সর্বশেষ সংবাদ জাতিসংঘ পুরস্কার পেয়েছে ভূমি মন্ত্রণালয় দুই মিনিটে ঘরে বসেই সোনালী ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে প্রথমবার ঢাকাগামী স্পেশাল ম্যাংগো ট্রেনের যাত্রা শুরু ৭০ দিন পর সোনামসজিদে ভারতীয় ৮৫ পণ্যবাহী ট্রাক প্রবেশের মাধ্যমে আমদানি-রফতানি শুরু চাঁপাইনবাবগঞ্জে আনুষ্ঠানিকভাবে আম কেনা বেচার উদ্বোধন হলেও জমে ওঠেনি আমবাজার। চাঁপাইনবাবগঞ্জে বজ্রপাতে এক গৃহবধুর মৃত্যু ২৪ ঘণ্টায় করোনা ভাইরাসে মৃত্যু ৩৫ :শনাক্ত ২৪২৩ নাচোল খাদ্য গুদামে রাতে সাপাহার থেকে কৃষকের নামে গম ঢোকানোর চেষ্টা! বিশ্বের সমুদ্র সম্পদের টেকসই ব্যবস্থাপনায় প্রধানমন্ত্রীর ৩ প্রস্তাব দ্য গার্ডিয়ানে প্রকাশিত কলামের অনুবাদ – ঘূর্ণিঝড় ও করোনার সঙ্গে যুদ্ধ: মহামারীতেও কিভাবে আমরা লক্ষ মানুষকে নিরাপদ রেখেছি

প্রবাসী ও ছাত্রদের স্বল্প সুদে ঋণ দিতে ২৫০০ কোটি টাকা বরাদ্দ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে কর্মহীন হয়ে পড়া লোকজন এবং বিদেশ ফেরত জনগণ যাতে স্বল্প সুদে ঋণ নিয়ে ব্যবসা-বাণিজ্য করতে পারেন, সেজন্য, কর্মসংস্থান ব্যাংকে ২ হাজার কোটি এবং প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংকে ৫শ’ কোটি টাকা আমানত হিসেবে দেবে সরকার।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৪ই মে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হয়ে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে ৫০ লাখ পরিবারের প্রত্যেককে আড়াই হাজার করে টাকা নগদ অর্থ প্রদান উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রদত্ত ভাষণে এই ঘোষণা দেন।

একই অনুষ্ঠান থেকে তিনি অনলাইন মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে স্নাতক ও সমমান পর্যায়ের ২০১৯ সালের শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি ও টিউশন ফি বিতরণ কার্যক্রমের ও উদ্বোধন করেন।

এছাড়া, ঈদ ও রমজান উপলক্ষে দেশের সব মসজিদের ইমাম-মুয়াজ্জিনকে আর্থিক সহায়তার এবং একইসঙ্গে ঈদের আগে আরও ৭ হাজার কওমি মাদরাসাকে আর্থিক সহায়তা প্রদানের কথাও তিনি ঘোষণা করেন।

নগদ অর্থ সহায়তার জন্য সরকার ১ হাজার ২৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছে। প্রতি পরিবারে চারজন সদস্য ধরা হলে এই নগদ সহায়তায় উপকারভোগী হবে অন্তত দুই কোটি মানুষ। একইসঙ্গে অনলাইন মোবাইল ব্যাংকিং ব্যবস্থায় ২ লাখ ৯ হাজার ৬৭৪ জন শিক্ষার্থীর মাঝে প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা সহায়তা ট্রাস্ট থেকে উপবৃত্তি বাবদ ১০২ কোটি ৭৪ লাখ ২ হাজার ৬০০ টাকা এবং টিউশন ফি বাবদ ৮ কোটি ৬৬ লাখ ৪১ হাজার টাকা (প্রায়) বিতরন করা হয়।

উপকারভোগীদের তালিকায় রয়েছেন-রিকশাচালক, ভ্যানচালক, দিনমজুর, নির্মাণ শ্রমিক, কৃষিশ্রমিক, দোকানের কর্মচারী, ব্যক্তি উদ্যোগে পরিচালিত বিভিন্ন ব্যবসায় কর্মরত শ্রমিক, পোলট্রি খামারের শ্রমিক, বাস-ট্রাকের পরিবহন শ্রমিক ও হকারসহ করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে দেওয়া লকডাউন বা শারীরিক দূরত্ব নিশ্চিত করার কারণে ক্ষতিগ্রস্ত নি¤œআয়ের বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘কর্মসংস্থান ব্যাংকের ঋণ প্রদান বৃদ্ধি করার জন্য আরও ২ হাজার কোটি টাকার বিশেষ আমানত দেয়া হবে।’

