সর্বশেষ সংবাদ গোমস্তাপুরে মামার বাড়ি বেড়াতে এসে নদীতে ডুবে শিশুর মৃত্যু: উদ্ধার ২ চাঁপাইনাবগঞ্জে র শিবগঞ্জ ও গোমস্তাপুরে নতুন তিন করোনা রোগী সনাক্ত করোনাভাইরাস: ঢাকা শহরে ১৪ হাজার কোভিড-১৯ রোগী, সবচেয়ে বেশি মহাখালীতে এতিম শিশুদের পাশে মানিক শিশুকালের ঈদ বিনোদপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক মরহুম ওবায়দুর রহমান রেনু মাস্টারের জানাযা সম্পন্ন চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুরে ঘূর্ণিঝড়ে লণ্ডভণ্ড দুটি গ্রাম চাপাইনবাবগঞ্জে উদযাপিত হলো পবিত্র ঈদুল ফিতর: জেনে নিন কারা কোথায় ঈদ উদযাপন করলো ঈদের নামাজ পড়ানোর সময় সেজদারত অবস্থায় ইমামের মৃত্যু ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত শনাক্ত ১৯৭৫ , মৃত্যু আরও ২১ জনের।

রেমিটেন্স পাঠালে তাৎক্ষণিক নগদ সহায়তা

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে প্রবাসী আয়ে (রেমিট্যান্স) মন্দা দূর করতে যাচাই ছাড়া আয় আনার পরিমাণ বাড়িয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এর ফলে প্রবাসীদের পাঠানো ৫ হাজার ডলার বা ৫ লাখ টাকা আয় কোনো যাচাই–বাছাই ছাড়া ২ শতাংশ নগদ সহায়তা পাবে। আগে দেড় লাখ টাকা পর্যন্ত আয়ে কোনো যাচাই–বাছাই ছাড়া নগদ সহায়তা দিয়ে আসছিল সরকার। বাংলাদেশ ব্যাংক আজ এ নিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে।এতে বলা হয়েছে, প্রবাসী আয় গ্রহণকারীদের বৈধ উপায়ে রেমিট্যান্স প্রেরণের বিপরীতে দেড় লাখ টাকার বেশি আয়ের ক্ষেত্রে ১৫ দিনের মধ্যে কাগজপত্র রেমিট্যান্স প্রদানকারী ব্যাংক শাখায় দাখিল করতে হয়। বর্তমানে সার্বিক অবস্থায় গ্রাহকের সুবিধা বিবেচনা করে প্রতিবারে সর্বোচ্চ ৫ হাজার ডলার অথবা ৫ লাখ টাকা পর্যন্ত অর্থ প্রেরণের জন্য কাগজপত্র ছাড়াই প্রণোদনা সুবিধা প্রযোজ্য হবে। এর বেশি আয় এলে ১৫ দিনের মধ্যে নথিপত্র দাখিল করার বাধ্যবাধকতা শিথিল করে ২ মাস পর্যন্ত বর্ধিত করা হলো। এ সুবিধা আগামী ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত বহাল থাকবে।

এর ফলে যেকোনো পরিমাণ আয় এলে ২ মাস পর্যন্ত সময় নিয়ে ব্যাংক শাখায় নথিপত্র দাখিল করা যাবে।

বৈধ পথে প্রবাসী আয় বাড়াতে চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে ২ শতাংশ হারে প্রণোদনা ঘোষণা করে সরকার। সেই অনুযায়ী, ১ জুলাই থেকে প্রবাসীরা প্রতি ১০০ টাকার বিপরীতে ২ টাকা প্রণোদনা পাচ্ছেন। বাজেটে এ জন্য ৩ হাজার ৬০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়। এর ফলে প্রবাসী আয় আসা বেড়ে গিয়েছিল। এখন তাতে আঘাত করেছে করোনাভাইরাস।

করোনাভাইরাসের প্রকোপের কারণে অনেক দেশেই লকডাউন চলছে। এর মধ্যেও দেশের বাইরে থাকা বাংলাদেশিরা আয় (রেমিট্যান্স) পাঠানো অব্যাহত রেখেছেন। গত এপ্রিলে প্রবাসীরা ১০৮ কোটি ১০ লাখ ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন, যার পরিমাণ বাংলাদেশি টাকায় ৯ হাজার ১৮৮ কোটি টাকা।

