সর্বশেষ সংবাদ দেশীয় পণ্য উৎপাদন ও ব্যবহার বৃদ্ধির আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর সেনাবাহিনীর টহলে ফাঁকা ভোলাহাট এবার ভোলাহাটে ২৫ যুবককে রোদে দাঁড় করিয়ে শাস্তি দিলো সেনাবাহিনী করোনা ভাইরাস সন্দেহে গোমস্তাপুরে ১ মহিলাসহ ২ জনের নমুনা সংগ্রহ দায়িত্ব নিয়ে প্যাকেজ ঘোষণা করেছি, কেউ অপব্যবহার করবেন না এপ্রিলের বেতন ৩০ এপ্রিলেই পাবেন পোশাক শ্রমিকরা করোনা: চাঁপাইনবাবগঞ্জে ১০ জনের নমুনা সংগ্রহ স্বাস্থ্য বিভাগের:কোন বাড়ি লকডাউন করা হয়নি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে নাটকের শুটিং জার্মানির দুই লাখ মাস্ক ‘কেড়ে নিয়েছে’ যুক্তরাষ্ট্র বরিস জনসনের হবু স্ত্রী করোনায় আক্রান্ত

বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টে চাতরা চ্যাম্পিয়ন

নিজস্ব প্রতিবেদক, শিবগঞ্জ

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী ও মুজিব বর্ষ উদযাপন উপলক্ষে শ্যামপুরে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টেরফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শুক্রবার বিকেলে চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার শ্যামপুর ইউসি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে শ্যামপুর যুব সংঘ আয়োজিত ফাইনাল খেলায় চাতরাফুটবল দল ও শ্যামপুর যুব সংঘ ফুটবল দল অংশ নেয়। শ্যামপুর যুব সংঘের সভাপতি আলহাজ্ব রুহুলআমিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ (শিবগঞ্জ)আসানের সংসদ সদস্য ও নৌ-পরিবহণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ডা.সামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুল। সাবেক ছাত্রলীগ নেতা সাইফুল ইসলামের সঞ্চালনায় অন্যদের মধ্যেবক্তৃতা করেন শ্যামপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আসাদুজ্জামান ভোদন, দাইপুখুরিয়াইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আজমুল হক বাদশা, মোবারকপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগেরসাধারণ সম্পাদক রবিউল ইসলাম রবি, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম, বিশিষ্টসমাজসেবক আনোয়ার হোসেন আনু মিঞাসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিরা।

খেলার মাঠে দুই দলই সমান সমান থাকায়

ট্রাইবেকারে ৪-৬ গোলেশ্যামপুর যুব সংঘ দলকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয় চাতরা ফুটবল দল। খেলা শেষে পুরস্কার বিতরণীঅনুষ্ঠানে শ্যামপুর যুব সংঘের পক্ষ থেকে সংসদ সদস্যকে সম্মাননা স্মারক তুলে দেন সংঘেরসভাপতি। এরপর চ্যাম্পিয়ন ও রানারআপ দলকে প্রাইজমানিসহ ট্রফি তুলে দেন প্রধান অতিথি।মো. আতিক

মহাকাশে সূর্য গবেষণায় প্রথম সৌর অরবিটর পাঠাল নাসা

এই প্রথম মহাকাশে সূর্য গবেষণায় প্রথম সৌর অরবিটর পাঠাল নাসা ।মহাকাশ থেকে সূর্যের মেরুগুলির ছবি তুলে পৃথিবীতে পাঠাতে পারবে এই মহাকাশযান। নাসা এবং ইএসএ (ইউরোপিয়ান স্পেস এজেন্সি)-র যৌথ উদ্যোগে উৎক্ষেপণ হল প্রথম সৌর অরবিটার।

