সর্বশেষ সংবাদ নুরকে খোলা চিঠি মাক্স না পড়লে মিলবেনা সরকারী সেবা গোমস্তাপুরে বেতনের অভাবে মানবেতর জীবন যাপন ৪ শতাধিক কে.জি’র শিক্ষকের বিডিপিএ এর চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা শাখার বিশেষ সভা রোহিঙ্গাদের জন্য জাপানের ৫ মিলিয়ন ডলার উন্নয়নশীল দেশ ২০২৪ ই নতুন গ্যাসক্ষেত্র অনুসন্ধানে ৭টি প্রস্তাব অনুমোদন গোমস্তাপুর অটোর ধাক্কায় শিশুর মৃত্যু bring all drivers under a dope testing system: PM দুর্গাপূজা উপলক্ষে প্রকাশ হয়েছে ‘হরিবোল’

পাঠ্যক্রমে নারী নির্যাতন ও যৌন হয়রানির মতো বিষয় অন্তর্ভুক্ত হচ্ছে – শিক্ষামন্ত্রী

ধর্ষণের অব্যাহত ঘটনার প্রেক্ষাপটে শৈশব থেকেই নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে সচেতনতা তৈরিতে স্কুলের পাঠ্যক্রমে নারী নির্যাতন ও যৌন হয়রানির মতো বিষয়গুলোকে অন্তর্ভুক্ত করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি।

রবিবার আন্তর্জাতিক কন্যা শিশু দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক ভার্চুয়াল সংলাপে তিনি এ তথ্য জানান।

করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যে দেশের বিভিন্ন স্থানে ধর্ষণ ও যৌন হয়রানির ঘটনা ব্যাপক ক্ষোভ-বিক্ষোভের জন্ম দিয়েছে।

ধর্ষণ ও যৌন নির্যাতনের শাস্তি আরও কঠোর করার দাবি যেমন উঠেছে, তেমনি সমাজে নারীর প্রতি দৃষ্টিভঙ্গী পরিবর্তনে পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বানও এসেছে বিভিন্ন কর্মসূচি থেকে।

দীপু মনি বলেন, শুধু কোভিড সংকট নয়, আগামীর সব ধরনের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় শিক্ষা ব্যবস্থাকে ঢেলে সাজাচ্ছি আমরা। এখন প্রতিটি ইউনিয়নে জন্ম নিবন্ধন ডিজিটালাইজড হয়ে যাচ্ছে। তাই ভুয়া সনদ দেখিয়ে বয়স বাড়িয়ে বিয়ে দেওয়া যাবে না।

বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাক আয়োজিত ‘মেয়েদের স্কুলে ফেরাতেই হবে’ শীর্ষক ডিজিটাল সংলাপ অনুষ্ঠানে জানানো হয়, মহামারীতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় মেয়ে শিক্ষার্থীদের ঝরে পড়ার হার বাড়ছে, বেড়ে যাচ্ছে বাল্যবিয়ে।

করোনাভাইরাসের কারণে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলেও ডিজিটাল মাধ্যমে ক্লাস করানোর ক্ষেত্রে বেশিরভাগ শিক্ষার্থীর কাছে পৌঁছাতে পারার দাবি করেন দীপু মনি বলেন, টেলিভিশনে ক্লাস নেওয়ার মানও বেড়েছে। শুধু সরকার নয়, বেসকারি পর্যায়েও অনেক প্রতিষ্ঠান এভাবে ক্লাস নিচ্ছে। তাই শিক্ষার্থীদের যে এই পরিস্থিতিতে স্কুলে যেতেই হবে- এমনটি ভাবা যাবে না।

বিভিন্ন দেশে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার পর তা আবার বন্ধ হয়ে গেছে উল্লেখ করে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার ক্ষেত্রে বুঝেশুনে সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার কারণে শিক্ষার্থীদের ক্ষতির পাশাপাশি শিক্ষকরাও যে বিপদে আছেন, তা সংলাপে তুলে ধরেন গণসাক্ষরতা অভিযানের নির্বাহী পরিচালক রাশেদা কে চৌধুরী।

“এই মহামারিটা আমাদের সামনে একটা ম্যাগ্নিফাইং গ্লাসের মতো। আমাদের ভুল-ভ্রান্তি ও করণীয় সম্পর্কে নতুন করে শিখতে পারছি। সবাইকে স্কুলে ফেরানোর আগে তথ্য-উপাত্ত ও বাস্তবতা যাচাই করে দেখতে হবে।”

ধর্ষকরাই ধর্ষণবিরোধী আন্দোলনে!’