সারা দেশের ব্যাংক শাখা, এজেন্ট ব্যাংকিং, মোবাইলে আর্থিক সেবা (এমএফএস) ও এনজিওদের মাধ্যমে তা পৌঁছে যাচ্ছে সুবিধাভোগীদের কাছে। গত মার্চের পুরো সময়ে এসেছিল ১২৮ কোটি ৬৮ লাখ ডলার ও গত বছরের এপ্রিলে এসেছিল ১৪৩ কোটি ৪০ লাখ ডলার। সে হিসাবে আয় কমেছে, তবে ডলার পাঠানো অব্যাহত রেখেছেন প্রবাসীরা, বিশেষত শ্রমিকেরা। বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে প্রবাসী আয়ের এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

মোবারকপুর ইউপি চেয়ারম্যানের ছেলে ও তার ২ বন্ধু ফেনসিডিলসহ আটক



স্টাফ রিপোর্টারঃ
চাঁপাইনবাবগঞ্জের সদর উপজেলার বাগডাঙ্গা থেকে ফেনসিডিল সহ ৩ জনকে আটক করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন শিবগঞ্জ উপজেলার মোবারকপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তৌহিদুর রহমান মিঞার ছেলে ওদুদূর রহমান রনি (৩০) ও তার দুই বন্ধু।
জেলা গোয়েন্দা পুলিশের উপ-পরিদর্শক আবু আব্দুল্লা জাহিদ জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মঙ্গলবার (১২ মে) ভোর তিনটার দিকে, সুন্দরপুর ইউনিয়নের বাগডাঙ্গা পাকা রাস্তার উপর থেকে ৮৩ বোতল ফেনসিডিল সহ রনিকে আটক করে গোয়েন্দা পুলিশের একটি অভিযানের দল। এসময় তার সাাথে থাকা কানসাট কাঠগড়ের গোলাম আহমেদের ছেলে নোমান আলি (২৬) ও কানসাট কাগজিপাড়ার কালুর ছেলে মাসুম আলি (২০) কেউ গ্রেপ্তার করে ডিবিির ওই দল টি।
তিনি আরো জানান,দুপুরে মাদকদ্রব্য আইনে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে আটককৃতদের।

যে ব্যায়ামে ভালো থাকে ফুসফুস

লাইফস্টাইল ডেস্ক

করোনায় আক্রান্ত রোগীদের আতঙ্কিত হওয়ার মতো উপসর্গটি হচ্ছে শ্বাসকষ্ট। নিয়মিত কিছু ব্যায়াম ও চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে চললে করোনায় আক্রান্ত হওয়া থেকে নিজেকে মুক্ত রাখা যায়। পাশাপাশি কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হলেও ভালো ফল পাওয়া যায় ব্যায়ামে।

আমেরিকার ভার্জিনিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা সামনে এনেছেন এ ধরনের তথ্য। তাদের গবেষণা বলছে, অ্যাকিউট রেসপিরেটরি ডিসট্রেস সিনড্রোম বা এআরডিএস দূর করতে বা অন্তত কম করতে শারীরিক কসরতের বিকল্প নেই।

করোনা আক্রান্তদের মধ্যে ৩-১৭ শতাংশের চূড়ান্ত শ্বাসকষ্ট দেখা যাচ্ছে। ইউএস সেন্টার্স ফর ডিসট্রেস কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন বলছে, ২০ থেকে ৪২ শতাংশ করোনা রোগী হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পর শ্বাসকষ্টে আক্রান্ত হন। আইসিইউ-এর ক্ষেত্রে এই শতাংশ ৬৭-৮৫-র মধ্যে। আর এই রোগীদের মধ্যে ৪৫ শতাংশ বাঁচবেন না, বলছে গবেষণা।

দ্রুত হাঁটা ও সাঁতার কাটার মতো শারীরিক ব্যায়াম যেমন হার্টের স্বাস্থ্য উন্নত করে, তেমনি শ্বাস ব্যায়ামে ফুসফুসগুলো আরো কার্যকরভাবে কাজ করতে পারে।

চলুন জেনে নেই এমন কিছু ব্যায়ামের পদ্ধতি-

পার্সড লিপ ব্রিদিং

এ শ্বাস ব্যায়াম বায়ুপথগুলো দীর্ঘক্ষণ উন্মুক্ত রাখতে পারে, যার ফলে ফুসফুসে বায়ু চলাচল সহজতর হয়। যেভাবে পার্সড লিপ ব্রিদিং করবেন:

১) সোজা হয়ে বসে নাক দিয়ে ধীরে, নিয়ন্ত্রিতভাবে গভীর শ্বাস টানুন।

২) একটি ঠোঁটকে অপর ঠোঁটের সঙ্গে ভালোভাবে চেপে রাখুন, কিন্তু মাঝখানে একটু ফাঁক রাখুন। এটাকে বলে পার্সড লিপস।

