সর্বশেষ সংবাদ পঞ্চম বিয়ে: প্রবাসীর স্ত্রীকে নিয়ে উধাও মসজিদের ইমাম দ্রুত ওমরাহ কার্যক্রম শুরু হচ্ছে: নতুন নিয়ম ও শর্ত! পরিচালকের বিরুদ্ধে মামলার পর এবার পায়েলে হুমকি সিলেট ও খাগড়াছড়িতে গণধর্ষণের প্রতিবাদে জেলা ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে ফুলেল শুভেচ্ছা মোদির, চীনের অভিনন্দন বার্তা আবারো বাড়ছে মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানী ! শেখ হাসিনার নেতৃত্ব বিশ্বে প্রশংসিত চাঁপাইনবাবগঞ্জে ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল নাচোলে আ’লীগের পৃথক পৃথক ভাবে প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৪ তম জন্ম বার্ষিকী পালিত অবিশ্বাস্য কর্মযজ্ঞ:বদলে গেছে মানুষের জীবন

চাঁপাইনবাবগঞ্জে ধান গুদামজাতের দায়ে দুই ব্যবসায়ীকে জেল-জরিমানা

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার ঝিলিম ইউনিয়নের আতাহার এলাকায় ধান গুদামজাত করার দায়ে দুই ব্যবসায়ীকে জেল ও জরিমানা করা হয়েছে। গত বুধবার ও বৃহস্পতিবার ভ্রাম্যমাণ আদালত এই দণ্ড প্রদান করেন। জানতে চাইলে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ আশরাফুল হক বৃহস্পতিবার (১০ সেপ্টেম্বর) রাতে জানান, গোডাউনে অবৈধভাবে ৩ হাজার ৫০০ বস্তা ধান মজুত রাখার অপরাধে আব্দুল হামিদ নামে এক ব্যবসায়ীকে ৪৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড, ৩ লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো ২০ দিনের কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে। তিনি আরো জানান, গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে খাদ্যদপ্তরের কর্মকর্তাকে সঙ্গে নিয়ে আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে আব্দুল হামিদ নামের ওই ব্যবসায়ীর গোডাউনে অভিযান পরিচালনা করা হয়। এ সময় গোডাউনে মজুত অবস্থায় ৩ হাজার ৫০০ বস্তা ধান পাওয়া যায়। গোডাউন মালিক আব্দুল হামিদ এই ধান গুদামজাত করার জন্য উপযুক্ত কাগজপত্র দেখাতে না পারায় তাকে ৪৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড, ৩ লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো ২০ দিনের কারাদণ্ড আদেশ দেয়া হয়।

অপর দিকে গত বুধবার চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার আমনুরা সড়কের আতাহার মোড়ে ধান গুদামজাত করার দায়ে শহিদ (২৮) নামের এক ব্যবসায়ীকে এক মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও ৫ লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে ১৫ দিন বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করেছেন র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত। এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে র‌্যাব জানায়, চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার আমনুরা সড়কে আতাহার মোড়ে সিপিসি-১ (চাঁপাইনবাবগঞ্জ), র‌্যাব-৫ রাজশাহীর একটি দল ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ আশরাফুল হকের উপস্থিতিতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। এ সময় ধান গুদামজাত করার অপরাধে মেসার্স সাব্বির রাইস মিলসের মালিক শহিদকে এই দণ্ড প্রদান করা হয়। পরে ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে জরিমানাকৃত টাকা সরকারি কোষাগারে জমা করা হয় বলেও র‌্যাব ওই সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানায়।

শিক্ষার্থীদের আমরা এক হাজার করে টাকা দেবো….. প্রধানমন্ত্রী

ডেস্ক : শিক্ষার্থীদের কাপড়-চোপড়, টিফিন বক্স ও প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কিনতে এক হাজার করে টাকা দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার একাদশ জাতীয় সংসদের নবম অধিবেশনের সমাপনী ভাষণে প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনা এ কথা জানান।