ধর্ষণ ও ধর্ষণচেষ্টা মামলা নিয়ে ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল ইসলাম নুরের সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের ধর্ষণবিরোধী আন্দোলনে অংশ নেয়া নিয়ে কটাক্ষ করেছে একটি সংগঠন।

নুরদের গ্রেফতারের দাবিতে তাদের বিরুদ্ধে মামলার বাদীর অনশনের তৃতীয় দিন তার প্রতি সংহতি জানিয়ে এই কটাক্ষ করে ‘মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ’ নামে একটি সংগঠন। এর নেতা-কর্মীরা ছাত্রলীগের অনুসারী।

নুরদের বিরুদ্ধে মামলার বাদীর অনশনস্থলে বিকাল তিনটায় সমাবেশ করে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ।সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক আল মামুন বলেন, ‘জীবনেও দেখিনাই, ধর্ষকরাই ধর্ষণের বিরুদ্ধে আন্দোলন করে। অথচ এরা এতই নির্লজ্জ যে কোনো সীমাই তারা রাখেনি।‘

গত ২০ সেপ্টেম্বর সাধারণ ছাত্র পরিষদের সভাপতি হাসান আল মামুনকে প্রধান আসামি করে ধর্ষণের মামলা করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রী। নুরসহ আরও পাঁচজনের বিরুদ্ধে আনা হয় সহযোগিতার অভিযোগ।

আসামিদের বিরুদ্ধে পরে আরও দুটি মামলা করেন বাদী। তবে পুলিশ কাউকে গ্রেফতার করেনি।পরিষদ মামুনকে সংগঠন থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। তবে ধর্ষণের ‘ছবি বা ভিডিও পাওয়া যায়নি’ জানিয়ে পরিষদের তদন্ত কমিটি দাবি করেছে, তারা ধর্ষণের প্রমাণ পায়নি।

নুর এই মামলাকে সরকারের ষড়যন্ত্র আখ্যা দিয়েছেন। সংগঠনের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে নিয়ে ধর্ষণের সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদণ্ড করার দাবিতে আন্দোলনে সক্রিয় অংশও নিয়েছেন।

আসামিদের গ্রেফতারে মামলার বাদীর দাবির প্রতি পূর্ণ সমর্থন জানিয়েছে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ। সংগঠনের সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুল বলেন, ‘২৪ ঘন্টা সময় দিচ্ছি। যদি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এই বোন ন্যায়বিচার না পায়, আমরা কঠোর আন্দোলনে নামব।‘

সমাবেশ চলাকালে নেতা-কর্মীরা ‘ধর্ষক নুরু গংদের গ্রেফতারের বিরুদ্ধে পুলিশ নীরব কেন?’, ‘সবাই যদি গ্রেফতার হয়, নুর-মামুন কেন নয়’ প্রভৃতি ব্যানার প্রদর্শন করে।

ধর্ষণবিরোধী আন্দোলনকে সরকারবিরোধী আন্দোলনে রূপ দেয়ার চেষ্টা হচ্ছে বলেও অভিযোগ করা হয় সমাবেশে।

সমাবেশে নোয়াখালী নারী নির্যাতন, সিলেটের এমসি কলেজে ধর্ষণ, পাহাড়ে আদিবাসী তরুণী ধর্ষণ, ছাত্রফ্রন্টের নেতার বিরুদ্ধে উঠা ধর্ষণের বিচার ও সিপিবি নেত্রী জলি তালুকদারকে নিপীড়নে জড়িতদেরকে শাস্তি নিশ্চিত করতে দ্রুত বিচার ট্রাইবুনাল গঠনসহ চার দফা দাবি জানায় মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ।