তিনি বলেন, ‘যুবক শ্রেণীকে যাতে বেকার হয়ে ঘুরে না বেড়াতে হয় সেজন্য সেখান থেকে তারা ঋণ নিতে পারবে। নিজেরা ব্যবসা বাণিজ্য করতে পারবে।’

প্রবাসীদের বিষয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমাদের যারা প্রবাসী, তারা রেমিট্যান্স পাঠায়। তাদের যেন ঘরবাড়ি বিক্রি করে, ঋণ নিয়ে বিদেশে যেতে না হয়, তার জন্য প্রবাসী কল্যাণ নামে আরেকটি বিশেষায়িত ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। সেই ব্যাংকেও আমরা আরও টাকা দেব। সেখানে আমরা অতিরিক্ত ৫০০ কোটি টাকা দেব। এর আগে ওখানে আমরা প্রায় ৪০০ কোটি টাকা দিয়েছি।’

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘আপনারা জানেন, এখন প্রবাসে কাজের পরিধি সীমিত হয়ে গেছে। সেখানেও বহু মানুষ কাজ হারাচ্ছে এবং অনেকে দেশে ফিরে আসছে। তারা আমার দেশের নাগরিক। তারা ওখানে কষ্ট করুক সেটা আমি চাই না। তারা ফিরে আসলে ফিরে আসবে। কিন্তু এখানে এসে তারা যেন কাজ করে খেতে পারেন, তাদের সেই কর্মসংস্থানের ব্যবস্থাটা আমরা করে দিচ্ছি।’

শেখ হাসিনা বলেন, তিনি যখন প্রথমবার সরকারে আসেন তখন দেশের যুব সমাজের বেকারত্বের অভিশাপ দূর করার জন্যই এই কর্মসংস্থান ব্যাংক সৃষ্টি করেন। এ ব্যাংক থেকে শিক্ষিত হোক আর অশিক্ষিত হোক, যেকোনো যুবক বা তরুণ-তরুণী কোনো জামানত ছাড়াই স্বল্প সুদে দুই লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ নিতে পারেন।’ ‘এই ঋণ নিয়ে তারা একা ব্যবসা করতে পারেন অথবা বন্ধু-বান্ধব মিলে ব্যবসা করতে পারেন,’ যোগ করেন তিনি।

ভিডিও কনফারেন্সটি সঞ্চালনা করেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড.আহমদ কায়কাউস।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে সংযুক্ত হয়ে শিক্ষা মন্ত্রী ডা. দিপু মনি অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন। শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়া, গণভবন প্রান্তে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়, পিএমও এবং গণভবনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সে বরগুণা, শরিয়তপুর, সুনামগঞ্জ এবং লালমনিরহাটের উপকারভোগী জনগণের সঙ্গেও মতবিনিময় করেন।

এবারের করোনা পরিস্থিতিতে ইমাম-মুয়াজ্জিনদের কষ্টের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি মনে করি, আমাদের একটা দায়িত্ব আছে- আমি ইতোমধ্যে একটা তালিকা করতে বলে দিয়েছি- সকল মসজিদে ঈদ-রমজান উপলক্ষে আমি কিছু আর্থিক সহায়তা দেবো, সেই তালিকাটাও আমরা করে দিচ্ছি।’

দ্বিতীয় পর্যায়ে আরও ৭ হাজার কওমি মাদরাসাকে ঈদের আগে আর্থিক সহায়তা দেওয়া হবে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দ্বিতীয় পর্যায়ে আরও ৭ হাজার কওমি মাদরাসাকে ঈদের আগে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হবে। সেই পদক্ষেপও আমি নিয়েছি।