তিনি বলেন, করোনাভাইরাসে সকলের জীবনে স্থবির হয়ে পড়েছে। এজন্য আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি শিক্ষার্থীদের আমরা এক হাজার করে টাকা দেবো যাতে করে তারা তাদের প্রয়োজনীয় জিনিস কিনতে পারে।অধিবেশনে নিজের বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী বলেন, কোনো মানুষ যেন কষ্টে না থাকে সেদিকে বিশেষ দৃষ্টি রেখেই আমরা এই ব্যবস্থাটা নিয়েছি। অর্থনীতির চাকাটা যাতে গতিশীল থাকে আর সাধারণ মানুষ যেন কষ্ট না পায় তার জন্য এই ব্যবস্থাটা আমরা নিয়েছি। কারণ দেশের মানুষের জন্যই আমাদের এই রাজনীতি।তিনি বলেন, আমরা সাধ্যমত মানুষের পাশে আছি। মানুষের পাশে থেকে কাজ করে যাচ্ছি। যখন সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছিল তখন করোনাভাইরাস মোকাবিলা, ত্রাণ বিতরণসহ অন্যান্য কাজে যে সকল মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্টতা ছিল তারা কাজ করেছে। আমাদের কিছুদিন থমকে যেতে হয়েছিল। সবকিছু প্রায় বন্ধ অবস্থায় ছিল। সব কার্যক্রম প্রায় স্থবির হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু তার মধ্যেও সরকার কিন্তু বসে থাকেনি। যার কারণে আমরা রিজার্ভ ৩৯ দশমিক ৪০ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে উন্নীত করতে পেরেছি।

তিনি বলেন, করোনাভাইরাস এর কারণে আমাদের বিদেশ যাওয়া নেই, বিভিন্ন অনুষ্ঠানাদি নেই। এসব কারণে আমাদের বেশ সাশ্রয় হয়েছে। সেটা আমরা মানুষের কল্যাণে ব্যয় করতে পারছি। মাথাপিছু আয় দুই হাজার ৬৪ ডলারে উন্নীত হয়েছে। মাঝখানে কিছুদিন রপ্তানি একটু থমকে গেলেও আমাদের আমদানি-রপ্তানি এখন বৃদ্ধি পেয়েছে। যার কারণে গার্মেন্টসগুলো যা চেয়েছে আমরা সেইভাবে দিয়েছি।

এদিকে করোনার ভ্যাকসিন প্রাপ্তির জন্য সব দেশের সঙ্গেই চেষ্টা চালাচ্ছে বলে জানা প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ভ্যাকসিন প্রাপ্তির জন্য সবদেশের সাথেই চেষ্টা চালাচ্ছে সরকার। অর্থও বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

হেগের আদালত ‘বাংলাদেশে’ স্থানান্তর!

রোহিঙ্গাদের হত্যা ও নির্যাতনের অভিযোগে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে যে শুনানি হবে, সেটি যেন নেদারল্যান্ডসের দ্য হেগের পরিবর্তে অন্য কোন দেশে, বিশেষ করে বাংলাদেশে আদালত বসিয়ে করা হয়, সেরকম একটি আবেদন পেশ করা হয়েছে।

আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত বা আইসিসির সব কার্যক্রম সাধারণত চলে নেদারল্যান্ডসের দ্য হেগ শহরে। কিন্তু এই প্রথম এরকম কোন উদ্যোগ নেয়া হলো, যেখানে ভিক্টিম বা নির্যাতিতদের শুনানির জন্য আদালতকেই অন্য কোন দেশে বসানোর আবেদন জানানো হয়েছে।

আইসিসিতে এরকম একটি আবেদনের কথা জানা গেল এমন এক সময়, যখন মিয়ানমারের দুজন সৈন্য, যারা রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে হত্যা এবং ধর্ষণের ঘটনায় সরাসরি অংশ নেয়ার কথা স্বীকার করেছেন এবং দ্য হেগে গিয়ে পৌঁছেছেন বলে খবর বেরিয়েছে।

মিয়ানমারকে মানবতা বিরোধী অপরাধের অভিযোগে কাঠগড়ায় দাঁড় করানোর জন্য যে তদন্ত প্রক্রিয়াধীন, সেখানে এই দুটি ঘটনাকে খুবই গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করছেন আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইনজীবীরা।