সমাবেশ শেষে রাজু ভাস্কর্য থেকে শাহবাগ পর্যন্ত মিছিলও করে বিক্ষোভকারীরা।

শাস্তির আওতা বাড়ছে জাল নোট প্রতিরোধ আইনেঃ ছিদ্রযুক্ত টাকা লেনদেনেও সাজা

ব্যাংক, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বা নোট সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান জাল নোট দিলে জরিমানার বিধান রাখা হচ্ছে। একই সাথে বাংলাদেশ ব্যাংকের ছিদ্র করা নোট বাজারে ছাড়লে বা লেনদেন করলে সাজা ভোগ করতে হবে। বাংলাদেশ ব্যাংক ইতোমধ্যে জাল নোট প্রতিরোধে নতুন আইনের খসড়া তৈরি করে অর্থ মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, জাল নোট বহন, প্রচলন ও বিস্তারের সাথে জড়িতদের শাস্তি নিশ্চিতে দেশে বর্তমানে সুনির্দিষ্ট কোনো আইন নেই। ফৌজধারি দণ্ডবিধি ১৮৬০ ও বিশেষ ক্ষমতা আইন ১৯৭৪ এর আওতায় বর্তমানে জাল নোটের মামলা ও বিচারকার্য সম্পন্ন হয়। জাল নোটসহ যাদের ধরা হয় তাদের অনেকেই সাধারণ মানুষ। আইনি ঝামেলায় পড়ে হয়রানি হতে হয়। এ ছাড়া সাক্ষীর অভাবে বিচারকার্যও বিলম্বিত হয়। এসব কারণে নতুন আইন করা হচ্ছে।
নতুন আইনের খসড়ায় একটি জাতীয় কমিটি গঠনের প্রস্তাব করা হয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট ডেপুটি গভর্নরের সভাপতিত্বে এ কমিটির সভাপতি হবেন। সদস্য হিসেবে থাকবেন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের একজন নির্বাহী পরিচালক, অর্থ মন্ত্রণালয়ের একজন যুগ্মসচিব, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন যুগ্মসচিব, লেজিসলেটিভ ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের একজন যুগ্মসচিব, আইন বিভাগের একজন প্রতিনিধি, পুলিশ, বর্ডার গার্ড, দুইজন ব্যাংকের প্রতিনিধি, বাংলাদেশ ব্যাংকের মুদ্রা ব্যবস্থাপনা বিভাগের জিএম এর সদস্যসচিব হবেন।
কমিটি জাল মুদ্রা ও প্রতিরোধবিষয়ক নীতি নির্ধারণ করবে। জাল মুদ্রা প্রস্তুত, ধারণ, পরিবহন, ক্রয়-বিক্রয়, সরবরাহ, নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে। জাল মুদ্রা নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ সেলকে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেবে। জনগণ যাতে ব্যাংকিং লেনদেনের বাইরে ব্যক্তিগত লেনদেনের অর্থ ব্যাংকের যেকোনো শাখা থেকে ব্যাংকিং সময়সূচির মধ্যে পরীক্ষা করে নিতে পারে সে জন্য প্রয়োজনীয় সহযোগিতা প্রদানের বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে।
জাতীয় কমিটির সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন এবং জাল মুদ্রা নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের লক্ষ্যে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুদ্রা ব্যবস্থাপনা বিভাগের নির্বাহী পরিচালকের সভাপতিত্বে একটি জাল মুদ্রা নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ সেল গঠিত হবে। এতে থাকবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, তথ্য মন্ত্রণালয়ের একজন উপসচিব, পুলিশ, সিআইডি, র্যাব, বিজিডি, জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থা, প্রতিরক্ষা গোয়েন্দা সংস্থা, বাংলাদেশ ব্যাংকের একজন কর্মকর্তা এর সদস্য সচিব হবেন।
বাংলাদেশ ব্যাংকের মুদ্রা ব্যবস্থাপনা বিভাগ জাল মুদ্রার বাহক, সরবরাহকারী, প্রস্তুতকারী, বিপণনকারী, মুদ্রা প্রস্তুতে ব্যবহƒত ও আনুষঙ্গিক একটি তথ্যভাণ্ডার গড়ে তুলবে। বাংলাদেশ ব্যাংকের পরামর্শে জাল মুদ্রা তৈরিতে ব্যবহƒত কাগজ, রাসায়নিক দ্রব্যাদি, যন্ত্রপাতিসহ যেকোনো উপকরণ সংরক্ষণ ক্রয়-বিক্রয় বা আমদানি রফতানির ক্ষেত্রে বিধিনিষেধ আরোপ করতে পারবে।
নতুন আইনের খসড়ায় বলা হয়েছে, বাংলাদেশ ব্যাংক হতে অনুমোদিত প্রিন্ট বা মিন্ট করে বাতিল করা বিকৃত মুদ্রা বাজারজাত করলে বা লেনদেনে ব্যবহার করলেও শাস্তিযোগ্য অপরাপধ বলে গণ্য হবে।
বাংলাদেশী নতুন বা পুরাতন যেকোনো মুদ্রায় মুনাফা অর্জন, প্রতারণা বা অন্য কোনো অসৎ উদ্দেশ্যে ক্রয়-বিক্রয় করলে শাস্তি পেতে হবে সংশ্লিষ্টকে। কোন ব্যক্তি সরল বিশ্বাসে নিজের অজান্তে জাল মুদ্রা বহন করলে বা লেনদেন করলে এবং এটি প্রমাণিত হলে তার বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ আনা যাবে না বা মামলাও করা যাবে না। কোনো ব্যক্তির কাছে অনধিক ১০ পিস জাল নোট পাওয়া গেলে বিকল্প পদ্ধতিতে নিষ্পত্তি করা যাবে। এই আইনের দায়ের করা মামলা আমলযোগ্য, অজামিনযোগ্য এবং অ-আপসযোগ্য বলে গণ্য হবে।
কোনো ব্যাংক, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বা মুদ্রা সরবরাহকারী কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান জাল মুদ্রা সরবরাহ করলে ওই ব্যক্তি বাংলাদেশ ব্যাংকে অভিযোগ করতে পারবেন। অভিযোগ প্রমাণিত হলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক জরিমানা করা যাবে। জরিমানার পরিমাণ বিধি দ্বারা নির্ধারিত হবে। এই আইনের আওতায় জাতীয় কমিটিকে বিধি প্রণয়নের ক্ষমতা দেয়া হয়েছে। তারা সময় সময় জরুরি প্রয়োজনে বিধি প্রণয়ন ও তা কার্যকর করতে পারবেন।