৩) পার্সড লিপসের মধ্যদিয়ে ধীরে ধীরে শ্বাস ছাড়ুন। আদর্শগতভাবে, শ্বাস ছাড়ার ধীরতা শ্বাস গ্রহণের দ্বিগুণ হওয়া উচিত।

সময়ের ওপর খেয়াল রেখে কিছু লোক দারুণ উপকার পেতে পারেন। উদাহরণ স্বরূপ, ৫ সেকেন্ডে শ্বাস টেনে ১০ সেকেন্ডে শ্বাসত্যাগ। সময় দেখতে সামনে একটা ঘড়ি রাখুন। যারা শারীরিক সক্রিয়তায় তেমন যুক্ত থাকেন না অথবা শ্বাসপ্রশ্বাসের পেশিকে ঘনঘন ব্যায়াম করান না তারা পার্সড লিপ ব্রিদিং থেকে বিশেষ উপকার পেতে পারেন।

বেলি ব্রিদিং

আমেরিকান লাং অ্যাসোসিয়েশনের এ ব্যায়াম ফুসফুস প্রসারণ ও সংকোচনে উন্নয়ন ঘটাতে পারে। বেলি ব্রিদিং নির্দিষ্টভাবে ডায়াফ্রাম পেশিকে শক্তিশালী করে তোলে, যা একজন মানুষকে গভীর শ্বাস নিতে সমর্থ করে। যেভাবে বেলি ব্রিদিং করবেন:

১) পাকস্থলির ওপর একটি হাত রাখুন ও অপর হাতকে রাখুন বুকের ওপর।

২) ধীরে ধীরে নাক দিয়ে শ্বাস গ্রহণ করুন এবং পেট প্রসারিত হচ্ছে কিনা খেয়াল করুন।এসময় বুক প্রসারিত হবে না। মুখ দিয়ে শ্বাস ছেড়ে দিন।

৩) আবারও নাকের মাধ্যমে শ্বাস টানুন। কিন্তু এবার পেটের প্রসারণ যেন পূর্বের চেয়ে বেশি হয়।

৪) আবারও মুখ দিয়ে শ্বাস ছাড়ুন।এবারের শ্বাসত্যাগের সময়টা যেন পূর্বের চেয়ে দুই-তিনগুণ বেশি হয়।

ফুসফুসের কার্যক্রম বাড়াতে প্রতিদিন প্রায় ৫-১০ মিনিট বেলি ব্রিদিং ও পার্সড লিপ ব্রিদিং চর্চা করুন।

ফুসফুসের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় পরামর্শ

ব্যায়ামে ফুসফুসের ক্ষতি কাটিয়ে ওঠা যায় না, কিন্তু ফুসফুসের কার্যক্ষমতা বাড়ানো যেতে পারে। ফুসফুসের সুরক্ষায় কিছু করণীয় হচ্ছে:

ধূমপান থেকে বিরত থাকা, প্রচুর পানি পান করা ও শারীরিক সক্রিয়তায় যুক্ত থাকা। আপনার দৈনন্দিন কাজের সময় শ্বাসকষ্ট, শ্বাসক্রিয়ার সময় ব্যথা ও দীর্ঘদিন বিদ্যমান কাশির মতো ফুসফুসীয় অসুস্থতার উপসর্গ থাকলে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া উচিত। ফুসফুস সমস্যার চিকিৎসা যত তাড়াতাড়ি শুরু করবেন তত বেশি ফল পাবেন।

গ্রামীণফোনের পর এবার রবির ফ্রি মিনিটের ঘোষণা

ডেস্ক

করোনাঅইরাসে স্পেশাল অফার দিয়েছে গ্রামীণফোন। এর ধারাবাহিকতায় গ্রাহকদেরকে ১০ কোটি মিনিট ভয়েস কল ফ্রি দেওয়ার ঘোষণা দেয় গ্রমীণফোন। এর পরপরই মাত্র দু’দিনের মাথায় রবি ১৩ কোটি মিনিট ফ্রি অফার নিয়ে হাজির হয়েছে।

শুক্রবার (৮ মে) গ্রামীণফোন এক কোটি গ্রাহকের জন্যে ১০ কোটি মিনিট করে ফ্রি দেওয়ার ঘোষণা দেয়। আর রোববার (১০ মে) রবি তাদের এক কোটি ৩০ লাখ গ্রাহকের জন্যে নিয়ে আসে ১৩ কোটি মিনিট ফ্রি অফার।

বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন থেকে জানাযায়, ফেব্রুয়ারি মাসের শেষে গ্রামীণফোনের কার্যকর সংযোগ ছিল সাত কোটি ৬৮ লাখ, আর রবি’র সংযোগ আছে চার কোটি ৯০ লাখ।