প্রথম পর্যায়ে বিভিন্ন কওমি মাদরাসায় সহায়তার কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের অনেক মাদরাসা রয়েছে যেখানে এতিমখানা আছে তাঁরা খুব একটা কষ্টের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছিল। তাঁদের কথা চিন্তা করে ইতোমধ্যে প্রায় ৬ হাজার ৮৬৫টি কওমি মাদরাসায়, যেখানে এতিমখানা আছে সেখানে আমরা আর্থিক সহায়তা দিয়েছি।
এখাতে সরকারের প্রায় ১০ কোটি টাকা ব্যয় হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, কোন মাদরাসায় কতজন এতিম আছে আমরা হিসাব নিয়েছি, সে হিসাব অনুযায়ী প্রত্যেক মাদরাসায় আমরা টাকা পাঠিয়ে দিয়েছি। এভাবে বিভিন্ন জায়গায় যারা এতিম-অসহায় যারাই আছে কোনো শ্রেণিই যেন অবহেলিত না থাকে। সেদিকে লক্ষ্য রেখে আমরা ব্যবস্থা নিয়েছি, যোগ করেন তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, প্রত্যেকটা জায়গায় মানুষের কষ্টটা দূর করা-এটাই আমাদের লক্ষ্য। আমরা সেটাই চাই। এত বেশি মানুষ, হয়তো অনেক বেশি দিতে পারবো না। কিন্তু, কিঞ্চিত পরিমাণ দিলেও যেন দিতে পারি, কেউ যেন বঞ্চিত না হয়।

ধান কাটায় কৃষকদের সাহায্য করায় ছাত্রলীগকে ধন্যবাদ জানিয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, ছাত্রলীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, আওয়ামী লীগ নেতারা ধান কাটায় সাহায্য করায় আজ সারা বাংলাদেশের কৃষকের গোলাভরা ধান।

শেখ হাসিনা বলেন, প্রচুর খাদ্যশস্য উৎপাদন হয়েছে। আল্লাহর রহমতে, অন্তত খাদ্যের কষ্ট হবে না। সেটা আমরা ব্যবস্থা করতে পারব। কিছু নগদ সাহায্য দেয়া একান্ত অপরিহার্য। আমরা সেটুকু ব্যবস্থা করছি।

তিনি বলেন, ‘সেইসঙ্গে যারা এখন বেকার আছেন, তারা কিছু কিছু কাজ করতে পারেন। যেখানে জমিজমা আছে একটা কিছু চাষাবাদ করা, একটু কাজ করা। নিজেও উদ্যোক্তা হয়ে একটু কাজ করেন। নিজে আর্থিকভাবে যেমন আপনারা দাঁড়াতে পারেন বিভিন্ন কাজ করে (এসব কাজ) দেশেরও সহায়তা হতে পারে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘ফসল তোলার সময় আমাদের যে সমস্যাটা ছিল, যোগাযোগ ব্যবস্থাটা বন্ধ। তারপর আমরা যখন উদ্যোগ নিলাম, আমাদের প্রশাসন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী পদক্ষেপ নিল। কিন্তু সেখানেও লোকবলের অভাব ছিল।

তিনি বলেন, ‘আমি প্রথমে আমাদের ছাত্রলীগকে আহ্বান জানালাম। যে যেখানে আছে, তাদের নিজের এলাকা-সব জায়গায় তাদের নামতে হবে এবং ধানকাটায় কৃষকের পাশে দাঁড়াতে হবে।’

‘মনে রাখতে হবে ধান থেকে চাল হয়। আর এ চাল থেকে কিন্তু ভাত হয়। আমাদের মূল খাদ্য। কাজেই সেই কাজ করতে লজ্জার কিছু নেই, তা গর্বের বিষয়। আমরা যেটা খেয়ে জীবন বাঁচাই, সেই জায়গায় শ্রম দেব না-এই দৈন্যতা যেন কারও মনে না থাকে’- যোগ করেন সরকারপ্রধান।

প্রধানমন্ত্রী এ সময় ‘এন-৯৫ ’ সম্পর্কেও কথা বলেন এবং এটি সাধারণের জন্য নয় বরং করোনা রোগীকে যারা সেবা প্রদান করবে তাঁদের পরিধানের জন্যই দেওয়া হচ্ছে বলে উল্লেখ করেন।

এছাড়া ঘরে সংক্রমণ মুক্ত পরিবেশে থাকলে তিনি মুখের পরিধেয় মাস্ক খুলে রাখার ওপরও গুরুত্বারোপ করেন।

বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদনে গেল পায়রা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র