ইউরোপীয় সময় রাত ১১টা ৩ মিনিটে ফ্লোরিডার কেপ ক্যানাভেরাল এয়ার ফোর্স স্টেশন থেকে লঞ্চ কমপ্লেক্স ৪১ থেকে ইউনাইটেড লঞ্চ অ্যালায়েন্স অ্যাটলাস ভি রকেটটি উৎক্ষেপণ করা হয়। উৎক্ষেপণের পরের দিন সোমবার সকাল ১২টা ১২ মিনিটে জার্মানির ডারমস্টাডেটের ইউরোপীয় স্পেস অপারেশনস সেন্টারের মহাকাশ বিজ্ঞানীরা মহাকাশযান থেকে একটি সঙ্কেত পেয়েছেন। তাঁরা জানিয়েছেন, সোলার অরবিটারের সৌর প্যানেলগুলি সফল ভাবে প্রতিস্থাপিত হয়েছে।ইএসএ-র ডিরেক্টর মহাকাশবিজ্ঞানী গুন্থার হেসিঙ্গার বলেছেন, ‘‘পৃথিবীতে প্রাণের জন্য সূর্যের গুরুত্ব কতটা, মানুষ হিসেবে তা আমরা জানি, এটাকে পর্যবেক্ষণ করি এবং কী ভাবে কাজ করে চলেছে, তা নিয়ে নিরন্তর পরীক্ষানিরীক্ষা করে চলেছি।আবার আমরা এটাও জানি যে, একটা সৌরঝড় আমাদের দৈনন্দিন জীবনের কাজকর্ম ব্যাহত করতে পারে।’’ নাসা জানিয়েছে, উৎক্ষেপণের পরে প্রথম দু’দিন সৌর অরবিটার কয়েকটি অ্যান্টেনা স্থাপন করবে যা পৃথিবীর সঙ্গে যোগাযোগ করবে। তার পর শুরু হবে তথ্য সংগ্রহ এবং পৃথিবীতে পাঠানোর কাজ। সোলার অরবিটার একটি অনন্য কক্ষপথে রয়েছে, যেখান থেকে সূর্যের মেরুগুলির ছবি তুলে পাঠাতে পারবে। এই কক্ষপথে সূর্যের কাছাকাছি মোট ২২টি অবস্থান পড়বে। বুধের কক্ষপথের মধ্যে থেকে সূর্য এবং পৃথিবীতে তার প্রভাব

আমরা যেভাবে ই-পাসপোর্ট পাবো: খরচটাও জেনে নিন



প্রথমে রাজধানীর আগারগাঁও, উত্তরা ও যাত্রাবাড়ী পাসপোর্ট অফিসে ই-পাসপোর্টের কার্যক্রম শুরু হবে। পর্যায়ক্রমে ২০২০ সালের মধ্যে সারাদেশে চালু হবে এই পাসপোর্ট সেবা। প্রতিদিন প্রায় ২৫ হাজার ই-পাসপোর্ট ইস্যু করা হবে।
.
.
.
নতুন প্রযুক্তির এই পাসপোর্টের জন্য যেভাবে আবেদন করবেন:
.
অনলাইনে আবেদন ফরম পূরণ করে সাবমিট করতে হবে নতুন পাসপোর্টের জন্য। সেক্ষেত্রে আগেই ব্যাংকের অনলাইন মাধ্যমে টাকা জমা দিয়ে ব্যাংক থেকে সরবরাহ করা রেফারেল নম্বর কোডটি ব্যবহার করতে হবে অনলাইন আবেদন ফরমে। আবার কেউ চাইলে ডেবিট ও ক্রেডিট কার্ড দিয়েও পাসপোর্ট ফি জমা দিতে পারবেন। প্রয়োজনীয় তথ্য পূরণ করে সাবমিট করার পর প্রিন্টেড কপি নিতে হবে। সেই কপি স্ব-শরীরে গিয়ে পাসপোর্ট অফিসে জমা দিতে হবে। আবেদন ফরমে ছবি সত্যায়িত করা না লাগলেও পুলিশ ভেরিফিকেশন লাগবে।
.
অনলাইনে পূরণ না করে PDF ফরম ডাউনলোড করে হাতেও পূরণ করা যাবে। ফরম পূরণের সময় ছবি সত্যায়ন করতে হবে না। তবে বয়স্কদের ক্ষেত্রে জাতীয় পরিচয়পত্র ও অপ্রাপ্তবয়স্কদের ক্ষেত্রে জন্মনিবন্ধন সনদ দাখিল বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।
.
আবেদনপত্র জমা দেওয়ার সময় ই-পাসপোর্টের জন্য ডেমোগ্রাফিক তথ্য, ১০ আঙুলের ছাপ, চোখের কর্নিয়ার ছবি ও ডিজিটাল সই সংগ্রহ করবে পাসপোর্ট অফিস। এসব তথ্য যাচাই-বাছাইয়ের মাধ্যমে কেন্দ্রীয় ডাটা সেন্টার ও ডিজ্যাস্টার রিকভারি সেন্টারের সার্ভারে সংরক্ষণ করা হবে। পাশাপাশি পাসপোর্টের আবেদনকারীদের পাসপোর্ট দেওয়ার জন্য পার্সোনালাইজেশন সেন্টারে পাসপোর্ট প্রিন্টিংয়ের পর আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস ও দূতাবাসগুলোয় পাসপোর্ট বিতরণ করা হবে। সব তথ্য চিপে যুক্ত থাকবে। ইমিগ্রেশন পুলিশ বিশেষ যন্ত্রের সামনে পাসপোর্টের পাতাটি ধরতেই সব তথ্য বেরিয়ে আসবে।
.
.
.
কত টাকা ও কত দিনে হাতে পাবো ই-পাসপোর্ট?
.
নিম্নোক্ত হারে পাসপোর্ট ফি প্রযোজ্য হবে (ভ্যাটসহ) :
৫ বছর মেয়াদী ৪৮ পাতার পাসপোর্ট বইঃ
সাধারণ (২১ কর্মদিবস), ৪০২৫/- টাকা
জরুরী (১০ কর্মদিবস) ৬৩২৫/- টাকা
অতি-জরুরী (২ কর্মদিবস) ৮৬২৫/- টাকা
.
১০ বছর মেয়াদী ৪৮ পাতার পাসপোর্ট বইঃ
সাধারণ (২১ কর্মদিবস), ৫,৭৫০/- টাকা
জরুরী (১০ কর্মদিবস) ৮,০৫০/- টাকা
অতি-জরুরী (২ কর্মদিবস) ১০,৩৫০/- টাকা
.
৫ বছর মেয়াদী ৬৪ পাতার পাসপোর্ট বইঃ
সাধারণ (২১ কর্মদিবস), ৬৩২৫/- টাকা
জরুরী (১০ কর্মদিবস) ৮৬২৫/- টাকা
.
অতি-জরুরী (২ কর্মদিবস) ১২০৭৫/- টাকা
.
১০ বছর মেয়াদী ৬৪ পাতার পাসপোর্ট বইঃ
সাধারণ (২১ কর্মদিবস), ৮,০৫০/- টাকা
জরুরী (১০ কর্মদিবস) ১০,৩৫০/- টাকা
অতি-জরুরী (২ কর্মদিবস) ১৩,৮০০/- টাকা
.
তবে পুরনো অথবা মেয়াদোত্তীর্ণ পাসপোর্ট রি-ইস্যু করার ক্ষেত্রে অতি জরুরি পাসপোর্ট দু’দিনে, জরুরি পাসপোর্ট তিন দিনে ও সাধারণ পাসপোর্ট সাত দিনের মধ্যে পাওয়া যাবে।