চাঁপাইনবাবগঞ্জে ভারতীয় জাল রুপীসহ গ্রেফতার এক

নিজস্ব প্রতিবেদক

চাঁপাইনবাবগঞ্জে ভারতীয় জাল রুপীসহ একজনকে গ্রেফতার করেছে শিবগঞ্জ থানা পুলিশ। সোমবার ভোর সাড়ে ৪ টায় ২১ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা জাল রুপীসহ আব্দুল বাসিদ (২৮) কে গ্রেফতার করে।
গ্রেফতারকৃত জাল রুপী কারবারী শিবগঞ্জ উপজেলার কানসাট কাঠগড় এলাকার মোঃ গোলাম নবীর ছেলে মোঃ আব্দুল বাসিদ (২৮)।

সোমবার বিকেলে এক প্রেস ব্রিফিং এ এ তথ্য জানান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহম্মদ মাহবুব আলম খাঁন।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহম্মদ মাহবুব আলম খাঁন জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শিবগঞ্জ থানার ওসি শামসুল আলম শাহ্ এর নেতৃত্বে এক অভিযানে সোমবার ভোর সাড়ে ৪টায় পুকুরিয়া পেট্রোল পাম্পের সামনে হতে আব্দুল বাসিদকে গ্রেফতার করা হয়। তার নিকট হতে ভারতীয় ২ হাজার জাল রুপির ১১ টি বান্ডিল উদ্ধার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জাল রুপী ভারতে নিয়ে যাবার উদ্দেশ্যে ঢাকা হতে নিয়ে এসেছে বলে বাসিদ স্বীকার করেছে বলে জানান মাহবুব আলম খাঁন। জিজ্ঞাসাবাদে বাসিদ আরও এক কারবারীর নাম বলেছে কিন্তু তদন্তের স্বার্থে নাম প্রকাশ করা যাবেনা বলে জানান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহম্মদ মাহবুব আলম খাঁন। তিনি জানান, সামনে পুজা উপলক্ষে এ জালরুপী ভারতে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল।
এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ প্রক্রিয়াধীন আছে বলে জানান তিনি।

র‌্যাবের অভিযানে চাঁপাইনবাবগঞ্জে ১৪ মাদক সেবনকারী গ্রেপ্তার

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি:

চাঁপাইনবাবগঞ্জের ডা.আ.আ.ম মেসবাহুল হক (বাচ্চু ডাক্তার) স্টেডিয়ামের গ্যালারির নিচে মাদক সেবনের দায়ে র‌্যাব অভিযান চালিয়ে ১৪ মাদক সেবীকে গ্রেফতার করেছে।সোমবার( ১২ অক্টোবর ) দুপুর পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে এদের গ্রেফতার করে র‌্যাব-৫, রাজশাহীর সিপিসি-১ চাঁপাইনবাবগঞ্জ ক্যাম্পের একটি অপারেশন দল।