এদিকে ছোট অপারেটররা অভিযোগ করেছেন, বছরের প্রথম প্রান্তিকে গ্রামীণফোন এক শতাংশ মার্কেট শেয়ার হারিয়েছে। এ সময় তাদের গ্রাহক অনেকটাই কমে গেছে। আর সেটি ফিরে পেতেই তারা প্রাইস ওয়ারের মতো কৌশল নিয়ে থাকতে পারে।

ফ্রি ভয়েস কল অফারের সঙ্গে সঙ্গে রবি আবার ৫০ এমবি করে ডেটা ফ্রি দেওয়ার ঘোষণাও তাদের ভেরিফাইড ফেসবুক পেইজে দিয়েছে। তিন দিন মেয়াদের অফারটি গ্রহণ করতে গ্রাহককে ডায়াল করতে হবে 21210# নম্বরে। অথবা রবি’র My Robi অ্যাপ থেকেও অফারটি গ্রহণ করা যাবে।

‘ঘরে থাকুন, নিরাপদে থাকুন। আপনার পাশে আছে রবি’ এই স্লোগান যুক্ত অফারটি একজন গ্রাহক কেবল একবারই উপভোগ করতে পারবেন বলেও ঘোষণায় উল্লেখ করা আছে।

সংশ্লিষ্টরা জনায়, পারস্পরিক এই ঘোষণার মাধ্যমে আসলে দেশের টেলিকম খাতে আরেকটা প্রাইস ওয়ার শুরু হয়ে গেল। তারা বলছেন, ডেটার ক্ষেত্রে কোনো বাধা না থাকলেও ভয়েস কল ফ্রি দেওয়ার বিধান নেই। তারপরও কীভাবে এটি করা হচ্ছে সে বিষয়ে জবাব নেই খোদ বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) কাছেও।

বিটিআরসির কেউ কেউ বলেন, করোনার প্রাথমিক পর্যায়ে রবিসহ আরও কয়েকটি অপারেটর ফ্রি ডেটা এবং ভয়েস কল মিনিট দেওয়ার প্রস্তাব করেছিল। কিন্তু বিটিআরসি সেটি আমলে নেয়নি।

আর শুক্রবার গ্রামীণফোন ঘোষণাটি দেওয়ার পর রবি এবং বাংলালিংক আপত্তি জানালে টেলিকম মন্ত্রী মোস্তফা জব্বার তাদেরকে জানান, চাইলে তারাও একই অফার দিতে পারে। এখন আইন-বিধির চেয়েও মানুষের প্রয়োজনকে বড় করে দেখতে হবে বলেও জানান মন্ত্রী।

মন্ত্রীর এমন বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতেই রবি তাদের অফারটি নিয়ে হাজির হয় বলে জানা গেছে।

আইসিইউতেই পুড়ে মরলেন ৫ করোনা রোগী

ডেস্ক

হাসপাতালের আইসিইউতে ভয়াবগ অগ্নিকাণ্ডে অন্তত পাঁচ করোনা রোগী পুড়ে মারা গেছেন। আজ মঙ্গলবার (১২ মে) রাশিয়ার সেন্ট পিটার্সবার্গের একটি হাসপাতালে স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে ৬টার দিকে পিটার্সবার্গের সেন্ট জর্জ হাসপাতালে এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

রুশ সংবাদমাধ্যমগুলো বলছে, আইসিইউর ভেন্টিলেটরের শর্ট সার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে। দেশটির ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা আগুন নিয়ন্ত্রণে এনেছেন।

দেশটির এমারজেন্সি মন্ত্রণালয় বলছে, আগুনের সূত্রপাত হওয়ার পর হাসপাতালটি থেকে ১৫০ জন করোনা রোগীকে নিরাপদে উদ্ধার করা হয়। তবে এতে কতজন আহত হয়েছেন তা এখনও পরিষ্কার নয় বলে জানিয়েছে বিবিসি।

হাসপাতালটিতে আগুনে পুড়ে যারা মারা গেছেন তাদের সবাই আইসিইউতে ভেন্টিলেটরে ছিলেন। সেন্ট পিটার্সবার্গের এমারজেন্সি বিভাগের একটি সূত্র রুশ সংবাদসংস্থা ইন্টারফ্যাক্সকে বলেছে, ভেন্টিলেটরগুলো সর্বোচ্চ সীমার মধ্যে থেকে কাজ করছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, অতিরিক্ত চাপের কারণে ভেন্টিলেটরে আগুন ধরেছে। এটাই ছিল কারণ।