সম্ভাব্য দেশ বাংলাদেশ

দ্য হেগের যে বিচার আদালতে রোহিঙ্গাদের ওপর মিয়ানমারের হত্যা-নিপীড়নের অভিযোগের শুনানি হওয়ার কথা, সেই আদালত যেন অন্য কোন দেশে বসিয়ে শুনানি করা হয়, সেরকম একটি আবেদন পেশ করা হয় গত মাসে।

আবেদনটি করেন রোহিঙ্গাদের পক্ষে কাজ করছে এমন তিনটি ‘ভিকটিম সাপোর্ট গ্রুপ‌ে’র আইনজীবীরা। তারা এমন একটি দেশে এই শুনানির অনুরোধ জানিয়েছেন, যেটি নির্যাতনের শিকার রোহিঙ্গাদের কাছাকাছি কোন দেশে হবে।

আবেদনে দেশের কথা উল্লেখ না থাকলেও, আইসিসি এই আবেদনের অগ্রগতির যে বিবরণী প্রকাশ করেছে, তাতে এই দেশটি ‘সম্ভবত বাংলাদেশ‌‌‌’ বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

এই অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে আইসিসির তিন নম্বর ‘প্রি ট্রায়াল চেম্বার‌’ আদালতের রেজিস্ট্রি বিভাগকে আদেশ দিয়েছে, দ্য হেগ থেকে অন্য কোন দেশ, যেমন বাংলাদেশে আদালতের কার্যক্রম সরিয়ে নেয়ার সম্ভাব্যতা যাচাই করতে। আগামী ২১শে সেপ্টেম্বরের আগেই এই সম্ভাব্যতা যাচাই করে রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে।

কেন আদালত অন্য দেশে বসানোর উদ্যোগ

আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইনজীবি আহমেদ জিয়াউদ্দীন বলেন, অন্য দেশে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের শুনানির জন্য আদালত বসানোর উদ্যোগ খুবই বিরল এক ঘটনা। যেহেতু নির্যাতনের শিকার হাজার হাজার রোহিঙ্গা শরণার্থী বাংলাদেশেই আছেন, তাই এটি বাংলাদেশে হলে শুনানিতে তাদের সাক্ষ্য-প্রমাণ দেয়া সহজ হবে। আবেদনকারি আইনজীবীরাও এরকম যুক্তিই দিয়েছেন।

শ্যানন রাজ সিং নামে একজন আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইনজীবি এ নিয়ে একটি ব্লগে লিখেছেন, পাখির মত উড়ে গেলে, বৃষ্টিস্নাত দ্য হেগ থেকে কক্সবাজারের দূরত্ব আনুমানিক ৮,০০০ কিলোমিটার। সেখানকার শরণার্থী শিবিরে নির্যাতনের শিকার যে রোহিঙ্গারা থাকেন, তাদের জন্য এই দূরত্ব একেবারেই অনতিক্রম্য‍।

এই ব্লগে তিনি আরও বলেছেন যে, আইসিসির রুল অনুযায়ী, স্বাগতিক দেশের (নেদারল্যান্ডস) বাইরে অন্য কোন দেশেও এই আদালতের কার্যক্রম চালানোর সুযোগ আছে। রোম স্ট্যাটিউটের একটি ধারা উল্লেখ করে তিনি জানান, আন্তর্জাতিক আদালত প্রয়োজন অনুযায়ী কোন মামলার পুরো বা আংশিক শুনানির জন্য অন্য কোন স্থানেও বসতে পারে।

মিয়ানমারের জন্য বড় ধাক্কা

এ সপ্তাহে প্রকাশ পাওয়া এই দুটি ঘটনা রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সংঘটিত অপরাধের বিচারের দাবিতে যারা সোচ্চার, তাদের ভীষণভাবে উৎসাহিত করেছে। তাদের মতে, এর ফলে মিয়ানমার এখন রোহিঙ্গা গণহত্যার প্রশ্নে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে (আইসিসি) বড় ধরণের চাপের মুখে পড়তে পারে।

দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস এবং কানাডিয়ান ব্রডকাস্টিং কর্পোরেশন দেশত্যাগ করা মিয়ানমারের দুই সৈনিকের অপরাধের স্বীকারোক্তির যে বিশদ বর্ণনা প্রকাশ করেছে, সেটিকে অবশ্য মানবাধিকার আইনজীবীরা খুব বেশি গুরুত্ব দিচ্ছেন না।