ঢাকা: অবশেষে বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদন শুরু হলো কয়লাভিত্তিক পায়রা তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রথম ইউনিটে। এর মধ্য দিয়ে দেশের অন্যতম বড় একটি বিদ্যুৎকেন্দ্র বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদনে এলো। এতে জাতীয় গ্রিডে যোগ হলো আরও ৬৬০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ।বৃহস্পতিবার (১৪ মে) সন্ধ্যায় বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, উৎপাদনে যাওয়ার আগে সফলভাবে সকল পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে বাংলাদেশ-চায়না পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড (বিসিপিসিএল)-এর প্রথম ইউনিট থেকে ৬৬০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ বাণিজ্যিকভাবে জাতীয় গ্রিডে সরবরাহ করা হচ্ছে।বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, করোনাভাইরাসের মধ্যে এটি অনেক বড় একটি সুখবর। তিনি উৎপাদনের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ও বিসিপিসিএল-এর কার্যক্রমকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই আমরা প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী কাজ শেষ করতে পেরেছি। এতেই প্রমাণিত হয় উন্নয়নের গতিধারা থেমে নেই।

সরকার মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান নর্থ-ওয়েস্ট পাওয়ার জেনারেশন কোম্পানি লিমিটেড এবং চীনের ন্যাশনাল মেশিনারি পোর্ট অ্যান্ড ইম্পোর্ট কোম্পানি- সিএমসি যৌথ মালিকানায় পটুয়াখালী জেলার কলাপাড়ার পায়রাতে দু’টি কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ করা হচ্ছে। প্রতিটি কেন্দ্রে ৬৬০ মেগাওয়াট করে উৎপাদন ক্ষমতা রয়েছে। যার একটি উৎপাদন শুরু করলো। সব মিলিয়ে দেশের সবচেয়ে বড় কয়লাভিত্তিক এই বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে ১৩২০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপন্ন হবে।
এ কেন্দ্রটি আমদানি করা কয়লা দিয়ে চলবে। আগামী মাসে দ্বিতীয় ইউনিটও উৎপাদনে আসার কথা রয়েছে। এই কেন্দ্র থেকে উৎপাদিত বিদ্যুৎ প্রথমে যাবে গোপালগঞ্জে। তারপর সেখান থেকে দেশের অন্যান্য জেলায় বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হবে। আলট্রা সুপার ক্রিটিক্যাল প্রযুক্তিতে নির্মাণ করা হয়েছে পায়রা তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্র।

উল্লেখ্য, গত ১৩ জানুয়ারি পায়রা তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রথম ইউনিট পরীক্ষামূলকভাবে বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু করে।

মাদ্রাসা ছাত্রের লাশ উদ্ধারঃ অবশেষে অাটক হলো ২ জন

শিবগঞ্জে মাদরাসা ছাত্রের লাশ উদ্ধারের ২ ঘন্টার মধ্যে ২ জনকে অাটক করেছে জেলা ডিবি পুলিশ

জেলা পুলিশ জানায়, জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার নয়ালাভাঙ্গা থেকে এক মাদরাসা ছাত্রের লাশ উদ্ধারের ২ ঘন্টার মধ্যে পুলিশ সুপার এ এইচ এম আবদুর রকিব বিপিএম পিপিএম (বার) এর নির্দেশনায় ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মোহাম্মদ ইকবাল হোছাইন পিপিএম ও এসআই আবু আব্দুল্লাহ জাহিদ পিপিএম এর নেতৃত্বে বিকেল ৪ টার দিকে হত্যাকারী ২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃতরা হচ্ছে, শিবগঞ্জ উপজেলার সাবেক লাভাঙ্গা গ্রামের সাইদুলের ছেলে আকবর (২০) ও রাজ্জাকের ছেলে তুষার (১৮)।
সূত্র জানায়, প্রায় পনের দিন পূর্বে গ্রামে গুলি খেলা (মার্বেল) নিয়ে তাদের মধ্যে ঝগড়া হয়। আকবরের হেফাজত থেকে নিহত ছাত্রের ব্যবহৃত মোবাইল, সীম ও খুনের ঘটনায় ব্যবহৃত কোদাল উদ্ধার করা হয়।

এ ব্যাপারে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মোহাম্মদ ইকবাল হোছাইন পিপিএম জানান, এ ঘটনায় সম্পৃক্ততার অভিযোগে ২ জনকে অাটক করে জিজ্ঞাসাববাদ চলছে।

এর আগে চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার নয়ালাভাঙ্গা ইউনিয়নের ঘোড়ামারা মাঠের একটি আম বাগান থেকে মাটিতে পুঁতে রাখা অবস্থায় ৯ম শ্রেণির ঐ মাদরাসা ছাত্রের লাশ উদ্ধার করা হয়।