গ্রেপ্তারকৃতরা হচ্ছে,সদর উপজেলার পৌর এলাকার প্রান্তিক পাড়ার ইয়াকুব আলীর ছেলে মো. মোহসীন আলী (৩৮), চাঁদলাই জোড়বাগান এলাকার মৃত আবুল হাসেমের ছেলে আব্দুল মালেক (৬০), চরবাগডাঙ্গা কটাপাড়ার রইচ উদ্দিনের ছেলে ইসমাইল হোসেন (৩৫), জিয়ানগর হুজরাপুর মহল্লার মৃত তাহের আলীর ছেলে সেলিম রেজা (৪০), পোলাডাঙ্গা গ্রামের মৃত আইয়ুব আলীর ছেলে আলতাফ হোসেন (৫৫), রেহাইচর গ্রামের
আনসার আলীর ছেলে মো. আরিফ হোসেন (২৭), রেহাইচর হঠাৎ পাড়ার মৃত আব্দুল বাসেদের ছেলে সাদিকুল ইসলাম (৫৫). আজাইপুর বাগানপাড়া এলাকার মৃত ফেরদৌসের ছেলে মো. সারিউল হক (৫৫), রাণীহাটি ইউনিয়নের রামচন্দ্রপুর হাট এলাকার ফানুসউদ্দিনের ছেলে মো. কামাল হোসেন (৪০), একই এলাকার মৃত নজরুল ইসলামের ছেলে সেলিম রেজা (৩২), কৃষ্ণগোবিন্দপুরের মৃত নজরুল ইসলামের ছেলে আলী হোসেন (২৬) দবির উদ্দিনের ছেলে মো. সাহারুল (৩০),গোমস্তাপুর উপজেলার বৈততলা আদর্শ গ্রামের একবর আলীর ছেলে মো. সেন্টু (৫০), শিবগঞ্জ উপজেলার দাইপুকুরিয়া ইউনিয়নের সাইদুর রহমানের ছেলে পলাশ হোসেন (৩০)।

বেলা ৩টার দিকে র‌্যাব এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানায়, জেলা সদরের বাচ্চু ডাক্তার স্টেডিয়ামের দক্ষিণপূর্ব কোনায় গ্যালারির নিচে অভিযান পরিচালনা সোমবার সকাল ৯টা থেকে ১২টা পর্যন্ত প্রকাশ্যে মাদক সেবনের অপরাধে ১৪ জন মাদকসেবীকে গ্রেপ্তার র‌্যাবের একটি অভিযানিক দল। এ সময় ১০ গ্রাম গাঁজা, ২ বোতল ফেনসিডিল, ২ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট, ৫ গ্রাম হেরোইন, কলকি ৩টি উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় সদর থানায় আইনগত ব্যবস্তা নেয়া হয়েছে।

শিবগঞ্জে পূর্ব শত্রুতার জের: ১০টি গাছ কর্তনের অভিযোগ

শিবগঞ্জ(চাঁপাইনবাবগঞ্জ)প্রতিনিধি:
পূর্ব শত্রুতার জের ধরে বসত ভিটার বিভিন্ন ধরনের ১০টি গাছ কর্তনের প্রতিপক্ষরা। ঘটনাটি ঘটেছে চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার বিনোদপুর ইউনিয়নের আইড়ামারী গ্রামে। প্রতিকার চেয়ে শিবগঞ্জ থানায় একটি অভিযোগ করেছে ভুক্তভোগী তোহরুল ইসলাম।
গত ১০ অক্টোবর তোহরুল ইসলামের স্বাক্ষরিত থানায় লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, জমিজমা সংক্রান্ত পূর্ব শত্রুতার জের ধরে আইড়ামারী গ্রামের ইদ্রিশ আহম্মেদের দুই ছেলে মফিজুল ইসলাম(৪২) ও শাহাদাৎ হোসেন (৪০) পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী গত ১০ অক্টোবর সকাল সাড়ে ১০টার আমার বসতভিটায় অনাধিকার ভাবে প্রবেশ করে দেশীয় অস্ত্র-সস্ত্র দিয়ে ৭টি মেহগনি, ২টি কাঁঠাল ও ১টি আম গাছ কেটে ফেলে এবং একটি পায়খানা ভেঙ্গে নষ্ট করে দেয়। যার ফলে প্রায় ৯০ হাজার টাকার ক্ষতি হযেছে।
তোহরুল ইসলাম আরো জানান, এ সময় আমার স্ত্রী ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে বাধা দিলে তাকে মারপিট করে ও হুমকী দিয়ে তাড়িয়ে দেয়। পরে সংবাদ পেয়ে ঘটনা স্থলে উপস্থিত হলে আমাকেও তারা বিভিন্ন ধরনের হুমকী দেয়।
এব্যাপারে মফিজুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি গাছ কাটার অভিযোগ স্বীকার করে বলেন, জমিজমা সংক্রান্ত ব্যাপারে দীর্ঘদিন যাবত সমাধানের চেষ্টা করেও ব্যর্থ হলে বাধ্য হয়ে এ ঘটনাটি ঘটিয়েছি। যার ফলে তোহরুল মামলা করলেই একটি সমাধানের পথ বেরিয়ে আসতে পারে।
ঘটনার তদন্তকারী কর্মকর্তা এ.এস.আই আব্দুল মালেক অভিযোগের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ঘটনা স্থল পরিদর্শন করেছি এবং সত্যতা পেয়েছি। তিনি আরো বলেন মফিজুল ইসলামের পিতা বীর মুক্তিযোদ্ধা ইদ্্িরশ আহম্মেদ স্থানীয় ভাবে সমাধানের জন্য মৌখিকভাবে আবেদন করেছেন।