ব্রাসেলসে কর্মরত আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইনজীবী আহমেদ জিয়াউদ্দীন বিবিসি বাংলাকে বলেন, নিউ ইয়র্ক টাইমস বা অন্যান্য মিডিয়ার রিপোর্টে এই দুই সৈনিকের যে ভিডিও টেস্টিমোনি বা স্বীকারোক্তিমূলক ভাষ্যের কথা বলা হচ্ছে, সেটার হয়তো সাধারণ মানুষের দৃষ্টিকোন থেকে গুরুত্বপূর্ণ। কারণ এতদিন যে অভিযোগগুলো মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর বিরুদ্ধে করা হচ্ছিল, তাদেরই দুজন সদস্য সেই অপরাধের কথা স্বীকার করছেন।

তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত এখনো পর্যন্ত এই দু্ই সৈনিকের ব্যাপারে কোন আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয়নি। প্রসিকিউটরের অফিস থেকেও কিন্তু বলা হয়নি এরকম দুজন সৈনিক তাদের তত্ত্বাবধানে আছে। যদি এই খবর সত্যি হয়ে থাকে, তাহলে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের তদন্তে হয়তো এই দুই সৈনিকের ঘটনা একটা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। এর ফলে মিয়ানমারের বিপদে পড়ার সম্ভাবনা আছে। এটা একদিক থেকে খুবই ভালো খবর।

কিন্তু নিউ ইয়র্ক টাইমসের রিপোর্টে যে ভিডিও সাক্ষ্যের কথা বলা হচ্ছে, সেটার কি কোন মূল্য আছে?

আহমেদ জিয়াউদ্দীন বলছেন, ইন্টারন্যাশনাল ক্রিমিনাল কোর্ট বা আইসিসির কাছে এই সাক্ষ্যের কোন মূল্য সেভাবে নেই। এর প্রথম কারণ হচ্ছে, আইসিসি নিজেই এখনো মিয়ানমারের বিরুদ্ধে অভিযোগের তদন্ত করছে। সেই তদন্ত এখনো প্রক্রিয়াধীন আছে। তদন্ত চলাকালে আইসিসি বিভিন্ন সূত্র থেকে বিভিন্ন তথ্য পেতে পারে। নিউ ইয়র্ক টাইমসের যে রিপোর্টটির কথা বলা হচ্ছে, সেখানে দুজন সৈনিকের যে বিবরণ প্রকাশিত হয়েছে, আইসিসির তদন্তকারীরা সেসব তথ্যকে কেবল অতিরিক্ত কিছু তথ্য হিসেবে গণ্য করবেন। এর চেয়ে বেশি কিছু করার নেই। কারণ কেউ যদি কোন অপরাধ স্বীকার করতে চান, সেটা আইসিসির আইন বা নিয়ম অনুসরণ করে হতে হবে। আর এই কাজটা কেবল মাত্র আইসিসির প্রসিকিউটর বা তদন্ত কর্মকর্তাই করতে পারেন। অন্য কারও কাছে দেয়া স্বীকারোক্তি, সেটা বিদ্রোহী গোষ্ঠীর কাছেই হোক, বা অন্য কোন কর্তৃপক্ষের কাছে হোক, আইসিসির এখন যে তদন্ত চলছে, এর চেয়ে বেশি কোন মূল্য তাদের কাছে আছে বলে আমার মনে হয় না। আমরা যারা মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সংঘটিত এসব অপরাধের বিচার চাচ্ছি, তাদের কাছে এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমরা বলতে পারি, এতদিন মিয়ানমারের বিরুদ্ধে যেসব কথা বলা হচ্ছিল, এটা তার প্রমাণ। এটা আমাদের কাছে প্রমাণ বলে মনে হতে পারে, কিন্তু আইসিসির কাছে এটা কোন প্রমাণ নয়। সূত্র: বিবিসি বাংলা।

চিৎকার করে গান গাইলে বাড়ে করোনার ঝুঁকি!