চাঁপাইনবাবগঞ্জে টিচার্স প্লাজার শিক্ষকদের উদ্যোগে বাড়িবাড়ি ঈদসামগ্রী বিতরণ

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সংবাদদাতা

চাঁপাইনবাবগঞ্জে তৃতীয় বারের মত টিচার্স প্লাজার পরিবারের পক্ষ থেকে দরিদ্র, গরীব, কর্মহীন দুস্থ ১০০টি বাড়িতে ঈদসামগ্রী বাড়িতে বাড়িতে পৌঁছে দেয়া হয়েছে।

শুক্রবার সকালে পৌর এলাকার বিভিন্ন এলাকায় এ সব ঈদসামগ্রী বিতরণ করা হয়। নবাবগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় (টাউন হাইস্কুল) এর সহকারি শিক্ষক ও চ্যাম্পিয়ন কারাতে-দো একাডেমী এর সহ-সভাপতি জনাব মোসা. নিলুফা ইয়াসমিন এর নিজস্ব উদ্যোগে এ সব সামগ্রী দেয়া হয়।

এ বিষয়ে নিলুফা ইয়াসমিন জানান, করোনা ভাইরাসের কারণে সারাদেশে মানুষ আজ অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছে। এমতাবস্থায় সমাজের হতদরিদ্র খেঁটে খাওয়া মানুষগুলো পড়েছে চরম বেকায়দায়। এ মানবিক দিক বিবেচনা করে সাধ্যমত খেঁটে খাওয়া দিনমজুর মানুষগুলির বাড়িতে বাড়িতে ঈদসামগ্রী বুদিয়া ২টা প্যাকেট, পাপড় ২প্যাকেট, চিনি ১কেজি, নুডুলস১টা, লাচ্চা সেমাই ১প্যাকেট, খিল সেমাই১প্যাকেট, সবান একটা, স্যাম্পু, জেট পৌঁছে দিয়েছি। সম্ভব হলে এ কার্যক্রম অব্যাহত রাখব।

৮০ কি.মি. বেগে আসছে ঝড়, সতর্কতা সংকেত জারি: ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড়ের মুখে বাংলাদেশ!

ডেস্ক

দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের উপর দিয়ে ঘণ্টায় ৬০ থেকে ৮০ কিলোমিটার বেগে বয়ে যেতে পারে ঝড়। তাই সব নদীবন্দরে ১ নম্বর দূরবর্তী সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

আবহওয়াবিদ মো. শাহীন হোসেন বলেন, দক্ষিণপূর্ব বঙ্গোপসাগরে সুস্পষ্ট লঘুচাপটি নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে। যদি নিম্নচাপটি শক্তি সঞ্চয় করে সাইক্লোনে রূপ নেয়, তবে এটির নাম হবে আমফান (amphan)। থাইল্যান্ড নামটি দিয়েছে। নিম্নচাপটি তৃতীয় পর্যায়ে রয়েছে। গভীর নিম্নচাপে পরিণত হবে শক্তি সঞ্চয় করলে। তারপরে ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হবে। আপাতত শক্তি সঞ্চয় হচ্ছে। আরও ঘণীভূত হতে পারে।

শুক্রবার (১৫ মে) দুপুর ১২টায় চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ৩৫০ কিলোমিটার (কিমি) দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ২৭৫ কিমি দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে, মোংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ৩৩৫ কিমি দক্ষিণে এবং পায়রা সমুদ্র বন্দর থেকে ১ হাজার ২৯০ কিমি দক্ষিণে অবস্থান করছিল। এটি আরও ঘণীভূত হয়ে উত্তরপশ্চিম দিকে অগ্রসর হতে পারে।

করোনায় পিছিয়ে গেল ৫০ হাজার বিয়ে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

করোনার কারণে স্কুল, কলেজসহ সব ধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ। অনেক জায়গায় উপাসনা বন্ধ, কোথাও বন্ধ ভ্রমণ। দেশগুলোর সরকার থেকে বার বার অপ্রয়োজনে বাইরে যাওয়ার জন্য বারণ করা হচ্ছে। এমন পরিস্থিতিতে আর যাই হোক বিয়ের অনুষ্ঠান হতে পারে না। আর তাই এরই মধ্যে ইটালিতে প্রায় ১৭ হাজার বিয়ের অনুষ্ঠান বাতিল করা হয়েছে৷ পাশাপাশি আগামী বিয়ের মওসুমের মাসগুলো নিয়ে এই সংখ্যা ধরা হচ্ছে ৫০ হাজার।

