rescued the couple from the dormitory around 10:30 pm and admitted the woman to the One-Stop Crisis Centre at Sylhet MAG Osmani Medical College and Hospital, he added.

On the following day, victim’s husband filed a case with Shah Poran police station against six named accused and three unnamed accused.

The accused are- Saifur Rahman, Shah Mahbubur Rahman Rony, Arjun Lasker, Mahfuzur Rahman Masum, Tarek Ahmed and Rabiul Islam.

All the accused in the case have been arrested by law enforcers and placed on remand separately by court.

The Education Ministry formed a three-member committee to investigate the incident.

The High Court also ordered to form a probe committee to look into the incident.

বরিশাল : ২ লাখ ৮২ হাজার জেলে পাচ্ছে ভিজিএফের চাল


শুরু হচ্ছে ইলিশের ডিম ছাড়ার প্রধান মৌসুম। এ কারণে আগামী ১৪ অক্টোবর থেকে ৪ নভেম্বর পর্যন্ত টানা ২২ দিন ইলিশ ধরা বন্ধ থাকবে।

সরকারি এ নির্দেশনা অনুযায়ী ওই ২২ দিন ইলিশ আহরণ, পরিবহন, মজুদ, বাজারজাতকরণ, ক্রয়-বিক্রয় ও বিনিময় নিষিদ্ধ।

এ নির্দেশনা অমান্য করলে নেওয়া হবে আইনানুগ ব্যবস্থা।

দীর্ঘ ২২ দিন ইলিশ ধরা বন্ধ থাকলে জেলেদের রোজগারও বন্ধ হয়ে যায়। তাই এ সময় সরকারের পক্ষ থেকে খাদ্য সহায়তা দেওয়া হয়ে থাকে। এবারও সে সহায়তা দেওয়া হবে।

নিষেধাজ্ঞার এ সময়কে ঘিরে বরিশাল বিভাগের ছয় জেলার ৪১ উপজেলায় দুই লাখ ৮২ হাজার ৫০০ জেলে পরিবারের জন্য পাঁচ হাজার ৬৫০ মেট্রিক টন ভিজিএফের চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে বরিশাল বিভাগের মৎস্য অধিদপ্তর। ফলে প্রতি পরিবার ২০ কেজি করে চাল পাবে।

মৎস্য অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, বিভাগের মধ্যে বরিশাল জেলায় ৪৭ হাজার জেলে পরিবারকে ৯৪০ মেট্রিক টন, পিরোজপুর জেলায় ১৭ হাজার জেলে পরিবারকে ৩৪০ মেট্রিক টন, পটুয়াখালী জেলায় ৫৮ হাজার জেলে পরিবারকে এক হাজার ১৬০ মেট্রিক টন, ভোলা জেলায় এক লাখ ২০ হাজার জেলে পরিবারকে দুই হাজার ৪০০ মেট্রিক টন, বরগুনা জেলায় ৩৭ হাজার জেলে পরিবারকে ৭৪০ মেট্রিক টন ও ঝালকাঠি জেলায় তিন হাজার ৫০০ জেলে পরিবারের জন্য ৭০ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

মৎস্য অধিদপ্তর বরিশাল বিভাগের উপ-পরিচালক আনিছুর রহমান তালুকদার জানান, ইলিশ আহরণ নিষিদ্ধ মৌসুমে কেউ মাছ আহরণে নদীতে নামলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এছাড়া প্রতিটি উপজেলায় জেলেদের জন্য বরাদ্দকৃত চাল পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে। প্রতিটি জেলে পরিবার ২০ কেজি করে চাল পাবে। প্রতিটি উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা এসব চাল উপজেলা মৎস্য অফিসের তালিকাভুক্ত জেলেদের ইউনিয়ন পরিষদের মাধ্যমে দেবেন।

সরকারের নানা পদক্ষেপের কারণে গত কয়েক বছরে দেশে ইলিশের উৎপাদন বেড়েছে। যেখানে ২০০৮-২০০৯ অর্থবছরে ইলিশের উৎপাদন ছিল দুই দশমিক ৯৯ লাখ মেট্রিক টন। সেখানে ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে ইলিশের উৎপাদন বেড়ে পাঁচ দশমিক ৩৩ লাখ মেট্রিক টনে উন্নীত হয়েছে।