ডেস্ক

বিশ্বে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ইতিমধ্যেই ২ কোটি ৮০ লক্ষ ছাড়িয়েছে। এই ভাইরাসে এখনও পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ৯ লক্ষ ৮ হাজার ৪৩৪ জনের। প্রতিদিনই লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। এই পরিস্থিতিতে করোনা নিয়ে নতুন আশঙ্কার কথা শোনালেন একদল বিজ্ঞানী। তাদের দাবি, জোরে, চিৎকার করে গান গাওয়াও করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়িয়ে দিতে পারে!

সম্প্রতি সুইডেনের লুন্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা জানিয়েছেন, জোরে, চিৎকার করে গান গাওয়ার সময় মুখ থেকে অধিক পরিমাণ বাষ্প নির্গত হয় যা আশেপাশের বাতাসের সঙ্গে মিশে ছড়িয়ে পড়ে। এতেই করোনাভাইরাসের সংক্রমণের ঝুঁকি বেড়ে যায় বলে মত বিশেষজ্ঞদের।

এই তথ্য প্রকাশের আগে একটি সমীক্ষা করে দেখেন লুন্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা। এই সমীক্ষার জন্য ১২ জন কণ্ঠশিল্পীকে বেছে নিয়েছিলেন তারা। এই ১২ জন কণ্ঠশিল্পীর মধ্যে ৮ জন অপেরা শিল্পী।

জানা গিয়েছে, নির্বাচিত শিল্পীদের মধ্যে দু’জন করোনা আক্রান্ত ছিলেন। সমস্ত রকম সুরক্ষা ব্যবস্থা নেয়ার পর এই ১২ জন কণ্ঠশিল্পীকে গান গাইতে বলা হয়।

বিশেষজ্ঞরা দেখেছেন, শিল্পীর যখন উচ্চ কণ্ঠে গান গাইছেন তখন তার মুখ থেকে অতিরিক্ত বাষ্পকণা নির্গত হচ্ছে যা আশেপাশের বাতাসে ছড়িয়ে পড়ছে। গবেষকরা দেখেন, নিচু স্বরে গান গাইলে এমনটা হচ্ছে না।

তাহলে কি চিৎকার করে গান গাইলে বা কথা বললে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি বেড়ে যায়? লুন্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা জানিয়েছেন, মুখ যদি মাস্কে ঢাকা থাকে, তাহলে সংক্রমণের ঝুঁকি কম বা নেই বললেই চলে। তবে পর্যাপ্ত দূরত্ব বজায় রাখতে পারলে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি অনেকটাই এড়িয়ে চলা সম্ভব। সূত্র: জি নিউজ।

চাঁপাইনবাবগঞ্জে মোট করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ৭৩৬


চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় এ পর্যন্ত করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে মোট ৭৩৬ জন। এর মধ্যে স্বুস্থ্য হয়েছেন মোট ৬২২জন। বর্তমানে জেলায় করোনা রোগী ১০০জন। মৃত্যু হয়েছে মোট ১৪ জনের। জেলায় করোনা আক্রান্তের হার অনেকটায় কমেছে, তবে স্বাস্ব্যবিধি অবশ্যই মেনে চলতে হবে। আগামীতে আরও একটি কঠিনভাবে আক্রমনের জোর সম্ভাবনা রয়েছে। বিষগুলো নিশ্চিত করে সকলকে স্বাস্থ্য সচেতন থাকার উপর গুরুত্বারোপ করেছেন সিভিল সার্জন। বৃহস্পতিবার বিকেলে জেলার সিভিল সার্জন ডা. জাহিদ নজরুল চৌধুরী জানান, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় এপর্যন্ত করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে মোট ৭৩৬ জন। স্বুস্থ্য হয়েছেন ৬২২জন। বর্তমানে জেলায় করোনা রোগী ১০০জন। মৃত্যু হয়েছে মোট ১৪ জনের। জেলায় করোনা আক্রান্তের হার অনেকটায় কমেছে। বুধবার বিকেলে ২৬ জনের পরীক্ষায় ২ জনের পজিটিভ রিপোর্ট এসেছে। কিন্তু সেপ্টেম্বরের শেষের দিকে আবারও আরও একটি জোরালো ধাক্কা আসবে করোনা ভাইরাসের। এজন্য অবশ্যই স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলতে হবে সকলকে। অন্যথায় চরম পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে। তাই সকল ক্ষেত্রে স্বাস্থ্য বিধি মেনার চলার জন্য জেলাবাসীকে বিশেষভাবে অনুরোধ জানান সিভিল সার্জন।

