সর্বশেষ সংবাদ ভোলাহাট ও নাচোলে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতন বিরোধী বিট পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোলে ভূমিহীনদের বন্দোবস্ত জমি ৩০ বছর ধরে ভূমিদস্যুদের দখলে:উল্টো হুমকি চাঁপাইনবাবগঞ্জে যৌতুকের টাকা না পেয়ে গৃহবধূর উপর নির্যাতন, কেটে নেয়া হয়েছে চুল চাঁপাইনবাবগঞ্জে নারী ধর্ষণ ও নির্যাতন বিরোধী বিট পুলিশিং সমাবেশ “নয়নশুকা নাইট টুর্নামেন্ট’র ফাইনাল অনুষ্ঠিত চাঁদলাই যুব সংঘ আয়োজিত নাইট মিনি ক্রিকেট টুর্নামেন্টের উদ্বোধন গোমস্তাপুরে ঐতিহ্যবাহী নৌকা বাইচ অনুষ্ঠিত ভোলাহাটে রিজভী-টুকুর রোগমুক্তি কামনায় দোয়া জিডিপির প্রবৃদ্ধিতে বিস্ময়ঃ ভারতকে পেছনে ফেলল বাংলাদেশ রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে সহায়তার অাহবান প্রধানমন্ত্রীর
Large Add

চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোলে ভূমিহীনদের বন্দোবস্ত জমি ৩০ বছর ধরে ভূমিদস্যুদের দখলে:উল্টো হুমকি

নাচোল (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধি:
চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোলে ৩০ বছর পূর্বে ভূমিহীনদের নামে বন্দোবস্ত দেয়া ৩০ বিঘা খাস জমি দখল দিচ্ছেনা দুই ভূমি দস্যু। উল্টো ভূমি দস্যুরা বন্দোবস্তের দলিল আটক করে বিভিন্ন হুমকী দিচ্ছে ওই ভূমিহীনদের, ফলে তারা জমি বন্দোবস্ত পেয়েও দখল নিতে পারছেনা। ভূমি দস্যুরা হলেন, উপজেলার সদর ইউনিয়নের ঝিকড়া গ্রামের মৃত রাব্বুল শেখের ছেলে আব্দুল আখের(৪০) ও আব্দুর রহিম(৫৫)।
এ ব্যাপারে প্রতিকার চেয়ে ঝিকড়া এলাকার ৯জন ভূমিহীন উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট আবেদন করেছেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাবিহা সুলতানা এ সংক্রান্ত একটি অভিযোগ পাবার কথা শিকার করেন।
অভিযোগ উঠেছে উপজেলার ঝিকড়া মৌজার প্রায় ৩০ বিঘা সরকারী খাস জমি সরকার ১৯৯০ সালে এলকার ভূমিহীন পরিবারের মাঝে বন্দোবস্ত প্রদান করেন। বন্দেবস্তের পর কিছু সংখ্যক ভূমিহীন পরিবার আংশিক জমি বুঝিয়ে পেয়েছেন। কিন্তু একই এলাকার ভূমিদস্যু ঝিকড়া গ্রামের মৃত রাব্বুল শেখের ছেলে আব্দুল আখের ও আব্দুর রহিম ভূমিহীনদের জমির খাজনার চেক কেটে দেওয়ার নাম করে মূল দলিল আটক করে রেখেছেন বলে ভূমিহীনরা অভিযোগ করে জানান।
ভূমি দস্যু আব্দুল আখের ও আব্দুর রহিম ভূমিহীন পরিবারকে বিভিন্ন ধরনের হুমকী দিয়ে বলছেন, জমি নিয়ে বেশী বাড়াবাড়ি করলে জমির কবুলিয়ত বাতিল করে ফেলবো।
নামো ঝিকড়া গ্রামের মৃত আয়েশ উদ্দিনের স্ত্রী ভূমিহীন নুরফা বেগম অভিযোগ করে জানান, তার নামে পাওয়া বন্দোবস্তকৃত জমি ভূমি দস্যুরা টাকার বিনিময়ে ওই জমিতে অন্যকে বাড়ি তৈরী করে দিয়েছেন বলে নুরফা বেওয়া অভিযোগ করেছেন ।
এছাড়া ৪৩১ নং দাগের ১.১০ (একর) বন্দোবস্তকৃত জমির প্রকৃত মালিক ঝিকড়া গ্রামের মৃত সৈয়ব আলীর ছেলে বরিজউদ্দিন, মৃত আদম আলীর ছেলে মোঃ ময়ান, তাহির উদ্দিন এবং ৮২ নং দাগের. ৪৩ একর জমি হাঁকরইল গ্রামের মৃত দাউদ আলীর ছেলে, মো.শফিকুল ইসলাম।
কিন্তু ভূমিদস্যু আব্দুল আখের ও আব্দুর রহিম এসব জমি অন্যের নিকট রাতারাতি মৌখিক ভাবে বিক্রী করে দখলদারকে বাড়িঘর নির্মান করাচ্ছেন।
এ বিষয়ে অভিযুক্ত আব্দুল আখের ও আব্দুর রহিমের সাথে মূঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তারা এ-অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, সরকারের কবুলিয়ত প্রাপ্তরা কবুলিয়তের নিদৃষ্ট মেয়াদ পূরণের আগেই শর্ত ভঙ্গ করে তারা বন্দোবস্ত জমি বিক্রী করেছেন। ফলে অনেকেই ওই জমিতে অন্য ভূমিহীনরা ঘরবাড়ি তৈরী করছে। আমরা এ কাজে কোন ভাবেই জড়িত ন’ই । এ বিষয়ে কবুলিয়ত প্রাপ্তরা বলেন সরকারের বন্দোবস্তকৃত জমি কোনভাবেই আমরা হস্তান্তর করিনাই, এটি সম্পূর্ন মিথ্যে কথা। তবে উপজেলা ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার মাহমুদুল হাসান বলেন, ঊপজেলা নির্বাহী অফিসারের নির্দেশ ক্রমে সরোজমিনে তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যাবস্থা নেয়া হবে। অপরদিকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাবিহা সুলতানা ভূমিদস্যুদের আবেদন পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিৎ করে জানান, শিঘ্রই ভূমিদস্যুদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
Add img sm
Add img sm

আরও পড়ুন