ইটালিতে বিয়ের অনুষ্ঠান বিশেষ করে দক্ষিণ ইটালিতে বেশ জাকজমকভাবে নিজস্ব সংস্কৃতিতে উদযাপন করা হয়ে থাকে আর থাকে একাধিক ইভেন্ট প্ল্যানার প্রতিষ্ঠান৷ রাইনিউজ বেতারের এক রিপোর্টে এসব তথ্য জানানো হয়৷বিদেশিদের বিয়ের অনুষ্ঠানও বাতিল করা হয়েছে৷ ঘটা করে বিয়ের অনুষ্ঠান উদযাপন করতে বহু বিদেশি দম্পতি ইটালিতে যান৷ যান বিভিন্ন দেশ থেকে অনেক সেলিব্রেটিও ৷ বিয়ের অনুষ্ঠান সম্পন্ন করতে নয় হাজার বিদেশি দম্পতি গত বছর ইটালি ভ্রমন করেছে বলে জানান এক বিবাহ ইভেন্ট প্রতিনিধি৷ অন্য অনেকের মতো তিনিও বিয়ের অনুষ্ঠান আবার শুরু করার জন্য কর্তৃপক্ষকে আহ্বান জানিয়েছেন৷ এই ইভেন্ট ম্যানেজারের মতে করোনার কারণে বিয়ের অনুষ্ঠান হতে পারে হোটেলের হলরুমের পরিবর্তে হোটেলের পার্কে এবং ৫০০ অতিথির পরিবর্তে আমন্ত্রিত হতে পারে ৩০০ অতিথি৷

করোনা সংকটে বর্তমানে বিয়ে সংক্রান্ত সব ব্যবসা বন্ধ৷ এই বছরের মডেলগুলি আগামী মওসুমে বা ২০২২ সালেও একইরকম সুন্দর থাকবে বলে নিজেকে প্রবোধ দিচ্ছেন বিয়ের জমকালো পোশাক দোকানের এক মালিক৷ আর ঠিক একইভাবে তিনি সমবেদনা জানাচ্ছেন বিয়ের অনুষ্ঠান বাতিল হওয়া, মন খারাপ করা ভবিষ্যত নববধুদেরও৷ সূত্র: ডয়চে ভেলে।

স্বাস্থ্যবিধি না মানায় রহনপুরে ৩ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা


গোমস্তাপুর(চঁাপাইনবাবগঞ্জ)প্রতিনিধি ঃ চঁাপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুরে করোনা
পরিস্থিতিতে সরকারী নির্দেশনা ও স্বাস্থ্যবিধি অমান্য করে বিভিন্ন মার্কেট খোলা রাখায় ৩
টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমান আদালত। শুক্রবার জেলা
প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট চন্দন কর রহনপুর স্টেশন বাজারে ২টি ও পুরাতন বাজারে ১ টি
ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে আর্থিক জরিমানা করেন। এদিকে বৃহস্পতিবার দুপুরে জনসমাগম
আশংকাজনক ভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় স্বাস্থ্যঝুকি এড়াতে অনিদিষ্টকালের জন্য দোকানপাট বন্ধ
করেছে গোমস্তাপুর থানা পুলিশ। তারপরও শুক্রবার সকালে উভয় মার্কেটের অনেক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান
খোলা রাখা হয়। নিবার্হী ম্যাজিস্ট্রে্রটের নেতৃত্বে পুলিশ মার্কেট গুলোতে প্রবেশ করলে
সাময়িক দোকানপাট বন্ধ রাখা হয়। পরে তারা চলে গেলে পুনরায় দোকান পাট খুলে দেওয়া হয়।
এভাবে দোকানীরা চোর-পুলিশ খেলায় মেতে উঠেছে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জে ‘এরফান গ্রুপ’র উদ্যোগে তৃতীয় দিনের মত ঈদ সামগ্রী বিতরণ


চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ দেশের অন্যতম ও জেলার শীর্ষ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ‘এরফান গ্রুপ’ এর উদ্যোগে করোনা ভাইরাসে সংকটময় সময়ে রমজান ও ঈদ উপলক্ষে সদর উপজেলার ১৪টি ইউনিয়ন ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার ১৫টি ওয়ার্ডে ৬০ লক্ষ টাকার ১২ হাজার মানুষের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ কার্যক্রমের তৃতীয় দিনের মত ঈদ সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ সভাপতি ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আহবানে সাড়া দিয়ে সকল দূর্যোগ সময়ে অসহায়, দুঃস্থ মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহবানে ‘এরফান গ্রুপ’ নিজস্ব অর্থায়নে এসব খাদ্য ও বস্ত্র সামগ্রী বিতরণ চালিয়ে যাচ্ছে। শুকবার সকালে চাঁপাইনবাবগঞ্জ শহরের রেহাইচর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে কর্মহীন ও অসহায় নারী পুরুষের হাতে ঈদ সামগ্রীগুলো তুলে দেন ‘এরফান গ্রুপ’র চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক, চাঁপাইনবাবগঞ্জ চেম্বারের সভাপতি, ‘দৈনিক চাঁপাই দর্পণ’ এর প্রধান উপদেষ্টা, পৌর আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আলহাজ্ব মো. এরফান আলী।
এসময় উপস্থিত ছিলেন সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মো. আজিজুর রহমান জেলা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শহীদুল হুদা অলক, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আরিফুর রেজা ইমন, সাধারণ সম্পাদক ডা. সাঈফ জামান আনন্দ, রাজশাহী জেলার মহিলা নেত্রী শাহনাজ মুক্তা, সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড সভাপতি মো. মুসাহাক আলী মাস্টার, সহ-সভাপতি মো. আমির হোসেন, সাধারণ সম্পাদক মো. আলাউদ্দিন, সিনিয়র সহ সম্পাদক মো. আফজাল হোসেন, স্থানীয় মো. আবুল কালাম আজাদ, শফিকুল ইসলাম, চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ‘এরফান গ্রুপ’র ত্রান সহায়তা কার্যক্রমের সমন্বয়ক নাসরুম মিনাল্লাহ, আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দসহ ছাত্রলীগের কর্মীরা ও ‘এরফান গ্রুপ’র চেয়ারম্যানের পিএস মো. তানভির আহমেদ তনয়, রাজিব আহমেদ, মো. মজিবুর রহমানসহ বিভিন্নস্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী। খাদ্য সামগ্রী বিতরণের শুরুতে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করনীয় বিষয়ে পরামর্শ দেন বক্তারা। শুক্রবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার ১৩, ১৪, ১৫ নম্বর ওয়ার্ডে প্রতিটি ওয়ার্ডে ৩’শ জন করে মোট ৯’শ পরিবারে প্রতিটি প্যাকেটে কাপড়, আটা, চিনি, সেমাই, তেল দেয়া হয়।
পৌরসভার ১৪ নম্বর ওয়ার্ডের পোলাডাঙ্গা ক্লাব চত্বরে ঈদ সামগ্রী বিতরণকালে ‘এরফান গ্রুপ’র চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক আলহাজ্ব মো. এরফান আলীর সাথে ছিলেন অন্যান্য অতিথিগণসহ সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ সভাপতি মো. আকরাম আলী, সাধারণ সম্পাদক মো. আবুল হান্নান, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. মুসাসহ আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা।
পৌরসভার ১৫ নম্বর ওয়ার্ডের নবাবগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ঈদ সামগ্রী বিতরণকালে ‘এরফান গ্রুপ’র চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক আলহাজ্ব মো. এরফান আলীর সাথে ছিলেন অন্যান্য অতিথিগণসহ সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড সভাপতি জুসুম আলী, সাধারণ সম্পাদক মো. শাখাওয়াত হোসেনসহ আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা।
পর্যায়ক্রমে ‘এরফান গ্রুপ’র নিজ অর্থায়নে ৬০ লক্ষ টাকা ব্যয়ে ১২ হাজার প্যাকেট ঈদ সামগ্রী চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার ১৫টি ওয়ার্ড ও সদর উপজেলার ১৪ ইউনিয়নে কর্মহীন ও অসহায় মানুষের মাঝে এসব সামগ্রী বিতরণ কার্যক্রম চলমান রয়েছে বলে জানিয়েছে ‘এরফান গ্রুপ’ কর্তৃপক্ষ। আগামীকাল ১৬ মে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার বালিয়াডাঙ্গা, গোবরাতলা ও ঝিলিম ইউনিয়নে ‘এরফান গ্রুপ’র ঈদ সামগ্রী বিতরন করা হবে। উল্লেখ্য, করোনা ভাইরাস সংকময় সময়ে এর আগে ১ এপিল থেকে টানা ১০ দিনব্যাপী চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার ১৫টি ওয়ার্ড ও সদর উপজেলার ১৪ ইউনিয়নে কর্মহীন ও অসহায় মানুষের মাঝে ‘এরফান গ্রুপ’র নিজ অর্থায়নে ৫০ লক্ষ টাকা ব্যয়ে ১১ হাজার পরিবারের মাঝে চাল, আলু, ডাল বিতরণ করে ‘এরফান গ্রুপ’। এছাড়াও ‘এরফান গ্রুপ’র চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক আলহাজ্ব মো. এরফান আলীর আন্তরিকতায় বছর জুড়েই জেলার অসহায়, দুঃস্থ ও হতদরিদ্র মানুষ, কঠিন রোগে আক্রান্তদের চিকিৎসা সহায়তা, বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে আর্থিক সহায়তাসহ বিভিন্ন সহায়তা কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে ‘এরফান গ্রুপ’।