মুজিববর্ষ উপলক্ষে গোমস্তাপুরে চারা রোপণ

গোমস্তাপুর (চাঁপাইনবাবগঞ্জ)প্রতিনিধিঃ মুজিববর্ষ উপলক্ষে গোমস্তাপুরে ইউনিয়ন পরিষদে চত্ত্বরে চারাগাছ রোপণ করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে জেল প্রশাসক এ জেড এম নূরুল হক ইউনিয়ন পরিষদের এক অনুষ্ঠানে গিয়ে বনবিভাগের এ চারাগাছ রোপণ করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন গোমস্তাপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব হুমায়ুন রেজা,উপজেলা নির্বাহী অফিসার মিজানুর রহমান, ইউপি চেয়ারম্যান জামালউদ্দিন মন্ডল,উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা হাবিবুর রহমান, উপজেলা বন কর্মকর্তা একেএম সারওয়ার জাহান,ইউপি সচিব রাকিবুল ইসলাম,উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি আতিকুল ইসলাম আজমসহ স্থানীয় গণমান্য ব্যক্তিবর্গ।

গোমস্তাপুরে শিশু ও নারী উন্নয়ন বিষয়ক ওয়ার্কসপ

গোমস্তাপুর (চাঁপাইনবাবগঞ্জ)প্রতিনিধিঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুরে ” শিশু ও নারী উন্নয়নে সচেনতামূলক যোগাযোগ কার্যক্রম (৫ম পর্যায়ে)” শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিবর্গকে নিয়ে ওয়ার্কসপ অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে জেলা তথ্য অফিসের আয়োজনে গোমস্তাপুর ইউনিয়ন পরিষদ মিলনায়তনে আয়োজিত কর্মশালায় সভাপতিত্ব করেন গোমস্তাপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মিজানুর রহমান। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন,জেলা প্রশাসক এ জেড এম নূরুল হক। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন যথাক্রমে গোমস্তাপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব হুমায়ুন রেজা,জেলা তথ্য অফিসার ওয়াহিদুজ্জামান ও ইউপি চেয়ারম্যান জামালউদ্দিন মন্ডল। আলোচনা শেষে শিশু ও নারী উন্নয়নে সচেনতামূলক যোগাযোগ কার্যক্রম বিষয়ক প্রশিক্ষণ প্রদান করেন জেলা পরিবার পরিকল্পনা অফিসের উপ-পরিচালক আব্দুস সালাম। উল্লেখ্য ওয়ার্কসপে ৪০ জন স্থানীয় বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন।

Mymensingh hit by power outage after fire erupts again at national grid substation

The northern district of Mymensingh has been hit by a power outage after a second blaze erupted at the national grid substation in Kewatkhali in a space of two days.The fire broke out at 10:30 am on Thursday, said Rafiqul Islam, chief engineer of Power Development Board for Mymensingh region.

Two units of the fire service rushed to the spot after receiving news of the fire in the morning, Mymensingh Fire Service Deputy Director Abul Hossain said. The firefighters brought the fire under control in half an hour.

“Today, the fire started from the panel board. It could not spread far this time. The fire was quickly brought under control.”

Earlier on Tuesday, a massive fire broke out in the substation due to “overheating of marshalling board.” Firefighters from six units tamed the blaze after an hour.Power supply was stopped to Mymensingh, Jamalpur, Sherpur and Netrokona after the incident.
Of about one million clients in the four districts of Mymensingh, 650,000 lost electricity supply, said Rafiqul.

“Only Mymensingh district is facing the power outage today. Repairs are underway. Power supply will be restored as soon as the repairs are completed.”

Two probe panels were formed by the fire service and PGCB to investigate Tuesday’s incident. No reports have been submitted yet.

Global COVID-19: Over 28m infected, 908k die, 20m recover

The coronavirus (COVID-19) death toll has reached 908,182 as 28,035,685 people have been infected worldwide till 2:00 pm (Bangladesh Time) today.

Besides, a total of 20,112,550 people have recovered worldwide from the disease, according to data from the worldometer.