রাশিয়ায় এমন একসময় করোনা হাসপাতালে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটল, যখন দেশটি ধীরে ধীরে লকডাউনের বিধি-নিষেধ শিথিলের পথে হাঁটছে। দেশটির নির্মাণ, কৃষি ও কারখানার শ্রমিকরা কাজে ফিরতে শুরু করেছেন।

এই মুহূর্তে বিশ্বে করোনা সংক্রমণে তৃতীয় অবস্থানে আছে রাশিয়া। সোমবারও দেশটিতে রেকর্ড ১১ হাজার ৬৫৬ জনকে করোনা সংক্রমিত হিসেবে শনাক্ত করা হয়েছে। এ নিয়ে দেশটিতে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২ লাখ ২১ হাজার ৩৪৪ জনে এবং মারা গেছেন প্রায় দুই হাজারের বেশি মানুষ।

যারা পাচ্ছেন সরকারি নগদ ২৫০০ টাকা নগদ, রকেট , শিওরক্যাশ ও বিকাশে

করোনাভাইরাসের কারণে সারাদেশের ক্ষতিগ্রস্ত ৫০ লাখ দরিদ্র পরিবারকে এককালীন আড়াই হাজার টাকা করে দেয়ার জন্য এক হাজার ২৫৭ কোটি টাকা ছাড় করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়।

সোমবার অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগের দুই শাখা থেকে এ অর্থ ছাড় করা হয়েছে। আগামী ১৪ মে এ টাকা দেয়ার কার্যক্রম প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্বোধন করার কথা রয়েছে। বিতরণ শুরু হওয়ার পর চলবে ঈদুল ফিতরের আগ পর্যন্ত। অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা বলেন, ‘৫০ লাখ পরিবারকে নগদ আড়াই হাজার টাকা করে দেয়ার জন্য আজ সোমবার মোট এক হাজার ২৫৭ কোটি ছাড় করা হয়েছে। এ কার্যক্রমটা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে দেখভাল করা হচ্ছে। তাই প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অনুকূলে অর্থ বিভাগ এ টাকা ছাড় করেছে। অর্থ বিভাগের বাজেট-১ শাখা থেকে ছাড় করা হয়েছে ৬২৭ কোটি টাকা, আর বাজেট-৩ শাখা থেকে ছাড় করা হয়েছে ৬৩০ কোটি টাকা। এসব টাকা সুবিধাভোগীদের মোবাইল ব্যাংক অ্যাকাউন্টে পাঠানোর জন্য সার্ভিস চার্জ বাবদ ছাড় করা হয়েছে আরও সাত কোটি টাকা।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে অর্থ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মো. হাবিবুর রহমন বলেন, ‘আজকে অর্থছাড় করা হয়েছে। আগমী ১৪ তারিখ প্রধামন্ত্রী উদ্বোধনের পর ১০ লাখ পরিবারকে এ অর্থ দেয়া হবে। এর পরবর্তী চার দিন ৪০ লাখ পরিবারকে এ অর্থ দেয়া হবে।

সরকারের এ উদ্যোগের কথা জানিয়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী এনামুর রহমান গত শনিবার সাংবাদিকদের বলেন, করোনাভাইরাসের কারণে যেসব পরিবার বিপদে পড়েছে, তাদের মধ্য থেকে ৫০ লাখ পরিবারের একটি তালিকা করা হয়েছে। সেসব পরিবারকে আড়াই হাজার টাকা করে দেয়া হবে। ঈদের আগে টাকাটা তাদের কাজে লাগবে। গ্রাম-শহর নির্বিশেষে এ টাকা দেয়া হবে।

জানা গেছে, উদ্যোগটির সঙ্গে জড়িত প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় এবং তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি বিভাগ। আর পরিবার চিহ্নিত করা হয়েছে স্থানীয় সরকার অর্থাৎ জেলা প্রশাসন, উপজেলা প্রশাসন ও ইউনিয়ন পরিষদের সাহায্যে। তালিকায় রিকশাচালক, ভ্যানচালক, দিনমজুর, নির্মাণ শ্রমিক, কৃষি শ্রমিক, দোকানের কর্মচারী, ব্যক্তি উদ্যোগে পরিচালিত বিভিন্ন ব্যবসায় কর্মরত শ্রমিক, পোলট্রি খামারের শ্রমিক, বাস-ট্রাকসহ পরিবহন শ্রমিক, হকারসহ নানা পেশার মানুষকে রাখা হয়েছে।

