সর্বশেষ সংবাদ PM Hasina mourns death of Diego Maradona মেঘ কাটলেই বাড়বে শীত, তেঁতুলিয়ায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা করোনায় ঝরে গেল আরও এক বাংলাদেশি তারকার প্রাণ চাঁপাইনবাবগঞ্জে র‍্যাবের অভিযানে ৮ জুয়াড়ি গ্রেফতার গোমস্তাপুরে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন বিষয়ক সেমিনার তথ্য-প্রযুক্তির ব্যবহারে বাংলাদেশ বিশ্বে অনুকরণীয় ভ্যাকসিন পেতে সরকারের ৭৩৫ কোটি টাকা ছাড় নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের বাজার সহনীয় রাখতে অারও যে সব পণ্য কেনা হবে সোনা মসজিদ স্থলবন্দরে মতবিনিময় সভা ও সহায়তা প্রদান ম্যারাডোনার মরদেহের ময়নাতদন্ত হবে
Large Add

মালয়েশিয়ায় এবার ৪০০ কুমির রপ্তানি হবে

৪০০ কুমির রপ্তানি করবে বাংলাদেশ। এসব কুমির যাবে মালয়েশিয়ায়। রপ্তানি করে এক বছরে এক খামার থেকে আয় হবে প্রায় আড়াই শ কোটি টাকা। দক্ষিণ এশিয়ার দ্বিতীয় বৃহত্তম কুমিরের খামারটি পার্বত্য চট্টগ্রামের বান্দরবান জেলায়। বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম মৌজার ২৫ একর পাহাড়ি জমিতে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান এ খামার গড়ে তোলে ২০০৮ সালে। বাণিজ্যিকভাবে সেখানে কুমিরের চাষ শুরু হয় ২০১০ সালে। কুমিরের এ খামারটি নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা থেকে ৪৫ কিলোমিটার দূরে কক্সবাজার-টেকনাফ সড়কের কাছাকাছি ঘুমধুম পাহাড়ি এলাকার তুমব্রু গ্রামে অবস্থিত। এ গ্রামটি মিয়ানমার সীমান্তের একেবারে কাছে। খামারের পাহাড় থেকে দেখা যায় মিয়ানমারও। বর্তমানে ওই খামারে কাজ করছেন দুজন প্রকল্প কর্মকর্তার অধীনে ২০ জন কর্মচারী। আসছে ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহের মধ্যেই এ ওয়াইল্ড লাইফ ফার্ম থেকে ৪ শতাধিক কুমির মালয়েশিয়ায় রপ্তানি হতে যাচ্ছে।

এ বিষয়ে রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর উপপরিচালক রবীন্দ্র ঘোষ বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, কুমির রপ্তানি আশার আলো দেখাচ্ছে। এ খাত এগিয়ে নিতে কাজ করছে সরকার।

২০১০ সালের আগস্টে অস্ট্রেলিয়া ও মালয়েশিয়া থেকে ৫০টি অস্ট্রেলীয় প্রজাতির কুমির আনা হয়। এর একেকটির দাম পড়ে ৩ লাখ টাকা। পরে নাইক্ষ্যংছড়ির ওই খামারের উন্মুক্ত জলাশয়ে সেগুলো ছাড়া হয়। এর মধ্যে মারা যায় ৪টি কুমির। ৪৬টি সুস্থ কুমিরের মধ্যে পরে স্ত্রী কুমিরের সংখ্যা দাঁড়ায় ৩১ ও পুরুষ ১৫-তে। সেই ৪৬টি কুমির থেকে নাইক্ষ্যংছড়ির ওয়াইল্ড লাইফ ফার্মে বর্তমানে বাচ্চাসহ ছোট-বড় কুমিরের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩ হাজার ৪০০-তে। খামারে উন্মুক্ত জলাশয় ও খাঁচার ভিতর- দুই ভাবেই কুমির রাখা হয়েছে। প্রাণিবিজ্ঞানীদের মতে, এসব কুমির প্রায় ১০০ বছর বাঁচে। প্রাপ্তবয়স্ক হতে একেকটি কুমিরের লাগে ৮ থেকে ১২ বছর। প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার পর তারা হাঁস-মুরগির মতো ডিম দেয়। তবে কুমিরের ডিমের আকৃতি রাজহাঁসের মতো বড়। এরা ডিম দেয় সাধারণত বর্ষাকালে। ২০ থেকে ৮০টি করে ডিম দেয় একেকটি প্রাপ্তবয়স্ক স্ত্রী কুমির। ৩২ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় ৮০ থেকে ৮৬ দিনেই ডিম থেকে কুমিরছানারা চোখ ফুটে বের হয়। এ খামারে কুমিরের বাচ্চা ফোটানো হয় ইনকিউবেটরে। ডিম ফোটার সঙ্গে সঙ্গেই বাচ্চাদের সংগ্রহ করে আরেকটি ইনকিউবেটরে রাখা হয়। কারণ বাচ্চাগুলোর নাভি থেকে কুসুম ছাড়তে লাগে ৭২ ঘণ্টা। এরপর শিশু কুমিরদের নার্সারিতে নিয়ে ৩২ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় রাখা হয়। জন্মের সময় একটি কুমির প্রায় ১২ ইঞ্চি লম্বা হয়। দুই বছর বয়স হওয়ার পর বাচ্চা কুমিরগুলোকে আকারভেদে পুকুরে স্থানান্তর করা হয়। রপ্তানির জন্য তৈরি এসব কুমির গড়ে ৫ ফুট লম্বা। এগুলোর ওজন ২০ থেকে ২৫ কেজি। চামড়া ছাড়াও কুমিরের প্রতি কেজি মাংস ৩০ ডলারে বিক্রি হয় বিদেশে। ১২ ডলারে বিক্রি হয় ১ বর্গ সেন্টিমিটার চামড়া। কুমির রপ্তানি থেকে বছরে কমপক্ষে আড়াই শ কোটি টাকা আয়ের সম্ভাবনা দেখছে প্রতিষ্ঠানটি। কুমিরের চামড়া বেশ দামি। এ চামড়া দিয়ে ব্যাগ, জুতাসহ অনেক দামি জিনিস তৈরি করা হয়। এ ছাড়া কুমিরের মাংস, হাড়, দাঁতও দামি। কুমিরের হাড় থেকে তৈরি হয় পারফিউম, দাঁত থেকে গয়না, পায়ের থাবা থেকে চাবির রিং। কুমিরের মাংসও বেশ সুস্বাদু ও পুষ্টিকর। তাই দেশে ও বিদেশে চাহিদা অনেক। এক কথায়, কুমিরের কোনো কিছুই ফেলনা নয়। কুমিরকে বলা হয় গোল্ড আয়রন অর্থাৎ সোনালি লোহা। দেশের একমাত্র সরকারি কুমির প্রজনন কেন্দ্র বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবনের করমজল। ২০০০ সালে করমজল বন্যপ্রাণী প্রজনন কেন্দ্র শুরু হওয়ার পর সেখানে কুমির প্রথম ডিম দেয় ২০০৫ সালে। এখন পর্যন্ত করমজলে বিভিন্ন সময় ২৯২টি কুমিরের ছানা জন্ম নিয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
Add img sm
Add img sm

আরও পড়ুন