শিবগঞ্জে রক্তদাতাদের সংবর্ধনা দিল শ্যামপুর বন্ধন সেচ্ছাসেবী সংগঠন

স্টাফ রিপোর্টার, শিবগঞ্জ ঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে রক্তদাতাদের সংবর্ধনা দিয়েছে স্বেচ্ছায় রক্তদাতাদের সংগঠন ‘শ্যামপুর বন্ধন সেচ্ছাসেবী সংগঠন।
মঙ্গলবার (১৩ অক্টোবর) সকালে জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার শ্যামপুর হাজি মমতাজ মিয়া ডিগ্রী কলেজ চত্বরে এ সংবর্ধনার আয়োজন করা হয়।
সংগঠনটির সভাপতি মোঃ রায়হান আলীর সভাপত্বিতে এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শিবগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আরিফা সুলতানা।
এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন শিবগঞ্জ উপজেলা সমাজসেবা অফিসার কাঞ্চন কুমার দাস, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আরিফুল ইসলাম, শ্যামপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ খাইরুল ইসলাম ,শ্যামপুর হাজি মমতাজ মিয়া ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ ফারুক আহমেদ, উপ অধ্যক্ষ জোহরুল ইসলাম ফারুক ,উপজেলা এনজিও ফোরামের সভাপতি তোহিদুল আলম টিয়া, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এস.এম. সাইফুল ইসলাম, বিশ্বাস স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সভাপতি রজব আলী, বন্ধন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক এম.ডি.মামুন সহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ।
আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি বলেন, স্বেচ্ছায় রক্ত দান একটি মহৎ কাজ। একজন মুমূর্ষু রোগীর জীবন বাঁচাতে রক্তদাতার অগ্রনী ভূমিকা চিরস্মরনীয়। একজন ৪০ কেজি ওজনের সুস্থ মানুষ বছরে তিনবার রক্ত দিতে পারে। তাই এ মহঃকাজে আমাদের সবাইকে এগিয়ে আসা উচিত।
প্রসঙ্গত: এলাকার তরুণদের নিয়ে গঠিত ” শ্যামপুর বন্ধন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন” রক্তদান কর্মসুচি, মাদক বিরোধী প্রচারণা ও এলাকায় অসহায় দুঃস্থদের সহায়তা প্রদানসহ বিভিন্ন সেবামূলক কার্যক্রম চালিয়ে আসছে।

ফুডপ্যান্ডা এখন আমের রাজধানী চাঁপাইনবাবগঞ্জে

নিজস্ব প্রতিবেদক:

এখন থেকে আমের রাজধানী খ্যাত জেলা চাঁপাইনবাবগঞ্জবাসীর পছন্দের রেস্টুরেন্টের খাবার মুহুর্তেই ঘরের দরজায় পৌঁছে দিবে দেশের জনপ্রিয় অনলাইন খাবার সরবরাহকারী ফুডপ্যান্ডা। ১২ অক্টোবর চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদরে যাত্রা শুরু করেছে ফুডপ্যান্ডা।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা ফজলি, ল্যাংড়া, গোপালভোগ, হিমসাগর, খিরসাপাত ও আশ্বিনাসহ বিভিন্ন জাতের অতুলনীয় স্বাদের আমের উৎপাদনে আন্তর্জাতিকভাবে খ্যাতিসম্পন্ন। এ জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার কানসাট আম বাজার বিশ্বে দ্বিতীয় বৃহত্তম। এছাড়া চাঁপাইনবাবগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী ও বিখ্যাত খাবার মাসকলাইয়ের রুটি। যা এ এলাকার অধিকাংশ মানুষ সকালের নাস্তা হিসেবে খেয়ে থাকেন।

চাঁপাইনবাবগঞ্জে যাত্রা শুরু প্রসঙ্গে ফুডপ্যান্ডা বাংলাদেশ- এর সিইও আম্বারিন রেজা বলেন, “ফুডপ্যান্ডা এখন গ্রাহকদের অন্যতম আস্থার নাম। তাদের চাহিদার কথা বিবেচনায় এনে আমরা আমাদের সেবা সারা দেশে ছড়িয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছি। তারই অংশ হিসেবে ফুডপ্যান্ডা এখন বাংলাদেশের আমের রাজধানী খ্যাত এলাকা চাঁপাইনবাবগঞ্জে । এখন থেকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ শহরের মানুষের পছন্দের সব রেস্টুরেন্টের খাবার মুহুর্তেই ঘরের দরজায় পৌঁছে দিবে ফুডপ্যান্ডা। একই সাথে এ সেবা চালুর মাধ্যমে ওই এলাকায় নতুন কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে বলে আশা করছি।”

বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ ফুড ডেলিভারি অ্যাপ ফুডপ্যান্ডা মূলত ভোজনরসিকদের ভোজনকে আরও আরামদায়ক ও উপভোগ্য করে তোলার লক্ষ্যে স্থানীয় রেস্টুরেন্টগুলোর সাথে সমন্বয় করে গ্রাহকের পছন্দের খাবার দোরগোড়ায় পৌঁছে দেয়। বর্তমানে ফুডপ্যান্ডা’র রাইডাররা বাংলাদেশের ৪৭টি শহরে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যসামগ্রী ও বিভিন্ন রেস্টুরেন্টের খাবার সরবরাহ করছে।

ফুডপ্যান্ডা অ্যাপ সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে ভিজিট করুন- https://www.facebook.com/foodpandaBangladesh   

ফুডপ্যান্ডা সম্পর্কে:

ফুডপ্যান্ডা  মূলত ভোজনরসিকদের ভোজনকে আরও আরামদায়ক ও উপভোগ্য করে তোলার লক্ষ্যে স্থানীয় রেস্টুরেন্টগুলোর সাথে সমন্বয় করে গ্রাহকের পছন্দের খাবার দোরগোড়ায় পৌঁছে দেয়। যাত্রার শুরু থেকে ফুডপ্যান্ডা  ১৩ টি এশীয় ও মধ্য ইউরোপের দেশগুলিতে মোট ৩২৫ টিরও বেশি শহরে ১ লক্ষাধিক রেস্টুরেন্টের খাবার সরবরাহ করে থাকে। ফুডপ্যান্ডা বর্তমানে বাংলাদেশ, কম্বোডিয়া, হংকং, লাওস, মালয়েশিয়া, মায়ানমার, পাকিস্তান, ফিলিপাইন, সিঙ্গাপুর, তাইওয়ান, থাইল্যান্ড, রোমানিয়া এবং বুলগেরিয়ায় কার্যক্রম পরিচালনা করছে। এটি আন্তর্জাতিক ফুড ডেলিভারি ইন্ডাস্ট্রির শীর্ষস্থানীয় ডেলিভারি হিরো গ্রুপের আওতাধীন। ফুডপ্যান্ডা অ্যাপ সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে ভিজিট করুন-  www.foodpanda.com.bd

চাঁপাইনবাবগঞ্জের রহনপুরে ৯৩ লিটার চোলাইমদ সহ ডালিম ও সুনিল গ্রেপ্তার

 নিজস্ব প্রতিবেদক, চাঁপাইনবাবগঞ্জ : র‌্যাব-৫, রাজশাহীর সিপিসি-১, চাঁপাইনবাবগঞ্জ ক্যাম্পের একটি দল মাদক বিরোধী অভিযান চালিয়ে ৯৩ লিটার চোলাইমদসহ ২ জনকে গ্রেপ্তার করেছে। 
১৩ অক্টোবর মঙ্গলবার সকাল ৭ টার দিকে চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুর উপজেলার রহনপুর পৌর এলাকার মুক্তাশা হলপাড়ার উৎসব কমিউনিটি সেন্টারের সামনে অভিযানটি চালানো হয়। 
গ্রেপ্তারকৃত ব্যক্তি চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুর উপজেলার রহনপুর পুরাতন বাজারের মৃত মোগল ও  মৃত আলিয়া বেগমের ছেলে আলমগীর হোসেন ওরফে ডালিম (৩৮) ও একই উপজেলার মুক্তাশাহল পাড়ার মৃত কালীপদ দাস ও শ্রীমতি বালারাণীর ছেলে শ্রী সুনিল দাস (৩৬)।
প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ডালিম ও সুনিল মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে। এ ঘটনায় মাদকদ্রব্য দ্রব্য আইনে একটি মামলা রুজু করা হয়েছে।