তালিকা করার প্রক্রিয়া নিয়ে জানতে চাইলে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক হায়াত খান জানান, তার জেলায় নগদ টাকা পাবে ৭৫ হাজার পরিবার। আর তালিকা করার কাজটি করেছে একটি কমিটি। ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান, সদস্য, সমাজের গণমান্য ব্যক্তি ও প্রশাসনের ব্যক্তিদের সমন্বয়ে গঠিত এ কমিটি প্রায় এক মাস ধরে তালিকাটি তৈরির কাজে যুক্ত ছিল। একইভাবে পৌরসভা পর্যায়ে ওয়ার্ডভিত্তিক কমিটি কাজ করেছে।

অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, পরিবারগুলোকে টাকা দেয়া হবে মূলত মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসের (এমএফএস) মাধ্যমে। এর মধ্যে রয়েছে বিকাশ, রকেট, নগদ এবং শিওরক্যাশ। অর্থাৎ নগদ সহায়তা হলেও কাউকে নগদে টাকা দেয়া হবে না। এ ক্ষেত্রে এমএফএসে বড় আকারের ভর্তুকি দিতে হচ্ছে সরকারকে। টাকা পৌঁছানোর জন্য এমএফএসগুলো পাবে প্রতি হাজারে মাত্র ছয় টাকা। হাজারে ছয় টাকা হিসাবেই পৌঁছানোর মোট খরচ দাঁড়ায় সাড়ে সাত কোটি টাকা। এ টাকা সরকার বহন করবে। পরিবারগুলোর কোনো টাকা দিতে হবে না। এ কারণে খরচের জন্য আলাদাভাবে সাত কোটি টাকা ছাড় করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়।

মোট ৫০ লাখ পরিবারের কাছে টাকা পাঠানোর কাজের মধ্যে বিকাশের ভাগে রয়েছে ১৫ লাখের দায়িত্ব। সবচেয়ে বেশি ১৭ লাখ পরিবারের কাছে টাকা পাঠাবে নগদ। বাকি ১৮ লাখ পরিবারের কাছে এ টাকা পৌঁছাবে রকেট ও শিওরক্যাশ।

৬ জুন থেকে একাদশে ভর্তি শুরু

ডেস্ক : চলতি মাসের শেষের দিকে প্রকাশিত হবে এসএসসি ও সমমানের ফল। সে লক্ষ্যে সাধারণ ছুটির মধ্যেও কাজ করে যাচ্ছে শিক্ষা বোর্ডগুলো। ঈদের ঠিক আগে বা পরে এ ফলাফল প্রকাশের চেষ্টা করা হচ্ছে। ফলাফল প্রকাশের পর ৬ জুন থেকে অনলাইনে একাদশে ভর্তি কার্যক্রম শুরু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে শিক্ষা বোর্ডগুলো।

আন্তঃশিক্ষাবোর্ড সভাপতি ও ঢাকা শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মু. জিয়াউল হক বলেন, ‘সাধারণ ছুটি ঘোষণার পর প্রধান পরীক্ষকরা ওএমআর শিট নিয়ে বোর্ডে আসতে পারছিলেন না। এতে ফলাফল প্রকাশের কাজ আটকে ছিল। তবে পোস্ট অফিসগুলো খোলার পর ১০ মে’র মধ্যে ওএমআর শিট ডাকযোগে পাঠাতে নির্দেশনা প্রদান করা হয়। ৯০ শতাংশ ওএমআর বোর্ডে চলে এসেছে। এগুলো স্ক্যান করতে করতে বাকিগুলোও চলে আসবে।’

তিনি বলেন, আমরা চলতি মাসেই ফল প্রকাশের লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছি। আর এসএসসির ফল প্রকাশের পরপরই দ্রুততার সঙ্গে আগামী মাসেই অনলাইনে একাদশে ভর্তি কার্যক্রম শুরু করব আমরা।’

শিক্ষাবোর্ড সূত্রে জানা গেছে, অন্যান্য বছরের মতো এবার ফল প্রকাশে তেমন কোনো আনুষ্ঠানিকতা থাকবে না। শিক্ষার্থীদেরও প্রতিষ্ঠানে গিয়ে ফল জানার সুযোগ থাকবে না। এমনকি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে ঘটা করে যে সংবাদ সম্মেলন করে তা-ও করা হবে না। শিক্ষার্থীদের ফল জানতে হবে মূলত এসএমএস এবং শিক্ষাবোর্ডগুলোর ওয়েবসাইটের মাধ্যমে। ফল প্রকাশের আগেই শিক্ষার্থীদের এসএমএসের মাধ্যমে রেজিস্ট্রেশন করারও সুযোগ থাকবে। এই রেজিস্ট্রেশন যারা করে রাখবে, তাদের মোবাইলে ফল প্রকাশের পরপর স্বয়ংক্রিয়ভাবে ফলাফল পৌঁছে যাবে।