শিবগঞ্জে বিনিয়োগ ও ব্যবসায় উন্নয়ন সহায়তা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত


শিবগঞ্জ (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধি :চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে বিনিয়োগ ও ব্যবসায় উন্নয়ন সহায়তা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
উপজেলা নির্বার্হী অফিসারের কার্যালয়ে সোমবার সকালে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।সভায় উপজেলা পর্যায়ে প্রকৃত উদ্দ্যোক্তাদের খুঁজে বের করে তাদের বিনিয়োগে উদ্বুদ্ধ করতে সম্ভাব্য করনীয় নিয়ে আলোচনা করা হয়।
উপজেলা নির্বার্হী অফিসার সাকিব আল রাব্বির সভাপতিত্বে এতে উপজেলা বিনিয়োগ ও ব্যবসায় উন্নয়ন সহায়তা কমিটির সকল সদস্যগণ উপস্থিত ছিলেন।এ সময় বিনিয়োগ বৃদ্ধিতে সরকারের গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপ গুলো তুলে ধরেন উপজেলা নির্বার্হী অফিসার। শেষে এ নিয়ে আগামী ২১ অক্টোবর একটি কর্মশালা আয়োজনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

৭ বছর পর পোড়া ক্ষত সারিয়ে অআনুষ্ঠানিকভাবে প্রাণ ফিরেছে চাঁপাইনবাবগঞ্জের একমাত্র পর্যটন মোটেলে

শিবগঞ্জ (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধি:
নির্মাণকাজ শেষে উদ্ধোধনের মাত্র ২ দিন আগে বিরোধী জোটের নাশকতার আগুনে পুড়ে ছারখার হয়ে যায় চাঁপাইনবাবগঞ্জের সোনামসজিদ পর্যটন মোটেলটি । দীর্ঘ সাত বছর পর সংস্কার শেষে আনুষ্ঠিানিকভাবে উদ্ধেধনের কথা থাকলেও নিরবেই অঅনুষ্ঠানিকভাবে পোড়া ক্ষত সারিয়ে প্রাণ ফিরেছে জেলার একমাত্র এই পর্যটন মোটেলে।

গত ২৭ সেপ্টেম্বর ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মোটেলটি আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের কথা থাকলেও সেটি পিছিয়ে গেছে। উদ্ধোধন পিছিয়ে গেলেও থেমে নেই মোটেলের কর্মকান্ড। এরই মধ্যে অতিথিদের জন্য খুলে দেয়া হয়েছে মোটেলটি।

জানা গেছে, ২০১৩ সালের ৩ মার্চ উদ্বোধণের ২ দিন আগে ২৮ ফেব্রুয়ারী জেলার একমাত্র সোনামসজিদ পর্যটন মোটেলটি মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় জামায়াত নেতা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর ফাঁসির রায়ের দিন আগুন দেয় দুর্বৃত্তরা।