A total of 213 countries and territories and two international conveyances have been infected in the deadly disease.

In USA, 6,549,475 people have been infected with the disease. Of them, 195,239 people have died and 3,846,095 people have recovered.

In Brazil, 4,199,332 people have been infected with coronavirus. Of them, 128,653 patients have died and 3,453,336 recovered.

In India, 4,465,863 people have been affected with coronavirus. Of them, 75,091 people have died and 3,471,783 people have recovered.

In Mexico, 647,507 people have been infected with coronavirus. Of them, 69,095 died and 454,982 recovered from the disease.

In UK, 355,219 people have been diagnosed with COVID-19. Of them, 41,594 patients have died.

In Italy, 281,583 people have been infected with the disease. Of them, 35,577 people have died and 211,272 people have recovered.

In France, 344,101 people have been infected with the disease. Of them, 30,794 patients have died and 88,524 patients have recovered.

In Peru, 702,776 people have been infected in the disease. Of them, 30,236 have died and 536,959 have recovered.

In Spain, 543,379 patients have been diagnosed with coronavirus. Of them, 29,628 have died in the country.

In Iran, 393,425 people have been infected with coronavirus. Of them, 22,669 patients have died and 339,111 patients have recovered.

In Colombia, 686,856 people have been affected with coronavirus. Of them, 22,053 people have died and 552,885 people have recovered from the disease.

In Russia, 1,046,370 people have been infected in the disease. Of them, 18,263 have died and 862,373 have recovered.

In South Africa, 642,431 people have been infected from the disease. Of them, 15,168 people have died and 569,935 have recovered.

In Chile, 427,027 people have been affected with coronavirus. Of them, 11,702 people have died and 399,555 people have recovered from the disease.

In Ecuador, 112,166 people have been affected with Covid-19 disease. Of them, 10,701 patients have died and 91,242 people have recovered.

In Argentina, 543,379 people have been affected with Covid-19 disease. Of them, 10,658 patients have died and 382,490 people have recovered.

In Belgium, 89,691 people have been affected with coronavirus. Of them, 9,917 people have died and 18,635 people have recovered from the disease.

In Germany, 256,349 people have been affected with Covid-19 disease. Of them, 9,410 patients have died and 231,900 people have recovered.

In Canada, 134,294 people have been infected from the disease. Of them, 9,155 people have died and 118,271 have recovered.

In China, 85,153 people have been infected in the disease. Of them, 4,634 people have died and 80,358 have recovered.

In Bangladesh, 331,078 people have been infected with coronavirus. Of them, 4,593 people died and 230,804 patients have recovered.

The World Health Organization declared the coronavirus crisis a pandemic on March 11.

বীর মুক্তিযোদ্ধা ও ইউএনও’র উপর হামলার প্রতিবাদে শিবগঞ্জে মানববন্ধন


চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি:জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধা ওমর আলী শেখ ও তাঁর সন্তান ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহীঅফিসার   ওয়াহিদা   খানমের   উপর   বর্বরোচিত   হামলার   প্রতিবাদে   চাঁপাইনবাবগঞ্জের   শিবগঞ্জেমানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে মুক্তিযোদ্ধারা। বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডকাউন্সিলের উদ্যোগে শিবগঞ্জ ডাকবাংলোর সামনে ঘণ্টাব্যাপি চলা মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, জেলামুক্তিযোদ্ধা   কমান্ড   কাউন্সিলের   সাবেক   ডেপুটি   কমান্ডার   আবদুল   মান্নান,   উপজেলা   সাবেকডেপুটি   কমান্ডার   আবদুল   হামিদ,   উপজেলা   মুক্তিযোদ্ধার   সাবেক   কমান্ডার   বজলার   রশিদ   সনু,মুক্তিযোদ্ধা-সাংবাদিক তসলিম উদ্দীন ও উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা কাঞ্চন কুমার দাসসহঅন্যরা। বক্তারা- অবিলম্বে হামলার ঘটনার সাথে জড়িতদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমুলক শাস্তিরদাবি জানান। মানববন্ধনে বিভিন্ন ইউনিয়নের মুক্তিযোদ্ধা, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ড ও নারীদেরএতে অংশ নেন।