সূত্র আরও জানায়, আগামী ৬ জুন থেকে শুরু হতে যাচ্ছে ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের অনলাইনে একাদশ শ্রেণির ভর্তি কার্যক্রম। ২৪ জুলাই পর্যন্ত চলবে এ কার্যক্রম। ১৬ আগস্ট থেকে একাদশ শ্রেণির ক্লাস শুরু করার চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে। এতে প্রথম ধাপের ভর্তি আবেদন আগামী ৬ থেকে ১৬ জুন পর্যন্ত গ্রহণ করা হবে।

২৩ থেকে ২৭ জুন যাচাই-বাছাই, আপত্তি ও নিষ্পত্তি কার্যক্রম চলবে। ৫ জুলাই প্রথম ধাপের ফল প্রকাশ করা হবে। তবে পুনঃনিরীক্ষায় এসএসসি পরীক্ষার ফল পরিবর্তনকারীদের প্রথম ধাপে আবেদন করার সুযোগ দেয়া হবে।

দ্বিতীয় ধাপের আবেদন ১৪ জুলাই শুরু হয়ে চলবে ১৭ জুলাই পর্যন্ত। একই দিন রাত ৮টার পর এ ধাপের ফল প্রকাশ করা হবে। তৃতীয় ধাপের আবেদন ২২ জুলাই শুরু হয়ে চলবে ২৪ জুলাই পর্যন্ত। ২৪ জুলাই রাত ৮টার পর এ ধাপের ফল প্রকাশ করা হবে।

এ বিষয়ে ঢাকা শিক্ষাবোর্ডের কলেজ পরিদর্শক অধ্যাপক হারুন আর রশিদ মঙ্গলবার বলেন, ‘চলতি মাসে এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশের পর আগামী ৬ জুন থেকে ২৪ জুলাই পর্যন্ত অনলাইনে একদশ শ্রেণির ভর্তি কার্যক্রম শেষ করা হবে। এ বছর মোবাইল এমএমএসের মাধ্যমে আবেদন প্রক্রিয়া বাতিল করে শুধু অনলাইনে করা হবে।’

তিনি বলেন, ‘যেহেতু করোনা পরিস্থিতির কারণে সেপ্টেম্বরের আগে ক্লাস শুরু করা সম্ভব নয় বলে ধারণ করা হচ্ছে, সেহেতু ১৬ আগস্ট ক্লাস শুরুর সময় নির্ণয় করে আগামী ৬ জুন থেকে ২৪ জুলাই পর্যন্ত একাদশ শ্রেণির ভর্তি কার্যক্রম চলবে। আগের মতো ১ মাস ২০ দিন পর্যন্ত কলেজ ভর্তি কার্যক্রম চালানো হবে। তবে এবার পুনঃনিরীক্ষার ফলাফল ৩০ দিনের বদলে পাঁচদিন আগে প্রকাশ করা হবে।’

চাঁপাইনবাবগঞ্জের রহনপুরে জনসেবা ক্লিনিকের আবারো ভূল :জীবিত কে মৃত ঘোষণা


চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি: চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুর উপজেলার রহনপুরে জনসেবা ক্লিনিকে আবারো ভ’ল রির্পোট।এবার মায়ের গর্ভের জীবিত সন্তান কে মৃত বলে রির্পোট দিয়ে গর্ভপাত করানোর পরামর্শ।এর আগে ২ দফা ভ’ল চিকিৎসার কারনে রোগীর মৃত্যুর অভিযোগ রয়েছে ক্লিনিকটির বিরুদ্ধে।
জানা গেছে, উপজেলার রহনপুরে অবস্থিত জনসেবা ক্লিনিক ও ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের আল্ট্রাসোনেগ্রাফির ভূল রিপোর্টের কারনে গর্ভের সন্তান হারাতে বসেছিলেন এক প্রসূতি। বৃহস্পতিবার( ৭ মে) উপজেলার আলীনগর ইউনিয়নের মকরমপুর ঘুন্টি এলাকার মোস্তাক আলীর প্রায় ৫ মাসের অন্তঃসত্তা স্ত্রী ফেরদৌসি বেগম (৩৫) তার সন্তানের অবস্থা জানতে ওই ক্লিনিকের চিকিৎসক মোজাম্মেল হকের কাছে আল্ট্রাসোনেগ্রাফি করেন। রিপোর্টে তার সন্তানকে মৃত দেখানো হয় এবং তাকে ডিএনসি(গর্ভপাত) করার পরামর্শ দেয়া হয়। রিপোর্ট নিয়ে তাদের সন্দেহ হলে তারা পরের দিন শুক্রবার(৮মে) রহনপুর জেনারেল হাসপাতাল ও আলমদিনা ক্লিনিকে পুনরায় দুদফা আল্ট্রাসোনেগ্রাফি করেন। পরীক্ষায় তাদের সন্তান জীবিত ও সুস্থ রয়েছে বলে দুটি রিপোর্টেই বলা হয়। ভূল রিপোর্ট দেয়া প্রসঙ্গে সংশ্লিষ্ট চিকিৎসক ডা. মোজাম্মেল হকের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি তার দেয়া রিপোর্টের বিষয়ে ভূল স্বীকার করেন। এ ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।
উল্লেখ্য এর আগে গত ১১ এপ্রিল রাতে ওই ক্লিনিকে ভুল চিকিৎসায় এক প্রসূতির এবং গত বছর একই কারনে এক রোগীর মৃত্যু হয়। এদিকে একই ক্লিনিকে একই চিকিৎসক বার বার ভূল চিকিৎসা অব্যাহত রাখলেও তার বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এখনও কোন ব্যবস্থা গ্রহন না করায় তা নিয়ে জনমনে প্রশ্ন উঠেছে।