বি.দ্র:ছবিতে বর্ণিত টাকার পরিমান ভ্যাট ছাড়া এবং উপরে বর্ণিত টাকার পরিমান ভ্যাটসহ।

তথ্যসূত্রঃ WAB

ভ্যালেন্টাইন’স ডে কী এবং কীভাবে এটির উদযাপন শুরু হয়েছিল?

সেন্ট ভ্যালেন্টাইন’স ডে বা ভালোবাসা দিবস প্রতি বছর ১৪ই ফেব্রুয়ারি পালিত হয়।এটি সেই দিন যখন একজন মানুষ আরেকজনের প্রতি তার ভালবাসা প্রকাশ করতে ভালোবাসার বার্তাসহ কার্ড, ফুল বা চকলেট পাঠিয়ে থাকে।

কে ছিলেন সেন্ট ভ্যালেন্টাইন?

একজন বিখ্যাত সেইন্ট বা ধর্ম যাজকের নাম থেকে দিনটি এমন নাম পেয়েছে। তবে তিনি কে ছিলেন – তা নিয়ে বিভিন্ন গল্প রয়েছে।সেন্ট ভ্যালেন্টাইন সম্পর্কে জনপ্রিয় বিশ্বাস হল তিনি খ্রিস্টীয় তৃতীয় শতাব্দীতে রোমের একজন পুরোহিত ছিলেন।সম্রাট দ্বিতীয় ক্লডিয়াস বিবাহ নিষিদ্ধ করেছিলেন। কারণ তার মনে হয়েছিল, বিবাহিত পুরুষরা খারাপ সৈন্য হয়ে থাকে।কিন্তু ভ্যালেন্টাইন মনে করেছেন, এটি অন্যায়। তাই তিনি নিয়মগুলো ভেঙ্গে গোপনে বিয়ের ব্যবস্থা করেন।ক্লডিয়াস যখন এই খবর জানতে পারেন, তখন তার আদেশে ভ্যালেন্টাইনকে কারাগারে নিক্ষেপ করা হয় এবং মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়।কারাগারে থাকা অবস্থায় ভ্যালেন্টাইন কারা প্রধানের মেয়ের প্রেমে পড়েন। ১৪ই ফেব্রুয়ারি যখন তাকে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের জন্য নিয়ে যাওয়া হয়, তখন ভ্যালেন্টাইন ওই মেয়েটির উদ্দেশ্যে একটি প্রেমপত্র পাঠিয়ে যান।

যেখানে লেখা ছিল, “তোমার ভ্যালেন্টাইনের পক্ষ থেকে”।