একই সময়ে নিহত হন পর্যটন বিভাগের একজন নির্বাহী প্রকৌশলীও। আগুন ও ভাঙচুরে ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ায় মোটেলটি আর চালু করা সম্ভব হয়নি। বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশন ও মোটেল এর তথ্য অনুযায়ী, নির্মাণকাজের সঙ্গে যুক্ত ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান পারিসা কনস্ট্রাকশন প্রায় সাত কোটি টাকা ব্যয়ে মোটেলটি নির্মাণ করে। নির্মাণকাজ সম্পন্ন করে ২০১২ সালের ৩০ ডিসেম্বর পারিসা কনস্ট্রাকশন এটি পর্যটন করপোরেশনের কাছে হস্তান্তর করে। কিন্তু তার আগেই দুর্বৃত্তরা মোটেলে আগুন দিয়ে ভবনসহ সব আসবাব পুড়িয়ে দেয়।

সোনামসজিদে ভারতে যাতায়াতের ইমিগ্রেশন ও স্থলবন্দর রয়েছে। এছাড়া বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর ও মেজর নাজমুল হকের সমাধি, মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের গণকবর, ঐতিহাসিক তাহখানা, কামেল পীর হজরত শাহ নেয়ামতুল্লাহ (র.)-এর মাজার, ছোট সোনামসজিদ, শাহ সুজার প্রাসাদ, দারসবাড়ির মসজিদ, মাদরাসা, কোতোয়াল দীঘি, টাকশাল দীঘি, দখলদরজা, চামাকাঠি মসজিদ, ধনাইচক মসজিদ, খঞ্জনদীঘির মসজিদসহ অসংখ্য পীর আউলিয়াদের মাজার, বিশাল দীঘি বালিয়াদীঘি সহ বেশকিছু ঐতিহাসিক স্থাপনা থাকায় এখানে প্রতিদিনই পর্যটক আসেন। পর্যটকদের অত্যাধুনিক সুবিধা দিতেই সরকার এখানে পর্যটন মোটেল নির্মাণ করে। কিন্তু সে স্বপ্ন ভেঙ্গে যায়। এরপর পরিত্যক্ত পড়ে থাকে এটি।

পরবর্তীতে মোটেলটি সংস্কার করে চালু করার লক্ষ্যে ২০১৫ সালে পর্যটন করপোরেশনের চেয়ারম্যানের কাছে চিঠি দেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের তৎকালীন জেলা প্রশাসক মরহুম মো. জাহিদুল ইসলাম। নানামুখি তদবীরের ৫ বছর পর এটি সংস্কারের জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ দেয় বেসামরিক ও পর্যটন মন্ত্রণালয়।

জেলা সদর থেকে পরিবার নিয়ে ঘুরতে সোনামসজিদ ঘুরতে আসা জাহিদ হাসান বলেন, এর আগেও এখানে ঘুরতে এসেছি। তবে ভালোমানের কোন খাবারের দোকান না থাকায় বাসা থেকে খাবার নিয়ে আসতে হতো। তবে পর্যটন মোটেলের কার্যক্রম শুরু হয়েছে শুনে আবারো ঘুরতে এসেছি। এবার বাসা থেকে খাবার নিয়ে আসিনি, মোটেলে খেলাম ও খাবার মানও ভালো।

অপরদিকে ঢাকা থেকে আগত ব্যবসায়ী ফজলুর রহমান বলেন, আগে ব্যবসায়ীক কাজে অনেকবার আসতে হয়েছে সোনামসজিদে কিন্তু এখানে রাত যাপনের কোন ব্যবস্থা থাকায় জেলা সদরে গিয়ে থাকতে হতো। এখানে সব থেকে বড় সমস্যা ছিলো রাতে থাকার। কিন্তু এবার মোটেলে থেকেছি।

তিনি আরও বলেন, দেশের দ্বিতীয় স্থলবন্দর সোনামসজিদে হওয়ায় বিভিন্ন স্থান থেকে ব্যবসায়ীরা এসে থাকা ও খাবারের সমস্যায় পড়তেন। কিন্তু এখন মোটেল চালু হয়ে যাওয়ায় দীর্ঘদিনের সে সমস্যার সমাধান হয়েছে।

মোটেলের নির্বাহী অফিসার মনোয়ার ফেরদৌস খন্দকার জানান, ২৭ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রীর ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এর আনুষ্ঠানিক উদ্ধোধনের কথা থাকলেও তাঁর সিডিউল জনিত কারনে তা সম্ভব হয়নি। তবে পর্যটকদের স্বাথে আনুষ্ঠানিক উদ্ধোধন না হলেও মোটেলটির অআনুষ্ঠানিকভাবে সকল কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

তিনি আরও জানান, তিন তলাবিশিষ্ট পর্যটন মোটেলটিতে রয়েছে ১৮টি ভিআইপি কক্ষ, সাধারণ কক্ষ ১২টি, ইকোনমি কক্ষ ও সাধারণের জন্য ডরমিটরি কক্ষ ১২টি, অভ্যর্থনা কক্ষ একটি, ক্যান্টিন একটি, রান্নাঘর একটি।এছাড়া সার্বক্ষনিক বিদ্যুৎ সুবিধা রাখতে একটি বৈদুতিক সাবস্টেশনও রয়েছে।

এ ব্যাপারে বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশনের নির্বাহী প্রকৌশলী নজরুল ইসলাম বলেন, ৩ কোটি ৫০ লাখ টাকা ব্যয়ে এটি সংস্কার করা হয়েছে। এটি আধুনিকায়ন করা হয়েছে। পাশাপাশি এটি দৃষ্টি নন্দন করা হয়েছে।

তিনি বলেন, আগুনে আমাদের প্রায় সবকিছুই নষ্ট হয়ে গেছিলো। এগুলোকে আবারও নির্মাণ করা হয়েছে। পাশাপাশি আমাদের সকল ফার্নিচার ও অনুসঙ্গিক জিনিসও কেনা হয়েছে।

সদ্য যোগদানকারী চাঁপাইনবাবগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো: মঞ্জুরুল হাফিজ জানান, গত মাসের শেষের দিকেই আনুষ্ঠানিকভাবে মোটেলটির কার্যক্রম শুরু হবার কথা থাকলেও তা সম্ভব হয়নি। তবে অনানুষ্ঠানিকভাবে এর কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এ পর্যটন মোটেল চালুর মধ্যদিয়ে জেলার পর্যটন শিল্প আরও বিকশিত হবে।

শিবগঞ্জে ৫০ মণ আফ্রিকান মাগুর জব্দ


চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে ৫০ মণ আফ্রিকান মাগুরমাছ জব্দের পর তা দরীদ্রদের মাঝে বিতরন করা হয়েছে। এ ঘটনায় মাগুর মাছ রাখার জন্য নির্মিত চৌবাচ্চাটিও ধ্বংশ করা হয়। সোমবার সকালে জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার কানসাট মাছ বাজারে এ অভিযান চালানো হয়।
শিবগঞ্জ উপজেলা সিনিয়র মৎস অফিসার বরুন কুমার মন্ডল জানান, উপজেলার কানসাটের মাছের আড়তে আফ্রিকান মাগুর মজুদ করা হচ্ছে এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাকিব আল রাব্বির নেতৃত্বে সোমবার ভোর ৬টার দিকে মাছের আড়তে তল্লাশি চালিয়ে ৫০ মণ আফ্রিকান মাগুর জব্দের পর তা স্থানীয় দরীদ্রদের মাঝে বিতরন করা হয়।অভিযান চলাকালে কোন মাছ ব্যবসায়ীকে পাওয়া না যাওয়ায় মজুদের জন্য ব্যবহৃত চৌবাচ্চাটি শ্রমিক দিয়ে ভেঙ্গে ধ্বংশ করা হয় এবং স্থানীয়দের আর এ মাছ আমদানী না করার জন্য সর্তক করে দেয়া হয়।

শিবগঞ্জে অজ্ঞাত এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার

শিবগঞ্জ (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধি : চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ চাঁপাইনবাবগঞ্জ আঞ্চলিক সড়কের সত্রাজিতপুরে অজ্ঞাতনানা এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করেছে শিবগঞ্জ থানা পুলিশ।সোমবার সকাল ৮টার দিকে লাশটি উদ্ধার করে থানায় নেয়ার পর ময়নাতদন্তে সদর থানা মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ।
শিবগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) শামসুল আলম শাহ জানান,সোমবার ভোরে আঞ্চলিক সড়কের সত্রাজিতপুর ফুলতলা মোড়ে রাস্তার পাশে একটি লাশ পড়ে থাকার খবর পেয়ে শিবগঞ্জ থানা পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে।ধারনা করা হচ্ছে সকাল সাড়ে ৬টার দিকে দ্রুতগামী কোন যানবহনের নিচে চাপা পড়ে মারা যান অজ্ঞাত ব্যক্তি।এ ঘটনায় তার নাম পরিচয় সনাক্তকরনের চেষ্টা হলছে এবং এ ঘটনায় শিবগঞ্জ থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করা হয়েছে।