প্রণোদনা প্যাকেজ থেকে সহজে ঋণ পাবে গ্রাহক

বাংলাদেশ ব্যাংকের ইন্টারনাল ক্রেডিট রিস্ক রেটিং নীতিমালার শর্ত পূরণ না করেও এখন ঋণ আবেদন করতে পারবেন গ্রাহক। এর মাধ্যমে সরকার ঘোষিত প্রণোদনা প্যাকেজ থেকে ঋণ নেয়ার প্রক্রিয়া আরো সহজ করলো কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

রোববার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ব্যাংকিং প্রবিধি ও নীতি বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত নীতিমালা জারি করা হয়েছে।

করোনাভাইরাসের কারণে দাপ্তরিক কার্যক্রম সীমিত হয়ে পড়ায় আইসিআরআর কার্যক্রম ব্যাহত ও গ্রাহকের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সরবরাহে বিঘ্ন সৃষ্টি হওয়ায় এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

এতে বলা হয়, এই দুর্যোগ অবস্থায় শিল্প ও সেবা খাতের কার্যক্রম দ্রুত চালু করার জন্য প্রণোদনা প্যাকেজের ঋণ সুবিধা দিতে আইসিআরআর সম্পন্ন না করেও ব্যাংক ঋণ দিতে পারবে।

তবে প্রতিটি ব্যাংক বর্তমান নিজস্ব নীতিমালার আওতায় ঋণ ঝুঁকি বিশ্লেষণের মাধ্যমে ব্যাংকার-গ্রাহক সম্পর্কের ভিত্তিতে গ্রাহক নির্বাচন করবে। এক্ষেত্রে সার্কুলারের সঙ্গে সংযুক্ত একটি ফরম পূরণ করতে হবে প্রতিটি গ্রাহককে।

শিবগঞ্জের অস্ত্র চোরাকারবারী গোমস্তাপুরে গ্রেফতার

প্রতিনিধি:

চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুরে শিবগঞ্জের এক অস্ত্র চোরাকারবারী ২ টি আগ্নেয়াস্ত্র সহ র‌্যাবের অভিযানে গ্রেফতার হয়েছে।

মঙ্গলবার (১২ মে) সকালে তাকে হেলিপ্যাড এলাকা থেকে গ্রেফতার করে র‌্যাব-৫ এর চাঁপাইনবাবগঞ্জ ক্যাম্পের একটি আভিযানিক দল।
গ্রেফতারকৃত ব্যক্তি জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার শাহবাজপুর ইউনিয়নের আজমতপুর গ্রামের মৃত আবুল হোসেনের ছেলে মজিবুর রহমান। এ সময় তার কাছ থেকে ২টি বিদেশী পিস্তল,৪টি ম্যাগজিন এবং ১২ রাউন্ড গুলি জব্দ করা হয়।
মঙ্গলবার দুপুর দেড় টার দিকে র‌্যাবের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গোমস্তাপুর উপজেলার হেলিপ্যাড এলাকায় অভিযান চালিয়ে গ্রেফতারকৃত মজিবুর কে তল্লাশি করে তার কাছ থেকে আগ্নেয়াস্ত্র গুলো উদ্ধার করা হয়।প্রাথমিক জিঞ্জাসাবাদে সে অস্ত্র চোরাচালানের সাথে যুক্ত থাকার কথা স্বীকার করায় এ ব্যাপারে অস্ত্র আইনে গোমস্তাপুর থানায় মামলা করেছে র‌্যাব।