চাঁপাইনবাবগঞ্জে নরসুন্দর এর মাঝে প্রধানমন্ত্রীর উপহার খাদ্য সামগ্রী বিতরণ


নিজস্ব প্রতিবেদক, চাঁপাইনবাবগঞ্জ : করোনা ভাইরাসের পরিস্থিতিতে সারা দেশের ন্যায় চাঁপাইনবাবগঞ্জেও বন্ধ রয়েছে সবকিছু। দোকান, হাট, বাজার বন্ধ থাকায় কর্মহীন হয়ে পড়েছে মানুষ। সে সব মানুষের পাশে শুরু থেকে সাহায্য সহযোগিতা করে চলেছে জেলা প্রশাসনসহ বিভিন্ন ব্যক্তি প্রতিষ্ঠান। বিভিন্ন  শ্রেণি পেশার মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হচ্ছে। 
এরই প্রেক্ষিতে শুক্রবার দুপুর ১২ টার দিকে পৌর এলাকার পুরাতন স্টেডিয়ামে ৫০ জন নাপিত (নরসুন্দর) এর মাঝে  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার চাল, ডাল, তেল, আলু, লবণ) তুলে দেয়া হয়েছে। 
এসব সামগ্রী তুলে দেন সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট মো. আলমগীর হোসেন। 
এ সময় তিনি বলেন, যারা মানুষকে পরিপাটি হতে সাহায্য করে তাদের মধ্য হতে ৫০ জন নরসুন্দর যারা বিভিন্ন ইউনিয়ন ও পৌরসভায় বাস করে  তাদের হাতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার তুলে দিলাম।

শিবগঞ্জে নিখোঁজের চারদিন পর মাদ্রাসা ছাত্রের লাশ উদ্ধার

শিবগঞ্জ(চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধি:

চাঁপইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে নিখোঁজের চার দিন পর নাজিম উদ্দীন (১৫) নামের এক মাদ্রাসা ছাত্রের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহত নাজিম একই উপজেলার নয়ালাভাঙ্গা ইউনিয়নের সাবেক লাভাঙ্গা গ্রামের শফিকুল ইসলামের ছেলে। সে ঐ এলাকার একটি মাদ্রাসার ৯ম শ্রেণির ছাত্র ছিল।
চাঁপাইনবাবগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (নবাবগঞ্জ সার্কেল) মো. ইকবাল হোছাইন জানান, নিহত নাজিম গত ১১ মে নিখোঁজ হয়। আজ (১৫ মে) দুপুরে স্থানীয়দের মারফত খবর পেয়ে পুলিশ ওই গ্রামের ঘোড়ামারা মাঠের একটি আম বাগান হতে মাটিতে পুঁতে রাখা অবস্থায় নাজিমের লাশ উদ্ধার করে। লাশের ময়না তদন্তের জন্য চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত: গত ১১ মে নাজিম উদ্দীন তারাবির নামাজ পড়তে বাড়ী হতে বের হয়ে আর ফিরে না আসায় তার পিতা সফিকুল ইসলাম ১৩মে শিবগঞ্জ থানায় একটি সাধারন ডায়েরী করেন। এরপর পুলিশ বিভিন্নস্থানে অনুসন্ধান চালিয়েও এ ঘটনার কোন ক্লু উদ্ধার বা এ ঘটনার সাথে কেউ যুক্ত কিনা তা বের করতে পারেনি। পরে শুক্রবার বিকেলে ৪ টার দিকে ষÍানীয়দের মাধ্যমে খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে।